audio
কাইতাই শিনশো 解体新書 (পাশ্চাত্যের শারীরস্থানবিদ্যা গ্রন্থ) (Kaitai Shinsho 解体新書)
খ্যাতনামা জাপানি শিল্পকর্ম
15মি. 37সে.

সম্প্রচার তারিখঃ: 1 অক্টোবর, 2015
পর্যন্ত ব্যবহারযোগ্য 31 মার্চ, 2029

আমাদের এবারের কাহিনীর প্রেক্ষাপট বর্তমানে টোকিও নামে পরিচিত তৎকালীন জাপানের এদো অঞ্চলে, যেখানে ডাচ ভাষায় লেখা একটি বই একদল ডাক্তারের হাতে আসে। প্রাচীন চীনা চিকিৎসাবিজ্ঞান থেকে জাপানে প্রচলিত হওয়া চিরাচরিত ধারণার বিপরীতে এই বইটিতে থাকা মানবদেহের অভ্যন্তরভাগের বিবরণ ছিল পুরোপুরি আলাদা। বইটি পাঠ শেষে বিস্মিত ডাক্তারগণ নিজেরাই মানবদেহ ব্যবচ্ছেদ করে বইটিতে থাকা বিবরণ চাক্ষুষ মিলিয়ে নিশ্চিত হন। এরপর তারা ডাচ ভাষায় অনূদিত বইটি থেকে এটি জাপানি ভাষায় অনুবাদের সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন। পরবর্তী সময়ে তাদের একজন স্মৃতিকথায় সে সময়কে তুলনা করেন এভাবে, "এ কাজটা ছিল কোন প্রকার হাল-বৈঠা ছাড়াই সাগরে নৌকা ভাসিয়ে দেবার মত"। পাঁচ খণ্ডে লেখা 'কাইতাই শিনশো' অর্থাৎ 'অ্যানাটমি বা শারীর সংস্থান বিদ্যার নবগ্রন্থ' বইটি অনুবাদ করতে প্রায় সাড়ে তিন বছর সময় লেগে যায়। পাশ্চত্যের শারীর সংস্থান বিদ্যা নিয়ে লেখা এটাই জাপানে বহুল পঠিত প্রথম বই। যে সময়টাতে বাইরের পৃথিবীর সাথে জাপানের যোগাযোগ কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত ছিল, সে যুগে নতুন জ্ঞান আহরণের লক্ষ্যে ক'জন চিকিৎসকের ব্যাকুল সংগ্রাম তুলে ধরা হয়েছে এই প্রতিবেদনে। জাপান দেশটির দরজা বহির্বিশ্বের কাছে উন্মুক্ত করে দেওয়ারও প্রায় এক শতাব্দীকাল আগে এই বইটি অনুবাদ করা হয়েছিল।

photo