করোনাভাইরাস সম্পর্কিত প্রশ্নোত্তর

নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে আমাদের শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন এনএইচকে’র বিশেষজ্ঞরা।

প্রশ্ন-৫৩০: ওমিক্রনের এক্সবিবি.১.৫ উপধরন সম্পর্কে আমরা যা জানি (১) যুক্তরাষ্ট্রে দ্রুত বিস্তার

উত্তর-৫৩০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এক্সবিবি.১.৫ নামে অভিহিত ওমিক্রন ধরনের একটি নতুন স্ট্রেইন, ডিসেম্বরের শেষের দিক থেকে দ্রুত যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে ছড়িয়ে পড়ছে। বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন যে এটি করোনাভাইরাসের ধরনগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়া স্ট্রেইন হতে পারে। এক্সবিবি.১.৫ বিষয়ক আমাদের এই নতুন ধারাবাহিকের প্রথম পর্বে, কীভাবে উপধরনটি যুক্তরাষ্ট্র’সহ সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ছে, সেবিষয়ে আপনাদের অবহিত করা হবে।

এক্সবিবি.১.৫ এর উৎপত্তি এক্সবিবি থেকে, যা একটি তথাকথিত রিকম্বিন্যান্ট বা পুনর্গঠিত ভাইরাস এবং এটি ওমিক্রন বিএ.২ উপধরনের দুটি ভিন্ন ধরনের জিনগত তথ্য বহন করে। উল্লেখ্য, বিএ.২ ২০২২ সালের বসন্তকাল থেকে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে।

যুক্তরাষ্ট্রে ২০২২ সালের ডিসেম্বর মাস থেকে নিউইয়র্ক এবং অন্যান্য পূর্বাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্যগুলোতে করোনাভাইরাসের পরীক্ষায় ইতিবাচক ফল আসা ব্যক্তিদের মধ্যে এক্সবিবি.১.৫’এ সংক্রমিতদের হার বৃদ্ধি পেয়েছে। আর এখন এটি দেশটিতে প্রধান উপধরনে পরিণত হয়েছে। মার্কিন রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র জানিয়েছে যে, অনুমিত হিসেব অনুযায়ী গত ২১শে জানুয়ারি পর্যন্ত এক সপ্তাহে দেশটির মোট কোভিড সংক্রমণের ৪৯.১ শতাংশের জন্য দায়ী ছিল এই উপধরন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও’র ভাষ্যানুযায়ী, ১১ই জানুয়ারি পর্যন্ত, মোট ৩৮টি দেশ এক্সবিবি.১.৫’যুক্ত থাকা কোভিড-১৯ সংক্রমণের খবর জানিয়েছে। জাপানেও এই উপধরনে সংক্রমণের খবর জানা গেছে। এই উপধরন সংক্রান্ত উপাত্ত এখনও সীমিত থাকলেও, ১৯শে জানুয়ারি প্রকাশিত ডব্লিউএইচও’র একটি প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে যে ২০২২ সালের শেষ সপ্তাহে বিশ্বজুড়ে খবর পাওয়া কোভিড সংক্রমণের ৮.৩৬ শতাংশের জন্য এক্সবিবি উপধরন সার্বিকভাবে দায়ী ছিল।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ৩০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২৯: সংক্রমণের প্রথম ঘটনা নিশ্চিত হওয়ার পর ৩ বছর (৫) এরপর আমাদের কী ব্যবস্থা নেওয়া উচিত?

উত্তর-৫২৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে কোভিড-১৯এর প্রথম ঘটনা নিশ্চিত হওয়ার পর থেকে তিন বছর অতিবাহিত হয়েছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা ফিরে দেখার চেষ্টা করছি কীভাবে এই সময়ের মধ্যে বিবর্তিত হয়েছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। ধারাবাহিকের শেষ পর্বে এবারে আমরা করোনাভাইরাসকে কীভাবে নেওয়া উচিত এবং কেমন করে এর মোকাবিলা করা উচিত সেসম্পর্কে সরকারি উপদেষ্টা প্যানেলের প্রধান ওমি শিগেরু’র অভিমত জানবো।

ওমি বলেন, “কোভিড-১৯ হচ্ছে ১০০ বছরের মধ্যে একবার ঘটে, এমন এক সংক্রামক রোগ। ২০০৩ সালে সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটরি সিন্ড্রম বা সার্স নামের একটি রোগ সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়েছিল, যাকে একবিংশ শতাব্দীর প্রথম মহামারি বলে অভিহিত করা হয়। বলা হয়ে থাকে এই রোগ হচ্ছে গণস্বাস্থ্যের বিরুদ্ধে এক ভয়ানক হুমকি। তবু এই রোগকে কেবল ৬ মাসের মধ্যেই নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়। কিন্তু নতুন করোনাভাইরাস দেখা দেওয়ার তিন বছর পর আজও তা সক্রিয়ভাবে বিদ্যমান। শুধু তাই নয়, ভাইরাসটির এমন সব নতুন নতুন ধরন আবির্ভূত হয়েছে যেগুলো মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে এড়িয়ে যেতে পারে। কম বয়সী লোকেদের মধ্যে গুরুতর উপসর্গ দেখা দেয় কদাচিৎ, এটা একটা ভাল খবর ঠিকই, তবে কাউকে কাউকে এই ভাইরাসের দীর্ঘস্থায়ী পরবর্তী-প্রতিক্রিয়ায় ভুগতে দেখা যাচ্ছে। সরাসরি এই ভাইরাস থেকে গুরুতর নিউমোনিয়া হওয়ার ঘটনা কমে আসলেও, এই ভাইরাস হৃৎপিন্ড ও ধমনীর ক্ষতি করছে, এমন দৃষ্টান্তের সংখ্যা বাড়ছে”।

ওমি আরও বলেন, “আমাদের সবারই করোনাভাইরাসের বৈশিষ্ট্যগুলো পুরোপুরি বোঝার চেষ্টা করা উচিত এবং সেই জ্ঞানের ভিত্তিতে বিবেচনা করা উচিত মোকাবিলার জন্য কী ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। এক্ষেত্রে উপযুক্ত চিকিৎসা ব্যবস্থা বজায় রাখার পাশাপাশি অর্থনীতি ও সমাজকে সচল রাখাটাও গুরুত্বপূর্ণ। দু-দিক রক্ষার সর্বোত্তম উপায় খুঁজে বের করার জন্য আলোচনা ও বিতর্কের মাধ্যমে বিষয়টির গভীরে যেতে হবে আমাদের”।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২৮: সংক্রমণের প্রথম ঘটনা নিশ্চিত হওয়ার পর ৩ বছর (৪) গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো ২৪ ঘন্টা ধরে সমস্যা সামাল দিচ্ছে

উত্তর-৫২৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে কোভিড-১৯এর প্রথম ঘটনা নিশ্চিত হওয়ার পর থেকে তিন বছর অতিবাহিত হয়েছে। মহামারির শুরু থেকে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো সমস্যার সামাল দিয়ে এসেছে এবং পুরো সময় ধরে ভারী কাজের চাপের মুখে পড়ায় তারা ক্লান্ত হয়ে পড়েছে।

জাপান জুড়ে স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো মোট সংক্রমণের সংখ্যা গণনা করা, রোগীদের স্বাস্থ্য পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা এবং হাসপাতালে ভর্তির বিষয়টি সমন্বয় করে দেখার মতো বিভিন্ন কাজের সাথে জড়িত রয়েছে।

মহামারির শুরুতে টোকিওর কিতা ওয়ার্ডের এক কেন্দ্রের কর্মীরা শরীরে জ্বর এবং অন্যান্য উপসর্গ রয়েছে এমন রোগীকে টেলিফোনে পরামর্শ দেয়া, সংক্রমিত বলে সন্দেহ করা লোকজনের কাছ থেকে সংগ্রহ করা নমুনা বিভিন্ন স্থাপনায় বিতরণ করা সহ বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

সরকার সেপ্টেম্বর মাসে সংক্রমণের মোট সংখ্যা গণনার শর্তাবলী সহজ করে নেয় যার ফলে স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে কাজের পরিমাণ প্রায় ৭০ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। কর্মকর্তারা বলছেন এই পদক্ষেপের ফলে তাদের ওপর চাপ লাঘব হলেও অষ্টম তরঙ্গের সময় হাসপাতালে ভর্তির বিষয়টি সমন্বয় করা এবং বাড়িতে যেসব রোগীরা রয়েছেন তাদেরকে দেখতে যাওয়া বা টেলিফোন করার মতো কাজে তারা লিপ্ত ছিলেন। তাই তারা বলেন রোগীদের স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষণ করার দায়িত্ব তাদের জন্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। সোম থেকে শুক্রবারের পাশাপাশি সপ্তাহান্তেও কর্মীদের কাজ করতে হচ্ছে বলে তারা জানান।

ঐ স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি জানায় যে বিপুল সংখ্যক সংক্রমণের কারণে তারা এত বেশি চাপের মুখে ছিল যে তাদের পরিস্থিতিকে দায়িত্ব পালনের কারণে বিধ্বস্ত হিসাবে বর্ণনা করা যেতে পারে। কেন্দ্র আরও জানায় যে সেই ধরনের পরিস্থিতির মুখে তারা কাজের কিছুটা দায়িত্ব কয়েকটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানকে দিয়ে তাদের সাথে চুক্তিতে আবদ্ধ হয়েছিল এবং তারপরেই তারা লোকজনকে দক্ষতার সাথে কাজে লাগাতে পেরেছিল। গত তিন বছর ধরে কর্মীরা প্রায় ২৪ ঘন্টা ধরেই তাদের কাজ অব্যাহত রেখেছে জানিয়ে কেন্দ্র আরও বলে যে এছাড়া কোন বিকল্প নেই তবে পরিস্থিতি খুবই কঠিন বলে বর্ণনা করা যায়।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২৭: সংক্রমণের প্রথম ঘটনা নিশ্চিত হওয়ার পর ৩ বছর (৩) চাপের মুখে চিকিৎসা ব্যবস্থা

উত্তর-৫২৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে কোভিড-১৯এর প্রথম ঘটনা নিশ্চিত হওয়ার পর থেকে তিন বছর অতিবাহিত হয়েছে। মহামারির শুরু থেকে করোনাভাইরাস রোগীদের গ্রহণ করা বিভিন্ন হাসপাতালকে নতুন একটি সংক্রমণ তরঙ্গ এসে পড়ার পর প্রত্যেক বার চাপের মুখে পড়তে হয়েছে।

টোকিওর হাচিওজি শহরের মিনামিতামা হাসপাতাল ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ইয়োকোহামা বন্দরে একটি প্রমোদতরীতে গুচ্ছ সংক্রমণ চিহ্নিত হওয়ার সময় থেকে করোনাভাইরাস রোগীদের গ্রহণ করে আসছে।

তখন থেকে হাসপাতাল ২৩টি শয্যা, বা এর মোট ১৭০টি শয্যার মধ্যে ১৪ শতাংশ মাঝারি কিংবা হালকা থেকে মাঝারি পর্যায়ের কোভিড ঘটনার জন্য নির্ধারণ করে রাখে। এখন পর্যন্ত হাসপাতাল ১ হাজারের কাছাকাছি করোনাভাইরাস রোগীকে গ্রহণ করেছে।

গত বছরের শুরুর দিকে ওমিক্রন ধরণের সংক্রমণ বিস্তৃত হতে থাকা সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ থেকে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়া এবং মারাত্মক রকম অসুস্থ হয়ে পড়া রোগীর সংখ্যা হ্রাস পায়।

তবে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া কোভিড রোগীর সংখ্যা মোট শয্যার সর্বোচ্চ সীমা অতিক্রম করে গেলে চিকিৎসা ব্যবস্থার উপর চাপ তা সৃষ্টি করে এবং অন্য রোগীদের চিকিৎসা প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে।

বর্তমান অষ্টম তরঙ্গের সময় ডিসেম্বর মাস থেকে কোভিড রোগীর জন্য নির্ধারিত সব কয়টি শয্যা পূরণ হয়ে আছে। করোনাভাইরাস রোগীদের জন্য শয্যার ব্যবস্থা করে দিতে হাসপাতাল অন্যান্য ওয়ার্ডের অংশবিশেষ বন্ধ করে দিয়েছে।
কোভিড বহির্ভূত জরুরি রোগীদের গ্রহণ করা এটা কঠিন করে দেয়।
হাসপাতাল সাধারণত জরুরি সেবা যাদের দরকার সেরকম ৯০ শতাংশ রোগীকে গ্রহণ করলেও চলতি বছরের শুরু থেকে সেই হার প্রায় ৫০ শতাংশে হ্রাস পেয়েছে।

হাসপাতালের একজন কর্মকর্তা বলেছেন সংক্রমণের নতুন একটি তরঙ্গ আসার পর প্রতিবার চাপের মুখে পড়তে হওয়ায় কঠিন অবস্থা এখনও অব্যাহত আছে। কর্মকর্তা বলছেন সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ পদক্ষেপ গ্রহণ অব্যাহত রাখা হাসপাতালের দরকার হলেও আরও বেশি রোগী যেন গ্রহণ করা যায় সেজন্য সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রণ পদক্ষেপ বদল করে নেয়ার উপায়ও হাসপাতালকে খুঁজে দেখতে হবে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২৬: সংক্রমণের প্রথম ঘটনা নিশ্চিত হওয়ার পর ৩ বছর (২) নতুন ধরন এবং উপধরনের অব্যাহত আবির্ভাব

উত্তর-৫২৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে কোভিড-১৯ এর প্রথম সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়ার পর তিন বছর পার হয়েছে। এই তিন বছরে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন এবং উপধরন বার বার দেখা দিয়েছে।

জাপানে করোনাভাইরাসের স্ট্রেইনের যে ধরনটি প্রথম নিশ্চিত করা হয়েছিল সেটি ছিল চীনের উহানে মহামারি শুরুর প্রথম দিকে যে ভাইরাস সনাক্ত করা হয়েছিল সেটি। ২০২০ সালের বসন্তে এই ভাইরাসের বিভিন্ন ধরন দেখা দিতে শুরু করার পরে, এই ধরনটি ইউরোপে আধিপত্য বিস্তার করে এবং পরে জাপানেও ছড়িয়ে পড়ে।

২০২২ সালের প্রথমদিকে, ওমিক্রন ধরন জাপানে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে। যেহেতু এই ধরনটি অত্যন্ত সংক্রামক, তাই আগের চেয়েও অনেক বেশি লোক আক্রান্ত হন এবং সেইমতো মৃত্যুর সংখ্যাও বেড়ে যায়।

ওমিক্রনের বেশ কয়েকটি উপধরন ভাইরাসের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়ার সক্ষমতা বৃদ্ধির কারণে ইতোমধ্যেই আবির্ভূত হয়েছে। জাপানে চলমান মহামারির বর্তমান অষ্টম তরঙ্গের মধ্যে বিকিউ.১ উপধরন তাদের উপস্থিতি বাড়িয়ে চলেছে।

এক্সবিবি.১.৫ উপধরনটি ইতোমধ্যেই জাপানেও সনাক্ত করা হয়েছে। এই উপধরনটি বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে বিস্তার লাভ করছে এবং এটির এমনকি আরও বেশি সংক্রামক হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

একজন ভাইরাস বিশেষজ্ঞ এবং টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সায়েন্স ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক সাতো কেই বলেন, নতুন উপধরনগুলো টিকা নেয়ার মাধ্যমে বাড়ানো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে কৌশলে এড়িয়ে একের পর এক আবির্ভূত হচ্ছে।

সাতো বলেন, অন্য যেকোন স্ট্রেইনের তুলনায় এক্সবিবি উপধরনগুলোর বিরুদ্ধে এন্টিবডির নিষ্ক্রিয়করণ কম কার্যকর।

তিনি এও বলেন, তিনি অনুভব করছেন যে, করোনাভাইরাসের উপধরনগুলোর বিরুদ্ধে লড়াই এক নতুন পর্যায়ে প্রবেশ করেছে। তিনি আরও বলেন, এই মহামারির অবসান প্রত্যাশা করার পরিবর্তে এটিকে চলতে দেয়ার মতো পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করা এখন প্রয়োজন।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২৫: সংক্রমণের প্রথম ঘটনা নিশ্চিত হওয়ার পর ৩ বছর (১) করোনাভাইরাস সংক্রমণ এবং মৃত্যুর হার

উত্তর-৫২৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে কোভিড-১৯ এর প্রথম সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়ার পর তিন বছর পার হয়েছে। আমাদের সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে কিভাবে এই সময়কালের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরিবর্তন হয়েছে, আমরা তা পর্যালোচনা করব।

যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকাশ করা তথ্য অনুযায়ী, ২০শে জানুয়ারি পর্যন্ত, বিশ্বজুড়ে কোভিড-১৯ সংক্রমণের সংখ্যা ছিল প্রায় ৬৬ কোটি ৮০ লক্ষ এবং মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ৬০ লক্ষ ৭০ হাজার।

তিন বছর আগে ১৫ই জানুয়ারি জাপানে কোভিড-১৯’এর প্রথম সংক্রমণের খবর প্রকাশ করা হয়েছিল। জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ভাষ্যানুযায়ী, চলতি বছরের ২০শে জানুয়ারি পর্যন্ত, কোভিড-১৯ সংক্রমণের ক্রমবর্ধমান সংখ্যা ছিল প্রায় ৩ কোটি ২০ লক্ষ এবং এসময়ে ৬৪ হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়।

এদিকে, ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসে ওমিক্রন ধরন ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে বিশেষ করে, গত এক বছরে কোভিড-১৯ সংক্রমণের সংখ্যা ব্যাপক আকারে বৃদ্ধি পেয়েছে। গত বছরে হওয়া কোভিড-১৯ সংক্রমণের মোট সংখ্যা, গত তিন বছরের সংক্রমণের ক্রমবর্ধমান সংখ্যার প্রায় ৯৫ শতাংশ।

অন্যদিকে, চিকিৎসা ও টিকার উন্নয়নের কারণে গত তিন বছরে জাপানে কোভিড-১৯ রোগীদের মৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্যভাবে কমে এসেছে।

২০২০ সালের জানুয়ারি মাসে সংক্রমণের প্রথম তরঙ্গের সময় মৃত্যুর হার ৫.৩৪ শতাংশে উন্নীত হয়েছিল। আর ২০২২ সালের জানুয়ারিতে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ার পর, সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ থেকে চলমান অষ্টম তরঙ্গ পর্যন্ত মৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্যভাবে কমে ০.১ শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২৪: সংক্রামক রোগ আইনের আওতায় কোভিড-১৯ এর পুন:শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে বিতর্ক (৭) বিতর্ক থেকে কী ফল লাভ করা যেতে পারে?

উত্তর-৫২৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত আইনের অধীনে করোনাভাইরাসের শ্রেণীবিন্যাস পর্যালোচনার বিষয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে জাপানে। বিতর্কের কী ফল হতে পারে? এবারে এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজবো।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, শ্রেণীবিন্যাস পর্যালোচনা সংক্রান্ত আলোচনায় উপসংহারে পৌঁছানোর ব্যাপারে কোনও সুনির্দিষ্ট সময়সূচি স্থির করা হয়নি।

ভাইরাসে গুরুতর উপসর্গ দেখা দেওয়ার আশংকার মতো নানা বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের গবেষণার ভিত্তিতে, ধারনা করা হচ্ছে আরও সুনির্দিষ্ট কয়েকটি দিক নিয়ে আলোচনা হবে, যেমন চিকিৎসা খরচ সরকার বহন করবে কিনা ইত্যাদি। বর্তমানে কোভিড-১৯’কে দ্বিতীয় শ্রেণীভুক্ত রোগ হিসেবে গণ্য করা হয় এবং এর চিকিৎসা খরচের পুরোটা সরকারি কোষাগার থেকে দেওয়া হয়।

সম্পূর্ণ সরকারি অর্থে দেওয়া বিনামূল্যের টিকা অব্যাহত রাখা হবে কিনা, তা নিয়েও বিতর্ক হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

কোভিড-১৯’এর শ্রেণী পরিবর্তন করে একে পঞ্চম শ্রেণীভুক্ত রোগ হিসেবে গণ্য করতে হলে, বিষয়টি অবশ্যই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের কাছে উত্থাপন করতে হবে এবং মন্ত্রণালয়ের এ সংক্রান্ত অধ্যাদেশের সংশোধন করতে হবে।

কোভিড-১৯’কে যদি পঞ্চম শ্রেণীর রোগের তালিকাভুক্ত করা হয়ও, তবু এর চিকিৎসার সম্পূর্ণ খরচ সরকারি কোষাগার থেকে দেওয়ার ব্যবস্থাটি সরকার অব্যাহত রাখতে পারে।

আর যদি কোভিড-১৯’এর জন্য নতুন একটি শ্রেণী তৈরি করা হয়, সেক্ষেত্রে সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত আইনের সংশোধন আবশ্যক এবং তা নিয়ে সংসদে বিতর্ক বাধ্যতামূলক।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২৩: সংক্রামক রোগ আইনের আওতায় কোভিড-১৯ এর পুন:শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে বিতর্ক (৬) ওষুধ এবং চিকিৎসা সেবা

উত্তর-৫২৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত আইনের অধীনে করোনাভাইরাসের শ্রেণীবিন্যাস পর্যালোচনার বিষয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে জাপানে। এবারে আমরা জাপানে বর্তমানে কী ধরনের ওষুধ এবং চিকিৎসা সেবা পাওয়া যাচ্ছে এবং তার সাথে বিশেষজ্ঞদের জানানো উদ্বেগের ওপর আলোকপাত করব।


জাপানে গুরুতর উপসর্গ দেখা দেয়ার ঝুঁকি রয়েছে এমন রোগীদের চিকিৎসায় দুই ধরনের কোভিড-১৯ ওষুধ লাগেভরিও এবং প্যাক্সলোভিড ব্যবহার করা হয়েছে। নভেম্বর মাসে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় মুখে খাওয়ার ওষুধ যোকোভার জরুরি ব্যবহার অনুমোদন করে। ঝুঁকির মাত্রা যাই থাকুক না কেন সবধরনের রোগীর ক্ষেত্রে ব্যবহার করা সম্ভব জাপানে এটি হল প্রথম ওষুধ। জাপানি একটি ওষুধ নির্মাতা কোম্পানি শিওনোগি এই ওষুধটি উদ্ভাবন করেছে।

চিকিৎসা সেবার ক্ষেত্রে বলা যেতে পারে পর্যাপ্ত পরিমাণ সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপ নেয়া সম্ভব হলে জাপানে বর্তমানে যে কোন চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানই কোভিড-১৯ রোগীর চিকিৎসা করতে পারে। কোভিড রোগীর চিকিৎসা করা হাসপাতাল এবং ক্লিনিকের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।

এদিকে, কয়েকজন বিশেষজ্ঞ উদ্বেগ প্রকাশ করছেন। অক্টোবর মাসে তোহোকু বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ওশিতানি হিতোশি, কিয়োতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিশিউরা হিরোশি এবং অন্যান্য কয়েকজন গবেষক, করোনাভাইরাস মহামারির সম্ভাবনার ওপর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেলের কাছে এক প্রতিবেদন পেশ করেন। করোনাভাইরাসের নতুন ধরনের কারণে আকস্মিক ব্যাপক হারে সংক্রমণ বিস্তার লাভ করতে পারে বলে সতকর্তা অবলম্বন করে চলার জন্য তারা আহ্বান জানান। একই সাথে প্রত্যাশা অনুযায়ী টিকা কর্মসূচিতে অগ্রগতি না হলে মৃতের হার বা লোকজন গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার হার পুনরায় বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা নিয়েও তারা সতর্ক করে দেন।

বিশেষজ্ঞদের প্যানেলের নেতৃত্ব দেয়া ওয়াকিতা তাকাজি নভেম্বর মাসের ৩০ তারিখ সাংবাদিকদের বলেন কোভিড-১৯ আমাদের শরীরে কোন ধরনের সমস্যার সৃষ্টি করছে তার ওপর আমাদের ঘনিষ্ঠ নজর রাখতে হবে। ওয়াকিতা বলেন করোনাভাইরাস সংক্রমণে অতীতে শ্বাসপ্রশ্বাস জনিত সমস্যা বৃদ্ধি পাওয়ার প্রবণতা থাকলেও সম্প্রতি চিকিৎসকেরা কার্ডিওভাসকুলার বা হৃদরোগ জনিত জটিলতাই বেশি লক্ষ্য করছেন। এর অর্থ হল কোভিড সম্ভবত সংবহন সংক্রান্ত রোগ হয়ে উঠেছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২২: সংক্রামক রোগ আইনের আওতায় কোভিড-১৯ এর পুন:শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে বিতর্ক (৫) টিকাদানের হার

উত্তর-৫২২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত আইনের অধীনে করোনাভাইরাসের শ্রেণীবিন্যাস পর্যালোচনার বিষয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে জাপানে। ধারাবাহিকের এই পর্বে আমরা জাপানে টিকাদানের হারের ওপর আলোকপাত করব, পর্যালোচনার সময় যে বিষয়টি বিবেচনায় রাখার প্রয়োজন ছিল।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধ পদক্ষেপ বিষয়ক সরকারের সাবকমিটির প্রধান ওমি শিগেরু আভাস দিয়েছেন যে সামাজিক ও অর্থনৈতিক প্রচেষ্টাকে ক্ষতিগ্রস্ত না করে ভাইরাস প্রতিরোধ পদক্ষেপগুলো বাস্তবায়ন করা উচিত - এই পূর্বশর্তের আওতায় কোভিড-১৯ পুন:শ্রেণীবিন্যাসের জন্য কয়েকটি বিষয় প্রয়োজনীয়।
গত জুলাই মাসে এনএইচকে’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এই বিষয়গুলোর উল্লেখ করেছিলেন যার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে ব্যাপক হারে টিকাদান, নিম্ন মূল্যের সহজলভ্য ওষুধ এবং আরও অধিক সংখ্যক চিকিৎসা কেন্দ্র যাতে রোগীর চিকিৎসা করে।

প্রথমটি হলো টিকাদানের হার। জাপানের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ওয়েবসাইট অনুযায়ী ডিসেম্বর মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত দেশের জনসংখ্যার ৮১.৪ শতাংশ কোভিড-১৯ রোগের প্রথম টিকা, ৮০.৪ শতাংশ দ্বিতীয় টিকা এবং ৬৭.৫ শতাংশ তৃতীয় টিকা নিয়েছেন। তবে ওমিক্রন ধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকা নিয়েছেন মাত্র ৩০.৬ শতাংশ। এই টিকা নিতে যারা আগ্রহী বছরের শেষ পর্যন্ত সরকার তাদেরকে টিকা দেয়ার পরিকল্পনা করছে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২১: সংক্রামক রোগ আইনের আওতায় কোভিড-১৯ এর পুন:শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে বিতর্ক (৪) মৃত্যু হারে পরিবর্তন

উত্তর-৫২১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত আইনের অধীনে করোনাভাইরাসের শ্রেণীবিন্যাস পর্যালোচনার বিষয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে জাপানে। সংক্রমণের পুরো সময়টা জুড়ে মৃত্যু হার কিভাবে পরিবর্তিত হয়েছে সে ব্যাপারে ধারাবাহিকের এই পর্বে আমরা আলোকপাত করব, কেননা এটি সম্ভবত একটি প্রধান বিষয় যা এই আলোচনাকে প্রভাবিত করতে পারে।

২০২০ সালের জানুয়ারি মাসে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের প্রথম তরঙ্গের সময়ে যখন ভাইরাসটি প্রথম জাপানে সনাক্ত করা হয়, তখন মৃত্যু হার ছিল ৫.৩৪ শতাংশ। এই হার একই বছরের গ্রীষ্মে কমে ০.৯৩ শতাংশ হয়ে যায়, যখন সংক্রমণের দ্বিতীয় তরঙ্গ চলমান ছিল। আর এই হার অংশত কমে গিয়েছিল এই কারণে যে তখন কিভাবে মারাত্মক উপসর্গ থাকা রোগীদের চিকিৎসা করা হবে সেই বিষয়টিতে খানিকটা অগ্রগতি অর্জিত হয়েছিল।

তবে মৃত্যু হার আবার ২০২১ সালের প্রথমদিকে বেড়ে ১.৮২ শতাংশ হয়ে যায় তৃতীয় তরঙ্গ চলার সময়ে, কেননা তখন চিকিৎসা ব্যবস্থা ভাইরাসের দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার কারণে প্রচণ্ড চাপের মুখে ছিল। এরপর চতুর্থ তরঙ্গ চলাকালীন এই হার বেড়ে ১.৮৮ শতাংশে পৌঁছে যায় ২০২১ সালের বসন্তে, আলফা ধরনের বিস্তারের পর। উল্লেখ্য এই আলফা ধরনটিই হচ্ছে করোনাভাইরাসের প্রথম উল্লেখযোগ্য রূপান্তর। ২০২১ সালের গ্রীষ্মে ডেল্টা ধরন ছড়িয়ে পড়লে মৃত্যু হার কমে ০.৩২ শতাংশে পৌঁছে যায়। ফলে পঞ্চম তরঙ্গ দেখা দেয় কেননা মৃদু বা এমনকি কোন উপসর্গ না থাকা রোগীর সংখ্যা তখন বেড়ে যায়।

২০২২ সালের প্রথম দিকে অত্যন্ত সংক্রামক ওমিক্রন ধরনের বিস্তারের কারণে ষষ্ঠ তরঙ্গ দেখা দেয়া সত্ত্বেও মৃত্যু হার আরও কমে যায়। মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে গেলেও, মৃত্যু হার কমতে থাকে, কেননা সংক্রমিত লোকের সংখ্যা হঠাৎ করে নজীরবিহীন মাত্রায় পৌঁছে যায়।

ষষ্ঠ তরঙ্গের সময়ে মৃত্যু হার ছিল ০.১৭ শতাংশ। এই হার চলতি গ্রীষ্মে সপ্তম তরঙ্গ চলাকালীন আরও কমে গিয়ে ০.১১ শতাংশে দাঁড়ায়। যদিও মৃত্যু হার কমেছে, তবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চলতি বছরে মৃতের সংখ্যা রেকর্ড সর্বোচ্চ ৩১ হাজারে পৌঁছে যায় অত্যন্ত সংক্রামক ওমিক্রন ধরনের বিস্তারের কারণে। এই রেকর্ড সর্বোচ্চ মৃতের সংখ্যা করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় ৩ বছরে এই ভাইরাসে জাপানে মৃত্যুবরণ করা লোকের সংখ্যার ৬০ শতাংশে পৌঁছে যায়।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫২০: সংক্রামক রোগ আইনের আওতায় কোভিড-১৯ এর পুন:শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে বিতর্ক (৩) শ্রেণী-৫’এ পুন:শ্রেণীকরণের মাধ্যমে কী পরিবর্তন আনা যেতে পারে?

উত্তর-৫২০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত আইনের অধীনে করোনাভাইরাসের শ্রেণীবিন্যাস পর্যালোচনার বিষয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে জাপানে। বর্তমান শ্রেণীবিভাগটি সংশোধন করে একে শ্রেণী-৫’এ অন্তর্ভুক্ত করা হলে কী পরিবর্তন ঘটতে পারে, ধারাবাহিকের এই পর্বে আমরা তার ওপর আলোকপাত করব।

বর্তমানে, সংক্রামক রোগের চিকিৎসার জন্য মনোনীত চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোতেই কেবল করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তিদের আবাসিক রোগী হিসাবে ভর্তি করার অনুমোদন রয়েছে। তবে, কোভিড-১৯’কে যদি শ্রেণী-৫ হিসেবে পুনরায় শ্রেণীবদ্ধ করা হয়, তবে সাধারণ হাসপাতালগুলোও তাদের গ্রহণ করতে সক্ষম হবে। এর মাধ্যমে, করোনাভাইরাস রোগীদের জন্য হাসপাতালে নির্ধারিত শয্যার সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি ভবিষ্যতে সংক্রমণ আরও ছড়িয়ে পড়লে তা দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থার ওপর থেকে চাপ কমাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে, সংশ্লিষ্টদের মনে এমন উদ্বেগও রয়েছে যে পর্যাপ্ত সংক্রমণ-রোধী পদক্ষেপের স্বল্পতার মতো কারণে কিছু হাসপাতাল সম্ভবত কোভিড-১৯’এ আক্রান্ত রোগীদের গ্রহণ করতে সক্ষম নাও হতে পারে।

এছাড়া, চিকিৎসা ব্যয় নিয়েও অনেকে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। বর্তমানে, পরীক্ষা এবং হাসপাতালে ভর্তির খরচ সহ সমস্ত ব্যয় সরকার বহন করে থাকে। তবে, পুনঃশ্রেণীবিন্যাসের পরে, লোকজন চিকিৎসা ব্যয়ের একটি অংশ নিজেরা দিতে বাধ্য থাকবে কারণ তাদের জনস্বাস্থ্য বীমা আর এই খরচ বহন করবে না। এরফলে, কেউ কেউ চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার বিষয়টি স্থগিত রাখতে পারেন, যা রোগ নির্ণয়কে বিলম্বিত করতে পারে।

উপরন্তু, জনগণের কর্মকাণ্ডের ওপর আর কোনো বিধিনিষেধ আরোপ করা যাবে না। সরকারের সেক্ষেত্রে যা করার থাকবে, তা হচ্ছে, সংক্রমিত হলে যেন দায়িত্বশীলভাবে আচরণ করেন, লোকজনের কাছে সেই অনুরোধ জানানো।

জাপান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাহী বোর্ডের সদস্য কামাইয়াচি সাতোশির ভাষ্যানুযায়ী, সংক্রমণের সম্ভাবনা অনিশ্চিত রয়ে যাওয়াকালীন সরকারি ব্যয়ের তীব্র হ্রাসের পরিকল্পনার বিরোধীতা করেন তিনি। তিনি বলেন, শ্রেণী-৫’এ অন্তর্ভুক্তকরণের পরিবর্তে, পরিস্থিতি সামাল দিতে একটি নতুন পদক্ষেপ প্রণয়নে কাজ করাটা আরও বাঞ্ছনীয় হবে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১৯: সংক্রামক রোগ আইনের আওতায় কোভিড-১৯ এর পুন:শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে বিতর্ক (২) পুন:শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে এখন কেন ভাবনাচিন্তা?

উত্তর-৫১৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত আইনের অধীনে করোনাভাইরাসের শ্রেণীবিন্যাস পর্যালোচনার বিষয়ে বিতর্ক শুরু হয়েছে জাপানে। সামাজিক বিধিনিষেধের কড়াকড়ি এবং চিকিৎসা খরচের চাপ সহ কী কী পরিবর্তন এর ফলে হতে পারে? চলতি ধারাবাহিকে আমরা এর উত্তর জানার চেষ্টা করছি।

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে জাপান সরকার নতুন ইনফ্লুয়েঞ্জা সংক্রান্ত আইন সংশোধন করে এবং কোভিড -১৯’কে “ইনফ্লুয়েঞ্জা মহামারি’র (নতুন ইনফ্লুয়েঞ্জা বা পুনরায় দেখা দেওয়া ইনফ্লুয়েঞ্জা”) শ্রেণীভুক্ত করে। সংক্রামক রোগ আইনের অধীনে এই শ্রেণীটিকে গুরুতর উপসর্গ দেখা দেওয়ার ঝুঁকি এবং অন্যান্য খুঁটিনাটি দিক বিচার করে মোটামুটি ক্যাটিগরি দুইয়ের সমপর্যায়ের বলে গণ্য করা হয়। তবে ক্যাটিগরি দুইয়ের অন্তর্গত সংক্রামক রোগ থেকে যে দিকটি আলাদা, তা হলো কোভিড-১৯’এর ক্ষেত্রে লোকজনকে বাড়ি থেকে না বেরোনোর আহ্বান জানানো বা জরুরি অবস্থা ঘোষণা করার মতো সংক্রমণ-রোধী কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার অনুমতি সরকারকে দেওয়া হয়েছে।

এরপর আমরা দেখেছি জাপানে এবছর গোড়ার দিকে সংক্রমণের ষষ্ঠ ও সপ্তম তরঙ্গে প্রধানত যে উপধরনটির প্রকোপ ঘটেছিল, সেই ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে রোগীর গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ার হার কম। তাছাড়া জাপানে ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্যবস্তু করে বানানো নতুন টিকা দেওয়া শুরু হয়ে যায় লোকজনকে। এর ফলে সরকারের পক্ষে পরীক্ষায় পজিটিভ নির্ণয় হওয়া রোগীর বিচ্ছিন্ন থাকার মেয়াদ কমিয়ে আনা, করোনাভাইরাস সংক্রান্ত খবর প্রদান ব্যবস্থার সরলীকরণ এবং সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ শিথিল করার পথ প্রশস্ত হয়।

২রা ডিসেম্বর জাপানের সংসদে সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত আইনের আরেকটি সংশোধনী পাশ হয়েছে। সংশোধনীর এক অতিরিক্ত ধারায় সরকারকে এই আইনের অধীনে কোভিড-১৯’এর পুন:শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে অবিলম্বে আলোচনা শুরু করতে আহ্বান জানানো হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ঘোষণা করেছে যে তারা কোভিডের শ্রেণীবিন্যাস পর্যালোচনার জন্য আলোচনা করবে। মন্ত্রণালয় এই বলে আভাস দেয় যে তারা কোভিড’কে ক্যাটিগরি পাঁচ, অর্থাৎ মৌসুমী ইনফ্লুয়েঞ্জার সমপর্যায়ের শ্রেণীতে নামিয়ে আনার কথা বিবেচনা করছে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১৮: সংক্রামক রোগ আইনের আওতায় কোভিড-১৯ এর পুন:শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে বিতর্ক (১) শ্রেণীবিভাগ বিষয়ে

উত্তর-৫১৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ আইনের আওতায় করোনাভাইরাসের শ্রেণীবিন্যাস নিয়ে জাপানে বিতর্ক শুরু হয়েছে। এবারের ধারাবাহিকে আমরা সামাজিক নিষেধাজ্ঞা এবং চিকিৎসা ব্যয়ের বোঝা সহ কী ধরনের পরিবর্তন হতে পারে তার ওপর আলোকপাত করব।
রোগের সংক্রমণের মাত্রা এবং রোগী গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার কতটা ঝুঁকি সেই রোগ সৃষ্টি করতে পারে তার ওপর নির্ভর করে সংক্রামক রোগকে জাপানের আইন অনুযায়ী এক থেকে পাঁচটি বিভাগে শ্রেনীবদ্ধ করা হয়।

কেন্দ্রীয় এবং স্থানীয় সরকার কী ধরনের পদক্ষেপ নিতে পারে আইনে তা নির্ধারণ করা আছে।
প্রথম বিভাগের মধ্যে প্লেগ বা ইবোলার মতো জীবনের জন্য হুমকিস্বরূপ এমন এবং তার সাথে অত্যন্ত বিপজ্জনক রোগকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

দ্বিতীয় বিভাগে রয়েছে যক্ষা এবং সার্স বা গুরুতর তীব্র শ্বাসযন্ত্রীয় রোগলক্ষণসমষ্টির মতো রোগ যেগুলো অত্যন্ত সংক্রামক এবং গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকির মধ্যে মানুষকে ফেলে। বর্তমানে কোভিড-১৯কে দ্বিতীয় বিভাগের সমতুল্য বলে বিবেচনা করা হয়ে থাকে।

এই বিভাগের রোগে লোকজন সংক্রমিত হলে চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাদের মোট সংখ্যক রোগীর সংখ্যা স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে। স্থানীয় সরকার লোকজনকে তাদের কাজ সীমিত রাখার বা হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরামর্শ দিতে পারে। সরকারি তহবিল থেকে তাদের চিকিৎসা ব্যয় পুরোপুরি পরিশোধ করা হয়।

পঞ্চম বিভাগের আওতায় মৌসুমি ফ্লু এবং সিফিলিসের মতো রোগ অন্তর্ভুক্ত আছে। স্থানীয় সরকার সংক্রমিত লোকজনকে তাদের কাজ সীমিত করা বা হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার উপদেশ দিতে পারে না। এক্ষেত্রে চিকিৎসা ব্যয়ের এক অংশ রোগীকে পরিশোধ করতে হয়। সাধারণ চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান এই বিভাগের রোগে আক্রান্ত লোকজনকে ভর্তি করতে পারে। রোগে আক্রান্তের মোট সংখ্যা সব প্রতিষ্ঠানের জানানোর দরকার নেই। কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে কিনা তা রোগের ওপর নির্ভরশীল।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১৭: যোকোভার ফলপ্রসূতা ও বৈশিষ্ট্য (৭) নতুন জরুরি অনুমোদন ব্যবস্থার প্রয়োগ

উত্তর-৫১৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নভেম্বর মাসের ২২ তারিখে জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোভিড-১৯’এর নতুন খাওয়ার ওষুধ যোকোভা ব্যবহারের জরুরি অনুমোদন দিয়েছে। সর্বশেষ এই পর্বে আমরা নতুন অনুমোদন ব্যবস্থার ওপর নজর দেবো।

জাপানে নতুন কোনো ওষুধ কিংবা টিকার অনুমোদন হচ্ছে সময় সাপেক্ষ এক প্রক্রিয়া, পর্যালোচনা ও অনুমোদনের জন্য যেখানে সাধারণত এক বছর সময়ের দরকার হয়। বিশেষজ্ঞরা উল্লেখ করেছেন যে দীর্ঘ এই সময় হচ্ছে জাপানে টিকার অনুমোদন লাভ বিদেশের তুলনায় পিছিয়ে পড়ার প্রধান কারণ।

পরিস্থিতির উন্নতি করে নিতে জাপান সংক্রামক রোগ ছড়িয়ে পড়ার মতো জরুরি পরিস্থিতি দেখা দেয়া এবং চিকিৎসার জন্য বিকল্প কোন টিকা না থাকার শর্তের আওতায় প্রয়োগ করার জন্য নতুন একটি জরুরি অনুমোদন ব্যবস্থা ২০২২ সালের মে মাসে প্রবর্তন করে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে যে যোকোভার প্রয়োগ নতুন এই ব্যবস্থার আওতায় যাচাই করে দেখা দরকার। বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেল নতুন খাওয়ার ওষুধ পর্যালোচনা করে দেখেছে। তবে এর ফলপ্রসূতা নিয়ে সতর্ক আলোচনা চালানো দরকার উল্লেখ করে অনুমোদন দেয়া হবে কিনা সেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে বিশেষজ্ঞরা দুইবার ব্যর্থ হন। সবশেষে নভেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত তৃতীয় দফার আলোচনায় তারা ওষুধটি অনুমোদন করেন।

ওষুধের অনুমোদন ব্যবস্থা সম্পর্কে অবগত থাকা টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ওনো শুনসুকে বলেছেন, নতুন জরুরি অনুমোদন ব্যবস্থার অধীনে ফলপ্রসূতা ও নিরাপত্তা সম্পর্কে কতটা তথ্য প্রদান করা দরকার, বিশেষজ্ঞরা ও কর্তৃপক্ষ সমূহ তা নিয়ে সম্মত হতে পারে নি।

তিনি অনুভব করেছেন বিতর্ক দৃশ্যত ছিল বিভ্রান্তিকর এবং বিশেষজ্ঞদের মতামত মনে হয় ছিল রক্ষণশীল ও বিস্তারিত বিষয়াবলীতে আটকে থাকা। পর্যালোচনা প্রক্রিয়া শেষ পর্যন্ত আগের ব্যবস্থার আওতায় অনুসরণ করা প্রক্রিয়ার প্রায় কাছাকাছি হয়ে উঠায় “অনুমোদন কিভাবে তরান্বিত করা যায়” এবং “ওষুধ কিংবা চিকিৎসার ফলপ্রসূতা ও নিরাপত্তা কিভাবে নিশ্চিত করে নেয়া যায়” – এই দুই লক্ষ্যের মধ্যে ভারসাম্য গড়ে নেয়ার প্রয়োজনীয়্তার ওপর তিনি জোর দিয়েছেন।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১৬: যোকোভার ফলপ্রসূতা ও বৈশিষ্ট্য (৬) কোভিড-১৯’এর চিকিৎসার বিশেষজ্ঞদের মন্তব্য

উত্তর-৫১৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নভেম্বর মাসের ২২ তারিখে জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোভিড-১৯’এর নতুন একটি মুখে সেবনযোগ্য ওষুধ যোকোভা ব্যবহারের জরুরি অনুমোদন দিয়েছে। এবারের পর্বে, যোকোভার অনুমোদন থেকে আমরা কী প্রত্যাশা করতে পারি সে সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ মতামতের কথা আমরা আপনাদের জানাব।

আইচি চিকিৎসা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং কোভিড-১৯’এর চিকিৎসা বিষয়ে বিশেষজ্ঞ মোরিশিমা ৎসুনেও বলছেন, “যেহেতু এটা অনুমান করা কঠিন যে একজন সংক্রমিত ব্যক্তি কেবল মৃদু উপসর্গ সৃষ্টি করবে না মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়বে, তাই মারাত্মক উপসর্গ সৃষ্টির স্বল্প ঝুঁকি থাকা রোগীকে চিকিৎসার জন্য দিতে পারা যায় এমন ওষুধের জন্য প্রথম সারির স্বাস্থ্যসেবা কর্মীরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন”।

যোকোভার ফলপ্রসূতা নিয়ে তিনি বলেন, “ক্লিনিকাল পরীক্ষার ফলাফল থেকে দেখা যাচ্ছে যে, যোকোভা একদিনের মধ্যে কফ বা জ্বরের মতো উপসর্গগুলোকে বাড়িয়ে দেয়ার জন্য দরকারি সময়টাকে কমিয়ে দিতে পারে। এটি হচ্ছে ইনফ্লুয়েঞ্জা রোধী ওষুধের মতো একই পর্যায়ের কার্যকর এবং মনে করা হচ্ছে এটা যথেষ্ট। যেহেতু যোকোভা শরীরের মধ্যকার ভাইরাসের পরিমাণকে কমাতে পারে, তাই এটা আশা করা যায় যে এটি মারাত্মক উপসর্গগুলো দেখা দেয়াকে রোধ করবে। মারাত্মকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার উচ্চ ঝুঁকি থাকা অনেক লোক যেখানে থাকেন সেই নার্সিং হোম বা হাসপাতালে ব্যবহৃত যোকোভা উপসর্গগুলোর অবনতি রোধে, সংক্রমণের বিস্তার হ্রাসে এবং বিভিন্ন স্থাপনার কার্যক্রমজনিত ব্যর্থতা রোধে অবদান রাখতে সাহায্য করবে”।

উদ্ধার পাওয়া প্রসঙ্গে তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন, “বলা হচ্ছে যে উপসর্গ দেখা দেয়ার ৩ দিনের মধ্যে ওষুধ খাওয়া হলে, যোকোভা হবে সবচেয়ে ফলপ্রসূ। দ্রুত রোগ সনাক্তকরণে সক্ষম হওয়ার জন্য একটি কাঠামো গঠন এবং যাদের দরকার তাদের হাতে দ্রুত ওষুধ পৌঁছে দেয়ার জন্য জাতীয় এবং পৌর সরকারগুলোর জন্য গুরুত্বপূর্ণ। অপ্রত্যাশিত মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলে বা চিকিৎসা করতে না পারার মতো নতুন ধরনের ভাইরাস দেখা দেয় কিনা তা দেখার জন্য এই ওষুধের ব্যবহার বিস্তৃত হওয়ার পরেও পর্যবেক্ষণ অব্যাহত রাখাটাও প্রয়োজনীয়।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১৫: যোকোভার ফলপ্রসূতা ও বৈশিষ্ট্য (৫) অনুমোদনের পরে পদক্ষেপে পরিবর্তন?

উত্তর-৫১৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নভেম্বর মাসের ২২ তারিখে জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোভিড-১৯’এর নতুন একটি মুখে সেবনযোগ্য ওষুধ যোকোভা ব্যবহারের জরুরি অনুমোদন দিয়েছে।
এটি জাপানি কোনো ওষুধ কোম্পানির উদ্ভাবিত প্রথম মুখে সেবনের ওষুধ। যোকোভার এমন একটি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা এটিকে অন্যান্য ওষুধ থেকে আলাদা করে। আর তা হচ্ছে, এটি গুরুতর অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা না থাকা মৃদু উপসর্গযুক্ত রোগীরাও সেবন করতে পারেন। কীভাবে এই ওষুধের অনুমোদন ভাইরাসের বিরুদ্ধে আমাদের নেয়া পদক্ষেপগুলোকে পরিবর্তন করতে পারে, তার ওপর এবারে আমরা আলোচনা করব।

করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে শুরু করার পর প্রায় তিন বছর পার হয়েছে। মহামারির একেবারে শুরুর দিনগুলো থেকেই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে টিকা এবং ওষুধ দুটি প্রধান স্তম্ভ হিসাবে বিবেচিত হয়ে আসছে।

অনেক লোকই টিকা নিয়েছেন, তবে এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, সংক্রমিত ব্যক্তিদের মধ্যে ভাইরাসটিকে গুরুতর উপসর্গ সৃষ্টি করতে না দেয়া। অন্যদিকে, যে ওষুধগুলো সংক্রমণের প্রাথমিক পর্যায়ে ব্যবহার করা যেতে পারে, সেগুলো গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়া লোকজনের সংখ্যা কমাতে পারে।

আমাদের এখনও করোনাভাইরাসকে সাথে নিয়েই বসবাস করতে হবে বিধায় সহজে ব্যবহার করতে পারা যায় বলে বলা হয়ে থাকা মুখে সেবনযোগ্য ওষুধের প্রাপ্যতা অপরিহার্য।

তবে, এমনকি টিকা এবং অপেক্ষাকৃত সহজে ব্যবহারযোগ্য ওষুধ উভয়ই আমাদের নাগালের মধ্যে থাকলেও, তার মানে এই নয় যে আক্রান্ত হলে কারো দেহে গুরুতর উপসর্গ দেখা দিবে না। তাই, প্রয়োজন মনে হলে আমাদেরকে মাস্ক পরিধানের পাশাপাশি ভিড় এবং আবদ্ধ স্থান এড়িয়ে চলার মতো পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। এছাড়া, তারা টিকা নেয়ার গুরুত্বের ওপরও জোর দিচ্ছেন।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১৪: যোকোভার ফলপ্রসূতা ও বৈশিষ্ট্য (৪) কবে থেকে লভ্য হবে যোকোভা?

উত্তর-৫১৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোভিড-১৯’এর নতুন একটি খাওয়ার ওষুধের জরুরি ভিত্তিতে অনুমোদন দিয়েছে। যোকোভা ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয় ২২শে নভেম্বর। এবারে আমরা চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে এই ওষুধ বিতরণের সময়সূচি সম্পর্কে জানবো।

যোকোভা উন্নয়নকারী জাপানি ওষুধ প্রস্তুতকারক শিওনোগি’র সাথে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাক্ষরিত চুক্তিতে ১০ লক্ষ রোগীর চিকিৎসা করার মতো পর্যাপ্ত ওষুধ নিশ্চিত করার কথা বলা হয়। মূলত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোতে ডিসেম্বর মাসের গোড়ার দিকে এই ওষুধের ব্যাপক বিতরণ আরম্ভের কথা ভাবলেও, দিনটি এগিয়ে এনে ২৮শে নভেম্বরই তা শুরু করে।

তবে অন্তঃস্বত্ত্বা নারী বা যে নারী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে থাকতে পারেন, তাদের এই ওষুধ দেওয়া যাবে না। কিছু নির্দিষ্ট ধরনের ওষুধ সেবনকারী রোগীরাও কোভিড-১৯’এর এই বড়ি সেবনের অনুমতি নাও পেতে পারেন। যেহেতু বাধানিষেধ আছে তাই মন্ত্রণালয় নিরাপত্তার খাতিরে প্রথম সপ্তাহ দুয়েক এই ওষুধের বিতরণ কেবলমাত্র সেইসব চিকিৎসা কেন্দ্র এবং ওষুধের দোকানের মধ্যে সীমিত রাখে যারা মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারক ফাইজারের তৈরি করা কোভিড-১৯’এর খাওয়ার ওষুধ প্যাক্সলোভিডের প্রেসক্রিপশন করেছে রোগীদের জন্য। এই ওষুধ এবং যোকোভা একই ভাবে কাজ করে।

মন্ত্রণালয় জানায়, এই সময়সীমা পেরিয়ে যাওয়ার পরে যোকোভা সরবরাহের ওপর নির্দিষ্ট কোনো শর্ত আরোপিত থাকবে না। মন্ত্রণালয় একটি ব্যবস্থা গড়ে তুলবে যার অধীনে জেলা সরকারের চিহ্ণিত চিকিৎসা কেন্দ্র এবং ওষুধের দোকান থেকে রোগীরা এই ওষুধ পাবেন। মন্ত্রণালয় জানায়, চিহ্নিত চিকিৎসা কেন্দ্র এবং ওষুধের দোকানের তালিকা স্থানীয় সরকার ও অন্যান্যদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১৩: যোকোভার ফলপ্রসূতা ও বৈশিষ্ট্য (৩) ওষুধটি কিভাবে কাজ করে?

উত্তর-৫১৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নভেম্বর মাসের ২২ তারিখে জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোভিড-১৯এর নতুন একটি খাওয়ার ওষুধ যোকোভা ব্যবহারের জরুরি অনুমোদন দিয়েছে। যোকোভা কিভাবে কাজ করে এবারে আমরা তার ওপর আলোকপাত করবো।

রোগী করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হলে তার কোষের ভিতর প্রবেশের মাধ্যমে ভাইরাসটি বেড়ে ওঠে এবং তার আরএনএ জিনোমের প্রতিলিপি তৈরি করে। নতুন এই খাওয়ার ওষুধ যোকোভা ভাইরাসের প্রতিলিপি করার জন্য অপরিহার্য এক এনজাইম বা উৎসেচকের ব্যবহার বন্ধ করার মাধ্যমে সেই প্রক্রিয়া আটকে রাখে।

মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজার উদ্ভাবন করা খাওয়ার ওষুধ প্যাক্সলোভিডের মতো একই ভাবে এই প্রক্রিয়া কাজ করে। মানবদেহে চালানো পরীক্ষায় অংশ নেয়া লোকজনকে দিনে একবার করে পাঁচ দিন ধরে এই ওষুধ দেয়া হয়েছিল। চতুর্থ দিনে ভাইরাসের পরিমাণ প্রাথমিক সংখ্যার ত্রিশ ভাগের এক ভাগে নেমে আসে এবং গুরুতর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও দেখতে পাওয়া যায়নি।

ভাইরাসের অন্যান্য উপধরনের সাথে সুপ্ত হয়ে থাকা ওমিক্রনের বিএ.৫ উপধরনের জন্য যোকোভা খুবই কার্যকর বলে দেখা গেছে।

এদিকে, প্রাণীদের মধ্যে চালানো পরীক্ষায় দেখা গেছে যে যোকোভা ভ্রূণের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে যার ফলে অন্তঃসত্ত্বা নারী এবং যাদের অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তারা এই ওষুধ গ্রহণ করতে পারবে না। অন্যান্য ওষুধের সাথে এটি নিলে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে বলে দীর্ঘস্থায়ী রোগ যাদের আছে তাদের ক্ষেত্রেও এই ওষুধ নেয়ার সময় সতর্কতা অবলম্বন করার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আহ্বান জানাচ্ছে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১২: যোকোভার ফলপ্রসূতা ও বৈশিষ্ট্য (২) ওষুধের ফলপ্রসূতা

উত্তর-৫১২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নভেম্বর মাসের ২২ তারিখে জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোভিড-১৯এর নতুন একটি খাওয়ার ওষুধ যোকোভা ব্যবহারের জরুরি অনুমোদন দিয়েছে। এটা উল্লেখযোগ্য যে এই ওষুধ মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি যাদের কম, সেরকম হালকা উপসর্গ দেখা দেয়া রোগীদের জন্যেও ব্যবহার করা যেতে পারে। এটা হচ্ছে জাপানের একটি ওষুধ কোম্পানির তৈরি প্রথম খাওয়ার ওষুধ। কোভিড-১৯এর সাথে সম্পর্কিত উপসর্গের চিকিৎসায় যোকোভা কতটা কার্যকর তার ওপর এবারে আমরা আলোকপাত করবো।

ওষুধ কোম্পানি শিওনোগি সেপ্টেম্বর মাসের শেষ দিকে ঘোষণা করেছে যে ক্লিনিকাল পরীক্ষার শেষ পর্যায়ে যোকোভার ফলপ্রসূতা নিশ্চিত করা হয়েছে। কোম্পানি বলছে রোগীর জ্বর হওয়ার অভিজ্ঞতার মতো উপসর্গের সময় সংক্ষিপ্ত করে দিয়ে কোভিড-সম্পর্কিত উপসর্গের উপশম করে নিতে ওষুধটি কার্যকর।

এ বছর ফেব্রুয়ারি মাস থেকে জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত কোম্পানি জাপান ও অন্য দুটি দেশে ক্লিনিকাল পরীক্ষা চালায়। মারাত্মক অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি যাদের কম এবং টিকা যারা নিয়েছেন - তারা সহ হালকা থেকে মাঝারি উপসর্গ দেখা দেয়া ১২ বছর থেকে শুরু করে ৬০এর ঘরে বয়সের ১৮২১ জন পরীক্ষায় জড়িত ছিলেন।

রোগীর একটি দল কাশি, গলা ব্যাথা, সর্দি ও নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া, দুর্বলতা, জ্বর ও জ্বর অনুভব করা – ওমিক্রন ধরনের এরকম পাঁচটি বৈশিষ্ট্যের সব কয়টি দেখা দেয়ার তিন দিনের মধ্যে যোকোভা সেবন করতে শুরু করলে সাত দিনের দিকে এসব উপসর্গের সবগুলোই দূর হয়ে যায়; যার অর্থ হচ্ছে রোগীর উপসর্গে ভুগতে থাকার সময় ২৪ ঘণ্টা হ্রাস পায়।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১১: যোকোভার ফলপ্রসূতা ও বৈশিষ্ট্য (১) যোকোভা কী?

উত্তর-৫১১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নভেম্বর মাসের ২২ তারিখে জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোভিড-১৯’এর নতুন একটি খাওয়ার ওষুধ যোকোভা ব্যবহারের জরুরি অনুমোদন দিয়েছে। এই ধারাবাহিকে, আমরা যোকোভা’র বৈশিষ্ট্য এবং ফলপ্রসূতার ওপর আলোকপাত করবো।

যোকোভা হচ্ছে কোভিড-১৯’এর একটি খাওয়ার ওষুধ যেটি উদ্ভাবন করেছে জাপানি ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি শিওনোগি। এটি মৃদু উপসর্গ থাকা রোগীদের চিকিৎসায় ব্যবহার করা যেতে পারে। আগের কোভিড-১৯’এর ওষুধগুলো ছিল সেইসব রোগীদের জন্য যারা মারাত্মকভাবে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে থাকেন, কিন্তু যোকোভা এমনকি সামান্য ঝুঁকিতে থাকা রোগীরাও ব্যবহার করতে পারবেন।

জাপান এখন পর্যন্ত খাওয়ার বড়ি এবং শিরার মধ্যে প্রবেশ করানো ওষুধ’সহ কোভিড-১৯’এর ৯টি ওষুধের অনুমোদন দিয়েছে। এগুলোর মধ্যে কয়েকটি মৃদু থেকে মাঝারি মাত্রা পর্যন্ত উপসর্গ থাকা রোগীদের চিকিৎসায়ও ব্যবহার করা যায়, তবে ডায়াবেটিস, শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত রোগ এবং অতিশয় স্থূলতার মতো মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়ার উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা রোগীদের ক্ষেত্রে এগুলোর ব্যবহার সীমিত ছিল। মারাত্মক অসুস্থ হওয়ার কম ঝুঁকিতে থাকা লোকজনের ওপর কোন ক্লিনিকাল পরীক্ষা চালানো হয়নি এবং তাছাড়া ওষুধের সরবরাহও সীমিত।

যোকোভা হয়তো ব্যাপকভাবে ব্যবহার করা যেতে পারে, অনেকটা মৌসুমী জ্বরের চিকিৎসায় ব্যবহৃত তামিফ্লু’র মতো। এই ওষুধটি মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়ার তেমন একটা ঝুঁকিতে না থাকা লোকজন’সহ ১২ বা তদুর্ধ্ব বয়সীদের চিকিৎসায়ও ব্যবহার করা যেতে পারে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেল যোকোভা’র ব্যবহারের অনুমোদন নভেম্বর মাসের ২২ তারিখে দিয়েছে। প্যানেলটি মূল্যায়ন করেছে যে, ওষুধটি ফলপ্রসূ বলে অনুমান করা হচ্ছে, কেননা ক্লিনিকাল উপাত্ত থেকে দেখা যে, এই পিল জ্বর এবং অন্যান্য করোনাভাইরাসের উপসর্গের ক্ষেত্রে কার্যকর। যোকোভা হচ্ছে জাপানে অনুমোদিত অভ্যন্তরীণভাবে উৎপাদিত প্রথম কোভিড-১৯’এর ওষুধ। আশা করা হচ্ছে যে, যোকোভা’র অনুমোদন চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে কোভিডের চিকিৎসায় ওষুধের একটি স্থিতিশীল সরবরাহের প্রসারে নেতৃত্ব দেবে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫১০: অষ্টম তরঙ্গের চূড়ান্ত পর্যায় (৭) সংক্রমণের বিস্তার রোধ করা

উত্তর-৫১০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে নতুন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার সংখ্যা ইদানিং আবারও বেড়ে চলেছে। জাপানে কি তাহলে ইতোমধ্যেই অষ্টম তরঙ্গ শুরু হয়ে গেছে? চলতি ধারাবাহিকে, সংক্রমণের ভবিষ্যৎ গতিপ্রকৃতির পাশাপাশি সংক্রমণ প্রতিরোধে যে উপায়গুলো আমরা গ্রহণ করতে পারি, তার ওপর আলোকপাত করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেল, করোনাভাইরাস টিকার প্রথম দুটি ডোজ গ্রহণ করা ১২ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সী ব্যক্তিদের প্রতি এই আহ্বান জানিয়েছে যে, তারা যেন চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোর চাপে পড়া এড়াতে বছরের শেষ নাগাদ ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে টিকা গ্রহণ করেন।

প্যানেলটি ছোট শিশুদের পাশাপাশি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়া শিশুদেরও টিকা দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছে৷

টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি হসপিটালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুও’র ভাষ্যানুযায়ী, কিছু লোক এটি ভাবতে পারেন যে টিকাদানের কোনো কার্যকারিতা নেই কারণ ভাইরাসের নতুন ধরনগুলো রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে এড়িয়ে যেতে পারে বলে বলা হয়ে থাকে। তবে, বিষয়টি সত্যি নয়।

হামাদার ভাষ্যমতে, ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে তৈরি টিকাগুলো বিকিউ.১ এবং এক্সবিবি উপধরনের বিরুদ্ধেও কার্যকর হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, যা আসন্ন মাসগুলোতে ছড়িয়ে পড়তে পারে। শীতকালে অষ্টম তরঙ্গের জন্য প্রস্তুত হতে, তিনি বছরের শেষ নাগাদ লোকজনকে টিকা গ্রহণের জন্য আহ্বান জানান।

হামাদা এই পরামর্শও দিচ্ছেন যে মুখের মাস্ক পরিধান, হাত ধোয়া এবং ভিড়ের জায়গা এড়িয়ে যাওয়ার মতো প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেয়ার কাজটি লোকজনের চালিয়ে যাওয়া উচিত।

অধ্যাপক হামাদা এটিও বলছেন যে বছরের সমাপ্তি এবং নববর্ষ উদযাপনের জন্য অনেক লোক বিভিন্ন পার্টিতে অংশগ্রহণ করেন বা তাদের নিজ শহরে যান। তবে, সংক্রমণ পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে তাদের এসব পরিকল্পনা বাতিল করতে হতে পারে। তিনি বলেন, পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা এবং সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়া গুরুত্বপূর্ণ।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০৯: অষ্টম তরঙ্গের চূড়ান্ত পর্যায় (৬) ইনফ্লুয়েঞ্জা ও করোনা সংক্রমণের যুগপৎ প্রাদুর্ভাব

উত্তর-৫০৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার সংখ্যা ইদানিং বাড়ছে আবার। জাপান কি তাহলে অষ্টম তরঙ্গের মধ্যে দিয়ে চলছে? সংক্রমণের ভবিষ্যৎ গতিপ্রকৃতি এবং সংক্রমণ প্রতিরোধের উপায় নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে চলতি ধারাবাহিকে।

বিশেষজ্ঞদের মধ্যে কেউ কেউ মনে করছেন শীতকাল এগিয়ে আসার এই সময়ে করোনাভাইরাস ও ইনফ্লুয়েঞ্জা, এ দুয়ের যুগপৎ প্রাদুর্ভাব ঘটতে পারে এবং এর জন্যে প্রস্তুতি নিয়ে রাখা উচিত।

বর্তমানে জাপানে ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগীর সংখ্যা প্রাক্‌-মহামারি মাত্রার তুলনায় কম। দেশজুড়ে ইনফ্লুয়েঞ্জার প্রাদুর্ভাব শুরু হয়েছে --- একথা তখনই বলা হয় যখন চিহ্নিত চিকিৎসা কেন্দ্রগুলো তাদের কাছে সপ্তাহে গড়ে একাধিক রোগীর আগমনের সংবাদ দেয়। ২০শে নভেম্বর পর্যন্ত সপ্তাহে এই সংখ্যাটি ছিল ০ দশমিক ১১।

দক্ষিণ গোলার্ধের দেশ অস্ট্রেলিয়াতে এবছর শীতের মাস মে এবং জুনে ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছিল।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানাচ্ছে, বিগত কয়েক সপ্তাহে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডাতে ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। সংস্থাটি এও জানায় যে, ইউরোপে এই সংখ্যা এখনও কম, তবে সেখানেও ঊর্ধমুখী প্রবণতা পরিলক্ষিত হচ্ছে।

কিয়োতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিশিউরা হিরোশি বলেন, এখন জাপানে ইনফ্লুয়েঞ্জা বিস্তার লাভ করছে খুব মন্থর গতিতে এবং দেখেশুনে মনে হচ্ছে শীতের ছুটির পরে যখন স্কুল খুলবে, খুব তাড়াতাড়ি হলেও সেই সময় নাগাদ হয়তো ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগীর সংখ্যা শিখরে পৌঁছাবে। অধ্যাপক নিশিউরা বলেন, তাই করোনাভাইরাসের অষ্টম তরঙ্গে সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা এবং ইনফ্লুয়েঞ্জায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা একসাথে একই সময়ে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছাবে বলে তিনি মনে করেন না।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০৮: অষ্টম তরঙ্গের চূড়ান্ত পর্যায় (৫) বর্ষশেষ এবং নববর্ষের ছুটির সময় সম্ভাব্য প্রাদুর্ভাব

উত্তর-৫০৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের নতুন সংক্রমণের ঘটনা সম্প্রতি বৃদ্ধি পাচ্ছে। জাপানে ইতোমধ্যে সংক্রমণের অষ্টম তরঙ্গ চলছে কি? এই ধারাবাহিকে, সংক্রমণের ভবিষ্যৎ গতিপ্রকৃতি এবং কোন্‌ ধরনের প্রতিরোধ পদক্ষেপ আমাদের পক্ষে নেয়া সম্ভব তার ওপর আমরা আলোকপাত করবো।

বর্ষশেষ এবং নববর্ষের ছুটি এগিয়ে আসায় ধারণা করা হচ্ছে যে লোকজনের জন্য তা একে অন্যের সাথে মেশার অনেক বেশি সুযোগ করে দেবে।
জাপান বর্তমানে তার সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ পদক্ষেপ শিথিল করে দেয়ায় টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি হসপিটালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুও বিদেশে সংক্রমণ পরিস্থিতির দিকে নজর রাখার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন।

নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে শুধুমাত্র জাপানেই নয় বরং দক্ষিণ কোরিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং মালয়েশিয়া সহ পূর্ব ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে। বর্তমানে কাতারে চলতে থাকা বিশ্বকাপের প্রভাব পড়ার পাশাপাশি নভেম্বর মাসের শেষ নাগাদ থ্যাংকসগিভিং উদ্‌যাপন করা যুক্তরাষ্ট্রে সংক্রমণ পুনরায় বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে হামাদা সতর্ক করে দেন।

হামাদা বলেন অতীতে থ্যাংকসগিভিং ডে, যখন অনেকগুলো পরিবার সমবেত হয়ে একসাথে পানাহার করে, তার আশেপাশে যুক্তরাষ্ট্রে সংক্রমণের নতুন ঘটনা বৃদ্ধি পেতে দেখা যায়। বিশ্বকাপ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রায় ১২ লক্ষ মানুষকে কাতারের দিকে আকৃষ্ট করবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। টোকিও বা বেইজিংয়ে অনুষ্ঠিত অলিম্পিক এবং প্যারালিম্পিক গেমসের তুলনায় বিধিনিষেধ অনেক বেশি শিথিল করে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তিনি বলেন বিশ্বকাপ চলাকালে সংক্রমণ বিস্তার লাভ করতে পারে। হামাদা আরও বলেন ফুটবলের ভক্তরা সেখানে সংক্রমিত হয়ে তাদের নিজেদের দেশে ফিরে গিয়ে সেখানকার লোকজনের মধ্যেও রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার সম্ভাবনাকে তিনি উড়িয়ে দিতে পারেন না।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০৭: অষ্টম তরঙ্গের চূড়ান্ত পর্যায় (৪) কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার দেয়া পূর্বাভাস

উত্তর-৫০৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের নতুন ঘটনা সম্প্রতি বৃদ্ধি পাচ্ছে। জাপানে ইতোমধ্যে সংক্রমণের অষ্টম তরঙ্গ চলছে কি? এই ধারাবাহিকে, সংক্রমণের ভবিষ্যৎ গতিপ্রকৃতি এবং কোন্‌ ধরনের প্রতিরোধ পদক্ষেপ আমাদের পক্ষে নেয়া সম্ভব তার ওপর আমরা আলোকপাত করবো।

নাগোইয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলোজির অধ্যাপক হিরাতা আকিমাসা এবং তার দল ভাইরাসের বিকিউ.১ ও অন্যান্য নতুন কয়েকটি ধরন বিস্তৃত হবে ধরে নিয়ে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে সংক্রমণের ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা নিয়ে পূর্বাভাস দিয়েছে। টিকার কার্যকারিতা এবং মানুষের চলাচলের উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে পূর্বাভাস প্রদান করা হয়।

এরকম যখন ধরে নেয়া হয় যে বিকিউ.১ ও নতুন অন্যান্য কয়েকটি ধরন সংক্রমণ ক্ষমতার দিক থেকে বিএ.৫ ধরনের চাইতে ২০ শতাংশ বেশি শক্তিশালী এবং অতীতের সংক্রমণ থেকে লাভ করা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নতুন ধরনের বিরুদ্ধে কাজ করে না, সেরকম অবস্থায় টোকিওতে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে দৈনিক নতুন সংক্রমণের সাপ্তাহিক গড় হিসাব করা হয়েছে ৩০ হাজারের কাছাকাছি এবং মধ্য জানুয়ারিতে সেটা প্রায় ৩৬ হাজারে উন্নীত হয়ে সপ্তম তরঙ্গের শীর্ষ অবস্থানকে ছাড়িয়ে যাবে। সেরকম এক পরিস্থিতির আলোকে মধ্য জানুয়ারি থেকে ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুর দিক পর্যন্ত টোকিওতে প্রতিদিন মৃত্যুর সংখ্যা হবে ২০জন কিংবা বেশি।

বিকিউ.১ ও অন্য কয়েকটি নতুন ধরন আগের স্ট্রেইনগুলোর মতো একই রকম সংক্রামক হলে এবং অতীতের সংক্রমণ থেকে লাভ করা রোগ প্রতিরোধ সক্ষমতা এদের বিরুদ্ধে কোন এক মাত্রা পর্যন্ত কার্যকর হলে জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময়ে টোকিওতে নতুন সংক্রমণ ২৫ হাজারের মতো শীর্ষে উন্নীত হবে।

অধ্যাপক হিরাতা বলছেন বিকিউ.১ ও ভাইরাসের অন্য নতুন ধরনের সম্ভাব্য প্রভাব বিবেচনা করে দেখলে নতুন ঘটনা হয়তো অল্প সময়ের মধ্যে বৃদ্ধি পেতে শুরু করবে। তিনি বলছেন সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড এখন ফিরে আসায় এবং তাপমাত্রা হ্রাস পেতে থাকায় সংক্রমণের সংখ্যা নিচের দিকে ঠেলে দিতে সাহায্য করার মতো কোন উপাদান এখন কার্যত নেই। তিনি উল্লেখ করেছেন যে নতুন ধরন উচ্চ মাত্রার সংক্রামক হলে এবং রোগ প্রতিরোধ সক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়া সেটা গ্রহণ করলে বছরের শেষ দিকে নতুন ঘটনার সংখ্যা যথেষ্ট দ্রুত গতিতে বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে খুবই বেশি।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ৩০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০৬: অষ্টম তরঙ্গের চূড়ান্ত পর্যায় (৩) করোনাভাইরাসের নতুন উপধরন

উত্তর-৫০৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে সম্প্রতি করোনাভাইরাসের নতুন সংক্রমণের ঘটনা আবার বেড়ে চলেছে। জাপান কি তাহলে ইতোমধ্যেই সংক্রমণের অষ্টম তরঙ্গ প্রত্যক্ষ করছে? এই ধারাবাহিকে, সংক্রমণের ভবিষ্যৎ গতিপ্রকৃতি এবং সংক্রমণ রোধে ঠিক কোন্‌ কোন্‌ পদক্ষেপ আমরা গ্রহণ করতে পারি, সেবিষয়ে নানা তথ্য তুলে ধরা হবে।

বিকিউ.১’এর মতো ওমিক্রনের উপধরনগুলোর সম্ভাব্য বিস্তার হচ্ছে একটি প্রধান উদ্বেগ। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এইসব উপধরনের পূর্ববর্তী সংক্রমণ এবং টিকা গ্রহণের মাধ্যমে পাওয়া শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে এড়িয়ে যাওয়ার উচ্চ সম্ভাবনা রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে, এই নতুন ওমিক্রনের উপধরনগুলো বিএ.৫ উপধরনের স্থলাভিষিক্ত হতে শুরু করছে।

টোকিও মেট্রোপলিটন সরকারের নভেম্বরের ২৪ তারিখে প্রকাশ করা উপাত্ত থেকে দেখা যাচ্ছে যে, বিএ.৫ চলতি মাসে বেশি মাত্রায় সক্রিয় ছিল। মোট আক্রান্তের ৮০.১ শতাংশ ছিল বিএ.৫ উপধরন। তবে অন্যান্য উপধরনগুলো ধীরে ধীরে বেড়ে চলেছে – বিকিউ.১.১ বেড়ে হয়েছে ৬.২ শতাংশ, বিএন.১ হয়েছে ৪.২ শতাংশ, বিএফ.৭, বিএ.২.৭৫, বিকিউ.১ রয়েছে ২ শতাংশের পরিসরে, বিএ.২ ও এক্সবিবি’র প্রতিটি রয়েছে প্রায় ১ শতাংশ করে এবং বিকিউ.৪.৬ রয়েছে শূন্য দশমিক তিন শতাংশের পর্যায়ে।

টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি হসপিটালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুও বলছেন, বর্তমানে সবার দৃষ্টি রয়েছে ওমিক্রনের এক্সবিবি এবং বিকিউ.১ উপধরনের দিকে, তবে এক্সবিবি সারা বিশ্বে খুব বেশি ছড়িয়ে পড়েনি। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলোতে বিএ.৫’এর স্থলাভিষিক্ত হচ্ছে বিকিউ.১।

হামাদা আরও বলছেন, যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় দেশগুলোতে নভেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা হঠাৎ করে বেড়ে যায়নি। তবে তিনি বলছেন, যদি নতুন উপধরনগুলোর অনেকগুলোই দেশে প্রবেশ করে তাহলে জাপানের অষ্টম তরঙ্গের শীর্ষ অনেক বেশি উঁচু হতে পারে। তিনি সতর্ক করে দেন যে সংক্রমণের বিষয়টি জাপানের পর্যবেক্ষণ করার প্রয়োজন রয়েছে, কেননা দেশটি ডিসেম্বর মাসে এ ধরনের একটি পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে পারে।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০৫: অষ্টম তরঙ্গের চূড়ান্ত পর্যায় (২) সংক্রমণের আরেকটি বিস্তারের লক্ষণ

উত্তর-৫০৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে সম্প্রতি করোনাভাইরাসের নতুন সংক্রমণের ঘটনা আবার বেড়ে চলেছে। জাপান কি তাহলে ইতোমধ্যেই সংক্রমণের অষ্টম তরঙ্গ প্রত্যক্ষ করছে? এই ধারাবাহিকে, সংক্রমণের ভবিষ্যৎ গতিপ্রকৃতি এবং সংক্রমণ প্রতিরোধে ঠিক কোন্‌ পদক্ষেপগুলো আমরা নিতে পারি, সেবিষয়ে নানা তথ্য তুলে ধরা হবে।

প্রথম পর্বে, আমরা জাপানে ওমিক্রনের বিএ.৫ উপধরনের দ্বারা সৃষ্ট সংক্রমণের সর্বশেষ বিস্তারের ওপর আলোকপাত করেছি। অক্টোবরে ইউরোপ বিএ.৫ সংক্রমণের আরও একটি বৃদ্ধি প্রত্যক্ষ করেছে।

যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিক একটি গবেষণা দল দ্বারা পরিচালিত একটি বৈজ্ঞানিক অনলাইন প্রকাশনা ‘আওয়ার ওয়ার্ল্ড ইন ডেটা’য় প্রকাশিত হিসেব অনুযায়ী, অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে জার্মানিতে প্রতি ১০ লক্ষ জনসংখ্যার ক্ষেত্রে দৈনিক সংক্রমণের সাত দিনের গড় প্রায় ১ হাজার ৩শ জনে পৌঁছেছে। এই সংখ্যাটি জুলাই মাসে হওয়া সংক্রমণের পূর্ববর্তী সর্বোচ্চ চূড়াকে ছাড়িয়ে গেছে। অনেকটা একই সময়ে ফ্রান্সে এই সংখ্যা ছিল প্রায় ৮৪০, যা জুলাই মাস থেকে সবচেয়ে বড় বৃদ্ধি।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের প্রধান, অধ্যাপক ওয়াকিতা তাকাজি গত ১৭ই নভেম্বর বলেন যে বিএ.৫ উপধরন দ্বারা সৃষ্ট সংক্রমণের চলমান বিস্তার বছর শেষ হওয়ার আগেই চূড়ায় পৌঁছাতে পারে।

কিয়োতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিশিউরা হিরোশি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্যানেলের একজন সদস্য এবং গাণিতিক মহামারিবিদ্যা বিশেষজ্ঞ। তার ভাষ্যানুযায়ী, সংক্রমণ চুড়ায় পৌঁছানোর পরে, এর হ্রাস সম্ভবত শ্লথগতিতে এবং ধাপে ধাপে হবে, কারণ হোক্কাইদোর মতোই সংক্রমণ এখন প্রতিটি অঞ্চল জুড়েই ছড়িয়ে পড়ছে।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০৪: অষ্টম তরঙ্গের চূড়ান্ত পর্যায় (১) জাপানে এখন কেন সংক্রমণ বাড়ছে?

উত্তর-৫০৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে করোনাভাইরাসের নতুন সংক্রমণের ঘটনা ইদানিং আবার বৃদ্ধি পাচ্ছে। ১৫ই নভেম্বর দেশব্যাপী এই সংখ্যা প্রায় দু-মাসের মধ্যে প্রথমবারের মতো ১ লক্ষ ছাড়িয়ে যায়। তাহলে কি জাপানে সংক্রমণের অষ্টম তরঙ্গ এসে গেল ইতোমধ্যে? আমাদের নতুন এই ধারাবাহিকে, সংক্রমণের ভবিষ্যৎ গতিপ্রকৃতি এবং সংক্রমণ প্রতিরোধের উপায় নিয়ে আলোচনা করা হবে।

জাপানে এখন সংক্রমণের নতুন ঘটনা বাড়ছে কেন? বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এই প্রশ্নের সমাধান সূত্র যে ব্যাপারটার মধ্যে নিহিত, তা হলো, বড় শহর নয়, এমন সব এলাকায় সংক্রমণ বৃদ্ধি পেতে আরম্ভ করেছে। এর আগে এমন কি সাম্প্রতিক কালেও সংক্রমণ বিষ্ফোরণ প্রায়ই শুরু হতে দেখা গেছে জনবহুল টোকিও মহানগর এলাকায়। সেখান থেকে বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াতকারী লোকজনের মাধ্যমে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে সারা দেশে। তবে এবার সংক্রমণের ঘটনা বাড়তে আরম্ভ করে টোকিও থেকে বহু দূরে হোক্কাইদো এবং তোহোকু অঞ্চলে।

১৭ই নভেম্বর এক বৈঠকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেল সংক্রমণ বিস্তারের চলতি প্রবণতা নিয়ে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেন। বিশেষজ্ঞরা বলেন, সপ্তম তরঙ্গের সময় যেসব এলাকাতে বহু লোক বিএ.৫ স্ট্রেইনে সংক্রমিত হয়েছিলেন, সেখানে লোকজনের মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠার অনুপাত বেশি। তারা বলেন, বর্তমানে সংক্রমণ এমন এলাকাতেই ছড়াচ্ছে যেখানে কম সংখ্যক লোক বিএ.৫ স্ট্রেইনে সংক্রমিত হয়েছিলেন, এবং এর ফলে ভাইরাসটিকে রুখে দেওয়ার ক্ষমতা গড়ে ওঠা লোকের অনুপাত সেখানে কমই রয়ে গেছে।

টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি হসপিটালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুও বলেন, করোনা সংক্রমণের বর্তমান ঊর্ধ্বগতিকে, সংক্রমণের সপ্তম তরঙ্গের দীর্ঘায়িত ফল হিসেবে দেখা যেতে পারে। তিনি বলেন, বড় বড় শহরেও সংখ্যাটা বাড়ছে, তবে আঞ্চলিক শহরগুলোতে যে হারে বাড়ছে, সেই হারে বড় শহরে বাড়ছে না। হামাদা বলেন, সপ্তম তরঙ্গের “অবশিষ্ট শিখা” আবার লেলিহান আকার ধারন করতে আরম্ভ করেছে এমন সব জায়গায় যেখানে এর আগে এই তরঙ্গ অপেক্ষাকৃত কম সংখ্যক লোককে সংক্রমিত করেছিল এবং বহু বাসিন্দারই দেহে করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে মুক্ত থাকার ক্ষমতা গড়ে ওঠেনি।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০৩: নতুন ওমিক্রন উপধরন (৫) চলমান সংক্রমণ বিস্তারে এগুলো কিভাবে প্রভাব ফেলে?

উত্তর-৫০৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। বিকিউ.১.১ এবং এক্সবিবি’এর মতো ওমিক্রন স্ট্রেইনের নতুন উপধরন সম্পর্কে খবর পাওয়া গেছে। এই ধারাবাহিকের শেষ পর্বে এবারে আমরা সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞদের মতামত উপস্থাপনের মাধ্যমে জাপানে প্রত্যাশিত পরবর্তী সংক্রমণ বৃদ্ধিতে নতুন ধরনগুলোর প্রভাব ফেলার সম্ভাবনার ওপর আলোকপাত করব।

সংক্রামক রোগ বিষয়ক জাপানের জাতীয় ইনস্টিটিউটের গবেষকরা বলেছেন এক্সবিবি বা বিকিউ.১.১’এর কারণে যে মারাত্মক রকমের কোভিড-১৯ রোগ দেখা দেবে সে ধরনের কোন প্রমাণ এখনও পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। তবে কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়ার সামর্থ্য উপধরনগুলোর আছে বলে তারা জানান। এগুলোর ওপর নজর রাখা তারা অব্যাহত রাখবেন বলে আরও উল্লেখ করেন।

জাপানে অক্টোবর মাসের ১১ তারিখ নতুন সংক্রমণের সাত দিন ব্যাপী গড় ছিল প্রায় ২৬ হাজার। এরপর এই সংখ্যা ধীরে ধীরে বৃদ্ধি পেয়ে নভেম্বর মাসের ২২ তারিখ প্রায় ৮৮ হাজারে গিয়ে দাঁড়ায়।

টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুও বলেছেন বিএ.৫’এর তুলনায় বিকিউ.১ উপধরনটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি এড়িয়ে যেতে সক্ষম বলে বলা হয়ে থাকে। আপনি যদি ইতিমধ্যেই সংক্রামিত হয়ে থাকেন বা টিকা নিয়ে থাকেন তবুও এতে পুনরায় সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে আপনার। একারণে এই উপধরনটি শীতে বিস্তার লাভ করলে সংক্রমণের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। হামাদা বলেন ওমিক্রন ধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকা এখন পাওয়া যাচ্ছে এবং তিনি চান লোকজন যেন এই টিকা নেয়। তিনি বলেন উপধরন বিএ.৫, বিকিউ.১ এবং এক্সবিবি সবকটিই ওমিক্রন ধরনের অন্তর্গত হওয়ায় ওমিক্রনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকা নিলে আশা করা যেতে পারে যে আপনি সবকটির বিরুদ্ধেই সুরক্ষিত। এবং তা যদি হয় তবে শীতে গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়া কমিয়ে আনতে এটা সহায়ক হবে।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০২: নতুন ওমিক্রন উপধরন (৪) রূপান্তর অব্যাহত থাকবে কি?

উত্তর-৫০২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। বিকিউ.১, বিকিউ.১.১ এবং এক্সবিবি’এর মতো ওমিক্রন স্ট্রেইনের নতুন উপধরন সম্পর্কে খবর পাওয়া গেছে। একের পর এক নতুন ধরনের সংক্রমণ বিস্তৃত হওয়ার এই পরিস্থিতি অব্যাহত থাকবে কি? এবিষয়ে কিছু তথ্য এবং একজন বিশেষজ্ঞের মতামত আমরা এখানে তুলে ধরছি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অক্টোবর মাসের ২৬ তারিখে নতুন উপধরনের মধ্যে দেখা দেয়া আকর্ষণীয় একটি প্রপঞ্চের উল্লেখ করেছে, যেটা হলো: আবির্ভাবের স্থান ও সময় ভিন্ন হওয়া সত্ত্বেও অভিন্ন রূপান্তর এদের রয়েছে। এটাকে বলা হয় “একই বিন্দুতে এসে মিলিত হওয়া রূপান্তর”, বিচ্ছিন্ন প্রাণীসত্তা যেখানে ভিন্ন ভাবে বিকশিত হয়ে অভিন্ন চারিত্রিক বৈশিষ্ট্যের মধ্যে দিয়ে শেষ হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে নতুন উপধরনে রূপান্তর সেই অংশগুলোতে ঘটে, মানুষের সাথে মিলিয়ে নেয়ার জন্য যেটা প্রয়োজনীয়, এবং আরও রূপান্তর ঘটতে পারে।

ভাইরাস বিষয়ে বিশেষজ্ঞ নাগাসাকি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ফুরুসে ইয়ুকি বলছেন, বিশ্বের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক এখন ওমিক্রন স্ট্রেইনে সংক্রমিত হয়েছেন বলে বলা হওয়া অবস্থায় সেরকম উপধরন সম্ভবত ব্যাপকভাবে প্রয়োগ করা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা থেকে পালিয়ে যেতে সাধারণ একটি রূপান্তর ক্ষমতা অর্জন করেছে। তিনি বলছেন করোনাভাইরাস ইতোমধ্যে যথেষ্ট মাত্রায় রূপান্তরিত হয়েছে এবং মানুষের মধ্যে এটা অভিযোজিত হবে নাকি রূপান্তর অব্যাহত রাখবে তা এখনও অজানা রয়ে গেছে।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০১: নতুন ওমিক্রন উপধরন (৩) উপধরন এক্সবিবি

উত্তর-৫০১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রনের নতুন উপধরনগুলো সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। এবারে আমরা ওমিক্রনের নতুন উপধরন এক্সবিবি’এর ওপর আলোকপাত করব, যা সিংগাপুর এবং বিশ্বের অন্যত্র ছড়িয়ে পড়ছে।

এক্সবিবি উপধরনের কারণে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সিঙ্গাপুর এবং ভারতে বেড়ে চলেছে।
সিঙ্গাপুরের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, এক্সবিবি উপধরনটি অক্টোবরের ৯ তারিখ পর্যন্ত এক সপ্তাহ সেখানে আক্রান্ত রোগীর ৫৪ শতাংশের জন্য দায়ী ছিল যা এর আগের সপ্তাহ থেকে ২২ শতাংশ বৃদ্ধি। ফলে এক্সবিবি উপধরনটি সংক্রমণের একটা প্রধান কারণে পরিণত হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও জানাচ্ছে, এক্সবিবি উপধরনটি অক্টোবরের শেষ নাগাদ পর্যন্ত ৩৫টি দেশে সনাক্ত করা হয়েছে।
ডব্লিউএইচও’র একটি বিশেষজ্ঞ দল জানাচ্ছে, যদিও এক্সবিবি উপধরনটির একটি উচ্চ সংক্রমণ ঝুঁকির কথা জানা গেছে, তাহলেও এটা বলা যাচ্ছে না যে, এই উপধরনটির অন্যান্য ছড়িয়ে পড়া ওমিক্রনের উপধরনের তুলনায় রোগের তীব্রতা বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়ার অনুপাত বেশি।
দলটি এও জানাচ্ছে, প্রাক-ওমিক্রন সময়কালে প্রথমবার আক্রান্তদের মাঝে প্রাথমিকভাবে আবার আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা ছিল সীমিত এবং অন্যান্য ওমিক্রন উপধরনে আবেশিত হয়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়াকে ত্বরান্বিত করার কোন উপাত্ত নেই।
সিঙ্গাপুরে, এক্সবিবি উপধরনে আক্রান্তের সংখ্যা মধ্য-অক্টোবরে শীর্ষে পৌঁছানোর পর এখন কমতির দিকে।
টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুও বলছেন, সিঙ্গাপুর থেকে এর আশপাশের দেশগুলোতে এক্সবিবি উপধরনে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনার কোন বড় ধরনের সম্প্রসারণের খবর পাওয়া যায়নি। তিনি এও বলেন, এই উপধরনটি জাপানেও সনাক্ত করা হয়েছে, তবে আক্রান্তের সংখ্যা কম, তাই আগের মতো এর বিস্তৃত হয়ে পড়া সংক্রান্ত উদ্বেগের মাত্রা তেমন বেশি না।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৫০০: নতুন ওমিক্রন উপধরন (২) ওমিক্রন উপধরন বিকিউ.১ এবং বিকিউ.১.১

উত্তর-৫০০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রনের নতুন উপধরনগুলো এখন সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। এবারে, আমরা ওমিক্রনের নতুন উপধরন বিকিউ.১ এবং বিকিউ.১.১’এর ওপর আলোকপাত করব, যা যুক্তরাষ্ট্র এবং বিশ্বের অন্যত্র ছড়িয়ে পড়ছে।

এই গ্রীষ্মে জাপানে মূলত বিএ.৫ উপধরন দ্বারা সৃষ্ট কোভিড সংক্রমণের একটি তরঙ্গ আঘাত হেনেছিল। বিকিউ.১ হচ্ছে স্পাইক প্রোটিনে পরিবর্তন ঘটা বিএ.৫ এর একটি উপধরন এবং বিকিউ.১.১ হচ্ছে স্পাইক প্রোটিনে অতিরিক্ত আরেকটি পরিবর্তন ঘটা একটি উপধরন। যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৯শে অক্টোবরে শেষ হওয়া সপ্তাহে, প্রায় ১৪ শতাংশ নতুন সংক্রমণের কারণ ছিল বিকিউ.১ উপধরন। অন্যদিকে, একই সময়ে ১৩.১ শতাংশ নতুন সংক্রমণ ঘটে বিকিউ.১.১’এর কারণে৷

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভাষ্যানুযায়ী, অক্টোবরের শুরুর দিকে ৬৫টি দেশে বিকিউ.১ এবং এর অন্যান্য উপধরনের কারণে সৃষ্ট সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে।

ডব্লিউএইচও’র একটি বিশেষজ্ঞ গ্রুপের ভাষ্যানুযায়ী, নতুন উপধরনের অনুপাত বাড়ছে এবং সম্ভবত তাদের অতিরিক্ত পরিবর্তনগুলো বর্তমানে ছড়াতে থাকা অন্যান্য ওমিক্রন উপধরনের তুলনায় মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে অতিরিক্ত সুবিধা তাদের দিয়েছে। তবে গ্রুপটি এটিও বলছে যে, এই সময়ে রোগের তীব্রতা বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়ার সামর্থ্য বৃদ্ধি সম্পর্কে পরামর্শ দেওয়ার মতো কোনো উপাত্ত হাতে নেই।

বিশেষজ্ঞদের ভাষ্যমতে, সাধারণভাবে, ভাইরাসের মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়ার সুবিধা অর্জনের মানে হচ্ছে, টিকা দেওয়ার পরেও সংক্রমণ ঘটার সম্ভাবনা বা পুনঃসংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকি জারি থাকা। তবে, এবিষয়ে আরও অনুসন্ধানের প্রয়োজন রয়েছে।

তারা এটিও বলছেন যে সংক্রমণের বিরুদ্ধে মূল এবং ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকাগুলোর মাধ্যমে প্রাপ্ত সুরক্ষা সম্ভবত হ্রাস পেতে পারে, তবে গুরুতর রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষেত্রে এগুলোর প্রদান করা সুরক্ষায় বড় কোনও প্রভাব পড়ার পূর্বাভাস আপাতত নেই৷

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯৯: নতুন ওমিক্রন উপধরন (১) বিস্তার লাভ করছে ওমিক্রনের নতুন উপধরনগুলো

উত্তর-৪৯৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রনের উপধরনগুলো ছড়িয়ে পড়ছে সারা পৃথিবীতে। নতুন এই ধারাবাহিকে আমরা ওমিক্রনের নতুন উপধরনগুলো থেকে গুরুতর উপসর্গ দেখা দেওয়ার ঝুঁকি এবং বর্তমান টিকার কার্যকারিতা সম্পর্কে জানার চেষ্টা করবো।

এ বছর গ্রীষ্মে জাপানে আঘাত হেনেছিল কোভিড সংক্রমণের সপ্তম ঢেউ। ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছিল ওমিক্রনের বিএ.৫ উপধরনটি। এই উপধরনটি সারা পৃথিবীতে কিছুদিন দৌরাত্ম্য চালিয়ে আসলেও, ক্রমশ এর শক্তি কমে এসেছে। ওদিকে পৃথিবী জুড়ে বাড়ছে বিকিউ.১, বিকিউ.১.১ এবং এক্সবিবি --- ওমিক্রনের এই উপধরনগুলো থেকে দেখা দেওয়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সংখ্যা।

টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুও হলেন সংক্রামক ব্যাধি বিশেষজ্ঞ। তিনি বলেন, ভবিষ্যতে করোনাভাইরাসের কোন উপধরনটির প্রাধান্য থাকবে তা বলা এখনও কঠিন। নতুন উপধরনগুলোর প্রত্যেকটি মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে ফাঁকি দিতে চৌকস। সেইসঙ্গে মানবদেহের কোষের সাথে যুক্ত থাকার অনুরূপ ক্ষমতাও দেখতে পাওয়া যাচ্ছে এই উপধরনগুলোর সবক’টির মধ্যে। হামাদা বলেন, নতুন নতুন আরও উপধরনের আবির্ভাব যদি হয়ও, সেগুলো আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে ফাঁকি দিতে পারে কিনা, তা সর্তকতার সাথে নজর করা দরকার, এবং দেখা দরকার সেগুলো কতটা সংক্রামক, এবং কতটা গুরুতর উপসর্গের জন্ম দিতে পারে।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯৮: চার বছরের শিশু পর্যন্ত টিকাদান (৮) বিশেষজ্ঞদের মতামত

উত্তর-৪৯৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। অক্টোবর মাসে জাপানে ৬ মাস থেকে ৪ বছর বয়সী শিশুদের করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে। ছোট শিশুদের টিকাদান সংক্রান্ত চলতি ধারাবাহিকের এই শেষ পর্বে, এবারে আমরা এবিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত তুলে ধরব।

শিশুদের জন্য টিকাদানের বিষয়টিকে আমাদের ঠিক কীভাবে বিবেচনা করা উচিত, সেসম্পর্কে আমরা দু’জন বিশেষজ্ঞের কাছে জানতে চেয়েছি।

নিইগাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সাইতো আকিহিকো বলছেন, ছোট শিশুদের জন্য মুখে মাস্ক পরা এবং হাত ধোয়া’সহ অন্যান্য প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নেয়াটা কঠিন। তিনি বলেন, একারণে এই বয়সী শিশুদের জন্য টিকাদানই হলো সক্রিয়ভাবে কোভিড-১৯’এর সূত্রপাত রোধের পাশাপাশি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ার সম্ভাবনা এড়ানোর একমাত্র উপায়।

অন্যদিকে, কিতাসাতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নাকাইয়ামা তেৎসুও বলেন, টিকাদানের নেতিবাচক দিকগুলোর মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া।
তবে, তিনি এটিও বলেন যে টিকা দেয়া না হলে, কারো কারো শরীরে এমন জটিলতাও তৈরি হতে পারে, যা এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত ঘটাতে পারে। এ সংক্রান্ত জটিলতার উদাহরণগুলোর মধ্যে রয়েছে, তীব্র এনসেফালোপ্যাথি নামক মস্তিষ্কের একটি রোগ এবং মায়োকার্ডিটিস, যা মূলত হৃৎপিণ্ডের পেশীর প্রদাহ।

টিকাদানের উপকারিতার বিপরীতে ঝুঁকিগুলো বিবেচনার পাশাপাশি বৈজ্ঞানিক তথ্যের ভিত্তিতেই জনসাধারণকে এবিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার আহ্বান জানান নাকাইয়ামা।

এদিকে, জাপান শিশুরোগ চিকিৎসা সমিতিও ছয় মাস থেকে চার বছর বয়সী শিশুদের টিকা দেয়ার পরামর্শ দিচ্ছে। তারা বলছে, কোভিড-১৯’এর সূত্রপাত প্রতিরোধের উপকারিতা এর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার ঝুঁকিকে ছাড়িয়ে যায়।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯৭: চার বছরের শিশু পর্যন্ত টিকাদান (৭) যে শিশুরা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছিল এবং অন্যান্য টিকা নিয়েছে

উত্তর-৪৯৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। অক্টোবর মাসে জাপানে ৬ মাস থেকে ৪ বছর বয়সী শিশুদের করোনাভাইরাসের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। এবারে আমরা জানার চেষ্টা করবো যে শিশুরা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছিল, তাদের এই টিকা দেওয়া সম্পর্কে এবং এ অবস্থায় অন্যান্য টিকা তাদের জন্য কতটা নিরাপদ, সেকথা।

কোনো শিশু যদি আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে থাকেও, তবু তার টিকা নেওয়া উচিত বলে সুপারিশ করে আসছেন বিশেষজ্ঞরা।

নিইগাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সাইতো আকিহিকো বলেন, আগে করোনায় আক্রান্ত যদি হয়েও থাকে আর যদি উপসর্গ হাল্কা হয়, তাহলেও শরীরে পর্যাপ্ত মাত্রায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠা সম্পর্কে নিশ্চিত থাকা যায় না। তিনি এও বলেন, নতুন করোনাভাইরাসকে রুখে দেওয়ার মতো অ্যান্টিবডির পরিমাণ শরীরে কমে আসে সময়ের সাথে সাথে, সে কথা আমরা জানি। সাইতো বলেন, করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার পরে টিকা নেওয়া হলে, তাতে শরীরে যথেষ্ট পরিমাণে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠার বিষয়টা নিশ্চিত হয়। কখন নেওয়া যেতে পারে, এই প্রশ্নের উত্তরে সাইতো বলেন, উপসর্গ কমে আসার পরে, শিশুদের স্বাভাবিক শারীরিক অবস্থা ফিরে আসলে, তখনই তাদের এই টিকা দেওয়া যেতে পারে।

শিশুদের অন্যান্য টিকার পাশাপাশি কোভিডের টিকা দেওয়া যেতে পারে। যেমন, কোভিডের টিকা আর ইনফ্লুয়েঞ্জার টিকা একই দিনে নেওয়া সম্ভব। তবে অন্যান্য টিকার ক্ষেত্রে, করোনাভাইরাসের টিকার সাথে নীতিগতভাবে অন্ততপক্ষে দু সপ্তাহের ব্যবধান থাকার দরকার।

শিশুদের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকারের প্রশ্নে নিইগাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সাইতো বলেন, রুটিন টিকা হিসেবে চিহ্নিত টিকা দেওয়ার দিন-তারিখ অনেক আগে থেকেই স্থির করা থাকে। শিশুদের বাবা-মায়েদের তিনি মূলত সেই সময়সূচি অনুসরণ করে, সেসব টিকার দু সপ্তাহ আগে বা পরে শিশু সন্তানকে কোভিডের টিকা দেওয়ানোর পরিকল্পনা করতে সুপারিশ করেছেন।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ১১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯৬: চার বছরের শিশু পর্যন্ত টিকাদান (৬) শিশুদের মধ্যে গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার ঘটনা

উত্তর-৪৯৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। অক্টোবর মাসে জাপান ছয় মাস থেকে শুরু করে চার বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের করোনাভাইরাস টিকা দিতে শুরু করেছে। এবারে আমরা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার পর শিশুরা গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার দিকে নজর দেব যাতে করে কমবয়সী শিশুদের টিকা দেয়ার প্রয়োজন আছে কিনা তা বিবেচনা করার সময়ে এই তথ্য কাজে আসতে পারে।

জাপান শিশুরোগ সমিতি জানায় যে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে এমন ৯৫ শতাংশের বেশি শিশুদের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র হালকা উপসর্গ দেখা যায়। তবে ওমিক্রন ধরনের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার পর অধিক সংখ্যক শিশু সংক্রমিত হওয়ায় শিশুদের মধ্যেও মৃত্যু এবং গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে।

সংক্রামক রোগ বিষয়ক জাতীয় ইনস্টিটিউট চলতি বছর জানুয়ারি থেকে আগস্ট মাসের মধ্যে ওমিক্রন ধরনের কারণে যখন বেশিরভাগ সংক্রমণ ঘটেছিল, সেই সময়ে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা গেছে ২০ বছরের কম বয়স এমন ৪১ জন তরুণের ওপরে একটি গবেষণা পরিচালনা করেছে। ২৯টি মৃত্যু ঘনিষ্ঠভাবে পরীক্ষা করার সুযোগ পেয়েছিল ইনস্টিটিউট এবং তারা জানতে পারে এরমধ্যে চার বছর বা তার চেয়ে কম বয়সী ১৪ জন শিশু মারা গেছে যাদের মধ্যে ৬ জনের শরীরে অন্য কোন ধরনের রোগ ছিল না।

ছয় মাস থেকে শুরু করে চার বছর পর্যন্ত বয়সের শিশুদের মধ্যে গুরুতরভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার বিষয়ে কোন উপাত্ত নেই। তবে নিবিড় পরিচর্যা ওষুধ বিষয়ক জাপানি সোসাইটি চলতি বছর মার্চ থেকে আগস্ট মাসের মধ্যে সারা জাপানে শিশুদের জন্য শয্যা বরাদ্দ করা হাসপাতালগুলোতে ২০ বছরের কম বয়সী করোনাভাইরাস রোগীদের বিষয়ে বয়স এবং উপসর্গ সহ বিভিন্ন ধরনের উপাত্ত সংগ্রহ করে।

সোসাইটি বলছে মাঝারি থেকে গুরুতর উপসর্গ দেখা গেছে এরকম মোট ২২০ জন লোককে তালিকাভুক্ত করা হয়েছিল যার অর্থ হলো এদেরকে অক্সিজেন দিতে বা ভেন্টিলেটরের সাহায্যে রাখতে হয়েছিল। এদের মধ্যে ৫৮.৬ শতাংশ হলো ছয় বা তার চেয়ে কম বয়সী শিশু যারা স্কুলে যাওয়া শুরু করেনি। সোসাইটি বলছে গুরুতর উপসর্গ দেখা দেয়া রোগীদের বেশিরভাগই এনসেফালোপ্যাথি রোগে ভুগছিল, মস্তিষ্ক ফুলে গিয়ে চেতনাশক্তি দুর্বল করে তুলতে পারে যেটি। নিউমোনিয়া এবং খিঁচুনি হওয়ার ঘটনাও খুব বেশি।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯৫: চার বছরের শিশু পর্যন্ত টিকাদান (৫) প্রজনন সামর্থ্যের ওপর কোনোরকম প্রভাব পড়ে কি?

উত্তর-৪৯৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। অক্টোবর মাসে জাপান ছয় মাস থেকে শুরু করে চার বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের করোনাভাইরাস টিকা দিতে শুরু করেছে। মানুষের প্রজনন সামর্থ্যের ওপর টিকা কোনোরকম প্রভাব ফেলে কিনা, এবারে আমরা সেদিকে নজর দেব।

যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ কোম্পানি ফাইজারের তৈরি টিকা জাপানে শিশুদের টিকাদানে ব্যবহার করা হচ্ছে। এটা হচ্ছে নতুন ধরনের টিকা, যেটাকে বলা হয় এমআরএনএ টিকা। এমআরএনএ প্রোটিন বা আমিষকে সংশ্লেষ করে নিতে “ব্লু প্রিন্ট” বা নীল নকশা হিসাবে কাজ করে। এমআরএনএ টিকা কাউকে দেয়া হলে করোনাভাইরাস আমিষের একটি অংশ সেই ব্যক্তির দেহের কোষের ভেতরে তৈরি হয়। সেই আমিষ অ্যান্টিবডি তৈরি করে নিতে দেহের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার কার্যাবলী সক্রিয় করে তোলে।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে এমআরএনএ কয়েক মিনিট থেকে কয়েক দিনের মধ্যে ভেঙে যাবে এবং আমাদের দেহ থেকে সরে যাবে। মন্ত্রণালয় আরও বলছে টিকার এমআরএনএ জিনগত তথ্য ধারণ করা মানব ডিএনএ’র সাথে মিশে যাবে না। মানবদেহ ডিএনএ থেকে নিজস্ব এমআরএনএ তৈরি করলেও জিনগত তথ্যের প্রবাহ একদিক বরাবর হওয়ায় এমআরএনএ থেকে ডিএনএ আপনি তৈরি করে নিতে পারবেন না।

ফলে বিশেষজ্ঞদের বিশ্বাস এমআরএনএ টিকার ডোজ কেউ নিলে এমআরএনএ’র জিনগত তথ্য শরীরে দীর্ঘ সময় ধরে থেকে যাওয়ার কিংবা বীর্য অথবা ডিম্বাণুর জিনগত সাঙ্কেতিক প্রক্রিয়ায় সেটা পৌঁছে যাওয়ার মতো ঝুঁকি নেই।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯৪: চার বছরের শিশু পর্যন্ত টিকাদান (৪) মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঝুঁকিগুলো কী কী?

উত্তর-৪৯৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে ৬ মাস থেকে ৪ বছর বয়সী শিশুদের করোনাভাইরাসের টিকাদান শুরু হয়েছে অক্টোবরে। এবারে আমরা এই বয়সসীমার শিশুদের টিকাদানের মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঝুঁকিগুলোর দিকে নজর দেব।

ডাক্তাররা তরুণ ছেলেদের বিশেষ করে কিশোর বয়সী এবং ২০-এর কোঠার ছেলেদের হৃদপিণ্ডের পেশী বা হৃদপিণ্ডকে ঘিরে থাকা পর্দার প্রদাহকে কোভিডের টিকার বিরল এবং মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

ছয় মাস থেকে চার বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে এ ধরনের হৃদপিণ্ডের ঝুঁকি সংক্রান্ত পর্যাপ্ত উপাত্ত তাদের কাছে এখনও নেই। তবে, জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, আগস্টের শেষ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে ফাইজারের টিকা নেয়া ছয় মাস থেকে চার বছরের প্রায় ৬ লক্ষ শিশুর মধ্যে এ ধরনের কোনো ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।
জাপানের জন্য, পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সী শিশু সংক্রান্ত উপাত্ত থেকে দেখা যাচ্ছে যে, প্রতি ১০ লক্ষ টিকার মধ্যে হৃদপিণ্ডের অবস্থার দু’টি কি তিনটি সন্দেহজনক ঘটনার খবর পাওয়া গেছে।

আমরা কিতাসাতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং টিকা সংক্রান্ত একজন বিশেষজ্ঞ নাকাইয়ামা তেৎসুও’কে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করেছিলাম। অধ্যাপক নাকাইয়ামা বলছেন, টিকা নেয়ার পরে কিশোর বয়সী এবং ২০-র কোঠার ছেলেদের তুলনায় অল্প বয়সী শিশুদের মধ্যে এ ধরনের হৃদপিণ্ডঘটিত অবস্থা দেখা দেয়ার ঝুঁকি অত্যন্ত অল্প। তিনি এও বলছেন, এমনকি এ ধরনের অবস্থা দেখা দেয়ার পরে তারা কেবল হাল্কাভাবে আক্রান্ত হয়েছে এবং পুরোপুরি ভালও হয়ে গেছে।
তবে, অধ্যাপক আরও বলছেন, টিকা নেয়ার কয়েকদিনের মধ্যে যদি শিশুদের শ্বাস নিতে কষ্ট হয় বা তারা বুকে ব্যথার কথা জানায়, তাহলে অভিভাবকদের তখনই তাদেরকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে কেননা উভয় ক্ষেত্রকেই হৃদপিণ্ডের পেশী বা পর্দার প্রদাহের উপসর্গ হিসেবে ধরে নেয়া যায়।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯৩: চার বছরের শিশু পর্যন্ত টিকাদান (৩) টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

উত্তর-৪৯৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। গত অক্টোবর মাসে জাপানে ৬ মাস থেকে ৪ বছর বয়সী শিশুদের করোনাভাইরাসের টিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এবারে আমরা এই টিকাদানের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার দিকে নজর দিব।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে বেশিরভাগ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া মৃদু থেকে মাঝারি পর্যায়ের এবং সাময়িক। আর সেকারণে এগুলো কোনো গুরুতর নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগ সৃষ্টি করে না।

ফাইজার তাদের ক্লিনিকাল পরীক্ষায় এক সপ্তাহ ধরে টিকা দেয়া শিশুদের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করেছে। এতে এটি দেখা যায় যে, দুই থেকে চার বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে গড়ে তিনটি টিকা দেয়ার পর, ৫.১ শতাংশের ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার চেয়ে বেশি মাত্রার জ্বর উঠেছে। ২৬.৬ শতাংশের ক্লান্তি অনুভব করার পাশাপাশি ২.৭ শতাংশের বমি এবং ৬.৫ শতাংশের ডায়রিয়া হতে দেখা গেছে। ছয় মাস থেকে এক বছর বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে, ৭.১ শতাংশের ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার চেয়ে বেশি মাত্রার জ্বর হয়েছে। ২১.৫ শতাংশ ক্ষুধা কমে যাওয়ার লক্ষণ প্রদর্শন করে এবং ৪৭.৪ শতাংশ বিরক্ত হয় এবং রাগী মনোভাব দেখায়।

টিকাদান সম্পর্কে বিশেষ জ্ঞানসম্পন্ন নিইগাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সাইতো আকিহিকো বলেন, পুঙ্খানুপুঙ্খ তুলনা করা কঠিন হলেও প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় ছয় মাস থেকে চার বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার হার কম হতে দেখা যায়। তিনি এটিও উল্লেখ করেন যে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী বা ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সী শিশুদের তুলনায়ও এই বয়সীদের মধ্যে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার হার অপেক্ষাকৃতভাবে কম বা একই হয়ে থাকে।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯২: চার বছরের শিশু পর্যন্ত টিকাদান (২) টিকার কার্যকারিতা

উত্তর-৪৯২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে ৬ মাস থেকে ৪ বছর বয়সী শিশুদের করোনাভাইরাসের টিকাদান শুরু হয়েছে অক্টোবরে। এই বয়সসীমার শিশুদের টিকাদানের ফলপ্রসূতার দিকটি এবারে আমরা খতিয়ে দেখব।

টিকা শিশুদের শরীরে করোনাভাইরাস উপসর্গের গুরুতর হয়ে ওঠা রোধ করতে পারবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি ফাইজার ৬ মাস থেকে ৪ বছর বয়সী শিশুদের দেহে এই টিকার ক্লিনিকাল ট্রায়াল চালায়। এই পরীক্ষায় দেখা যায়, তিনটি শট দেওয়ার পর শিশুদের দেহে অ্যান্টিবডির মাত্রা, এর চেয়ে বেশি বয়সী শিশু ও প্রাপ্তবয়স্কদের দেহে ক্লিনিকাল ট্রায়াল-পরবর্তী মাত্রার সমান হয়ে যায়।

তাছাড়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে যখন করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনটি খুব ছড়িয়ে পড়ছিল, তখন সেখানে ৬ মাস থেকে ৪ বছর বয়সী ১ হাজার ১শোটি শিশুর দেহে ক্লিনিকাল ট্রায়াল চালায় এই কোম্পানি। শিশুদের টিকা অথবা টিকা বলে মনে হওয়া শরীরের পক্ষে নিরাপদ লবণাক্ত মিশ্রণ প্ল্যাসিবো দেওয়া হয়।

সংক্রমণ পরিস্থিতির তুলনামূলক চিত্রটির দিকে তাকালে দেখা যাবে, যাদের টিকা দেওয়া হয়, ২০২২ সালের ১৭ই জুন পর্যন্ত সেরকম ৭শো ৯৪টি শিশুর মধ্যে ১৩টি শিশু সংক্রমিত হয়েছে। আর যাদের প্ল্যাসিবো দেওয়া হয়, সেরকম ৩শো ৫১টি শিশুর মধ্যে ২১টি শিশু সংক্রমিত হয়। বলা হচ্ছে তিনটি ডোজের পর, উপসর্গ প্রতিরোধে এই টিকা ৭৩ দশমিক ২ শতাংশ কার্যকর হয়ে ওঠে।

কর্মকর্তারা বলছেন, এই টিকা কতদূর পর্যন্ত গুরুতর অসুস্থতা রোধ করতে পারে, সংক্রমিত শিশুর সংখ্যা তা বিশ্লেষণের সুযোগ দেওয়ার মতো যথেষ্ট ছিল না।

কিতাসাতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, টিকা বিশেষজ্ঞ নাকাইয়ামা তেৎসুও বলেন যে তার প্রত্যাশা গুরুতর অসুস্থতা রোধে টিকা যথেষ্ট কার্যকর হবে কারণ এই টিকা উপসর্গের অবনতি ঠেকিয়ে দেয়। তিনি বলেন, গবেষণা বিশেষে উপাত্তে তারতম্য থাকলেও, বলা হচ্ছে যে এই টিকা ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে গুরুতর অসুস্থতা রোধে ৪০ থেকে ৮০ শতাংশ কার্যকর।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯১: চার বছরের শিশু পর্যন্ত টিকাদান (১) ব্যাখ্যা

উত্তর-৪৯১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ছয় মাস থেকে শুরু করে চার বছরের শিশু পর্যন্ত কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে সরকারি টিকাদান কর্মসূচি অক্টোবর মাসে শুরু হয়েছে। এবারের ধারাবাহিকে আমরা শিশুদের জন্য টিকা কার্যকর কিনা এবং পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার কোন ঝুঁকি আছে কিনা তা নিয়ে কথা বলব। প্রথম পর্বে আমরা টিকার বিস্তারিত প্রদান করব।

টিকা প্রস্তুতকারী কোম্পানি হলো মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজার। প্রাপ্তবয়স্কদের টিকার তুলনায় প্রতি ডোজে সক্রিয় উপাদানের পরিমাণ হলো ১০ ভাগের এক ভাগ। পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সের শিশুর জন্য এই পরিমাণ হলো প্রায় এক তৃতীয়াংশ। ভাইরাসের প্রচলিত স্ট্রেইনগুলোর ওপর ভিত্তি করে এটি তৈরি করা হয়েছে। ওমিক্রন ধরন থেকে পাওয়া উপাদান এর মধ্যে নেই।

টিকা বিনামূল্যে পাওয়া যাচ্ছে, এর সম্পূর্ণ ব্যয় সরকারি তহবিল থেকেই যোগান দেয়া হচ্ছে।

সম্পূর্ণ ভাবে টিকা প্রাপ্ত হতে হলে তিনবার এই টিকা নিতে হবে। প্রথম ডোজের তিন সপ্তাহ পর দ্বিতীয় ডোজ এবং তার কমপক্ষে আট সপ্তাহ পর তৃতীয় ডোজ নিতে হবে।

স্থানীয় শিশু ক্লিনিক বা এরকম কোন স্থান, অথবা স্থানীয় সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠা করা গণ টিকা কেন্দ্রে টিকা পেতে গেলে শিশুরা নীতিগতভাবে তাদের পৌরসভার কাছ থেকে টিকার কুপন পাবে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ভাইরাসের ওমিক্রন ধরন বিস্তারের কারণে সংক্রমণের সংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাওয়া, শিশুদের মধ্যে গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়া এবং টিকার নিশ্চিত কার্যকারিতা এবং নিরাপত্তার দৃষ্টান্ত তুলে ধরে ছয় মাস থেকে শুরু করে চার বছর বয়স পর্যন্ত শিশুদের টিকা দেয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছে। তবে কোন ধরনের বাধ্যবাধকতা নেই বা টিকা না নিলে শাস্তিমূলক কোন পদক্ষেপ নেয়া হবে না। টিকা নেবে কিনা সেই সিদ্ধান্ত পুরোপরি শিশুদের এবং তাদের পিতা-মাতার ওপর নির্ভর করছে।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৯০: ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে দ্বৈত সংক্রমণ (৭) সম্ভাব্য দ্বৈত সংক্রমণ সামাল দেয়ার উপায়

উত্তর-৪৯০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। শীতের চলতি মৌসুমে করোনাভাইরাস ও ইনফ্লুয়েঞ্জার একই সঙ্গে প্রাদুর্ভাবের সম্ভাবনার বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা উদ্বেগ প্রকাশ করছেন। দ্বৈত সংক্রমণ নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের সপ্তম ও শেষ পর্বে এবারে আমরা সেরকম সম্ভাবনা প্রতিরোধ করতে হলে কোন্‌ চিন্তা-ভাবনা আমাদের মনে রাখা দরকার সেদিকে নজর দেব।

করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জা, উভয়ই হচ্ছে সংক্রামক রোগ যা প্রধানত শ্বসনতন্ত্রকে প্রভাবিত করে এবং এদের সংক্রমণের পথ হচ্ছে একই ধরনের। আর তাই দুই রোগের বেলায় নিতে হওয়া প্রতিরোধ ব্যবস্থার মধ্যে তেমন পার্থক্য নেই।

প্রথমত, হাত ও আঙুল জীবাণু মুক্ত রাখা এবং ভেতরে থাকা অবস্থায় অন্য লোকজনের সাথে কাছে থেকে কথা বলার সময় মাস্ক পরার উপদেশ আপনাকে দেয়া হচ্ছে। রেস্তোরাঁ ও পানশালার মতো স্থাপনাগুলোতে বায়ু চলাচলের ব্যাপক ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

দ্বিতীয়ত, জ্বর কিংবা অন্যান্য উপসর্গ দেখা দিলে স্কুলে কিংবা কাজে যাওয়া অথবা অন্য লোকজনের সাথে যোগাযোগ করা থেকে আপনাকে বিরত থাকতে হবে। পর্যাপ্ত বিশ্রাম গ্রহণও হচ্ছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

করোনাভাইরাস ও ইনফ্লুয়েঞ্জার একই সময়ে বিস্তার লাভের সম্ভাবনা হ্রাসের প্রচেষ্টায় এরকম মৌলিক সতর্কতা অবলম্বনের জন্য বিশেষজ্ঞরা জনগণের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছেন।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮৯: ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে দ্বৈত সংক্রমণ (৬) টিকা নেয়ার আহ্বান

উত্তর-৪৮৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই শীতে করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার একযোগে প্রাদুর্ভাবের সম্ভাবনার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা। এই পর্বে টিকা নেয়ার মাধ্যমে দ্বৈত প্রাদুর্ভাবের এই সময়ে কীভাবে আমরা আমাদের সুরক্ষা প্রদান করতে পারি তা নিয়ে বিশেষজ্ঞদের অভিমত নিয়ে আলোচনা করব।

সংক্রমণ এড়িয়ে যাওয়ার জন্য করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জা উভয়ের টিকাই কার্যকর বলে সর্বজনবিদিত। এমনকি যদি টিকা নেয়া কেউ আক্রান্তও হন, তাহলে টিকা মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়ার ঝুঁকিকে অনেকটাই কমাতে পারে।

আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের সদস্য তোহোকু বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ওসাকা কেন’কে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করেছি। তিনি আমাদের বলেছেন, করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার টিকা একসাথে নিতে কোন অসুবিধা নেই। তিনি বলেন, কিছু কিছু চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান একসাথে দু’টো ডোজই নেয়ার কথা বলছে এবং শীত আসার আগেই উভয় ডোজ টিকা নেয়াটাই গুরুত্বপূর্ণ।
অধ্যাপক সবার প্রতি করোনাভাইরাসের তৃতীয় বা চতুর্থ বুস্টার ডোজ এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার টিকা নেয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্যানেলের প্রধান ওয়াকিতা তাকাজি বলেন, ওমিক্রনের উপধরনের করোনাভাইরাসের টিকার পাশাপাশি ইনফ্লুয়েঞ্জার টিকা নেয়ার হার বাড়িয়ে নেয়াটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, তা করলে আমরা সংক্রমণের বিস্তারকে ন্যূনতম পর্যায়ে রাখতে পারব এবং মারাত্মকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়া রোগীদের সংখ্যাও সীমিত রাখতে পারব।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮৮: ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে দ্বৈত সংক্রমণ (৫) জ্বরের মাত্রা বেশি হলে কী করতে হবে?

উত্তর-৪৮৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই শীতে করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার একযোগে প্রাদুর্ভাবের সম্ভাবনার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা। দ্বৈত প্রাদুর্ভাবের এই সময়ে জ্বর হলে কী করতে হবে, সেই বিষয় নিয়ে এবারে আমরা আলোচনা করব।

জ্বরের মতো উপসর্গের কারণে ভালো বোধ না করলে আপনার কী করা উচিত, গত ১৩ই অক্টোবর তার জন্য একগুচ্ছ পরামর্শ প্রণয়ন করেছে জাপান সরকার। এক্ষেত্রে, ১২ বছর বা তারচেয়ে কম বয়সী শিশু, গর্ভবতী নারী, অন্তর্নিহিত রোগযুক্ত ব্যক্তি এবং বয়োবৃদ্ধদের মতো গুরুতর উপসর্গ দেখা দেয়ার উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা লোকজনকে অবিলম্বে একটি জ্বরের ক্লিনিকে বা পারিবারিক চিকিৎসকের সাথে সাক্ষাতের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। তাদের করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার জন্য পরীক্ষা করা এবং এরপর এর ফলাফলের উপর ভিত্তি করে, প্রয়োজনীয় ওষুধের প্রেসক্রিপশন সহ যথাযথ চিকিৎসা গ্রহণ করতে উৎসাহিত করা হচ্ছে।

কিন্তু অল্পবয়সী ব্যক্তিদের মতো গুরুতর উপসর্গ দেখা দেয়ার কম ঝুঁকিতে থাকা ব্যক্তিদের, সরকার অনুমোদিত অ্যান্টিজেন টেস্ট কিট ব্যবহার করে, বাড়িতে বা অন্যত্র তারা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন কিনা, তা নিশ্চিত করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। যদি এর ফলাফল নেতিবাচক হয়, তাহলে তাদের ফোন বা অনলাইন পরিষেবার মাধ্যমে চিকিৎসকের সাথে বা তাদের পারিবারিক চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করে প্রয়োজনে ফ্লু-রোধী ওষুধের চিকিৎসাপত্র নেয়ার জন্য উৎসাহিত করা হয়েছে।

আর যদি পরীক্ষার ফল ইতিবাচক হয়, তাহলে আপনাকে ধারাবাহিক স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে জানানোর পাশাপাশি বাড়িতে থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। তবে, আপনার উপসর্গগুলো যদি গুরুতর হয় এবং আপনি চিকিৎসকের কাছে যেতে চাইলে, আপনাকে জ্বরের ক্লিনিক বা আপনার পারিবারিক চিকিৎকের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা এক্ষেত্রে পরীক্ষার কিট এবং জ্বর উপশমের ওষুধ প্রস্তুত রাখার পরামর্শ দিচ্ছেন যাতে আপনি নিজেই জ্বরের চিকিৎসা করতে পারেন।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮৭: ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে দ্বৈত সংক্রমণ (৪) কী ধরনের পরিস্থিতি দেখা দিতে পারে?

উত্তর-৪৮৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জা, এ দুয়ের যুগপৎ প্রাদুর্ভাব ঘটার আশংকা মনে উদ্বেগের জন্ম দিচ্ছে। এ সংক্রান্ত ধারাবাহিকের এবারের পর্বে আমরা জানার চেষ্টা করবো, সত্যিই যদি তা হয়, তখন পরিস্থিতি কেমন হতে পারে।

জাপানে এবছর জুলাই মাস থেকে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সপ্তম তরঙ্গ আঘাত হেনেছিল। এখন পর্যন্ত জাপানে করোনাভাইরাসের সবচেয়ে বড় তরঙ্গ ছিল এটি, যা সংক্রমিত করে প্রায় ১ কোটি ২০ লক্ষ রোগীকে এবং যা প্রায় সাড়ে তের হাজার রোগীর প্রাণ কেড়ে নেয়। এদিকে, জাতীয় সংক্রামক ব্যাধি ইনস্টিটিউটের প্রকাশ করা এক হিসেবে জানা যাচ্ছে ২০১৮ সালের শরৎকাল থেকে ২০১৯ সালের বসন্তকাল পর্যন্ত সময়ের মধ্যে ইনফ্লুয়েঞ্জায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছিল কমবেশি ১ কোটি ২০ লক্ষ।

করোনাভাইরাসের সপ্তম তরঙ্গ যখন আঘাত হানে তখন জ্বরের রোগীর চিকিৎসার জন্য আউটডোর বা বহির্বিভাগের ব্যবস্থা থাকা চিকিৎসা কেন্দ্রগুলো উপচে পড়েছিল রোগীর ভিড়ে। সেসময় লোকজনের পক্ষে চিকিৎসা কেন্দ্র এবং গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর সাথে যোগাযোগ করা কঠিন হয়ে পড়েছিল। অনেক জায়গায় রোগীদের হাসপাতালে ভর্তি হতে সমস্যা হয়েছে। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও সেই রোগীদের পক্ষে হাসপাতালে যাওয়ার জন্য জরুরি যানবাহনের ব্যবস্থা করাও কঠিন হয়েছে।

এখন বিশেষজ্ঞরা এই ভেবে উদ্বিগ্ন যে করোনাভাইরাস ও ইনফ্লুয়েঞ্জার দ্বৈত সংক্রমণের প্রকোপ যদি শুরু হয়, সেক্ষেত্রে একই রকম বা আরও খারাপ পরিস্থিতির উদ্ভব হতে পারে।

কোভিড–১৯ ও ইনফ্লুয়েঞ্জা --- এ দুয়ের উপসর্গ এক। যেমন, বেশি জ্বর, কাশি, গলাব্যথা ও গাঁটে গাঁটে ব্যথা। তাই টেস্ট না করে বলা কঠিন রোগী এই দুটি সংক্রমণের মধ্যে কোন্‌টিতে আক্রান্ত। ধরেই নেওয়া যেতে পারে যে জ্বরে আক্রান্ত রোগীরা তাদের রোগ নির্ণয় করানোর জন্য আউটডোরে ভিড় করবেন এবং চিকিৎসা পরিষেবা চাপের মুখে পড়বে।

তোহো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তাতেদা কাযুহিরো জাপান সরকারের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত উপদেষ্টা প্যানেলের সদস্য। তিনি বলেন, সপ্তম তরঙ্গের সময় যা দেখা গেছে, তার চেয়েও বেশি রোগীর ভিড়ে বেসামাল হয়ে পড়তে পারে চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোর বহির্বিভাগ। তাই সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির কথা ভেবে প্রস্তুতি নিয়ে রাখা উচিত।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮৬: ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে দ্বৈত সংক্রমণ (৩) একই সাথে দুটি রোগ প্রাদুর্ভাবের সম্ভাবনা কেন রয়েছে?

উত্তর-৪৮৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাস ও ইনফ্লুয়েঞ্জার একই সাথে সংক্রমণ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে উদ্বেগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এবারে আমরা কেন এটি ঘটতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে তা ব্যাখ্যা করে বলব।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞরা যারা পূর্বাভাস দিয়েছেন যে গত তিন বছরের মধ্যে প্রথমবার ইনফ্লুয়েঞ্জার প্রাদুর্ভাব দেখা দেবে জাপানে তারা নিম্নলিখিত কারণগুলোর উল্লেখ করেছেন।
প্রথমত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ এবং অন্যান্য অনেক দেশ পুনরায় সবকিছু চালু করা শুরু করেছে এবং ২০২২ সালের বসন্তকাল থেকে গ্রীষ্মের মধ্যে কোভিড-১৯ বিধিনিষেধ লাঘব করে নিয়েছে। এর ফলে আন্তর্জাতিক পর্যটন ক্রমাগত সক্রিয় হয়ে উঠেছে।

জাপানেও অক্টোবর মাসে প্রবেশ নিষেধাজ্ঞা তাৎপর্যপূর্ণভাবে শিথিল করে নেয়ার ফলে লোকের আসা যাওয়া বৃদ্ধি পাচ্ছে যা সম্ভবত করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জা উভয় রোগের বিস্তার সহজতর করে তুলবে।

দ্বিতীয়ত, গত দুই মৌসুমে জাপানে বিরাট আকারের কোন ইনফ্লুয়েঞ্জা মহামারি দেখা যায়নি। এর অর্থ হলো বেশিরভাগ লোকের শরীরে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নেই।

বিশেষজ্ঞদের প্রকাশ করা এক নথিতে লোকজনের এন্টিবডির মাত্রা নিম্ন হওয়ার কারণে মারাত্মক ইনফ্লুয়েঞ্জার প্রাদুর্ভাব দেখা দিতে পারে বলে সতর্ক করে দেয়া হয়।

এসব কারণে এবারের শীতে ইনফ্লুয়েঞ্জা এবং কোভিড-১৯ এর সম্ভাব্য অষ্টম তরঙ্গ একসাথে দেশে ব্যাপকভাবে বিস্তার লাভ করতে পারে।

অন্যদিকে, লোকজনের সামনা সামনি সংস্পর্শে আসা জাপানে এখনও মহামারির আগের পর্যায়ে ফিরে যায়নি। তাই অতীতের কয়েকটি মৌসুমের মতো পরিস্থিতি খুব খারাপ না হওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮৫: ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে দ্বৈত সংক্রমণ (২) গত দুই বছরের পরিস্থিতি

উত্তর-৪৮৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞরা জাপানে চলতি বছর শীতের মৌসুমে করোনাভাইরাস ও ইনফ্লুয়েঞ্জার একই সাথে সংক্রমণ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন।

মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে শীতের গত দুই মৌসুমে কোভিড ও ইনফ্লুয়েঞ্জার একই সাথে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার কোন খবর পাওয়া যায় নি। কেন এমন হয়েছে, এবারে আমরা তা পরীক্ষা করে দেখব।

করোনাভাইরাস মহামারি ঘটে যাওয়ার আগে প্রতি বছর শীতকালে জাপান মৌসুমী ইনফ্লুয়েঞ্জা ছড়িয়ে পড়তে দেখেছে। স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা হিসাব করেছেন যে প্রতি বছর ১ থেকে ২ কোটি মানুষ সংক্রমিত হয়েছিলেন।

তবে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া শুরু হওয়ার পর থেকে এই সংখ্যা ব্যাপকভাবে হ্রাস পায়। জাপানের জাতীয় সংক্রামক রোগ ইনস্টিটিউট বলছে সারা দেশের প্রায় ৫ হাজার চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান থেকে পাওয়া প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে ২০২০ থেকে ২০২১ সালের শুরুর দিকের শীতকালে সংখ্যা ছিল প্রায় ১৪ হাজার, এবং পরের বছরের শীতে প্রায় ৩ হাজার।

জাপানে শীতকালে ইনফ্লুয়েঞ্জা বিস্তার লাভ করে, তবে উষ্ণমণ্ডলীয় কিংবা নাতিশীতোষ্ণ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের ঘন জনবসতিপূর্ণ এলাকাগুলোতে সারা বছর এটা দেখা যায়।

সীমান্ত অতিক্রম করে মানুষের যাতায়াতের সাথে ভাইরাস অন্যান্য দেশে চলাচল করে বলে মনে করা হয় এবং জাপানে শীতের পরিস্থিতিতে ভাইরাসের বিস্তার সহজ হয়ে উঠা হচ্ছে শীতকালে দেশে এই রোগ ছড়িয়ে পড়ার কারণ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন সম্ভবত সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মতো করোনাভাইরাস নিষেধাজ্ঞার কারণে গত দুই শীতে ইনফ্লুয়েঞ্জার বিস্তার ঘটে নি।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ২৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮৪: ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে দ্বৈত সংক্রমণ (১) উচ্চ সম্ভাবনার ব্যাপারে সতর্ক করছেন বিশেষজ্ঞরা

উত্তর-৪৮৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে চলতি গ্রীষ্ম থেকে নতুন করে দৈনিক করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা হ্রাস পেয়ে চলেছে। অক্টোবর মাসের ১১ তারিখে, করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ উল্লেখযোগ্য পরিমাণে শিথিল করা হয়েছে। দেশব্যাপী পর্যটনের প্রসারে সরকারি একটি ভ্রমণ ভর্তুকি কর্মসূচি আবার শুরু হয়েছে। তবে, সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞরা এই উদ্বেগ ব্যক্ত করছেন যে, চলতি শীত মৌসুমে করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার সংক্রমণের বিস্তার একসাথে হওয়ার বেশ জোরালো সম্ভাবনা রয়েছে। এই ধারাবাহিকে কী ধরনের পরিস্থিতি দেখা দিতে পারে এবং কিভাবে তা সামাল দেয়া হবে তার পাশাপাশি এই পরিস্থিতিকে সামাল দেয়ার জন্য সরকারি পদক্ষেপসমূহ সম্পর্কিত নানান তথ্য আপনাদের কাছে তুলে ধরা হবে।

বৈশ্বিক মহামারি শুরু হওয়ার পর বিগত দুই শীত মৌসুম চলাকালীন কোভিড এবং ইনফ্লুয়েঞ্জার কোন যুগপৎ সংক্রমণের বিস্তারের কথা শোনা যায়নি। তাহলে ২০২২ সালের এই মৌসুম এবং আগের বছরগুলোর মৌসুমের মধ্যে কী পার্থক্য রয়েছে?

অক্টোবরের ৫ তারিখে, এই মহামারি সামাল দেয়ার জন্য বিভিন্ন প্রচেষ্টায় নেতৃত্ব দেয়া কয়েকজন বিশেষজ্ঞ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞদের প্যানেলের কাছে যৌথভাবে সংক্রমণের রূপরেখা সম্পর্কিত একটি দলিল পেশ করেন। এতে বলা হচ্ছে, অক্টোবর মাস থেকে ২০২৩ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত ৬ মাস করোনাভাইরাসের সংক্রমণের মৌসুমী ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে যুগপৎ ছড়িয়ে পড়ার উচ্চ সম্ভাবনা রয়েছে।

বিষয়টি সামাল দিতে বিশেষজ্ঞদের প্যানেল এই ইঙ্গিত দেয় যে, একটি সম্ভাব্য যুগপৎ বিস্তার সামাল দেয়ার জন্য আমাদের বিভিন্ন পদক্ষেপ হাতে নেয়ার প্রয়োজন রয়েছে।

আর সরকারের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত উপদেষ্টা প্যানেল অক্টোবর মাসের ১৩ তারিখে ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে সম্ভাব্য যুগপৎ বিস্তারের প্রস্তুতির জন্য এক গুচ্ছ পদক্ষেপ প্রণয়ন করেছে। এই পদক্ষেপগুলো এই অনুমানের উপর ভিত্তি করে করা হয়েছে যে, দৈনিক করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে চার লাখে পৌঁছাবে এবং এক দিনে ইনফ্লুয়েঞ্জায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখে পৌঁছানো সহ যৌথভাবে দৈনিক আক্রান্তের সর্বোচ্চ সংখ্যা সাড়ে সাত লাখ হবে।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ২৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮৩: ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নিয়ে দুই ধরনের করোনাভাইরাস টিকা (৩) টিকাদানের সময়সূচি

উত্তর-৪৮৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে অক্টোবর মাস থেকে ওমিক্রনের বিএ.৫ উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নিয়ে তৈরি করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে। এর পাশাপাশি বিএ.১ উপধরনকে লক্ষ্য ধরে উৎপাদিত টিকাও জনসাধারণকে প্রদান করা হচ্ছে। চলতি ধারাবাহিকে এই দু’ধরনের টিকা সম্পর্কিত নানান তথ্য আপনাদের কাছে তুলে ধরা হচ্ছে।
আর এর তৃতীয় এবং সর্বশেষ পর্বে, আমরা টিকাদানের সময়সূচির দিকে নজর দিব।

অন্তত তিন মাস আগে একটি প্রচলিত ধরনের টিকার দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণকারী ১২ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সী সকল ব্যক্তিই, ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া এই টিকা গ্রহণের যোগ্য। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমিত হিসেব অনুযায়ী, এই বছরের মধ্যেই প্রায় ১০ কোটি মানুষ নতুন ধরনের এই টিকা গ্রহণের উপযুক্ত বলে বিবেচিত হবেন।

মন্ত্রণালয় নভেম্বরের শেষের দিক নাগাদ সারা দেশের পৌরসভাগুলোতে, বিএ.১ এবং বিএ.৫ উপধরনের জন্য নির্ধারিত ফাইজারের টিকা এবং বিএ.১ উপধরনের জন্য নির্ধারিত একটি মডার্না টিকা’সহ মোট প্রায় ৯ কোটি ৯০ লক্ষ ডোজ টিকা সরবরাহ করার পরিকল্পনা করছে৷

এর বাইরে, বিএ.১ এর জন্য মডার্নার টিকার ৫০ লক্ষ ডোজ আলাদাভাবে শুধুমাত্র কর্মক্ষেত্রে টিকাদান কর্মসূচির জন্য নিশ্চিত করা হয়েছে। বছরান্ত এবং নববর্ষের ছুটির সময় সংক্রমণের অষ্টম তরঙ্গের সম্ভাব্য হানা দেয়ার পূর্বপ্রস্তুতি হিসেবে, টিকা গ্রহণে ইচ্ছুক সকল ব্যক্তিই যাতে কোনরকম ব্যর্থতা ছাড়াই টিকা নিতে পারেন, সেই বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮২: ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নিয়ে দুই ধরনের করোনাভাইরাস টিকা (২) কোন টিকাটি বেশি কার্যকর?

উত্তর-৪৮২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। অক্টোবর মাস থেকে জাপানে ওমিক্রনের বিএ.৫ উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নিয়ে তৈরি করোনাভাইরাসের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। একই সঙ্গে দেওয়া হচ্ছে বিএ.১ উপধরনকে লক্ষ্যবস্তু করে বানানো টিকাও। চলতি ধারাবাহিকে এই দু’ধরনের টিকা সম্পর্কে নানান তথ্য আপনাদের কাছে তুলে ধরা হচ্ছে।

এই দুটির মধ্যে কোন টিকাটি নেওয়া উচিত? বিএ.৫ নাকি বিএ.১? স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, দুটি টিকার মধ্যেই রয়েছে করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনকে প্রতিরোধ করার উপাদান এবং উপধরনগুলোর বিরুদ্ধে এই দুটি টিকা আগেকার টিকাগুলোর চাইতে অনেক বেশি কার্যকর। মন্ত্রণালয়ের ধারণা, সর্বসাম্প্রতিক টিকাগুলো ভবিষ্যৎ ধরনের বিরুদ্ধেও কার্যকর হবে। মন্ত্রণালয় এও বলে, যেহেতু দুটি টিকার কার্যকারিতা তুলনা করে দেখার জন্য প্রয়োজনীয় উপাত্ত এখনও আমাদের হাতে নেই, তাই লোকজনের উচিত দুটি টিকার মধ্যে যেটি তারা তাড়াতাড়ি পাবেন, সেটিই নিয়ে নেওয়া।

কিতাসাতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নাকাইয়ামা তেৎসুও একজন টিকা বিশেষজ্ঞ। তিনি বলেন, “সর্বসাম্প্রতিক টিকাগুলো হচ্ছে বর্তমানে যে ভাইরাসের প্রকোপ বেশি সেই বিএ.৫ উপধরন থেকে সংক্রমণ প্রতিরোধে অধিকতর কার্যকর। তাছাড়া এই টিকাগুলো সংক্রমিত ব্যক্তির উপসর্গ গুরুতর হয়ে ওঠাও রোধ করে। বিএ.৫ এবং বিএ.১ উপধরনের মধ্যে পার্থক্য, প্রচলিত ভাইরাস ও পূর্ববর্তী ধরনগুলোর মধ্যকার পার্থক্যের মতো উল্লেখযোগ্য কিছু নয়। বিএ.১ উপধরনকে লক্ষ্যবস্তু করে তৈরি টিকারও গুরুতর উপসর্গ রোধে কার্যকর হওয়ার কথা। ইতোমধ্যে কারুর যদি বিএ.১’এর টিকা নেওয়ার আয়োজন হয়ে থাকে, আমার মতে তার উচিত হবে সেই টিকাটিই নিয়ে নেয়া”।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ২১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮১: ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নিয়ে দুই ধরনের করোনাভাইরাস টিকা (১) আমরা কি নিজেদের পছন্দমতো টিকা নিতে পারি?

উত্তর-৪৮১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে।
ওমিক্রনের বিএ.৫ উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নিয়ে অক্টোবর মাস থেকে জাপান দেশের জনগণকে করোনাভাইরাস টিকা দিতে শুরু করেছে। একই সাথে দেশটি বিএ.১ উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকাও লোকজনকে দিচ্ছে।
এবারের ধারাবাহিকে আমরা এই দুই ধরনের টিকার বিষয়ে আপনাদের সামনে তথ্য উপস্থাপন করব।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় টিকা দিয়ে থাকা স্থানীয় সরকারের প্রতি যেসব টিকার মেয়াদ দ্রুত উত্তীর্ণ হয়ে যাচ্ছে প্রথমে সেগুলো শেষ করে দেয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছে। এর অর্থ হল বিএ.৫ উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকা যদি এমন এক কেন্দ্রে বিতরণ করা হয় যাদের কাছে তখনো বিএ.১ এর টিকার মজুত রয়েছে, সেক্ষেত্রে ডাক্তারদের বলা হবে মেয়াদ আগে উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়া বিএ.১ এর টিকা প্রথমে শেষ করতে যাতে করে সেগুলো নষ্ট না হয়ে যায়।

প্রশ্ন হলো যারা টিকা নিচ্ছেন তারা কি নিজেদের পছন্দমতো কোন একটা বেছে নিতে পারবেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় স্থানীয় সরকারগুলোকে বলেছে যে টিকার জন্য বুকিং করা লোকজনকে কি ধরনের টিকা তারা পাবেন সেটা জানানো হবে কিনা সেই সিদ্ধান্ত তাদের উপর নির্ভর করছে।
তবে মন্ত্রণালয় জোর দিয়ে জানিয়েছে যে তাদের টিকা দান পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রতিটি স্থানীয় সরকার যাতে অধিবাসীদের সকলকে টিকা দিতে পারে তা বিবেচনায় রেখে পর্যাপ্ত পরিমাণ টিকা তাদের পাঠানো হবে। মোট পরিমাণ হবে বিএ.১ কে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকা এবং বিএ.৫ কে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকার সংমিশ্রণ।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৮০: করোনাভাইরাস সংক্রমণের সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থা (৭) সরকারের নীতি-অবস্থান

উত্তর-৪৮০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বিষয়ক সরলীকৃত অবহিতকরণ ব্যবস্থা দেশজুড়ে কার্যকর হয়েছে ২৬শে সেপ্টেম্বর থেকে।

চলতি সিরিজে আমরা দেখছি অবহিতকরণ ব্যবস্থায় কী পরিবর্তন হয়েছে এবং তা নিয়ে মানুষের মনে কী প্রশ্ন জাগতে পারে। এবারে আমরা জানার চেষ্টা করবো এই পরিবর্তনের বিষয়ে সরকারের নীতি-অবস্থান কী।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী কাতো কাৎসুনোবু করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সংক্রান্ত সরলীকৃত অবহিতকরণ ব্যবস্থার সুবিধা এবং অসুবিধা উভয় দিকই তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন, “যেসব পৌর এলাকায় অন্যদের চেয়ে আগে এই ব্যবস্থা প্রবর্তন করা হয়েছে, তারা তাদের স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার ওপর চাপ প্রশমিত হওয়ার কথা জানিয়েছে। অন্যদিকে, এই নতুন ব্যবস্থা প্রবর্তনের ফলে, করোনা পরীক্ষার ফলাফলে পজিটিভ অর্থাৎ এই ভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তিদের স্বাস্থ্যের অবস্থা সম্পর্কে খোঁজখবর নেওয়া বা তাদের সাথে যোগাযোগের টেলিফোন নম্বর সংগ্রহ করার প্রয়োজনটাই ফুরিয়ে গিয়েছে। এসব তথ্য-উপাত্তের অভাব থাকলে, কোনো রোগীর অবস্থা যদি খারাপের দিকে যায়, তাকে উপযুক্ত চিকিৎসা দেওয়া বা হাসপাতালে ভর্তি করার ব্যবস্থা নিতে সময় লেগে যেতে পারে”। কাতো আরও বলেন যে তার মন্ত্রণালয় করোনাভাইরাসরোধী ব্যবস্থার সুষ্ঠু বাস্তবায়নের লক্ষ্যে, প্রয়োজনে পৌর সরকারসমূহের সাথে হাত মিলিয়ে কাজ করবে এবং এই ব্যবস্থাকে আরও উন্নত করে তুলবে।

করোনাভাইরাসরোধী ব্যবস্থার দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ইয়ামাগিওয়া দাইশিরো বলেন, এই শরৎকাল এবং শীতকালে সংক্রমণের অষ্টম ঢেউ জাপানে আঘাত হানতে পারে। তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন যে এসময়ে একসঙ্গে করোনাভাইরাস এবং ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসের যুগপৎ প্রকোপ আরম্ভ হয়ে যাওয়ার আশংকাও আছে। এই আশংকার কথা মাথায় রেখে, পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার উপযুক্ত প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। তিনি বলেছেন, “কী করা উচিত তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনার পর সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ঠিক করে রাখা দরকার”। তিনি আরও বলেন যে তিনি বিশেষজ্ঞদের সাথে পরামর্শ করবেন এবং সামাজিক প্রভাবের দিকটি বিবেচনায় রেখে, কাজে এগিয়ে যাবেন।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৭৯: করোনাভাইরাস সংক্রমণের সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থা (৬) নতুন ব্যবস্থা নিয়ে দেখা দেয়া উদ্বেগ

উত্তর-৪৭৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে করোনাভাইরাস ঘটনা সম্পর্কে জানানোর সরলীকৃত একটি ব্যবস্থা সেপ্টেম্বর মাসের ২৬ তারিখে সারা দেশ জুড়ে কার্যকর হয়েছে।


ধারাবাহিক এই আয়োজনে আমরা অবহিতকরণ বা জানানোর এই ব্যবস্থার রদবদল কিভাবে হয়েছে এবং কোন উদ্বেগ এর থেকে সম্ভবত দেখা দিচ্ছে তা নিয়ে বলছি। পরিবর্তনের ফলে সংক্রমণ পরিস্থিতির বিস্তারিত বিশ্লেষণ কঠিন হয়ে পড়বে বলে একজন বিশেষজ্ঞের জানানো মতামতের উপর এবারের পর্বে আমরা নজর দেব।


পরিবর্তনের আগে ভাইরাস পরীক্ষায় পজিটিভ আসা লোকজন কোথায় বসবাস করেন, কখন তারা শরীরে উপসর্গ দেখতে পান এবং কিভাবে তারা সংক্রমিত হয়ে থাকতে পারেন, এধরনের সমস্ত তথ্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের HER-SYS ডেটাবেসে নিবন্ধন করতে হত। বিশেষজ্ঞরা এই তথ্য ব্যবহার করে সংক্রমণের সংখ্যা কোথায় সর্বোচ্চ, কোন পথে সাধারণত সংক্রমণ ছড়াচ্ছে, প্রতিটি অঞ্চলে কত দ্রুত ভাইরাস বিস্তার লাভ করছে, এধরনের বিস্তারিত বিষয় নিয়ে বিশ্লেষণ করে দেখতেন। তাদের করা বিশ্লেষণের উপর ভিত্তি করেই সরকার করোনাভাইরাস প্রতিরোধ পরিকল্পনা প্রণয়ন করত।

তবে সারা দেশ জুড়ে বাস্তবায়নের আগেই যেসব জেলায় সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থার প্রচলন করা হয়েছে, করোনাভাইরাস সংক্রমণের যে হিসাব তারা ডেটাবেসে নিবন্ধন করেছে তা ভাইরাসে আক্রান্ত প্রকৃত সংখ্যার তুলনায় অনেক কম।

কিয়োতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিশিউরা হিরোশি করোনাভাইরাস উপাত্ত বিশ্লেষণ করে আসছেন। তিনি বলেন, ভাইরাসের প্রজনন হার যা দেখে বোঝা যায় যে ভাইরাসে আক্রান্ত এক ব্যক্তির থেকে কতজন সংক্রামিত হচ্ছেন, তাৎক্ষণিক ভাবে তা হিসাব করা অসম্ভব হয়ে উঠবে। মানুষের গতিবিধিতে পরিবর্তন কিভাবে সংক্রমণ পরিস্থিতির উপর প্রভাব ফেলে এবং সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপের কার্যকারিতা বিশ্লেষণ করে দেখা তার পক্ষে আর সম্ভব হবে না বলে তিনি জানান। নিশিউরা আরও উল্লেখ করেন যে সরলীকৃত ব্যবস্থায় সংক্রামিত ব্যক্তির টিকা সংক্রান্ত তথ্য আর রেকর্ড করা হয় না যার ফলে টিকার কার্যকারিতা এবং ভাইরাসের বিরুদ্ধে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকা লোকজনের অনুপাত কি, এসব বিষয়ে গবেষণা করা অসম্ভব হয়ে পড়ছে।
এর ফলে ভাইরাসের বুস্টার ডোজের সময়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়াও কঠিন হয়ে উঠতে পারে বলে তিনি আরও উল্লেখ করেন।


অধ্যাপক নিশিউরা বলেন যে বহুস্তরযুক্ত তথ্য সংগ্রহ করা এবং তার থেকে কি ধরনের ঝুঁকি মূল্যায়ন সম্ভব সেই সংক্রান্ত আলোচনা হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৭৮: করোনাভাইরাস সংক্রমণের সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থা (৫) মহামারি সামাল দেয়ায় সরকারের জবাবে পরিবর্তন

উত্তর-৪৭৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে করোনাভাইরাস ঘটনা সম্পর্কে জানানোর সরলীকৃত একটি ব্যবস্থা সেপ্টেম্বর মাসের ২৬ তারিখে সারা দেশ জুড়ে কার্যকর হয়েছে।

ধারাবাহিক এই আয়োজনে আমরা অবহিতকরণ বা জানানোর এই ব্যবস্থার রদবদল কিভাবে হয়েছে এবং কোন উদ্বেগ এর থেকে সম্ভবত দেখা দিচ্ছে তা নিয়ে বলছি। মহামারি সামাল দেয়া নিয়ে জাপান সরকারের জবাব বিভিন্ন সময়ে কোন্‌ পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে গিয়েছে, এবারে আমরা সেদিকে নজর দেব।

ভাইরাসের আধিপত্য বিস্তার করা ধরন এবং এর বৈশিষ্ট্যের পরিবর্তন ও সেই সাথে টিকার অগ্রগতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে জাপান সরকার করোনাভাইরাস মহামারি সংক্রান্ত নীতি বদল করে নেয়। সরকার যেমন কোনওরকম উপসর্গ দেখা না দেয়া লোকজন যেন বাড়িতে থেকে রোগ মুক্ত হতে পারেন, সেজন্য নীতি পরিবর্তন করেছে এবং পরিস্থিতি বদল হওয়ার সময় মানুষের বাইরে যাওয়া ও ব্যবসায় জড়িত হওয়ার উপর আরোপিত নিয়ন্ত্রণ পর্যালোচনা করেছে।

ভাইরাসের ওমিক্রন ধরন যখন জাপানে প্রাধান্য বিস্তার করা ধরন হয়ে উঠে, সরকার তখন নতুন নিয়ন্ত্রণ আরোপ না করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিল। এ কারণে তা করা হয় যে বিশেষজ্ঞরা দেখেছেন সেরকম ধরনের বেলায় তরুণদের মধ্যে মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়ার ঝুঁকি কম এবং সংক্রমণ প্রধানত বাড়ি, স্কুল ও বৃদ্ধদের সেবা প্রদান স্থাপনায় বিস্তার লাভ করে, পানশালা কিংবা রেস্তোরাঁয় নয়। সরকার তাই সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখা অবস্থায় সংক্রমণের আরও বিস্তার প্রতিহত করার লক্ষ্য বেছে নেয়।

এরপর থেকে জাপান ওমিক্রন ধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকা মানুষকে দিতে শুরু করে এবং বিশ্বের অনেক দেশ সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড মহামারি পূর্ববর্তী পর্যায়ে ধীরে ফিরিয়ে নেয়। এসব কর্মকাণ্ড বৃদ্ধ এবং উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ অন্যদের উপর চিকিৎসা সম্পদ কেন্দ্রীভূত রেখে, রোগীদের স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময় সংক্ষিপ্ত করে নিয়ে এবং বিদেশ থেকে আসা ভ্রমণকারীদের উপর আরোপিত নিয়ন্ত্রণ শিথিল করে নিয়ে অবহিতকরণ ব্যবস্থা সরলীকরণ করায় সরকারকে অনুপ্রাণিত করেছে।

সরকার বলছে এমন কি সংক্রমণের আরেকটি সম্প্রসারণ ঘটে গেলেও দেশের চিকিৎসা ও জন স্বাস্থ্য স্থাপনার সক্রিয় থাকা অব্যাহত রেখে সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের বর্তমান মাত্রা বজায় রাখার পরিকল্পনা সরকার করছে। বিশেষজ্ঞদের মতামত ও বিশ্বের সংক্রমণ পরিস্থিতির উপর নজর রাখা অবস্থায় করোনাভাইরাসের সাথে সহাবস্থানের এই যুগে সংক্রমণ প্রতিরোধ নীতি পর্যালোচনা করে দেখা সরকার বজায় রাখবে।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৭৭: করোনাভাইরাস সংক্রমণের সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থা (৪) গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর উপর চাপ

উত্তর-৪৭৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে সেপ্টেম্বর মাসের ২৬ তারিখ থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে একটি সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থা কার্যকর হয়েছে।

চলতি এই ধারাবাহিকে অবহিতকরণ ব্যবস্থার কী ধরনের পরিবর্তন হয়েছে এবং এসংক্রান্ত সম্ভাব্য উদ্বেগগুলোর উপর আলোকপাত করা হচ্ছে। এ পর্বে আমরা টোকিওর একটি গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রধানের কাছে, এই নতুন ব্যবস্থা চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের উপর থেকে চাপ কমাবে কিনা, তা জানতে চেয়েছি।

মায়েদা হিদেও টোকিওর কিতা ওয়ার্ডের গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রধান। এছাড়াও তিনি করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সরকারি বিশেষজ্ঞ প্যানেলের একজন সদস্যও বটে।
তিনি বলছেন, সপ্তম তরঙ্গের সংক্রমণের সময়, এতো বেশি লোক সংক্রমিত হয়েছিলেন যে প্রত্যেকে ডাক্তার দেখাতে সক্ষম হননি। তিনি এও বলছেন, অবহিতকরণ ব্যবস্থার এই সরলীকরণের একটি সুবিধা হচ্ছে, প্রবীণ ব্যক্তি এবং অসুস্থ ব্যক্তিরা আরও সহজেই ক্লিনিক বা হাসপাতালে যেতে সক্ষম হবেন।

আর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর চাপ প্রসঙ্গে, মায়েদা বলছেন, সাধারণ কাজের পরিমাণ অনেকখানি কমে যাবে। তবে তিনি এও বলছেন, মৃদু উপসর্গ থাকা লোকজনের বিস্তারিত আর নিবন্ধন করা হবে না, তাই যখন কারো পরিস্থিতির অবনতি হবে ও সাহায্যের প্রয়োজন হবে তখন কেন্দ্রগুলোকে বিস্তারিত পরীক্ষা করে দেখার কিছু জটিল কাজ করার প্রয়োজন পড়বে। সেজন্য তিনি বলছেন, তিনি বলতে পারছেন না যে সত্যিকার অর্থে কাজের চাপ কমবে।

এই সরলীকৃত ব্যবস্থার অধীনে, বিস্তারিতভাবে অবহিত করতে না পারা লোকজন “স্বাস্থ্য পরিস্থিতির ধারাবাহিক পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রগুলো”তে নিবন্ধন করতে পারবেন। বাড়িতে থাকার সময় যদি তাদের অবস্থার অবনতি হয়, তাহলে তারা একটি কেন্দ্রের সাথে যোগাযোগ ও পরামর্শ করতে পারবেন এবং তাদেরকে একটি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে পাঠিয়ে দেয়া হবে।

টোকিওতে, করোনাভাইরাসের পরীক্ষায় পজেটিভ ফলাফল আসা ৬৪ বা তার চেয়ে কম বয়সী লোকজনও সাহায্য পাওয়ার জন্য অনলাইনে মেট্রোপলিটন সরকারের ব্যবস্থায় নিবন্ধন করতে পারবেন।

তবে, কিতা ওয়ার্ডের মায়েদা বলছেন, অনলাইনে যোগাযোগকে জটিল বলে মনে করা লোকজন অবশ্যই যোগাযোগ করতে ইতস্তত করবেন না এবং চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে বা ক্লিনিকে দেখাতে যাবেন।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৭৬: করোনাভাইরাস সংক্রমণের সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থা (৩) মৃদু উপসর্গযুক্ত রোগীদের ব্যবস্থাপনা

উত্তর-৪৭৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে সেপ্টেম্বর মাসের ২৬ তারিখ থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে একটি সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থা কার্যকর হয়েছে।

চলতি এই ধারাবাহিকে অবহিতকরণ ব্যবস্থার কী ধরনের পরিবর্তন হয়েছে এবং এসংক্রান্ত সম্ভাব্য উদ্বেগগুলোর উপর আলোকপাত করা হচ্ছে। এবারের পর্বে, কর্তৃপক্ষগুলো কীভাবে মৃদু বা কোনরকম উপসর্গবিহীন লোকদের স্বাস্থ্য পরিস্থিতির তথ্য সংগ্রহের পরিকল্পনা করছে, তার উপর আমরা নজর দিব।

সরলীকৃত এই ব্যবস্থার অধীনে, নিজ উদ্যোগে পরীক্ষা করে ইতিবাচক ফল আসা মৃদু বা কোনরকম উপসর্গবিহীন লোকজন "স্বাস্থ্য পরিস্থিতির ধারাবাহিক পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রগুলোতে" নিবন্ধন করার পাশাপাশি কোনও চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের পরামর্শ ছাড়াই বাড়িতে সুস্থ হয়ে ওঠা শুরু করতে সমর্থ হবেন।

তারা নিজেদের বাড়ি থেকে দূরে থাকার ব্যবস্থা বা খাবার সরবরাহের মতো সহায়তা পেতে সক্ষম হবেন। বাড়িতে থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার সময় তাদের অবস্থার অবনতি হলে লোকজন স্বাস্থ্য পরিস্থিতির ধারাবাহিক পর্যবেক্ষণের এই কেন্দ্রগুলোর সাথে যোগাযোগ করতে বা তাদের সাথে পরামর্শ করতে সক্ষম হবেন। এরপর, তাদের একটি সুনির্দিষ্ট চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে প্রেরণ করা হবে।

যেহেতু জনস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো আর আগের মতো মানুষের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করতে সক্ষম হবে না, তাই বাড়িতে রোগীদের অবস্থার অবনতি হলে কর্তৃপক্ষগুলো দ্রুত তাদের সংশ্লিষ্ট চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে যুক্ত করার প্রচেষ্টা জোরদার করবে।

কর্তৃপক্ষগুলো এখন স্বাস্থ্য পরিস্থিতির ধারাবাহিক পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র’সহ অন্যান্য সহায়তা স্থাপনাগুলোর সাথে যোগাযোগ সংক্রান্ত তথ্য প্রচারের পাশাপাশি লোকজনকে স্ব-বিচ্ছিন্ন হতে অনুরোধ করার মতো সংক্রমণ-প্রতিরোধ ব্যবস্থার প্রসারের ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় উল্লেখ করেছে যে বিশদ প্রতিবেদন প্রেরণের বাধ্যবাধকতার সহজীকরণ গুচ্ছ সংক্রমণ সনাক্ত করাকে কঠিন করে তুলবে। সেকারণে মন্ত্রণালয় জেলা কর্তৃপক্ষগুলোকে বয়স্ক পরিচর্যা স্থাপনার পাশাপাশি অন্যান্য উচ্চ-ঝুঁকিপূর্ণ প্রতিষ্ঠানগুলোতে ভাইরাসের বিস্তার রোধে কাজ অব্যাহত রাখার আহ্বান জানাচ্ছে।

এই তথ্যগুলো অক্টোবর মাসের ৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৭৫: করোনাভাইরাস সংক্রমণের সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থা (২) রোগীর সংখ্যা সম্পর্কে অবগত থাকা যাবে কী ভাবে?

উত্তর-৪৭৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিষয়ে অবহিতকরণের একটি সরলীকৃত ব্যবস্থা ২৬শে সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হয়েছে।

অবহিতকরণ ব্যবস্থায় কী পরিবর্তন হয়েছে এবং এ নিয়ে যেসব প্রশ্ন জাগতে পারে, তার ওপর আলোকপাত করা হচ্ছে চলতি ধারাবাহিকে। এবারের পর্বে আমরা জানার চেষ্টা করবো কর্তৃপক্ষ নতুন সংক্রমিত রোগীদের সম্পর্কে অবগত থাকার জন্য কী পরিকল্পনা করেছে।

করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনটি বিস্তার লাভ করার মধ্যে জাপান সরকার সংক্রমণ-রিপোর্টিংয়ের একটি সরলীকৃত ব্যবস্থা প্রবর্তন করে। উদ্দেশ্য, চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোর ওপর চাপ কমানো আর বয়স্ক এবং অন্যান্য উচ্চ ঝুঁকিসম্পন্ন রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদানের ওপর মনোযোগ কেন্দ্রীভূত করা।

চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলো গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোকে রোগীদের সবার নাম জানানোর জন্য সরকার পরিচালিত HER-SYS নামের একটি ব্যবস্থা ব্যবহার করে। শুধু নাম নয়, কবে থেকে উপসর্গ দেখা দিতে শুরু করেছে, রোগীর সঙ্গে যোগাযোগের যাবতীয় তথ্যের মতো আরও অনেক কিছুই বিস্তারিতভাবে জানানো হয়ে এসেছে এই ব্যবস্থায়। তবে নতুন ব্যবস্থায় কেবল মাত্র উচ্চ ঝুঁকিসম্পন্ন রোগীদের কথাই জানাতে বাধ্য থাকবে চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলো, যেমন ৬৫ বছর বা তার চেয়ে বেশি বয়সী রোগী, সেইসঙ্গে এমন রোগী যাদের হাসপাতালে ভর্তি করিয়ে চিকিৎসা করানোর প্রয়োজন হয়।

HER-SYS ব্যবস্থার মাধ্যমে অবশ্য এরপরেও প্রত্যেক বয়সসীমার গ্রুপের সংক্রমিত লোকজনের মোট সংখ্যার হিসেব রাখা হবে। যারা উচ্চ ঝুঁকিসম্পন্ন নন, তারাও এর অন্তর্ভুক্ত থাকবেন।

এছাড়া যেসব করোনা-রোগী বাড়িতে থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার চেষ্টা করছেন, তাদের সাহায্য করার জন্য বেশ কয়েকটি ব্যবস্থা হাতে নেওয়া হয়েছে। যেমন, ইন্টারনেটে করোনাভাইরাস পরীক্ষার অ্যান্টিজেন টেস্ট কিট বিক্রি করার ওপর যে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল, সেটি প্রত্যাহার করা হয়। করোনা রোগীদের সাহায্য করার জন্য স্বাস্থ্যকেন্দ্র স্থাপন করেছে জেলা সরকারগুলো এবং ওমিক্রন ধরনকে লক্ষ্যবস্তু করে বানানো টিকা দিতে শুরু করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষ প্রত্যাশা করছে, এই পদক্ষেপগুলো ভবিষ্যতে ভাইরাসের বিস্তার রোধে সহায়ক হবে।

এই তথ্যগুলো সেপ্টেম্বর মাসের ৩০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৭৪: করোনাভাইরাস সংক্রমণের সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থা (১) কী সরলীকৃত করা হয়েছে?

উত্তর-৪৭৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে সেপ্টেম্বর মাসের ২৬ তারিখ থেকে কার্যকর হওয়া সরলীকৃত তথ্য অবহিতকরণ ব্যবস্থার আওতায় বর্তমানে দেশ জুড়ে চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে শুধুমাত্র গুরুতর অসুস্থ হওয়ার উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা রোগীদের বিস্তারিত বিবরণ সরকারকে অবহিত করতে হবে।

এবারের ধারাবাহিকে আমরা অবহিতকরণ ব্যবস্থার কী ধরনের রদবদল হয়েছে এবং এর ফলে কোন ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে তার উপর আলোকপাত করব। এ পর্বে আমরা এব্যবস্থা কিভাবে সরলীকৃত করা হয়েছে তার উপর নজর দেব।

চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোর উপর থেকে বোঝা লাঘব করে আনার জন্য কেন্দ্রীয় সরকার তাদের অবহিতকরণ ব্যবস্থা নিম্নলিখিত ক্ষেত্রে সীমিত রেখেছে:
 ৬৫ বা তার বেশি বয়সী লোকজন
 হাসপাতালে ভর্তি করার প্রয়োজন রয়েছে এমন লোকজন
 গর্ভবতী নারী এবং গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছেন যারা

এর বাইরে শরীরে ভাইরাস রয়েছে এমন লোকজনের ক্ষেত্রে চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে কেবল তাদের মোট সংখ্যা এবং বয়সের দিক থেকে রোগীরা কোন গ্রুপে রয়েছেন সেটাই শুধু জানাতে হবে।

প্রচলিত অবহিতকরণ ব্যবস্থায় সংক্রামিত বলে যাদেরকে চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলো চিহ্নিত করেছে, সেই সমস্ত লোকজনের তথ্য রাষ্ট্র পরিচালিত একটি কম্পিউটার নেটওয়ার্কে তাদের নথিভুক্ত করতে হতো। সরলীকৃত ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকা জেলাগুলো জানাচ্ছে যে চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোর উপর থেকে বোঝা লাঘব হয়েছে।

তবে ডাক্তার এবং বিশেষজ্ঞরা সংযোগ ব্যবস্থা প্রস্তুতির প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি তুলে ধরেন যাতে করে হালকা উপসর্গ দেখা দেয়া রোগীরা অবস্থার অবনতি ঘটলে দ্রুত চিকিৎসকদের দেখাতে পারেন।

কেন্দ্রীয় সরকার এধরনের প্রস্তুতি নেয়ার জন্য জেলা কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে। একই সাথে হালকা উপসর্গ রয়েছে এমন রোগীরাও যাতে কিছু সময়ের জন্য নিজেদেরকে বিচ্ছিন্ন করে রাখে সেই লক্ষ্যে তাদের প্রতিও আহ্বান জানিয়েছে সরকার।

এই তথ্যগুলো সেপ্টেম্বর মাসের ২৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৭৩: কমিয়ে আনা হয়েছে স্ববিচ্ছিন্ন থাকার মেয়াদ: ঝুঁকি এবং সাবধানতা (৫) রোগ ছড়ানোর ঝুঁকি কমিয়ে আনা

উত্তর-৪৭৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপান সরকার সেপ্টেম্বর মাসের ৭ তারিখ থেকে করোনাভাইরাস রোগীদের জন্য স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময়সীমা দশ দিন থেকে সাত দিনে কমিয়ে এনেছে। এই ধারাবাহিকে আমরা যেসব উপাত্তের উপর ভিত্তি করে সেই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, সেরকম কিছু উপাত্ত আপনাদের সাথে ভাগাভাগি করে নেব। রোগ ছড়ানোর ঝুঁকি কমিয়ে আনতে হলে কী করা দরকার সেদিকে এবারে আমরা নজর দেব।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের প্রধান ওয়াকিতা তাকাজি বলেছেন, স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময় কমিয়ে আনার পর রোগ ছড়ানোর অবশিষ্ট ঝুঁকি সম্পর্কে মানুষকে সতর্ক করে দেয়া হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেছেন আমাদের প্রত্যেকের নিজস্ব উদ্যোগে ভাইরাস প্রতিরোধ পদক্ষেপ গ্রহণ করা দরকার এবং ঝুঁকি যেন আমরা কমিয়ে আনতে পারি সেভাবে কাজ করা উচিত।
করোনাভাইরাসে সংক্রমিত লোকজন যে ১০ দিন পর্যন্ত রোগ ছড়িয়ে দিতে পারে, বৈঠকের উৎসাহী অংশগ্রহণকারীরা তার উপর জোর দিয়েছেন। বাইরে যাওয়ার সময় সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপ গ্রহণের প্রয়োজনীয়তার আহ্বান তারা জানান। স্বাস্থ্য সেবা কর্মী এবং বৃদ্ধদের সেবা কেন্দ্রে যারা কাজ করছেন, তারা সহ উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ লোকজনের সাথে প্রতিদিন যাদের যোগাযোগ হচ্ছে তাদের প্রতি অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বনের আহ্বান বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন সেরকম লোকজনের উচিত হবে পরীক্ষার ফলাফল যেন তাদের নেগেটিভ হয়, কাজে ফিরে যাওয়ার আগে তা নিশ্চিত করে নেয়া।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এছাড়া ভাইরাসে যারা সংক্রমিত হয়েছেন তারা যেন দশ দিন পর্যন্ত সুরক্ষায় থাকা ছেড়ে না দেন, স্থানীয় অধিবাসীদের সে সম্পর্কে জানানোর জন্য সারা দেশের বিভিন্ন পৌরসভার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে। যেসব পদক্ষেপ নেয়া দরকার সেগুলোর মধ্যে যেমন দেহের তাপমাত্রা পরিমাপ করে নেয়ার মধ্যে দিয়ে স্বাস্থ্য পরিস্থিতি পরীক্ষা করে দেখা, বৃদ্ধদের মতো উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ লোকজনের সাথে যোগাযোগ ও সেই সাথে বিনা প্রয়োজনে সেবা কেন্দ্রে যাওয়া এড়িয়ে চলা, উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ জায়গা ও যেসব সমাবেশে খাওয়া দাওয়া করা হয় সেখান থেকে দূরে থাকা, এবং মাস্ক পরা অন্তর্ভুক্ত আছে।
স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময় কমিয়ে আনা হলেও করোনাভাইরাসের বৈশিষ্ট্যের সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই। ভাইরাস ছড়ানোর ঝুঁকি যে ৭ দিনের পরেও বজায় থাকে, সেই ধারণা মাথায় রেখে আমাদের কাজ করা দরকার।

এই তথ্যগুলো সেপ্টেম্বর মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৭২: কমিয়ে আনা হয়েছে স্ববিচ্ছিন্ন থাকার মেয়াদ: ঝুঁকি এবং সাবধানতা (৪) বিশেষজ্ঞদের মতামত

উত্তর-৪৭২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপান সরকার গত ৭ই সেপ্টেম্বর থেকে করোনাভাইরাস রোগীদের জন্য স্ব-বিচ্ছিন্নতার সময়কাল কমিয়ে এনেছে। উপসর্গ থাকা লোকজনকে এখন ১০ দিনের পরিবর্তে ৭ দিন স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকতে হবে। এই ধারাবাহিকে, আমরা এই পদক্ষেপ সম্পর্কে বৈজ্ঞানিক ভিত্তি এবং নিরাপত্তার উপর আলোকপাত করব। এই পর্বে, আমরা বিশেষজ্ঞদের মতামতের উপর নজর দেব।

৭ই সেপ্টেম্বরের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞদের বৈঠকে স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময়কাল কমিয়ে আনা নিয়ে মতামত দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়ে।

যারা অনুমোদন করেছেন তারা বলেন, এটা সবার জানা যে, এই ভাইরাস উপসর্গ দেখা দেয়ার দিন থেকে ৭ দিন পর্যন্ত একজন রোগীর কাছ থেকে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি থাকে। তারা এও বলেন, এই পদক্ষেপ চিকিৎসা ব্যবস্থা এবং সামাজিক কার্যক্রমকে টিকিয়ে রাখার জন্য প্রয়োজনীয়।

এদিকে, যারা এই পরিবর্তনের বিরোধিতা করছেন তারা বলেন, ঝুঁকি মূল্যায়ন ভিত্তিক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়নি। তারা এও বলেন, সংক্রমণের ঝুঁকি ১০ শতাংশের উপরে হলে স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার মেয়াদকাল তুলে নেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ সেই সুযোগকে ছাড়িয়ে যায় যা বৈজ্ঞানিকভাবে অনুমোদন করা যেতে পারে।

বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ বলেন, হাসপাতাল এবং প্রবীণদের সেবা প্রদান করা স্থাপনাগুলোতে স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময় অবশ্যই কমিয়ে আনা উচিত নয়।

কিয়োতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিশিউরা হিরোশি তার উদ্বেগ ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, অষ্টম দিন থেকে সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপসমূহ কতখানি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে তার উপর নির্ভর করে পরিস্থিতি ব্যাপকভাবে বদলে যেতে পারে, তাই সংক্রমণ পরিস্থিতির প্রভাব সংখ্যাগতভাবে উপস্থাপন করাটা খুবই কঠিন। কিন্তু তিনি বলেন, কমপক্ষে, নতুন করে সংক্রমিত হওয়ার হার যা একজন রোগী কতজন লোককে সংক্রমিত করতে পারে সেই সংখ্যাকে বোঝায়, তা বাড়বে। নিশিউরা বলেন, ফলশ্রুতিতে, যখন ভবিষ্যতে আর একটি তরঙ্গ আসবে, তখন আগের থেকে আরও দ্রুতগতিতে রোগীর সংখ্যা বাড়বে এবং তা চিকিৎসা সেবা ব্যবস্থাকে চাপের মুখে ফেলতে পারে বা অ্যাম্বুলেন্স ডাকাকে আরও কঠিন করে তুলতে পারে।

এই তথ্যগুলো সেপ্টেম্বর মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৭১: কমিয়ে আনা হয়েছে স্ববিচ্ছিন্ন থাকার মেয়াদ: ঝুঁকি এবং সাবধানতা (৩) ৮ম দিনের পরে সংক্রমণের ঝুঁকি

উত্তর-৪৭১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপান সরকার গত ৭ই সেপ্টেম্বর থেকে করোনাভাইরাস রোগীদের জন্য স্ব-বিচ্ছিন্নতার সময়কাল ১০ দিন থেকে কমিয়ে ৭ দিনে নির্ধারণ করেছে। এই ধারাবাহিকে, আমরা এমন কিছু উপাত্ত আপনাদের সাথে ভাগাভাগি করে নিব, যা এই সিদ্ধান্ত নেয়ার ভিত্তি হিসেবে কাজ করেছে। আর এই পর্বে উপসর্গ দেখা দেয়ার ৮ম দিন পরে সংক্রমণের ঝুঁকির উপর আমরা আলোকপাত করব।

২০২১ সালের নভেম্বর এবং ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসের মধ্যে জাপানের জাতীয় সংক্রামক রোগ ইনস্টিটিউট কর্তৃক পরিচালিত একটি সমীক্ষায় (যার উপর আগের কয়েকটি পর্বে আলোকপাত করা হয়েছে), উপসর্গ দেখা দেয়া লোকজনের মধ্যে ঠিক কতদিন ধরে ভাইরাসটিকে সনাক্ত করা গেছে, তা যাচাই করে দেখা হয়।

উপসর্গ দেখা দেওয়ার দিনটিকে শূন্য দিন হিসেবে বিবেচনা করলে, প্রথম দিনে ৯৬.৩ শতাংশ, চতুর্থ দিনে ৬০.৩ শতাংশ এবং সপ্তম দিনে ২৩.৯ শতাংশ রোগীর দেহে ভাইরাসটি সনাক্ত করা হয়। এই অনুপাত অষ্টম দিনে ১৬.০ শতাংশে, নবম দিনে ১০.২ শতাংশে এবং দশম দিনে ৬.২ শতাংশে নেমে আসে৷ এটি একাদশ দিনে ৩.৬ শতাংশে, দ্বাদশ দিনে ২.০ শতাংশে, ত্রয়োদশ দিনে ১.১ শতাংশে এবং চতুর্দশ দিনে ০.৬ শতাংশে নামা অব্যাহত রাখে৷
অন্য কথায়, ৮ম দিনে ১০ শতাংশেরও বেশি রোগীর দেহে ভাইরাসটি পাওয়া যায়, যখন নতুন নিয়মের অধীনে তাদের স্ব-বিচ্ছিন্নতার সময়কাল ইতিমধ্যেই শেষ হয়ে গেছে।

কিয়োতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিশিউরা হিরোশি যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় অন্তর্ভুক্ত থাকা একটি গ্রুপের একটি গবেষণার ফলাফল ৭ই সেপ্টেম্বর বিশেষজ্ঞদের একটি বৈঠকে উপস্থাপন করেন। এই ফলাফল অনুযায়ী, ৫ম দিনে ৫০ শতাংশের বেশি এবং ৮ম দিনে ২৫ শতাংশ রোগীর দেহে ভাইরাসটির উপস্থিতি সনাক্ত করা গেছে। একারণে নিশিউরা এই বলে সতর্ক করে দেন যে উপসর্গ দেখা দেয়ার পর এমনকি একটি নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে গেলেও ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থেকে যায়।

এই তথ্যগুলো সেপ্টেম্বর মাসের ২৬ তারিখ পর্যন্ত সঠিক।

প্রশ্ন-৪৭০: কমিয়ে আনা হয়েছে স্ববিচ্ছিন্ন থাকার মেয়াদ: ঝুঁকি এবং সাবধানতা (২) বৈজ্ঞানিক ভিত্তি

উত্তর-৪৭০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ৭ই সেপ্টেম্বর থেকে জাপান সরকার করোনাভাইরাসের রোগীদের স্ববিচ্ছিন্ন থাকার মেয়াদ কমিয়ে দিয়েছে। এই পদক্ষেপের পেছনে বৈজ্ঞানিক ভিত্তি কী এবং নিরাপদ থাকার জন্য কী সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে --- চলতি ধারাবাহিকে এই বিষয়গুলোর ওপর আলোকপাত করা হচ্ছে।

করোনাভাইরাসের যে রোগীদের ক্ষেত্রে উপসর্গ প্রতীয়মান, তাদের বেলায় স্ববিচ্ছিন্ন থাকার মেয়াদ ১০ থেকে কমিয়ে ৭ দিন করা হয়েছে। আমরা দেখবো কী ধরনের উপাত্তের ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো?

উপসর্গ থাকা ৫৯ জন করোনাভাইরাস রোগীর ভাইরাস সংক্রান্ত উপাত্ত ৭ই সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের এক বৈঠকে পেশ করা হয়।

যেদিন উপসর্গ প্রথম দেখা দেয় সেই দিনটিকে শূন্য দিবস হিসেবে ধরে নিলে, সপ্তম দিবস থেকে ১৩-তম দিবসের মধ্যে রোগীর দেহ থেকে ছড়িয়ে পড়া ভাইরাসের পরিমাণ তৃতীয় দিবসের পরিমাণের কমবেশি এক-ষষ্ঠাংশে নেমে আসে। ২০২১ সালের নভেম্বর মাস থেকে ২০২২ সালের জানুয়ারি মাস পর্যন্ত যে সময়ে বিএ.১ ওমিক্রন উপ-ধরনটি বিস্তার লাভ করছিল, সেসময় জাপানের সংক্রামক রোগ বিষয়ক জাতীয় ইনস্টিটিউটের পরিচালিত এক জরিপের ভিত্তিতে এই উপাত্ত প্রস্তুত করা হয়।

গবেষকরা বলছেন, যদিও সপ্তম দিনের পরেও রোগীদের দেহ থেকে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া অব্যাহত থাকে, তবে অন্য লোকেদের সংক্রমিত করার ঝুঁকি ততদিনে কমে আসে।

এই তথ্যগুলো সেপ্টেম্বর মাসের ২৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬৯: কমিয়ে আনা হয়েছে স্ববিচ্ছিন্ন থাকার মেয়াদ: ঝুঁকি এবং সাবধানতা (১) আগের নিয়মাবলীর পরিবর্তন

উত্তর-৪৬৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সেপ্টেম্বর মাসের ৭ তারিখ থেকে শুরু করে জাপান সরকার স্ব-বিচ্ছিন্নতার সময় সংক্ষিপ্ত করে নেয়া সহ করোনাভাইরাস রোগীদের উপর থেকে বিধিনিষেধ শিথিল করে নিয়েছে। শরীরে উপসর্গ থাকা লোকজনকে এখন ১০ দিনের পরিবর্তে ৭ দিন নিজেদের বিচ্ছিন্ন করে রাখতে হবে।

এবারের ধারাবাহিকে আমরা নতুন নিয়মাবলীর পিছনে বৈজ্ঞানিক ভিত্তি, নিরাপত্তার বিষয়গুলো এবং এ নিয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত আপনাদের সামনে উপস্থাপন করব।
সেপ্টেম্বর মাসের ৭ তারিখের পর থেকে স্ব-বিচ্ছিন্নতার নতুন নিয়মগুলো হলো –
■ শরীরে উপসর্গ থাকা লোকজন
উপসর্গগুলো ভালো হতে শুরু করার পর কমপক্ষে ২৪ ঘন্টা কেটে গেলে উপসর্গ দেখা দেয়ার ৮ দিন পর বিচ্ছিন্ন থাকার সময় শেষ হবে।

■ শরীরে উপসর্গ না থাকা লোকজন
প্রাথমিক পরীক্ষা করে দেখার ৬ দিন পর বিচ্ছিন্ন থাকার সময় শেষ হবে যদি পঞ্চম দিনের পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ আসে।
তবে যারা বয়স্ক লোকজনের সংস্পর্শে আসেন বা অন্যান্যদের সাথে নৈশভোজ করে থাকেন তাদেরকে পুরোদস্তুর সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপ নিতে হবে। উপসর্গ থাকা লোকজন উপসর্গ দেখা দেয়ার ১০ দিন পর্যন্ত অন্যান্যদেরকে সংক্রমিত করতে পারেন। উপসর্গ না থাকা লোকজনের ক্ষেত্রে এই সময় হলো ৭ দিন।

■ হাসপাতালে ভর্তি রোগী এবং পরিচর্যা কেন্দ্রগুলোর বয়স্ক লোকজন
এ ক্ষেত্রে কোন পরিবর্তন হবে না। উপসর্গগুলো ভালো হতে শুরু করার পর কমপক্ষে ৭২ ঘন্টা অতিক্রান্ত হলে উপসর্গ দেখা দেয়ার ১১ দিন পর বিচ্ছিন্ন থাকার সময় শেষ হবে।

এই তথ্যগুলো সেপ্টেম্বর মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬৮: করোনাভাইরাস-রোধী ওষুধ বিষয়ক সর্বশেষ তথ্য (৫) যেসব ওষুধ মূলত অন্য রোগের চিকিৎসার জন্য তৈরি করা হয়েছিল

উত্তর-৪৬৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা কোভিড-১৯’এর ওষুধ ও চিকিৎসা এবং এদের কার্যকারিতা সম্পর্কে সর্বশেষ তথ্যাদির ওপর আলোকপাত করছি। এবারে বলবো এমন কিছু ওষুধের কথা যেগুলো মূলত তৈরি করা হয়েছিল অন্য রোগের চিকিৎসার জন্য।

ভাইরাস রোধী ওষুধ রেমডেসিভির মূলত তৈরি করা হয়েছিল ইবোলা রোগের চিকিৎসার জন্য। ২০২০ সালের মে মাসে জাপানে এই ওষুধটিকেই করোনাভাইরাসের রোগীর জরুরি চিকিৎসায় ব্যবহারের প্রথম ওষুধ হিসেবে অনুমোদন দেওয়া হয়। গোড়ার দিকে এই ওষুধ মাঝারি থেকে গুরুতর অসুস্থ করোনা রোগীদের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হতো। ২০২২ সালের মার্চ মাসে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এই ওষুধটির ব্যবহার সম্প্রসারিত করে হাল্কা থেকে মাঝারি মাত্রার উপসর্গ থাকা এমন রোগীদের ক্ষেত্রেও যাদের অবস্থা গুরুতর হয়ে ওঠার ঝুঁকি আছে।

২০২০ সালের জুলাই মাসে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ডেক্সামেথাসোন নামের একটি স্টেরয়েড ওষুধ করোনাভাইরাসের রোগীর চিকিৎসায় ব্যবহারের অনুমতি দেয়। তার আগে এই ওষুধটি মূলত ব্যবহার করা হতো গুরুতর নিউমোনিয়া অথবা রিউম্যাটিজম বা বাতের রোগীর চিকিৎসায়। এখন এই ওষুধটি কোভিডের মাঝারি ধরন বা গুরুতর উপসর্গ থাকা রোগী যারা নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত এবং যাদের বাড়তি অক্সিজেনের সহায়তা নিতে হচ্ছে, তাদের ক্ষেত্রেও ব্যবহার করা হচ্ছে।

২০২১ সালের এপ্রিল মাসে ব্যারিসিটিনিব নামের একটি প্রদাহ রোধী ওষুধ মাঝারি ধরন বা গুরুতর উপসর্গ থাকা করোনা রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হয়। মূলত এটি ছিল খাওয়ার ওষুধ। এই বড়ি রিউম্যাটিজম আর্থ্রাইটিসের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হতো। জাপানে এই ওষুধের ব্যবহার নিয়ন্ত্রিত। এই ওষুধ কেবল মাত্র রেমডেসিভিরের সাথে ব্যবহার করা যায়।

রিউম্যাটিজম আর্থ্রাইটিসের ওষুধ অ্যাকটেমরা, যা টোসিলিযুমাব নামেও পরিচিত। এই ওষুধটিকে করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়েছে ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসে। স্টেরয়েডের সাথে এই ওষুধটি মাঝারি ধরন বা গুরুতর উপসর্গে আক্রান্ত কোভিড রোগীদের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হচ্ছে।

এই তথ্যগুলো সেপ্টেম্বর মাসের ২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬৭: করোনাভাইরাস-রোধী ওষুধ বিষয়ক সর্বশেষ তথ্য (৪) অ্যান্টিবডি চিকিৎসা

উত্তর-৪৬৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা কোভিড-১৯এর ওষুধ এবং চিকিৎসা সংক্রান্ত হালনাগাদ তথ্য এদের কার্যকারিতা সহ আপনাদের সামনে তুলে ধরছি। এবারে আমরা অ্যান্টিবডি চিকিৎসা নিয়ে আলোচনা করব।

অ্যান্টিবডি ওষুধের মধ্যে থাকা মানুষের তৈরি অ্যান্টিবডি করোনা ভাইরাসের পৃষ্ঠে থাকা স্পাইক প্রোটিনের সাথে যুক্ত হয় যার ফলে ভাইরাসটি মানব কোষে প্রবেশ করতে পারে না। জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্যানেল কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য ২০২১ সালের জুলাই মাসে রোনাপ্রেভে নামের একটি অ্যান্টিবডি সংমিশ্রণকে অনুমোদন করেছিল। মৃদু উপসর্গ রয়েছে এমন কোভিড-১৯ রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যবহারের জন্য জাপানে অনুমোদন পাওয়া এটি প্রথম ওষুধ। এটি হল ক্যাসিরিভিমাব এবং ইমডেভিমাব নামের দুটি ভাইরাস নিরপেক্ষ অ্যান্টিবডির সংমিশ্রণ, যা ইনজেকশন বা ড্রিপের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করানো হয়। ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মন্ত্রণালয়ের প্যানেল যেভুডি নামের অপর একটি অ্যান্টিবডি ওষুধ অনুমোদন করেছিল যা সাধারণত সোট্রোভিমাব হিসাবে পরিচিত। এক ধরনের অ্যান্টিবডি আছে এই ওষুধে এবং এটি ড্রিপের মাধ্যমে রোগীর শরীরে দেয়া হয়ে থাকে।


দুটি ওষুধই বয়স্ক রোগীদের ক্ষেত্রে বা শরীরে কোন রকমের রোগ রয়েছে এমন লোকজন যারা নিউমোনিয়া সহ মৃদু থেকে মাঝারি উপসর্গে ভুগছেন তবে তা গুরুতর কোন উপসর্গ হয়ে ওঠার ঝুঁকি রয়েছে, তাদের ক্ষেত্রে দেয়া হয়ে থাকে। কোভিড-১৯ উপসর্গ দেখা দেয়ার সাত দিনের মধ্যে একবার এই ওষুধ তাদের দেয়া হয়ে থাকে। প্যানেল রোগ নিবারক হিসাবেও এটি অনুমোদন করেছে। দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন লোকজন যারা সংক্রমিত হলে গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি রয়েছে, তারা সংক্রমিত লোকজনের সংস্পর্শে এলে তাদেরকে অ্যান্টিবডি দেয়া হবে।

ক্লিনিকাল পরীক্ষার ফলাফলে দেখা গেছে যে রোনাপ্রেভে ওষুধটি যেসব রোগীকে দেয়া হয় তাদের ক্ষেত্রে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া বা মৃত্যুর ঝুঁকি প্রায় ৭০ শতাংশের কম। পরীক্ষায় আরও দেখা যায় যে যেভুডি ওষুধ যাদেরকে দেয়া হয় তাদের ক্ষেত্রে এধরনের ঝুঁকি প্রায় ৮৫ শতাংশের কম।

তবে অ্যান্টিবডি চিকিৎসায় কয়েকটি ত্রুটি রয়েছে। রূপান্তরিত ভাইরাসের নতুন ধরনের বেলায় এগুলো প্রায়ই খুব একটা কার্যকর হয় না। ওমিক্রন ধরনের সর্বশেষ সংক্রমণের চূড়ার পিছনে থাকা ভাইরাসের বিরুদ্ধে বিদ্যমান অ্যান্টিবডি ওষুধগুলো উল্লেখযোগ্যভাবে কম কার্যকর বলে জানা গেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কোভিড-১৯ চিকিৎসা সংক্রান্ত নির্দেশিকার সর্বশেষ সংস্করণে শুধুমাত্র অন্য কোন বিকল্প না থাকলে তবেই চিকিৎসকদের এই ওষুধগুলো ব্যবহারের বিষয়টি বিবেচনা করে দেখার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

জাপান আগস্ট মাসের ৩০ তারিখ অ্যান্টিবডি চিকিৎসার জন্য ব্রিটিশ ওষুধ প্রস্তুতকারী কোম্পানি অ্যাস্ট্রাযেনেকার তৈরি ইভুশেল্ড নামের নতুন একটি ওষুধ অনুমোদন করেছে। গুরুতর রোগ বা উপসর্গ এড়িয়ে যাওয়ার জন্য রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল, এমন লোকজনের ক্ষেত্রেই প্রধানত এটা ব্যবহার করা হবে।

এই তথ্যগুলো সেপ্টেম্বর মাসের ১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬৬: করোনাভাইরাস-রোধী ওষুধ বিষয়ক সর্বশেষ তথ্য (৩) যোকোভা

উত্তর-৪৬৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা কোভিড-১৯এর ওষুধ সংক্রান্ত হালনাগাদ তথ্য এদের কার্যকারিতা সহ আপনাদের সামনে তুলে ধরছি। এবারে আমরা যোকোভা নিয়ে আলোচনা করব।

জাপানের ওষুধ কোম্পানি শিওনোগি এদের ওষুধ যোকোভার অনুমোদন লাভের জন্য আবেদন করেছে, যে ওষুধ হালকা উপসর্গ দেখা দেয়া কোভিড-১৯ রোগীরা এমন কি মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি কম থাকলেও গ্রহণ করতে পারেন।

এই ওষুধ ভাইরাসের ব্লুপ্রিন্ট হিসাবে কাজ করা আরএনএ প্রতিলিপি তৈরি করে নেয়ার জন্য দায়ী একটি এনজাইমের ক্ষমতাকে বাধাগ্রস্ত করার মধ্য দিয়ে কাজ করে।

এবছর এপ্রিল মাসে কোম্পানি জানুয়ারি থেকে ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত চালানো ক্লিনিকাল পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করেছে। ১২ থেকে ৭০ বছর বয়সী হালকা থেকে মাঝারি ধরনের উপসর্গ দেখা দেয়া ৪২৮ জন রোগী এতে জড়িত ছিলেন।

কোম্পানি বলছে রোগীদের দিনে একবার ওষুধের একটি ডোজ দেয়া হয় এবং তৃতীয় দিনের পর কাশি, গলা ব্যথা এবং সর্দি ও জ্বর সহ পাঁচটি উপসর্গ দেখা দেয়া রোগীদের একটি দলে প্লাসেবো যাদের দেয়া হয়েছে তাদের তুলনায় উন্নতি লক্ষ্য করা গেছে।

শিওনোগি আরও বলেছে যে সংক্রামক ভাইরাস থাকা রোগীর আনুপাতিক হার প্লাসেবো দেয়া দলের তুলনায় ৯০ শতাংশ হ্রাস পায়।

তবে কোম্পানি উল্লেখ করে যে ডায়ারিয়া এবং বমি সহ ১২টি উপসর্গ দেখা দেয়া রোগীদের বেলায় প্লাসেবো দেয়া দলের তুলনায় বড় ধরনের কোন পার্থক্য দেখা যায় নি।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি প্যানেল ওষুধের কার্যকারিতা ও নিরাপত্তা যাচাই করে দেখার জন্য জুন ও জুলাই মাসে বৈঠক করেছিল। প্যানেলের কয়েকজন সদস্য মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়া বন্ধ করতে ওষুধের কার্যকারিতা সম্পর্কে ধারণা করা যায় বলে উল্লেখ করলেও ওমিক্রন ধরনের উপসর্গের বিরুদ্ধে এটা আসলেই কার্যকর কিনা তা নিয়ে সন্দেহ পোষণ করা হয়।

ওষুধটি অনুমোদন করা হবে কিনা সেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্যানেল স্থগিত রাখে এবং মূল্যায়ন অব্যাহত রাখতে সম্মত হয়।

শিওনোগি বলেছে সেপ্টেম্বর মাসের শেষ দিকের মধ্যে পরীক্ষার চূড়ান্ত পর্যায়ের ক্লিনিকাল উপাত্ত কোম্পানি প্রকাশ করবে।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬৫: করোনাভাইরাস-রোধী ওষুধ বিষয়ক সর্বশেষ তথ্য (২) প্যাক্সলোভিড

উত্তর-৪৬৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যকারিতা’সহ জাপানে অনুমোদিত করোনাভাইরাস-রোধী ওষুধ বিষয়ক হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করছি।

জাপান সরকার এখন পর্যন্ত মৃদু উপসর্গ থাকা রোগী’সহ করোনাভাইরাসের রোগীদের চিকিৎসায় দু’টি খাওয়ার ওষুধের অনুমোদন দিয়েছে। এগুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে লাগেভরিও, এটি মার্কিন প্রধান একটি ওষুধ কোম্পানি মার্ক উন্নয়ন করেছে এবং অন্যটি হচ্ছে ফাইজারের প্যাক্সলোভিড, এটিও মার্কিন কোম্পানির ওষুধ। উভয় ওষুধই মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়ার ঝুঁকি থাকা রোগীদের জন্য ব্যবহার করা হয় এবং কোষের মধ্যে ভাইরাসের বহুগুণে বৃদ্ধি পাওয়ার হারকে কমাতে কার্যকর।

ফাইজার জানাচ্ছে, তাদের ক্লিনিকাল পরীক্ষা বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে যে, প্যাক্সলোভিড উপসর্গ দেখা দেয়ার তিন দিনের মধ্যে চিকিৎসা পাওয়া রোগীর মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া বা মৃত্যুর ঝুঁকিকে ৮৯ শতাংশ কমাতে পারে এবং উপসর্গ দেখা দেয়ার পাঁচ দিনের মধ্যে চিকিৎসা পাওয়া রোগীর মধ্যে এই শতকরা হার হচ্ছে ৮৮ শতাংশ।

এই কোম্পানিটি এও জানাচ্ছে, চিকিৎসার কারণে দেখা দেয়া বিরূপ ঘটনা প্যাক্সলোভিড এবং প্লাসেবোর মধ্যে তুলনামূলকভাবে একই রকম ছিল এবং এগুলোর মধ্যে অধিকাংশই ছিল মৃদু মাত্রার। ওষুধের প্যাকেটের ভিতরে থাকা নিয়মাবলীতে বলা হচ্ছে যে, এই ওষুধ মৃদু থেকে মাঝারি উপসর্গের কোভিড-১৯’এর চিকিৎসায় ব্যবহারযোগ্য এবং এটি দিনে দু’বার করে ৫ দিন সেব্য।
প্যাক্সলোভিড বিস্তৃত ব্যবহারের জন্য নয়, কেননা প্রায় ৪০ ধরনের ওষুধ রয়েছে যার সাথে এটি একসঙ্গে সেবন করা নিষিদ্ধ। বৃক্ক সংক্রান্ত বৈকল্য থাকা কোন কোন রোগীর ক্ষেত্রে ডোজ সমন্বয় করে নেয়ারও প্রয়োজন রয়েছে।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, ২০ লক্ষ লোকের জন্য যথেষ্ট পরিমাণ ওষুধ মজুত রয়েছে, তবে অন্যদিকে জুলাই মাসের ২৬ তারিখ পর্যন্ত, প্রায় ১৭ হাজার ৬০০ লোক চিকিৎসা হিসেবে এই ওষুধ সেবন করেছেন। এটা ধারণা করা হচ্ছে যে, লাগেভরিও’র মত প্যাক্সলোভিড’ও বেশি মাত্রায় প্রভাবিত না করেই রূপান্তরিত ভাইরাসের বিরুদ্ধে কার্যকর হবে।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ৩০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬৪: করোনাভাইরাস-রোধী ওষুধ বিষয়ক সর্বশেষ তথ্য (১) লাগেভরিও

উত্তর-৪৬৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এবারে আমরা করোনাভাইরাস-রোধী ওষুধ বিষয়ক একটি নতুন ধারাবাহিক শুরু করছি। এর প্রথম পর্বে, আমরা জাপানে অনুমোদিত ওষুধগুলোর কার্যকারিতা’সহ অন্যান্য হালনাগাদ তথ্য উপস্থাপন করব।

জাপান সরকার মৃদু উপসর্গ থাকা ব্যক্তি’সহ করোনাভাইরাস রোগীদের চিকিৎসার জন্য এপর্যন্ত দুটি মুখে সেবনযোগ্য ওষুধ অনুমোদন করেছে...বৃহৎ মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি মার্কের উদ্ভাবিত লাগেভরিও এবং যুক্তরাষ্ট্রেরই আরেকটি কোম্পানি ফাইজার উৎপাদিত প্যাক্সলোভিড। উভয় ওষুধই গুরুতর উপসর্গ দেখা দেয়ার ঝুঁকিতে থাকা রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়।

লাগেভরিও’র জেনেরিক নাম হল মোলনুপিরাভির। এটি ২০২১ সালের ২৪শে ডিসেম্বর জাপান সরকারের কাছ থেকে বিশেষ জরুরি অনুমোদন পায়৷ ওষুধটি ভাইরাসের বৃদ্ধির ক্ষেত্রে ব্লুপ্রিন্ট হিসেবে কাজ করা আরএনএ’প্রতিলিপি তৈরির জন্য দায়ী একটি এনজাইমের ক্ষমতাকে বাধাগ্রস্ত করার মধ্য দিয়ে মানবদেহের অভ্যন্তরে ভাইরাসটির বৃদ্ধি রোধ করে।

প্যাকেটে দেয়া নথি এবং অন্যান্য তথ্য অনুসারে, ওষুধটির লক্ষ্য হচ্ছে ১৮ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সী হালকা থেকে মাঝারি উপসর্গ যুক্ত রোগী যারা গুরুতর অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছেন। তাদের মধ্যে বয়স্ক এবং স্থূলদেহী বা ডায়াবেটিক রোগীরা অন্তর্ভুক্ত আছেন। উপসর্গ দেখা দেয়ার পাঁচদিনের মধ্যেই ওষুধটি প্রতিদিন দুবার করে মোট পাঁচ দিনের জন্য গ্রহণের পরামর্শ দেয়া হয়। কিন্তু ভ্রূণের উপর সম্ভাব্য প্রভাবের কারণে গর্ভবতী নারী বা সম্ভাব্য গর্ভবতীদের এটি দেয়া উচিত নয়। উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ রোগীদের লাগেভরিও দেয়া হলে, হাসপাতালে ভর্তি বা মৃত্যুর ঝুঁকি ৩০ শতাংশ কমে যায়। এছাড়া, সংশ্লিষ্ট বিরূপ ঘটনার সংখ্যা প্লাসেবো এবং ওষুধ প্রদান করা গ্রুপগুলোর মধ্যে একই রকম বলে দেখা গেছে।

জাপানে এ পর্যন্ত ৩ লক্ষ ৮০ হাজারেরও বেশি লোককে লাগেভরিও সেবন করতে দেয়া হয়েছে। এর প্রস্তুতকারকের ভাষ্যানুযায়ী, এখন একটি উৎপাদন ব্যবস্থা চালু থাকায়, তারা স্থিতিশীলভাবে ওষুধটি সরবরাহ করতে সক্ষম হবে। আর সরকার এই ওষুধের সম্পূর্ণ খরচ বহন করে বলে এরজন্য রোগীদের উপর কোন আর্থিক চাপও পড়ে না।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ২৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬৩: ওমিক্রনের উপধরনগুলোকে লক্ষ্য ধরে নেয়া করোনাভাইরাসের টিকা (৫) বর্তমানে লভ্য টিকার চতুর্থ ডোজের কার্যকারিতা -২

উত্তর-৪৬৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা আলোকপাত করছি ওমিক্রনের উপধরনগুলোর সাথে মোকাবিলা করার জন্য তৈরি নতুন টিকার ওপর। ধারাবাহিকের এই পর্বে বর্তমানে লভ্য টিকার চতুর্থ ডোজের কার্যকারিতা সম্পর্কে জাপানে সঙ্কলিত উপাত্তের কথা তুলে ধরবো।

জুলাই মাসে টোকিও মেট্রোপলিটন ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্স, স্বাস্থ্যসেবা খাতের কর্মী যারা টিকার চতুর্থ ডোজ নিয়েছেন তাদের রক্তের নমুনায় শরীরের কোষকে রোগজীবাণু থেকে রক্ষাকারী অ্যান্টিবডি’র পরিমাণ কত, সে সম্পর্কে উপাত্ত প্রকাশ করেছে।

৬০ এবং ৭০’এর কোঠায় যাদের বয়স, তাদের রক্তের নমুনা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে তৃতীয় ডোজের টিকা নেওয়ার চার মাস পর রোগ প্রতিরোধক অ্যান্টিবডি’র গড় মাত্রাটি ছিল ৮শো ৫৫, তবে চতুর্থ ডোজ নেওয়ার পর তা বৃদ্ধি পেয়ে ৩ হাজার ৯শো ৪২ হয়ে ওঠে।

তৃতীয় ডোজ নেওয়ার পর লোকের শরীরে অ্যান্টিবডির মাত্রা, দ্বিতীয় ডোজ-পরবর্তী মাত্রার তুলনায় গড়ে বেশি থাকে, যদিও তা সকলের ক্ষেত্রে সমান হয় না --- মানুষে মানুষে এই মাত্রায় খুব হেরফের হতে দেখা যায়। তবে চতুর্থ ডোজ যারা নিয়েছেন, দেখা গেছে তাদের প্রত্যেকেরই শরীরে অ্যান্টিবডির পরিমাণ অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে।

মহামারি সংক্রান্ত সরকারের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের অন্যতম সদস্য তোহো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তাতেদা কাজুহিরো বলেন, ভবিষ্যতে আমরা হয়তো ওমিক্রন থেকে আলাদা অন্য কোনও ধরনের স্ট্রেইনের প্রকোপ দেখতে পাব। তিনি বলেন যারা এখনও তৃতীয় ডোজের টিকা নেননি এবং যারা ইতোমধ্যে চতুর্থ ডোজের জন্য কুপন হাতে পেয়ে গেছেন, তাদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব টিকা নেওয়া উচিত, যাতে এই ভাইরাসের বর্তমান বিস্তার রোধ করা যায়।

ধারনা করা হচ্ছে যে বর্তমানে লভ্য টিকার একাধিক ডোজ নিয়ে রাখলে, তা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগীদের গুরুতর অসুস্থ হওয়া থেকে রক্ষা করতে পারে এবং একটা নির্দিষ্ট মাত্রা পর্যন্ত সংক্রমণ প্রতিরোধও করতে পারে। রোগ প্রতিরোধ এবং রোগ জীবাণু ও সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞরা এ ব্যাপারে একমত যে লোকজনের উচিত যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তাদের প্রাপ্য টিকার ডোজ নিয়ে নেওয়া এবং কোন্‌ ধরনের টিকা নেবেন, তা নিয়ে অতিরিক্ত মাথা না ঘামানো।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ২৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬২: ওমিক্রনের উপধরনগুলোকে লক্ষ্য ধরে নেয়া করোনাভাইরাসের টিকা (৪) টিকার চতুর্থ ডোজের কার্যকারিতা -১

উত্তর-৪৬২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকা বিষয়ে আমাদের এই ধারাবাহিকে আমরা আলোকপাত করছি। এবারে আমরা ইসরায়েল এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রণীত উপাত্ত অনুযায়ী টিকার চতুর্থ ডোজের কার্যকারিতা নিয়ে কথা বলব।

বিশ্ব জুড়ে জানা যাওয়া খবরের উপর ভিত্তি করে দেখা গেছে যে হাসপাতালে ভর্তি এবং মৃত্যুর ঝুঁকি কমিয়ে আনতে চতুর্থ টিকাটি খুবই কার্যকর।

ইসরায়েলে গবেষকদের একটি দল ২৯ হাজারেরও বেশি স্বাস্থ্যসেবা কর্মীর উপর টিকার চতুর্থ ডোজের কার্যকারিতা বিশ্লেষণ করে দেখে। আগস্ট মাসের ২ তারিখ তাদের গবেষণার ফলাফল জামা নেটওয়ার্ক ওপেন নামের একটি চিকিৎসা সাময়িকীতে প্রকাশ করা হয়েছিল। প্রতিবেদনে বলা হয় যে ওমিক্রনের উপধরণ দ্রুত বিস্তার লাভ করছে এরকম সময় জানুয়ারি মাসে চতুর্থ টিকা পাওয়া ৫ হাজার ৩০০’র বেশি চিকিৎসা কর্মীদের মধ্যে ৩৬৮ জন পরে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে তিনবার টিকা পেয়েছেন এমন ২৪ হাজারেরও বেশি কর্মীর ক্ষেত্রে ৪ হাজার ৮০২ জন ভাইরাসে আক্রান্ত হন। সংক্ষেপে বলতে গেলে তিন বার টিকা পাওয়া লোকজনের মধ্যে সংক্রমণের হার হলো ১৯ দশমিক ৮ শতাংশ। সেখানে চার বার টিকা নিয়েছেন এমন লোকজনের মধ্যে সংক্রমণের হার অনেক কম, মাত্র ৬ দশমিক ৯ শতাংশ।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিরোধ বিষয়ক কেন্দ্র সিডিসি, বিএ.২ সহ ওমিক্রনের উপধরনের বিস্তারের মধ্যে ১০টি অঙ্গরাজ্যে প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে এমআরএনএ কোভিড-১৯ টিকার কার্যকারিতা মূল্যায়ন করে দেখেছে। তাদের গবেষণার ফলাফল জুলাই মাসে প্রকাশ করা হয়েছিল, যাতে দেখা যায় যে ৫০ বা তার বেশি বয়সী লোকজনের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি প্রতিরোধ করতে টিকার কার্যকারিতা ছিল তৃতীয় ডোজ নেয়ার চার মাস পরের তুলনায় ৫৫ শতাংশ বেশি। তবে চতুর্থ ডোজ নেয়ার এক সপ্তাহ পর এই হার বৃদ্ধি পেয়ে ৮০ শতাংশে গিয়ে দাঁড়ায়। সুপারিশ করা হলে বিলম্ব না করে অতিরিক্ত এই ডোজ নেয়ার জন্য লোকজনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে সিডিসি।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ২৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬১: ওমিক্রনের উপধরনগুলোকে লক্ষ্য ধরে নেয়া করোনাভাইরাসের টিকা (৩) টিকা কখন নিতে হবে

উত্তর-৪৬১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকা বিষয়ে আমাদের এই ধারাবাহিকে এবারে আমরা আপনার পরবর্তী বুস্টার টিকার সময়ের উপর আলোকপাত করছি।

জাপান সরকার দ্রুত হলে অক্টোবর মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকাদান শুরু করবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। ফলে যেসব লোকজন এখনও টিকার তৃতীয় কিংবা চতুর্থ ডোজ নেন নি, তারা হয়তো ভাবছেন নতুন এই টিকার জন্য তারা অপেক্ষা করবেন, নাকি লভ্য টিকা এখন নিয়ে নেবেন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ওয়েবসাইট বলছে যে আগষ্ট মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত ৮ কোটি ১০ লক্ষ ১০ হাজার মানুষ, বা মোট জনসংখ্যার ৬৪ শতাংশ তিনটি টিকা নিয়েছেন। এতে বলা হয়েছে, বৃদ্ধ লোকজনের মতো যাদের জন্য চতুর্থ টিকার সুপারিশ করা হয়েছে, সেরকম ২ কোটি ১৫ লক্ষ ৪০ হাজার মানুষকে এটা দেয়া হয়েছে।

জাতীয় সংক্রামক রোগ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ওয়াকিতা তাকাজি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের টিকা বিশেষজ্ঞ প্যানেলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আগষ্ট মাসের ১০ তারিখে তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন যে এমন কি অক্টোবর মাসের মাঝামাঝি সময়ে ওমিক্রন উপধরনকে লক্ষ্য ধরে নেয়া টিকা পাওয়া গেলেও, তাৎক্ষনিকভাবে সবাইকে দেয়ার মতো পর্যাপ্ত টিকা পাওয়া যাবে কিনা তা জানা যায় নি। তিনি বলেছেন, বর্তমান টিকা ওমিক্রন সংক্রমণ থেকে মারাত্মক অসুস্থ হওয়া প্রতিরোধ করায় কার্যকর বলে লোকজনের উচিত হবে তাদের পক্ষে সম্ভব হলে দ্রুত টিকার তৃতীয় কিংবা চতুর্থ ডোজ নেয়া বিবেচনা করে দেখা।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৬০: ওমিক্রনের উপধরনগুলোকে লক্ষ্য ধরে নেয়া করোনাভাইরাসের টিকা (২) নতুন এই টিকা কতটা কার্যকর?

উত্তর-৪৬০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে ওমিক্রনের উপধরনগুলোকে লক্ষ্য ধরে নেয়া করোনাভাইরাসের নতুন টিকার ওপর আলোকপাত করা হচ্ছে। আর এই পর্বে আমরা নতুন টিকাগুলোর কার্যকারিতা নিয়ে আলোচনা করব।

ফাইজার জানিয়েছে যে, ৫৬ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সী ১ হাজার ২০০ জনেরও বেশি অংশগ্রহণকারীর উপর চালানো এক ক্লিনিক্যাল পরীক্ষায় বিএ.১ উপধরনের বিরুদ্ধে এন্টিবডি নিউট্রালাইজ বা নিষ্ক্রিয় করার বর্তমান ফাইজারের টিকার তুলনায় ১.৫৬ গুণ বেশি ক্ষমতা থাকা ওমিক্রন ধরনের সাথে অভিযোজিত টিকাকে চতুর্থ ডোজ টিকা হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। কোম্পানিটি জানায়, এই নতুন টিকার কোন নিরাপত্তাজনিত ঝুঁকি নেই।

পুঙ্খানুপুঙ্খ পর্যালোচনা করার পরে মডার্নার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, যুক্তরাষ্ট্রে চালানো ক্লিনিক্যাল পরীক্ষাগুলোতে দেখা যাচ্ছে যে, ওমিক্রন ধরনের সাথে অভিযোজিত টিকাকে একটি চতুর্থ ডোজ টিকা হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে যেটির বিএ.১ উপধরনের বিরুদ্ধে এন্টিবডি নিষ্ক্রিয় করার ক্ষমতা বর্তমান মডার্নার টিকার তুলনায় ১.৭৫ গুণ বেশি।

মডার্না এও জানায়, এই টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অধিকাংশ ক্ষেত্রে হালকা থেকে মাঝারি ধরনের – ৭৭ শতাংশ লোক টিকা নেয়ার স্থানের চারপাশে ব্যথা অনুভব করেছেন, ৫৫ শতাংশ লোক অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন এবং ৪৪ শতাংশ লোকের মাথা ব্যথা ছিল।

এই টিকাগুলো ওমিক্রনের উপধরন বিএ.৫’এর বিরুদ্ধে এন্টিবডি নিষ্ক্রিয় করার ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। উল্লেখ্য, বর্তমানের ক্রমবর্ধমান সংক্রমণের বেশিরভাগই বিএ.৫ উপধরনের।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ২৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫৯: ওমিক্রনের উপধরনগুলোকে লক্ষ্য ধরে নেয়া করোনাভাইরাসের টিকা (১) নতুন এই টিকা কীভাবে কাজ করে?

উত্তর-৪৫৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দ্রুত হলে অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে ওমিক্রনের উপধরনগুলোকে লক্ষ্য হিসেবে ধরে নিয়ে নতুন করোনাভাইরাসের টিকা সরবরাহ শুরুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই ধারাবাহিকে নতুন এই টিকার গঠন, তাদের কার্যকারিতা এবং এটি গ্রহণের জন্য পূর্ববর্তী টিকাদানের পর কতদিনের বিরতির প্রয়োজন রয়েছে, তার উপর আলোকপাত করা হবে। আর এই পর্বে আমরা নতুন টিকাগুলো ঠিক কীভাবে কাজ করে, সেই বিষয়ে আলোচনা করব।

নতুন টিকাগুলো ফাইজার এবং মডার্না উৎপাদন করছে। তথাকথিত এই বাইভ্যালেন্ট বা একইসাথে দুটি ধরনের উপর কার্যকর এই টিকা, বিদ্যমান করোনাভাইরাস টিকাগুলোর জন্য ব্যবহৃত উপাদান এবং ওমিক্রন ধরনের বিএ.১ উপধরন থেকে সংগৃহীত উপাদানগুলোর মিশ্রণের মাধ্যমে তৈরি হয়।

বর্তমানে ব্যবহৃত ফাইজার এবং মডার্নার উদ্ভাবিত টিকাগুলো শরীরকে “স্পাইক প্রোটিন” তৈরিতে প্ররোচিত করে। এরপর শরীরের ইমিউন সিস্টেম বা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা এই স্পাইক প্রোটিনের বিরুদ্ধে অসংখ্য অ্যান্টিবডি তৈরি করে এবং একটি সত্যিকারের ভাইরাস শরীরে প্রবেশ করলে এগুলো সেটিকে আক্রমণ করে।

তবে, করোনাভাইরাস ক্রমাগত পরিবর্তিত হয়ে চলায় ইতোমধ্যে স্পাইক প্রোটিনের আকারে পরিবর্তন এসেছে। এরফলে সংক্রমণ এবং উপসর্গ দেখা দেয়া রোধের ক্ষেত্রে ওমিক্রনের উপধরনগুলোর বিরুদ্ধে টিকার কার্যকারিতা কমে গেছে।

ধারণা করা হয় যে স্পাইক প্রোটিনে সামঞ্জস্য আনার জন্য ওমিক্রন ধরনের জিনগত তথ্য ব্যবহার করে বিদ্যমান টিকাগুলোকে হালনাগাদ করা হলে তা টিকার কার্যকারিতা বাড়াবে।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫৮: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা (৯) আবার বাড়তে থাকা সংক্রমণ কীভাবে প্রতিরোধ করা যাবে।

উত্তর-৪৫৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে” আসার ব্যাপারে আলোকপাত করছি। সংক্রমণ আবার যখন বাড়তে আরম্ভ করে, তখন কোন্‌ কোন্‌ বিষয়ে সতর্ক হওয়া উচিত? এই নিয়ে আমাদের এবারের আলোচনা।

করোনাভাইরাসের অন্য সব ধরনের বেলায় যা, ওমিক্রনের বেলাতেও তাই, একই পথে এর সংক্রমণ ছড়ায়। হাঁচি-কাশি থেকে নির্গত জলীয় কণা এবং জলীয় কণার অতিক্ষুদ্র কণার মাধ্যমে ছড়ায় এই ভাইরাস, বিশেষ করে যে জায়গায় বাতাস চলাচল কম, সেখানে।

নিশ্ছিদ্র সংক্রমণ-বিরোধী পদক্ষেপ নিলে এই রোগ প্রতিরোধ করা যাবে। বলা হয়ে থাকে ওমিক্রনের সংক্রমণ পরিবারের মধ্যেই ঘটে বেশি। তাই বাড়ির মধ্যেও পর্যাপ্ত সংক্রমণ-বিরোধী ব্যবস্থা নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। করোনাভাইরাস সংক্রমণে ওমিক্রনের আধিপত্য শুরু হওয়ার পর থেকে আক্রান্ত ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে থাকা লোকজনের জন্য বিধিনিষেধের মাত্রা কমিয়ে আনা হয়েছে। তবে আমাদের প্রত্যেকের উচিত ভাইরাস বিরোধী নিয়ম অনুসরণ অব্যাহত রাখা। সরকারের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত উপদেষ্টা প্যানেলের প্রধান ওমি শিগেরু এনএইচকে’কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, যে পরিবেশ ও পারিপার্শ্বিক অবস্থাকে সংক্রমণের জন্য বিশেষ ভাবেই ঝুঁকিপূর্ণ বলে গণ্য করা হয়, তা একই আছে, কোনও পরিবর্তন হয়নি। ওমি লোকজনকে ভিড় জায়গা বা যে জায়গায় উচ্চস্বরে কথা বলার প্রবণতা বেশি, সেরকম জায়গা এড়িয়ে চলতে আহ্বান জানিয়েছেন। বয়স্ক ব্যক্তিদের সাথে দেখা করার আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কিনা তা পরীক্ষা করিয়ে নেওয়ার আহ্বানও তিনি জানিয়েছেন। তিনি একথাও বলেন যে মহামারির অভিজ্ঞতা থেকে শিক্ষা নিয়ে সংক্রমণ প্রতিরোধের উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত সবার।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ১৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫৭: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা (৮) ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা লোকজনের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা

উত্তর-৪৫৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত লোকজনের “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে” আসার ব্যাখ্যা দিচ্ছি। “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা লোকজন” হিসাবে চিহ্নিত লোকজনের সংস্পর্শে এলে কী করা উচিত, এবারে আমরা তার ওপর আলোকপাত করবো।


পরিবারের কোন সদস্য যদি করোনাভাইরাস রোগীর সাথে “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে” আসেন তবে কী হবে? টোকিও মেট্রোপলিটন সরকারের সংক্রামক রোগ প্রতিহত করার দায়িত্বে থাকা এক বিভাগের কর্মকর্তারা বলেন যে “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা লোকজনের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে” আসার ক্ষেত্রে কোন নিয়ম নির্ধারণ করা হয়নি। তারা বলেন যে “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে” আসা হিসেবে চিহ্নিত করা লোকজন ছাড়া পরিবারের অন্য কোন সদস্যের চলাফেরার উপর মেট্রোপলিটন সরকার কোন বিধিনিষেধ আরোপ করে না।
তবে কর্মকর্তারা বলেন যে “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শের” ক্ষেত্রে কয়েকটি জায়গায় তাদের নিজস্ব নিয়মাবলী থাকায় নিজেদের নিয়োগকর্তা এবং স্কুলের সাথে নিশ্চিত করে নেয়া উচিত।

কর্মকর্তারা বলছেন যে “ঘনিষ্ট সংস্পর্শে” আসা লোকজনের পরিবারের সদস্যরা যদি ঘটনাক্রমে সংক্রমিত হয়ে থাকেন অথচ কোন উপসর্গ দেখা যাচ্ছে না, সেরকম ক্ষেত্রে যেন তারা নিম্নলিখিত সতর্কতাগুলো অবলম্বন করে চলেন।
- স্নান করার তোয়ালে ভাগাভাগি করবেন না এবং একসাথে খাবার খাবেন না। যতটা সম্ভব পরিবারের সদস্যদের মধ্যে থাকার জায়গা আলাদা করে নিন।
- বাড়িতে মাস্ক পরে থাকুন এবং যত্ন সহকারে হাত ধুয়ে তা জীবাণুমুক্ত করুন।
- যেসব স্থানে হাতের ছোঁয়া বেশি লাগে যেমন দরজার হাতল এবং বৈদ্যুতিক সরঞ্জামের রিমোট কনট্রোল সেগুলোকে জীবাণুমুক্ত করুন।
- নিয়মিত ভাবে ঘরে বায়ু চলাচল করতে দিন।

করোনাভাইরাসের অন্যান্য রূপের তুলনায় ওমিক্রনে আক্রান্ত হলে গুরুতর ভাবে অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি অনেক কম বলা হয়ে থাকে এবং একারণে সতর্কতার মাত্রা কমিয়ে আনার প্রবণতা আমাদের মধ্যে দেখা যাচ্ছে। তবে পরিবারে বয়োজ্যেষ্ঠ সদস্য বা স্বাস্থ্য সমস্যা রয়েছে এমন কেউ থাকলে সতর্কতা অবলম্বনের প্রয়োজন।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫৬: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা (৭) স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকা অবস্থায় কী করা যাবে কিংবা কী করা যাবেনা

উত্তর-৪৫৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত লোকজনের “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে” আসার ব্যাখ্যা দিচ্ছি। সেরকম সংযোগে আসা লোকজন স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময় তাদের কী করা উচিত এবং কী করা উচিত নয়, এবারে আমরা তার ওপর আলোকপাত করবো।

তাদের উচিত হবে যতটা সম্ভব প্রয়োজন ছাড়া বাইরে না যাওয়া। বাইরে যাওয়ার একান্ত প্রয়োজন হলে মাস্ক পরা এবং হাত ধুয়ে নেয়ার মতো সংক্রমণ-প্রতিরোধ পদক্ষেপ গ্রহণ এবং অন্য মানুষের সংযোগ তাদের এড়িয়ে যেতে হবে। স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকা অবস্থায় কাজে কিংবা স্কুলে তাদের যাওয়া উচিত হবে না।

টোকিও মেট্রোপলিটন সরকারের নির্দেশিকা বলছে:
- প্রয়োজন ছাড়া বাইরে যাওয়া, কাজ এবং স্কুলে যাওয়া থেকে তাদের বিরত থাকতে হবে, এবং বাড়িতে তাদের অবস্থান করতে হবে।
- প্রতিদিন সকালে এবং সন্ধ্যায় দেহের তাপমাত্রা তাদের পরীক্ষা করে দেখতে হবে।
- জ্বর এবং কাশির মত উপসর্গ দেখা দিলে পারিবারিক চিকিৎসক কিংবা করোনাভাইরাসের পরীক্ষা নেয়া ও চিকিৎসা সেবা প্রদান করা প্রতিষ্ঠানের সাথে পরামর্শ করা তাদের উচিত হবে।
- যতটা সম্ভব গণপরিবহন ব্যবস্থার ব্যবহার তাদের এড়িয়ে যেতে হবে।

টোকিওর সেন্ট লুক’স হাসপাতালের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ সাকামোতো ফুমিয়ে নিচের বিষয়গুলোর প্রস্তুতি নিয়ে রাখার উপদেশ তাদের দিয়েছেন। তিনি বলছেন সংক্রমণ বৃদ্ধি পেতে থাকার কারণে তাৎক্ষণিকভাবে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া সম্ভব নাও হতে পারে বলে এসব বিষয় হচ্ছে উপকারী।
- জ্বর কমানো ও ব্যথা উপশমের ওষুধ প্রেসক্রিপশন ছাড়া ফার্মেসিতে পাওয়া যায়।
- শরীরে পানির ঘাটতি দূর করে নেয়ার আইসোটনিক পানীয়
- জেলি সদৃশ পানীয়ের মত সহজ প্রাপ্য খাবার
- দৈনন্দিন প্রয়োজনের সামগ্রীর অতিরিক্ত সরবরাহ
- শারীরিক অসুস্থতা থেকে থাকলে চিকিৎসার জন্য দরকার হওয়া ওষুধের অতিরিক্ত ডোজ।

তিনি এছাড়া টিকা নেয়া এবং স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকতে হওয়ার সময় পরামর্শের জন্য প্রয়োজন হতে পারা স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ সম্পর্কে খোঁজখবর নিয়ে রাখার আহ্বানও লোকজনের প্রতি জানাচ্ছেন।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ১৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫৫: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা (৬) কর্মস্থলে আক্রান্তের ঘটনা

উত্তর-৪৫৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে, আমরা এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শ”এ আসার বিষয়টি ব্যাখ্যা করব। এবারে আমরা কর্মস্থলে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা কিভাবে সামাল দিতে হবে তার ওপর আলোকপাত করব।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, কর্মস্থলে কেউ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে, সংক্রমিত ব্যক্তির সহকর্মীদের বাড়িতে বা অন্যান্য স্থানে নীতিগতভাবে স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার প্রয়োজন নেই। কিন্তু আক্রান্ত ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা লোকজনকে সংস্পর্শে আসার দিন থেকে প্রায় ৭ দিন প্রবীণ ব্যক্তি বা প্রবীণদের থাকার স্থাপনা পরিদর্শন, অনেক লোকের সাথে খাওয়া বা পান করা এবং বড় ধরনের অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার মতো উচ্চ-ঝুঁকিপূর্ণ কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানানো হচ্ছে।
কেউ যদি মাস্ক না পরার মতো ভাইরাস রোধী পদক্ষেপ গ্রহণ না করে কর্মস্থলে আক্রান্ত কারো সাথে খাবার খান, তাহলে তাদেরকে ৫ দিন স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকা এবং স্বেচ্ছায় করোনা ভাইরাসের পরীক্ষা করানোর মতো সংক্রমণ রোধী প্রচেষ্টা চালানোর জন্য উৎসাহিত করা হচ্ছে।
এদিকে, চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান বা প্রবীণদের সেবাদান কেন্দ্র’সহ মারাত্মকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার মতো উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ লোকদের সমবেত হওয়ার স্থানগুলোতে সংক্রমণ নিশ্চিত করা হলে, অতিরিক্ত যত্ন নেয়ার প্রয়োজন রয়েছে। এ ধরনের ঘটনার ক্ষেত্রে, যারা ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে এসেছেন তাদের ৫ দিন স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকা দরকার। যদি অ্যান্টিজেন পরীক্ষার ফলাফল দ্বিতীয় এবং তৃতীয় দিন নেগেটিভ আসে, তাহলে তৃতীয় দিনে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা লোকজন তাদের স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকা শেষ করে দিতে পারেন, যেমন পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসার ঘটনার ক্ষেত্রে।
এই নির্দেশিকা কেবল গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় কর্মরত কর্মীদের ক্ষেত্রেই নয় বরং সব ধরনের লোকজনের প্রতিই প্রয়োগ করা হবে।
মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, চিকিৎসা কর্মী এবং সেবা প্রদানকারী কর্মীরা যদি প্রতিদিন পরীক্ষা করান এবং ফলাফল নেগেটিভ আসে তাহলে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে এসেছেন মনে হলেও, তারা কর্মস্থলে যেতে পারবেন।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ১৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫৪: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা (৫) স্ব-বিচ্ছিন্নতার সময়কাল শেষে করণীয়

উত্তর-৪৫৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। দীর্ঘায়িত প্রাদুর্ভাবের মাঝে জাপান সরকার সম্প্রতি করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগীদের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের বিষয়ে তাদের নির্দেশিকা পরিবর্তন করেছে। এই ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত লোকজনের “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের” সম্পর্কে ব্যাখ্যা দিচ্ছি। আর এবারে আমরা স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার পরবর্তী সময়ের ওপর আলোকপাত করব।

করোনাভাইরাস রোগীর “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে” এসেছেন হিসেবে চিহ্নিত ব্যক্তিদের স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে বিধিনিষেধ উঠে যাওয়ার পরে, তারা তাদের কর্মস্থল বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে পারবেন।

গত ১৩ই জানুয়ারি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে, জাতীয় সংক্রামক রোগ ইনস্টিটিউট উল্লেখ করেছে যে লোকজন যখন ওমিক্রন ধরনে সংক্রমিত হন, তখন তিন দিনের মধ্যে উপসর্গ দেখা দেয়ার সম্ভাবনা ৫৩.০৫ শতাংশ, পাঁচ দিনের মধ্যে ৮২.৬৫ শতাংশ এবং সাত দিনের মধ্যে ৯৪.৫৩ শতাংশ।

এর মানে হচ্ছে, বর্তমানের পাঁচ দিনের স্ব-বিচ্ছিন্নতার সময়কালটি সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিটি যে সংক্রমিত নন, তা নিশ্চিত করার জন্য যথেষ্ট দীর্ঘ নাও হতে পারে।

অতএব, এক্ষেত্রে এই পরামর্শ দেওয়া হয় যে "ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে" এসেছেন হিসেবে মনোনীত ব্যক্তিরা সতর্কতার সাথে তাদের তাপমাত্রা এবং অন্যান্য স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্ট অবস্থা যাচাই করে দেখবেন এবং সাত দিন শেষ না হওয়া পর্যন্ত উচ্চ-ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা এড়ানো এবং দলবদ্ধভাবে খাবার গ্রহণ না করার মতো সংক্রমণ-রোধী পুঙ্খানুপুঙ্খ পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন। আর এটি বলার অপেক্ষা রাখে না যে এমনকি এই সময়ের পরেও, সংশ্লিষ্ট সকলের সংক্রমণ-রোধী পদক্ষেপ নেয়া অব্যাহত রাখা উচিত।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫৩: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা (৪) পরিবারের আরও একজন সদস্য যদি সংক্রমিত হয় তখন কী হবে?

উত্তর-৪৫৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগীদের “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে” আসার বিষয়টির ওপর আলোকপাত করছি। এবারের আলোচনার বিষয়বস্তু হলো পরিবারে একজন সদস্য প্রথমে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পরে আরেকজন সদস্যও যদি সংক্রমিত হন, তখন কী করতে হবে।

সরকারি নির্দেশকায় বলা হয়েছে, পরিবারে দ্বিতীয় কোনো সদস্য সংক্রমিত হলে, অন্য সদস্যদের স্ব-বিচ্ছিন্ন হয়ে থাকার পালা আরম্ভ হবে আবার। যেমন ধরুন, একটি শিশু সংক্রমিত হলো। তার উপসর্গ হাল্কা এবং সে বাড়িতে থেকে ভাল হয়ে উঠতে লাগলো। এরকম দৃষ্টান্তের ক্ষেত্রে নির্দেশিকায় কী করতে বলা হয়েছে, দেখা যাক।

▼ করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফলাফল তখনও জানা না গেলেও, শিশুটির উপসর্গ যেদিন থেকে দেখা দেয়, সেই দিনটিকে ডে-যিরো বা শুরু হওয়ার দিন হিসেবে গণনা করতে হবে, যদি সেই দিন থেকে বাড়ির মধ্যে সংক্রমণ বিরোধী সবরকম ব্যবস্থা নেওয়া হয়। পরিবারের বাকী সবাইকে স্ব-বিচ্ছিন্ন হয়ে থাকতে হবে পঞ্চম দিন পর্যন্ত।

▼ পরীক্ষায় সংক্রমণ নিশ্চিত না হওয়া অব্দি সংক্রমণ বিরোধী ব্যবস্থা যদি না নেওয়া হয়, সেক্ষেত্রে যেদিন জানা যাবে যে ফলাফল পজিটিভ, সেই দিনকে ডে-যিরো বা আরম্ভের দিন হিসেবে গণনা করতে হবে। এই দিনের পরে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকতে হবে পাঁচ দিন।

▼ দশ দিনের একটি সময়সীমা স্থির করা হয়েছে সংক্রমিত শিশু’র সুস্থ হয়ে ওঠার জন্য। উপসর্গ প্রথম যেদিন দেখা দিল তার পরদিন থেকে গণনা করে দশ দিন। সময়সীমা উত্তীর্ণ হওয়ার আগে এমনকি আর কোনও পরীক্ষাও করা হবে না। তবে এটা নিশ্চিত করতে হবে যে সময়সীমা ফুরানোর আগে অন্তত ৭২ ঘন্টা শিশুটির মধ্যে আর কোনও উপসর্গ প্রতীয়মান হচ্ছে না। উপসর্গ যদি আরও বেড়ে যায়, স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে উপদেশ নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে শিশু’র বাবা-মা’কে।

▼ শিশুটির যদি কোনও উপসর্গ না থাকে, তাহলে যেদিন পরীক্ষার জন্য নমুনা নেওয়া হবে, সেই দিনকে ডে-যিরো হিসেবে গণনা করা হবে এবং সপ্তম দিন পর্যন্ত একটি সময়সীমা ধার্য্য করা হবে সুস্থ হয়ে ওঠার জন্যে। এখানে উল্লেখ করা দরকার, সংক্রমণ নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত বাড়ির মধ্যে সংক্রমণ বিরোধী ব্যবস্থা না নেওয়া হলে, পরিবারের বাকী সদস্যদের স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময়সীমা নির্ধারণের জন্য সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়ার দিনটিকে ডে-যিরো হিসেবে গণ্য করতে হবে।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ১২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫২: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা (৩) পরিবারের একজন সদস্য সংক্রমিত হলে স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময় কতটা দীর্ঘস্থায়ী হবে?

উত্তর-৪৫২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত মানুষের “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শের” ব্যাখ্যা দিচ্ছি। পরিবারের একজন সদস্য আক্রান্ত হলে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা লোকজনকে কতদিন ধরে বাড়িতে বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থাকতে হবে, এবারে আমরা সেদিকে আলোকপাত করবো।

পরিবারের একজন সদস্য যখন করোনাভাইরাসের পরীক্ষায় পজিটিভ প্রমাণিত হন এবং অন্য সদস্যদের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা হিসাবে চিহ্নিত করা হয়, তাদেরকে তখন বাড়িতে স্ব-বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থাকতে বলা হয়।

ঘনিষ্ঠ সংযোগে আসা লোকজন আগে নীতিগতভাবে সাত দিন পর তাদের স্ব-বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থাকা শেষ করতে পারতেন। তবে সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড সচল রাখার জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ২২শে জুলাই থেকে শুরু করে স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকার সময় পাঁচ দিনে কমিয়ে এনেছে।

নিচের তিনটি দিনকে সর্বশেষ বিবেচনায় সংক্রমিত ব্যক্তির ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার বেলায় সূচনার দিন বা শূন্য দিবস ধরা হয়।
- সংক্রমিত ব্যক্তির উপসর্গ যেদিন দেখা দিতে শুরু করে।
- সংক্রমিত ব্যক্তির উপসর্গ দেখা না গেলে করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা যেদিন সংগ্রহ করা হয়।
- সংক্রমিত ব্যক্তির পরীক্ষা পজিটিভ হওয়ার পর যেদিন থেকে সংক্রমণ
প্রতিরোধ পদক্ষেপ কার্যকর করা হয়েছে।

আক্রান্ত ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা লোকজনের পঞ্চম দিন পর্যন্ত স্ব-বিচ্ছিন্ন অবস্থায় থাকা দরকার। ষষ্ঠ দিনে স্ব-বিচ্ছিন্ন অবস্থা তুলে নেয়া যেতে পারে।

তবে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের দ্বিতীয় ও তৃতীয় – উভয় দিনে সরকারের অনুমোদিত এন্টিজেন পরীক্ষায় নেগেটিভ ফলাফল পাওয়া গেলে তৃতীয় দিন থেকে এদের বিচ্ছিন্ন অবস্থা তুলে নেয়া যেতে পারে।

সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপ বলতে এখানে যা বলা হচ্ছে তার মধ্যে ফেস মাস্ক ব্যবহার করা, হাত ধুয়ে নেয়া, এবং ঘরে প্রায়শই বায়ু সঞ্চালনের ব্যবস্থা রাখা। পরিবারের সদস্যদের সম্পূর্ণ ভিন্ন কক্ষ ব্যবহার করার মতো আক্রান্ত ব্যক্তির সাথে সবরকম সংযোগ পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন করে দেয়ার দরকার নেই।

অল্প বয়সী শিশুদের বেলায় মাস্ক পরা কঠিন হলে ভালভাবে এদের হাত পরিষ্কার করা এবং একই তোয়ালে ভাগাভাগি করে ব্যবহার না করার মত অন্যান্য পদক্ষেপ গ্রহণ করুন। এর বাইরে ঘরে বাতাস সঞ্চালনের ব্যবস্থা করা এবং যতটা সম্ভব সংযোগ এড়িয়ে চলার মতো মৌলিক সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপও নিতে হবে।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ১১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫১: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা (২) ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শ কিভাবে নির্ধারণ করা হয়?

উত্তর-৪৫১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। রোগের বিস্তার দীর্ঘ সময় ধরে চলতে থাকায় জাপান সরকার সম্প্রতি সংক্রমিত লোকজনের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা নিয়ে সরকারি নির্দেশিকা সংশোধন করে নিয়েছে। এই ধারাবাহিকে আমরা “ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শ” বলতে কী বুঝায় তার ব্যাখ্যা দিচ্ছি। কিভাবে এটা নির্ধারণ করা হয় এবারে আমরা সেদিকে আলোকপাত করবো।

সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া অবস্থায় বিশেষ কোন ব্যক্তি সংক্রমিত কারও সংস্পর্শে এসেছেন কিনা, নমনীয়ভাবে তা নির্ধারণ করে নেয়ার অনুমতি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বিভিন্ন পৌরসভাকে দিয়ে থাকে। মন্ত্রণালয়ের ভাষ্য অনুযায়ী, সংক্রমণ কোথায় দেখা দিয়েছে তার উপর নির্ভর করে সাড়া ভিন্ন হয়ে থাকবে।

সংক্রমিত ব্যক্তি পরিবারের সদস্য হলে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে কারা আসছেন স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ তা চিহ্নিত করবে এবং পরিবারের সদস্যরা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকায় এদের কর্মকাণ্ড সীমিত করার অনুরোধ জানাবে। তবে ভিন্নভাবে প্রত্যেক ব্যক্তির সাক্ষাৎকার স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ নেবে না।

এদিকে, কাজের জায়গায় সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ির তুলনায় কম মনে করা হয়, ফলে স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ কাজের জায়গায় ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা সকলকে চিহ্নিত করবে বলে প্রত্যাশা করা যায় না। নিজের কাজের জায়গায় কেউ কোভিড-১৯এ সংক্রমিত হলে ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শ ছিল কিনা সেই ব্যক্তির নিজেকেই তা ঠিক করে নিতে হবে।

অন্যদিকে, চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে ও সেই সাথে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি অনেকের আছে বলে বৃদ্ধ ও প্রতিবন্ধীদের জন্য নির্ধারিত স্থাপনায় ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শ স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ দ্রুত নির্ধারণ করে নেবে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে নার্সারি স্কুল, কিন্ডারগার্টেন, প্রাইমারি স্কুল ও জুনিয়র হাই স্কুলের জন্য অনুসরণ করা নীতি পৌরসভা ও শিক্ষা বোর্ডের ঠিক করে নিতে হবে। প্রিস্কুল এবং স্কুলের শিশুদের বেলায় ফেস মাস্ক পরা হবে কিনা, সেরকম পদক্ষেপ ভিন্ন হতে পারে।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৫০: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা (১) সংজ্ঞা

উত্তর-৪৫০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ভাইরাসটি বিস্তৃতভাবে যখন ছড়িয়ে পড়বে, তখন কেউ যতই সতর্ক থাকুন না কেন, তা সত্ত্বেও সংক্রমিত হতে পারেন। জাপানের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ সমাজ এবং অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের ওপর এর প্রভাব ন্যূনতম করার জন্য ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তি বলে সনাক্ত করা লোকজনের জন্য শর্তসমূহ বদলে নিয়েছে। এই ধারাবাহিকে, আমরা ব্যাখ্যা করে বলব, ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তি হিসেবে কাদেরকে চিহ্নিত করা হবে এবং তাদেরকে ঠিক কী করতে হবে। এবারে আমরা কিভাবে এগুলোকে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে তার ওপর নজর দেব।

ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তি হিসেবে তারাই চিহ্নিত হবেন যারা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর কাছাকাছি ছিলেন বা এ ধরনের কারো উপস্থিতিতে কিছু সময় কাটিয়েছেন। ধরে নেয়া হয় যে, এইসব ব্যক্তিরা এই ভাইরাসের সংস্পর্শে এসেছিলেন এবং সেজন্য আক্রান্ত হতে পারেন।
আপনি একজন ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তি কিনা তা সনাক্ত করার জন্য গুটিকয়েক নির্দিষ্ট বিষয় রয়েছে।

--উপসর্গ দেখা দেয়ার দু’দিন আগে থেকে শুরু করে উপসর্গ দেখা দেয়ার ১০ দিন পর পর্যন্ত সময়ে এই ভাইরাসে আক্রান্ত কারো ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে ছিলেন কিনা। তবে, উপসর্গ দেখা দিতে শুরু করার ৭ দিন পরেও তা যদি মিলিয়ে না যায়, তাহলে এই সময়কালকে উপসর্গ সেরে যাওয়ার পরে ৩ দিন পর্যন্ত সম্প্রসারণ করে নেয়া হয়। যদি রোগীর কোন উপসর্গ না থাকে, তাহলে এই সময়কাল শুরু হবে তাদের পরীক্ষার ২ দিন আগে থেকে এবং শেষ হবে পরীক্ষার ৭ দিন পর।

--আপনি যখন একজন রোগীকে ছোঁবেন কিংবা রোগীর শরীরের তরল লেগে থাকা কিছু ছুঁয়ে ফেলবেন তখন যদি আপনি মাস্ক পরে না থাকেন। একজন রোগীর ছুঁয়ে দেয়ার দূরত্বে ১৫ মিনিটের বেশি সময় ধরে থাকলে আপনি ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে এসেছেন বলে চিহ্নিত হবেন।

--এমনকি আপনার বাড়িতে একজন রোগী থাকলে কিংবা একজন রোগীর সেবাযত্ন করলে আপনি অপরিহার্যভাবে একজন ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তি হিসেবে বিবেচিত নাও হতে পারেন। চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান এবং নার্সিং হোমে গ্রহণ করা পদক্ষেপসমূহ পুরোপুরি পালন করে আপনি একজন ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিতে পরিণত হওয়া এড়িয়ে যেতে পারেন।

--আক্রান্ত কারোর আশপাশে ১৫ মিনিটের বেশি সময় ধরে যদি আপনি থাকেন, তাহলেও আপনাকে অপরিহার্যভাবে একজন ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তি হিসেবে বিবেচনা নাও করা হতে পারে। এই সিদ্ধান্ত নেয়ার সময়, আপনি কথা বলছিলেন কিনা, ঘরটি পর্যাপ্ত খোলামেলা ছিল কিনা অর্থাৎ বাতাসের প্রবাহ ছিল কিনা এবং আপনি একটি মাস্ক পরিধান করে ছিলেন কিনা এ ধরনের বিষয়গুলো বিবেচনা করা হয়।

এই তথ্যগুলো আগস্ট মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪৯: ওমিক্রন বিএ.৫ উপধরন কী? (৬) আরও বেশি উদ্বেগের উপধরন

উত্তর-৪৪৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রনের উপধরন বিএ.৫ নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের এই ষষ্ঠ পর্বে এবারে আমরা ওমিক্রনের অন্য কিছু উদ্বেগজনক উপধরনের দিকে নজর দেব।

জুলাই মাসের ১২ তারিখে পশ্চিম জাপানের কোবে শহর কোয়ারেন্টিনে দেখা যাওয়ার বাইরে দেশের ভেতরে প্রথম ওমিক্রন বিএ.২.৭৫ উপধরনের সংক্রমণ সনাক্ত হওয়ার খবর দেয়।
জুন মাসে ভারতে প্রথম সনাক্ত হওয়ার পর যুক্তরাজ্য, জার্মানি এবং যুক্তরাষ্ট্রেও এই উপধরনের দেখা পাওয়া গেছে।

এই উপধরন বিএ.৫ এর মতোই মানুষের রোগ প্রতিরোধ সক্ষমতা এড়িয়ে যাওয়ার ক্ষমতা রাখে বলে খবরে বলা হয়েছে। খবরে উল্লেখ করা হয়েছে যে ভারতে এটা বিএ.৫ এর চাইতে দ্রুত গতিতে বিস্তার লাভ করে।

টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি’র অধ্যাপক হামাদা আৎসুও বলছেন বিএ.২.৭৫ উপ ধরন বিএ.২ এর চাইতে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা এড়িয়ে যেতে আরও বেশি সক্ষম। তিনি বলেছেন এর অর্থ হল প্রতিরোধ ক্ষমতা যারা লাভ করেছেন, সেরকম মানুষের বেলায় সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি হচ্ছে বেশি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এটাকে পর্যবেক্ষণে থাকা উদ্বেগজনক বিভাগের একটি উপধরন হিসাবে চিহ্নিত করেছে। অধ্যাপক বলছেন জাপানের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের উচিত হবে নতুন এই উপধরনের বৈশিষ্ট্যের দিকে ঘনিষ্ঠ নজর রাখা।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪৮: ওমিক্রন বিএ.৫ উপধরন কী? (৫) টিকাদান

উত্তর-৪৪৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রনের উপধরন বিএ.৫ নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের পঞ্চম পর্বে আমরা করোনাভাইরাসের টিকার কার্যকারিতার দিকে নজর দেব।

ব্রিটিশ স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের ২৪শে জুন প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকজন সংক্রান্ত মে মাসের শেষ নাগাদ পর্যন্ত এক মাসের উপাত্ত বিশ্লেষণে দেখা যায় যে, বিএ.৫ এবং বিএ.২ উপধরনে টিকার কার্যকারিতার মধ্যে খুব একটা উল্লেখযোগ্য পার্থক্য নেই।

এদিকে, মার্কিন খাদ্য এবং ওষুধ প্রশাসন বা এফডিএ জুন মাসের ৩০ তারিখ ঘোষণা করে যে, বিএ.৪ এবং বিএ.৫ উপধরনের সাথে লড়াই করার জন্য তাদের বুস্টার ডোজ টিকার মধ্যে অতিরিক্ত স্পাইক প্রোটিন অন্তর্ভুক্ত করার জন্য তারা বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানিকে সুপারিশ করছে। তবে, এফডিএ বর্তমান টিকাকে বদলে নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছে না, কেননা এগুলো আক্রান্ত রোগীদের আরও মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়ার হাত থেকে রক্ষা করার একটি মৌলিক ভিত্তি হিসেবে কাজ করছে।

টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি’র অধ্যাপক হামাদা আৎসুও সতর্ক করে দিচ্ছেন যে, জাপান হয়তো এই শরতে শুরু হওয়া একটি এমনকি অনেক বড় ধরনের তরঙ্গের মুখোমুখি হতে পারে এবং শরতের জন্য একটি টিকাদান কর্মসূচি প্রণয়নের লক্ষ্যে আগাম আলোচনা করা ও পর্যাপ্ত টিকা নিশ্চিতকরণের ব্যবস্থা করার জন্যও তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছেন।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ১৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪৭: ওমিক্রন বিএ.৫ উপধরন কী? (৪) এটি কি আরও বেশি রোগ সৃষ্টিকারী?

উত্তর-৪৪৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রনের উপধরন বিএ.৫ নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের চতুর্থ পর্বে আমরা এই ভাইরাস কি আরও বেশি প্যাথোজেনিক বা আরও বেশি সম্ভাব্য রোগ সৃষ্টিকারী কিনা, সেই বিষয়ের উপর নজর দেব।

টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক সাতো কেইয়ের নেতৃত্বাধীন জি২পি-জাপান নামক একটি গবেষণা দল অনলাইনে প্রকাশিত একটি নিবন্ধের প্রাক-মুদ্রণ সংস্করণে তাদের এসম্পর্কিত গবেষণার ফলাফল তুলে ধরেছে।

গবেষকরা শুরুতে কৃত্রিমভাবে বিএ.৫ উপধরনের বৈশিষ্ট্য সম্বলিত একটি ভাইরাসের পাশাপাশি বিএ.২ উপধরনের বৈশিষ্ট্যযুক্ত আরেকটি ভাইরাস তৈরি করেন।

তারপরে, ভাইরাসটি কতটা বৃদ্ধি পাবে তা পরীক্ষা করে দেখার জন্য, তারা প্রতিটি উপধরন দিয়ে গবেষণাগারে কৃত্রিমভাবে বৃদ্ধি করে নেয়া কিছু কোষকে সংক্রামিত করেন।

তারা লক্ষ্য করেন যে এই সংক্রমণ প্রক্রিয়ার ২৪ ঘন্টা পরে বিএ.৫ উপধরনে সংক্রামিত কোষে ভাইরাসের মাত্রা বিএ.২ দ্বারা সংক্রামিত কোষের তুলনায় ৩৪ গুণ বেশি ছিল।

গ্রুপটি এটিও উল্লেখ করেছে যে হ্যামস্টার ব্যবহার করে করা তাদের পরীক্ষায় দেখা গেছে, ইনজেকশনের মাধ্যমে বিএ.২ উপধরন প্রবেশ করানো প্রাণীগুলোর ওজন খুব সামান্য কমেছে, কিন্তু বিএ.৫ উপধরন প্রবেশ করানো অন্য প্রাণীগুলোর ক্ষেত্রে ওজনের প্রায় ১০ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে।

গ্রুপটির ভাষ্যানুযায়ী, বিএ.৫ সংক্রমণে ফুসফুসের প্রদাহের মাত্রা বিএ.২ সংক্রমণের তুলনায় উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি ছিল।

গ্রুপটি এও বলছে যে যদিও মানব দেহের সম্ভাব্য উপসর্গগুলো নিয়ে আরও গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে, তবুও তাদের এই পরীক্ষাগুলো ইতিমধ্যেই এটি নির্দেশ করছে যে বিএ.৫ উপধরন বিএ.২ উপধরনের চেয়ে বেশি প্যাথোজেনিক বা রোগ সৃষ্টিকারী।

অধ্যাপক সাতো বলছেন যে ভাইরাসের বিষাক্ততা সবসময় দুর্বল হবে না। তিনি বলেন, ভাইরাসটি এখনও পরিবর্তিত হয়ে চলেছে এবং তাই এক্ষেত্রে সতর্ক থাকা প্রয়োজন।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪৬: ওমিক্রন বিএ.৫ উপধরন কী? (৩) গুরুতর উপসর্গ দেখা দেওয়ার ঝুঁকি

উত্তর-৪৪৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রনের বিএ.৫ উপধরন নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের তৃতীয় পর্বে এবারে আমরা জানার চেষ্টা করবো এই উপধরনে সংক্রমিত হলে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ার আশংকা কতখানি।

প্রশ্নটির উত্তর দিতে গিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ৬ই জুলাই তার সাপ্তাহিক রিপোর্টে জানায়, এমন কোন প্রমাণ মেলেনি যা থেকে বলা যাবে যে বিএ.৫ আর বিএ.২ উপধরনের মধ্যে বিরাট কোন পার্থক্য আছে। তবে রিপোর্টে বলা হয়, বহু দেশে নতুন সংক্রমণের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া অথবা নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসা করাতে হওয়া রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও।

এছাড়া ইউরোপের রোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র ১৩ই জুন এক রিপোর্টে জানায়, তথ্য-উপাত্ত সীমিত হলেও, এমন কোন প্রমাণ এখনও মেলেনি যে ভাইরাসের উপধরনে আক্রান্ত রোগীদের দেহে গুরুতর উপসর্গ দেখা দেওয়ার ঝুঁকি বেশি। তবে রিপোর্টে এও বলা হয়, সংক্রমণ যদি বাড়ে, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এবং মৃত্যুর সংখ্যা, দুইই আরও বৃদ্ধি পেতে পারে।

বিদেশের সংক্রমণ সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি’র অধ্যাপক হামাদা আৎসুও বলেন, পূর্ববর্তী উপধরনগুলোর চাইতে বিএ.৫ কিছুটা বেশি ছোঁয়াচে এবং এই উপধরন এমনকি রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতাসম্পন্ন লোকজনকেও সংক্রমিত করতে পারে। এটি বিএ.২’এর জায়গায় আসা অন্য একটি উপধরন, শুধু তাই নয়, এর ফলে সংক্রমণের সংখ্যাবৃদ্ধিও এড়ানো যাবে না হয়তো। তিনি বলেন, আমাদের সতর্ক থাকতে হবে, কারণ সংক্রমণ বাড়লে, গুরুতর উপসর্গে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও বাড়বে।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪৫: ওমিক্রন বিএ.৫ উপধরন কি? (২) এর বৈশিষ্ট্যসমূহ

উত্তর-৪৪৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রনের উপধরন বিএ.৫ নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের দ্বিতীয় পর্বে আমরা ভাইরাসের এই ধরনের বৈশিষ্ট্যসমূহ কি সেদিকে আলোকপাত করবো।

বিএ.৫ এর স্পাইক প্রোটিনে এল৪৫২আর ও অন্যান্য রূপান্তর যুক্ত আছে। ভাইরাসের পৃষ্ঠের এই স্পাইক প্রোটিন স্বাগতিক কোষে সংক্রমণ শুরু করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এল৪৫২আর রূপান্তর মানব দেহের রোগ প্রতিরোধের জবাব এড়িয়ে যেতে ভাইরাসকে সাহায্য করে বলে জানা যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জুলাই মাসের শুরুতে প্রকাশ করা একটি হালনাগাদ প্রতিবেদনে দেখা যায় যে বিএ.৫ অ্যান্টিবডির নিষ্ক্রিয় করে দেয়ার কার্যকারিতা বিএ.১ এর তুলনায় সাত গুনের বেশি কমিয়ে দেয়।

বিশেষজ্ঞরা আরও সন্দেহ করছেন যে টিকার মাধ্যমে অর্জন করা রোগ প্রতিরোধ সক্ষমতা সময়ের সাথে কমে আসতে পারে, যা কিনা সাম্প্রতিক সময়ে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় অবদান রেখেছে।

জাপানে কিয়োতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিশিউরা হিরোশি ৩০ জুন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের এক বৈঠকে কিছু উপাত্ত উপস্থাপন করেছেন, ওমিক্রন ধরন থেকে যারা মুক্ত তাদের শতকরা হার কমে যাওয়ার ইঙ্গিত যেখানে দেয়া হয়েছে। উপাত্তে দেখানো হয় যে জুন মাসের শেষ দিক পর্যন্ত যারা মুক্ত বা নিরাপদ, ২০র ঘরে বয়সীদের মধ্যে তাদের হার ছিল ৪৪.৬ শতাংশ। ৭০এর ঘরে বয়সীদের মধ্যে সেই হার ছিল ৩৭.৪ শতাংশ।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪৪: ওমিক্রন বিএ.৫ উপধরন কি? (১) বিএ.৫ এর বিস্তার

উত্তর-৪৪৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এবারে আমরা ওমিক্রন বিএ.৫ উপধরন নিয়ে নতুন একটি ধারাবাহিক শুরু করছি। প্রথম পর্বে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের দেশগুলোতে আধিপত্য বিস্তার করতে থাকা রূপান্তরিত সেই ভাইরাসের উপর আমরা আলোকপাত করবো। জাপানেও এটা বিস্তৃত হচ্ছে।

বিএ.৫ হচ্ছে ওমিক্রনের একটি উপধরন এবং ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে দক্ষিণ আফ্রিকায় এটা প্রথম নিশ্চিত করা হয়। মে মাস থেকে এটা প্রধানত যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে জুন মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত বিশ্ব জুড়ে সনাক্ত হওয়া নতুন করোনাভাইরাসের সবরকম ঘটনার মধ্যে এর অংশ হচ্ছে প্রায় ৪০ শতাংশ।
যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র তাদের সাপ্তাহিক প্রতিবেদনে বলেছে যে ২রা জুলাই পর্যন্ত সারা দেশ জুড়ে নতুন সংক্রমণের ৫৩.৬ শতাংশ হচ্ছে বিএ.৫। সাম্প্রতিক সময়ে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার জন্য এই উপধরন আংশিকভাবে দায়ী বলে মনে করা হয়।

ব্রিটেনের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ ২৪শে জুন ঘোষণা করেছে যে বিএ.৫ উপধরন এই সময়ের আগে পর্যন্ত প্রাধান্য বজায় রাখা বিএ.২ উপধরনের চাইতে ৩৫.১ শতাংশ দ্রুত গতিতে বিস্তার লাভ করছে বলে মনে করা হয়।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে দেখা টোকিও মেট্রোপলিটন সরকারের বিশেষজ্ঞ প্যানেল বলছে ২৭শে জুন পর্যন্ত এক সপ্তাহে রাজধানীতে সনাক্ত হওয়া ঘটনার মধ্যে ৩৩.৪ শতাংশ সংক্রমণ বিএ.৫ উপধরন ছিল বলে ধারণা করা হয়।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ১৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪৩: লং কোভিড বা করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া (৮) রোগীদের সঠিক সেবা প্রদান হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ

উত্তর-৪৪৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। “লং কোভিড” সংক্রান্ত আমাদের এই ধারাবাহিকের শেষ পর্বে, আমরা যেসব রোগীদের উপসর্গ থেকে যাচ্ছে তাদের সঠিক সেবা প্রদানের গুরুত্বের উপর নজর দেব।

বিলম্বিত প্রতিক্রিয়া হিসেবে দেখা দেয়া উপসর্গের ব্যাপ্তির অর্থে লং কোভিড নিয়ে এখনও বুঝতে না পারা অনেক বিষয় রয়ে গেছে এবং এইসব উপসর্গের কারণও অজানা রয়েছে। লং কোভিড রোগীদের চিকিৎসা প্রদান করা দু’জন বিশেষজ্ঞ এ ধরনের উপসর্গে ভোগা রোগীদের জন্য সঠিক সেবার গুরুত্বের উপর জোর দিয়েছেন।

কোচি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইয়োকোইয়ামা আকিহিতো বলছেন, এইসব উপসর্গের কারণ কী, সেটা কোন বিষয় নয়, বরং এটি একটি বাস্তবতা যে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পরে অনেকেরই বিভিন্ন উপসর্গে ভোগা অব্যাহত থাকছে। এছাড়াও তিনি জোর দিয়ে বলেন, এইসব রোগীদের কথা শুনে সঠিকভাবে সেবা প্রদান করার প্রয়োজন রয়েছে।

গিফু বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শিমোহাতা তাকাইয়োশি বলছেন, একদিকে রোগীদের কারো কারো মস্তিষ্কের কোষে প্রদাহ দেখা যাচ্ছে, আবার কেউ কেউ তাদের এই থেকে যাওয়া উপসর্গগুলো সামাল দিতে না পেরে মানসিকভাবে অস্থিতিশীল হয়ে পড়ছেন যা আবার হয়তো তাদের উপসর্গগুলোকে আরও খারাপের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। শিমোহাতা বলছেন, রোগীদের উপসর্গের কারণ যাই-ই হোক না কেন, ডাক্তারদের অবশ্যই পূর্ণ সহযোগিতা করতে হবে তাদের সাথে। তিনি জোর দিয়ে বলেন, এইসব রোগীদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সহযোগিতা প্রদান এবং এই পরিস্থিতিতে লোকজনকে সচেতন করে তোলার জন্য, সরকারকে অবশ্যই গবেষণায় পূর্ণাঙ্গ মাত্রায় বিনিয়োগ করতে হবে এবং একটি চিকিৎসা কেন্দ্র গঠন করতে হবে যেটির লং কোভিড চিকিৎসায় বিশেষ জ্ঞান থাকতে হবে।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ১২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪২: লং কোভিড বা করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া (৭) ওমিক্রন ধরনের ক্ষেত্রে কোভিড পরবর্তী উপসর্গের সম্ভাবনা কম

উত্তর-৪৪২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে “লং কোভিড” বা কোভিড-১৯ পরবর্তী প্রতিক্রিয়া নামে পরিচিত মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবের উপর আলোকপাত করা হচ্ছে। এবারে আমরা ওমিক্রন ধরনে সংক্রমণের পরবর্তী লং কোভিড এর উপসর্গগুলোর উপর নজর দেব।
টোকিও মেট্রোপলিটন সরকার গত এপ্রিল পর্যন্ত ৪ মাসে ওমিক্রন ধরনে সংক্রমিত ২ হাজারেরও বেশি রোগীর অবহিত করা ‘লং কোভিড’ এর লক্ষণগুলোর একটি তালিকা প্রণয়ন করেছে।

এই তালিকায় দেখা গেছে যে ৩৮.৬ শতাংশ কাশি, ৩৪ শতাংশ ক্লান্তি, ১০.৬ শতাংশ স্বাদ গ্রহণে অসুবিধা এবং ৯.৫ শতাংশ ঘ্রাণের সমস্যা নিয়ে অভিযোগ করেছেন।

এই উপাত্ত বিশ্লেষণকারী বিশেষজ্ঞদের ভাষ্যানুযায়ী, তারা দেখতে পেয়েছেন যে ডেল্টা এবং অন্যান্য ধরনের সংক্রমণের তুলনায় স্বাদ গ্রহণ, ঘ্রাণের সমস্যা এবং চুল পড়ার মতো উপসর্গগুলো এক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্যভাবে কম।
এছাড়া, জাপানের ন্যাশনাল সেন্টার ফর গ্লোবাল হেলথ অ্যান্ড মেডিসিনের একদল গবেষকও বয়স, লিঙ্গ এবং টিকাদানের অবস্থার ভিত্তিতে, ওমিক্রন ধরনে সংক্রমিত রোগীদের সাথে এর আগে প্রাদুর্ভাব ঘটা অন্যান্য ধরনে সংক্রমিত রোগীদের তুলনা সম্বলিত একটি গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করেছে।

এই ফলাফলে দেখা যায় যে ওমিক্রন ধরনে সংক্রমিত রোগীদের ক্ষেত্রে অন্যান্য ধরনে আক্রান্ত রোগীদের তুলনায় ‘লং কোভিড’ বলে মনে করা উপসর্গগুলোর মাত্র এক দশমাংশ পরিলক্ষিত হয়েছে।

তবে, বিশেষজ্ঞরা এই বলে সতর্ক করেছেন যে যেহেতু ওমিক্রন ধরনে সংক্রমণের সংখ্যা অন্যান্য ধরনের তুলনায় উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি, তাই ‘লং কোভিড’এ ভোগা রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

ব্রিটিশ সরকারের প্রকাশিত উপাত্ত এটি নির্দেশ করে যে ২টি টিকা গ্রহণকারী লোকজনের মধ্যে, ওমিক্রন ধরনে সংক্রমণের পরে লং কোভিডের উপসর্গগুলো সম্পর্কে অভিযোগ করার পরিমাণ ডেল্টা ধরনে সংক্রমণের পরে এধরনের লক্ষণগুলো সম্পর্কে অবহিত করার তুলনায় প্রায় ৫০ শতাংশ কম।

এই উপাত্তে অবশ্য এখনও পর্যন্ত এরকম কোন প্রতিবেদন অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি যে ওমিক্রন সংক্রমণের ক্ষেত্রে কোভিড-পরবর্তী উপসর্গগুলো দীর্ঘদিন ধরে অব্যাহত থাকবে।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ১১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪১: লং কোভিড বা করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া (৬) “ব্রেইন ফগ” বলতে কী বোঝায়?

উত্তর-৪৪১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। চলতি ধারাবাহিকে কোভিড ১৯’এর মাঝারি ও দীর্ঘ মেয়াদী পরবর্তী প্রতিক্রিয়ার ওপর আলোকপাত করা হচ্ছে যা লং কোভিড নামে পরিচিত। এই পর্বে জানার চেষ্টা করবো “ব্রেইন ফগ” বলতে কী বোঝায়?

ব্রেইন ফগ হচ্ছে লং কোভিড অর্থাৎ করোনাভাইরাস সংক্রমণের মাঝারি বা দীর্ঘ মেয়াদী প্রতিক্রিয়ায় সচরাচর দেখা যায় এমন উপসর্গগুলোর অন্যতম। এই অবস্থায় মানুষের মনে হয় তাদের মস্তিষ্ক ঠিকমত কাজ করছে না, যেন কুয়াশায় ঢেকে আছে। গিফু বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শিমোহাতা তাকাইয়োশি হলেন মস্তিষ্কের স্নায়ু বিশেষজ্ঞ। তিনি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের লং কোভিডের চিকিৎসা সংক্রান্ত নির্দেশিকা সংকলনের কাজে যুক্ত ছিলেন। তিনি বলেন, ব্রেইন ফগ নির্ণয় করা কঠিন, কারণ এই অস্বাভাবিকতা সাধারণত এমআরআই বা রক্ত পরীক্ষায় ধরা পড়ে না।

তবে তিনি বলেন যে এই অবস্থা দেখা দেওয়ার কারণ সম্পর্কে গবেষণায় কিছু অগ্রগতি হয়েছে। শিমোহাতা বলেন, বিদেশে জীবজন্তুর ওপর পরিচালিত পরীক্ষায় এই আভাস পাওয়া যাচ্ছে যে করোনাভাইরাসে সংক্রমণের দরুন সারা শরীরে প্রদাহের ফলে অটোঅ্যান্টিবডি বা সাইটোকিনসের মত পদার্থ তৈরি হয়। অটোঅ্যান্টিবডি নিজের শরীরকেই আক্রমণ করে এবং সাইটোকিনস প্রদাহের জন্ম দেয়। শিমোহাতা বলেন, ব্যাপকভাবে মনে করা হয় যে এই পদার্থ রক্তধারার সাথে মস্তিষ্কে গিয়ে পৌঁছায় এবং সেখানে প্রদাহের জন্ম দেয়।

তিনি আরও বলেন, ব্রেইন ফগের নিরময় কী, তা এ মুহূর্তে জানা নেই। এর যে উপসর্গ, ডাক্তাররা আপাতত সেটুকুরই চিকিৎসা করতে পারেন কেবল। তিনি ব্রেইন ফগ কীভাবে দেখা দেয়, তা বোঝা এবং আরও ফলপ্রসূ চিকিৎসা উদ্ভাবনের গুরুত্বের ওপর জোর দেন।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৪০: লং কোভিড বা করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া (৫) এমন কি উপসর্গ-হীন, হালকা সংক্রমণের ক্ষেত্রেও পরবর্তী প্রতিক্রিয়ার ঝুঁকি

উত্তর-৪৪০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সর্বশেষ ধারাবাহিকে আমরা কোভিড-১৯ পরবর্তী অবস্থা বা “লং কোভিড” নামে পরিচিত মাঝারি ও দীর্ঘ মেয়াদী প্রতিক্রিয়ার উপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা সেরকম পরিস্থিতি দেখা দিতে পারার ঝুঁকির দিকে নজর দেব।

যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের রোগ প্রতিরোধ জীববিজ্ঞানের অধ্যাপক ইওয়াসাকি আকিকো উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন যে ভাইরাসের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়া যারা করোনাভাইরাসের মারাত্মক ধরনের অসুস্থতায় ভুগেছেন, কেবল তাদের মধ্যেই সীমিত থাকছে না।

যুক্তরাষ্ট্রে চালানো এক গবেষণায় দেখা গেছে রোগ মুক্ত হওয়ার পর কোভিড-পরবর্তী জটিলতায় যারা ভুগেছেন, তাদের মধ্যে ৭৫ শতাংশের ভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার সময় হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার প্রয়োজন হয় নি। গবেষকদের বিশ্বাস যেসব লোকজনের বেলায় কোন রকম উপসর্গ দেখা যায় নি কিংবা খুবই হালকা উপসর্গ দেখা গেছে, তারাও লং কোভিডে ভুগতে পারেন।

ইওয়াসাকি বলছেন এর সবচেয়ে সম্ভাব্য ব্যাখ্যা হয়তো এরকম যে দেহের কোথাও করোনাভাইরাস সুপ্ত অবস্থায় থেকে যাওয়ায় এর ফলে প্রদাহ দেখা দিচ্ছে, যা কিনা দেহের অন্যান্য অঙ্গেও উপসর্গ উস্কে দিচ্ছে।

তিনি বলছেন এরকম কিছু ঘটনা আছে যে উপসর্গ-হীন লোকজন সংক্রমিত হওয়ার দুই কিংবা তিন মাস পর লং কোভিড বলে যেটাকে মনে করা হয় সেরকম উপসর্গ তারা দেখাতে শুরু করেন। এরকম খবরও প্রচারিত হয়েছে যেখানে বলা হয়েছে যে টিকা নেয়া লোকজনের মধ্যে নিম্ন মাত্রার লং কোভিড লক্ষ্য করা গেছে। তবে খবরের উপর ভিত্তি করে এই হারে তারতম্য লক্ষ্য করা যায়। ইওয়াসাকি বলেছেন টিকা নিয়েছি বলেই নিরাপদ আমরা বোধ করতে পারি না।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩৯: লং কোভিড বা করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া (৪) লং কোভিডের উপসর্গ কিভাবে দেখা দেয়?

উত্তর-৪৩৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে আমরা কোভিড-১৯ সংক্রমণের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া অথবা “লং কোভিড” নামে পরিচিত মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদী প্রতিক্রিয়ার উপর আলোকপাত করছি। আজকের পর্বে আছে “কোভিড-১৯ সংক্রমণের পরবর্তী অবস্থার উপসর্গ কিভাবে দেখা দেয়।”

কোভিড-১৯ পরবর্তী অবস্থার উপসর্গ কিভাবে শুরু হয় সে সম্পর্কে কতটা আমাদের জানা আছে? যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের রোগ প্রতিরোধ জীববিজ্ঞান বা ইমিউনো-বায়োলজির অধ্যাপক ইওয়াসাকি আকিকো চারটি ধারণাগত উপাদানের প্রস্তাব তুলে ধরেছেন।

১। এমনকি কাশি ও জ্বরের মত প্রাথমিক উপসর্গ চলে গেলেও ভাইরাসের ক্ষুদ্রাংশ দীর্ঘ সময় ধরে প্রদাহ নিয়ে আসে।
২। আমাদের দেহের সুরক্ষা দেয়া রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা এটাকে আক্রমণ করে।
৩। সংক্রমণে ক্ষতি হওয়া দেহের অঙ্গ ধীরে পুনরুদ্ধার লাভ করে।
৪। হার্পিস ভাইরাসের মতো যেসব ভাইরাস কোভিড-১৯ শুরু হওয়ার আগে থেকে শরীরে ছিল, সেগুলো আবারও সজীব হয়ে উঠে।

ইওয়াসাকি বলছেন এরকম সম্ভব যে লং কোভিডের নানারকম উপসর্গ এসব উপাদানের মিশ্রণ থেকে দেখা দিতে পারে।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩৮: লং কোভিড বা করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া (৩) কোভিড-১৯ পরবর্তী অবস্থার উপসর্গগুলো কী কী

উত্তর-৪৩৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে কোভিড-১৯ পরবর্তী অবস্থা বা “লং কোভিড” হিসেবে পরিচিত মধ্য এবং দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবের উপর আলোকপাত করা হচ্ছে। আর এবারের পর্বে আমরা “কিভাবে কোভিড-১৯ পরবর্তী প্রতিক্রিয়াকে সংজ্ঞায়িত করা হচ্ছে তা উপস্থাপন করছি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও কোভিড-১৯ পরবর্তী প্রতিক্রিয়াকে রোগ হিসেবে সংজ্ঞায়িত করেছে যেটি সেইসব লোকের মধ্যে দেখা দেয় যাদের সাধারণত ন্যূনতম ২ মাসের জন্য দীর্ঘায়িত হওয়া উপসর্গ বা প্রভাব সহ কোভিড-১৯’এর সংক্রমণের ৩ মাসের মধ্যে সম্ভাব্য বা নিশ্চিত করোনাভাইরাসের সংক্রমণের একটি ইতিহাস রয়েছে। ডব্লিউএইচও এও জানাচ্ছে, এইসব উপসর্গ এবং প্রতিক্রিয়ার প্রভাবকে একটি বিকল্প রোগ হিসেবে নির্ধারণের ব্যাখ্যা দেয়া যাচ্ছে না।

তবে, অনেক ধরনের উপসর্গ রয়েছে যেগুলোকে ডব্লিউএইচও’র সংজ্ঞার আওতায় ফেলা যায় এবং কয়েকজন বিশেষজ্ঞ প্রশ্ন তুলছেন যে, এর সবগুলোকে কি বাস্তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে হয়েছে বলা যায়।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি গবেষণা দলের নেতৃত্ব দেয়া কোচি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইয়োকোইয়ামা আকিহিতো বলছেন, “আমাদের সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, উপসর্গসমূহ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরবর্তী প্রভাব নাকি অন্য কিছু তা সনাক্ত করা অত্যন্ত কঠিন, কেননা আমাদের কাছে সেইসব লোকের উপাত্ত নেই যাদের সংক্রমণের একটি ইতিহাস নেই কিন্তু এ ধরনের উপসর্গের ব্যাপারে অভিযোগ রয়েছে। তবে এইসব রোগীর ফুসফুসের এক্সরেতে অস্বাভাবিকতা দেখা দিলে বা তারা শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত সমস্যায় ভুগলে, এটা হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল যে, তারা ভাইরাসের সংক্রমণ পরবর্তী প্রভাবে ভুগছেন। কিন্তু ঘুমের সমস্যা বা মানসিক স্বাস্থ্যগত সমস্যা হিসেবে এইসব উপসর্গ দেখা দিলে এটা বলা কঠিন যে, এগুলো করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে হয়েছে নাকি অন্য কারণে। এই সম্ভাবনাও রয়েছে যে এইসব উপসর্গ অন্য কোন কারণে হয়তো হয়েছে এবং যদি রোগীর রোগ সঠিকভাবে সনাক্ত করা না যায় তাহলে তারা সমস্যায় পড়তে পারেন। এর মধ্যে কোভিড-১৯ পরবর্তী প্রতিক্রিয়া হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা কিছু কিছু উপসর্গ হয়তো প্রকৃতপক্ষে অন্য রোগের কারণে হয়েছে যা চিকিৎসা করে সারিয়ে তোলা যায়। আমি মনে করি, ভবিষ্যতে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত লোকজনের উপসর্গ এবং স্বাস্থ্যবান বা করোনাভাইরাসের কারণে নয় অন্য কারণে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত লোকজনের উপসর্গের মধ্যে তুলনা করে নির্ভুলভাবে লং কোভিড অনুধাবনের প্রয়োজন রয়েছে।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩৭: লং কোভিড বা করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া (২) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের গবেষণা – ২

উত্তর-৪৩৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে লং কোভিড হিসেবে সনাক্ত হওয়া উপসর্গগুলোর উপর আলোকপাত করা হচ্ছে। আর এবারে আমরা উপস্থাপন করছি এসম্পর্কিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি জরিপ নিয়ে আলোচনার দ্বিতীয় পর্ব।

কেইও বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ফুকুনাগা কোইচির নেতৃত্বে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি গবেষণা দল ১ হাজারেরও বেশি রোগীর উপর একটি জরিপ পরিচালনা করেছে, যাদের মধ্যে কোভিড-১৯’এর মৃদু থেকে গুরুতর লক্ষণ দেখা দিয়েছিল। গবেষকরা তাদের কাছে জানতে চেয়েছিলেন যে এই রোগ সনাক্তকরণ পরবর্তী এক বছর সময়কালে তারা কী ধরনের উপসর্গে ভুগেছিলেন।

তাদের উত্তর থেকে গবেষকরা এটি বের করেছেন যে ১২.৮ শতাংশ সংক্রমণের এক বছর পরেও ক্লান্তি অনুভব করেছিলেন; ৮.৬ শতাংশের শ্বাস নিতে অসুবিধা হয়েছিল, ৭.৫ শতাংশ পেশী শক্তির পাশাপাশি মনোযোগ হ্রাসের অভিযোগ করেছিলেন; ৭.২ শতাংশের স্মৃতিশক্তি দুর্বল হয়ে গিয়েছিল; ৭ শতাংশ ঘুমের ব্যাঘাতের কথা উল্লেখ করেন; ৬.৪ শতাংশের গ্রন্থি বা হাড়ের সংযোগ স্থলে ব্যথা ছিল; ৫.৫ শতাংশ মাংসপেশীর ব্যথার কথা উল্লেখ করেন; ৫.৪ শতাংশ তাদের ঘ্রাণশক্তি নিয়ে সমস্যার কথা জানিয়েছেন; ৫.২ শতাংশের কফ ছিল; ৫.১ শতাংশ চুল পড়ার কথা বলেছেন; ৫ শতাংশ মাথা ব্যথার অভিযোগ করেছেন; ৪.৭ শতাংশ তাদের স্বাদের অনুভূতি সংক্রান্ত সমস্যার কথা তুলে ধরেছেন; ৪.৬ শতাংশের কাশি ছিল; ৩.৯ শতাংশ তাদের শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে অসাড়তার কথা উল্লেখ করেন এবং ৩.৬ শতাংশের চোখে সমস্যা ছিল। সর্বোপরি, যে কোন এক ধরনের উপসর্গের কথা অবহিত করা লোকজনের সংখ্যা ছিল মোট জরিপকৃত ব্যক্তির ৩৩ শতাংশ।

তবে, এক্ষেত্রে গবেষকরা, এর আগেরদিন আমাদের তুলে ধরা সমীক্ষাটির মতো, ভাইরাসে সংক্রামিত না হওয়া লোকজনের সাথে একটি তুলনামূলক জরিপ পরিচালনা করেননি। তাই তাদের ভাষ্যমতে, এই প্রতিটি উপসর্গ যে কোভিড-১৯’এর দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব, তা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। এই উপসর্গগুলোর জন্য নানা ধরনের প্রতিকারের চেষ্টা করা হলেও, এর সবগুলোই ছিল মূলত সুনির্দিষ্ট একটি লক্ষণের পরিবর্তে নিছক গড়পড়তা উপসর্গ নির্ভর চিকিৎসা।

এই তথ্যগুলো জুলাই মাসের ৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩৬: লং কোভিড বা করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরবর্তী প্রতিক্রিয়া (১) স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের গবেষণা – ১

উত্তর-৪৩৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ২০২২ সালের জুন মাসের শেষ পর্যন্ত যা খবর তাতে জাপানে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত লোকের সংখ্যা ৯৩ লক্ষের বেশি। এদের মধ্যে অনেক রোগী সংক্রমণ থেকে সেরে ওঠার পরেও নানা উপসর্গে ভোগেন। বিশেষজ্ঞরা এই অবস্থার নাম দিয়েছেন করোনাভাইরাস-পরবর্তী-প্রতিক্রিয়া বা লং কোভিড। লং কোভিড হিসেবে চিহ্নিত উপসর্গ এবং কীভাবে সেগুলো দেখা দেয়, সে সম্পর্কে এখন পর্যন্ত আমরা যা জানতে পেরেছি, তার ওপর এই পর্বে এবং এই সিরিজের অন্যান্য পর্বে আলোকপাত করা হবে।

কোচি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ইয়োকোইয়ামা আকিহিতো’র নেতৃত্বাধীন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক দল গবেষক সারা দেশে এমন ১ হাজারের বেশি রোগীর ওপর সমীক্ষা চালান যারা ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত এক বছরে করোনাভাইরাসের মাঝারি ধরন বা গুরুতর উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। ডাক্তারদের প্রশ্ন ও রোগীদের উত্তরের রেকর্ডের ওপর ভিত্তি করে প্রতি তিন মাস অন্তর তাদের উপসর্গগুলো নজর করে এসেছেন গবেষকরা। সংক্রমণের তিন মাস পর, সমীক্ষার অন্তর্গত প্রায় ৫০ শতাংশ রোগী তাদের পেশীর দুর্বলতা সম্পর্কে অভিযোগ করেন। ৩০ শতাংশ রোগী নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসে অসুবিধা হওয়ার কথা জানান। প্রচণ্ড ক্লান্তিতে ভোগার কথা জানান ২৫ শতাংশ রোগী। ঘুমের সমস্যা হওয়ার কথা জানা যায় ২০ শতাংশের বেশি রোগীর কাছ থেকে এবং প্রায় ১৮ শতাংশ রোগী মনঃসংযোগে সমস্যা, পেশীর যন্ত্রণা এবং কাশির অনুযোগ করেন। এদের মধ্যে কিছু রোগী একসঙ্গে একাধিক উপসর্গে ভোগার কথা জানান।

এসব উপসর্গে ভোগা রোগীর সংখ্যা সময়ের সাথে সাথে কমে আসে। সংক্রমণের এক বছর পর ঘুমের সমস্যা নিয়ে অনুযোগ করেন ১০ দশমিক ১ শতাংশ রোগী। ৯ দশমিক ৩ শতাংশ রোগী অনুযোগ করেন পেশীর দুর্বলতা নিয়ে। নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসে অসুবিধা হওয়ার কথা জানান ৬ শতাংশ রোগী। ৫ দশমিক ৩ শতাংশ রোগী মনঃসংযোগে সমস্যার কথা বলেন। ৫ শতাংশ কাশি, ৪ দশমিক ৯ শতাংশ ক্লান্তি এবং ৪ দশমিক ৬ শতাংশ পেশীর যন্ত্রণার অনুযোগ করেন।

কোনো না কোনো উপসর্গে ভোগা রোগীর সংখ্যা ছিল মোট সংখ্যার ১৩ দশমিক ৬ শতাংশ।
গবেষকরা বলছেন, মূল সংক্রমণের সময় শ্বাসযন্ত্রের সংকটজনক উপসর্গে যারা ভুগেছেন, তাদের লং কোভিডের উপসর্গ গুরুতর হয়ে ওঠার আশংকা বেশি যারা শ্বাসযন্ত্রের সংকটে ভোগেননি তাদের তুলনায়।

এই তথ্যগুলো ১লা জুলাই পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩৫: মুখে মাস্ক পরা এবং হিটস্ট্রোক প্রতিরোধের পদক্ষেপ
(৩) পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে সিদ্ধান্ত গ্রহণ

উত্তর-৪৩৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের সাম্প্রতিক ধারাবাহিকে, ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রার মাঝে হিটস্ট্রোক এড়ানোর জন্য কীভাবে কার্যকরভাবে মাস্ক ব্যবহার করতে হয়, সে সম্পর্কে তথ্য প্রদান করা হচ্ছে। এবারে আমরা সুনির্দিষ্ট কিছু পরিস্থিতিতে মাস্ক পরিধান করতে হবে নাকি হবে না, সেই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময় কী কী বিষয় বিবেচনা করতে হবে, সেবিষয়ের উপর নজর দিব।

আমরা নাগোইয়া প্রযুক্তি ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক এবং হিটস্ট্রোক ঝুঁকি নিয়ে গবেষণা চালানো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি দলের একজন সদস্য হিরাতা আকিমাসাকে এব্যাপারে জিজ্ঞাসা করেছি। হিরাতা বলছেন, বিশেষ করে এই মৌসুমে যখন তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতা উভয়ই বেশি থাকে তখন হিটস্ট্রোকের বিরুদ্ধে নিয়মিত সতর্ক থাকার প্রয়োজন। মাস্ক পরিধান করে থাকলে, লোকজনের তৃষ্ণার্ত থাকার প্রবণতার ব্যাপারে তিনি সতর্ক করে দিচ্ছেন, যা তরল গ্রহণের পরিমাণকে কমিয়ে দেয়ায় ইন্ধন যোগায়। হিরাতা ব্যাখ্যা করে বলছেন, বলা হয়ে থাকে যে হিটস্ট্রোক তখনই ঘটবে যখন আপনার শরীরে পানির পরিমাণ কমে যাবে এবং আপনার শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যাবে এই উভয়ই ঘটবে। তিনি লোকজনকে সচেতনভাবে প্রচুর পরিমাণে তরল গ্রহণের পরামর্শ দিচ্ছেন, কেননা যখন আপনি পর্যাপ্ত তরল গ্রহণ করবেন না এবং আপনার শরীরে জলীয় অংশের পরিমাণ কমে যাবে তখন হিটস্ট্রোক হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যাবে।

মুখে মাস্ক পরিধান কিভাবে সামাল দিতে হবে সে প্রসঙ্গে হিরাতা বলছেন, অন্যদের থেকে যখন পর্যাপ্ত দূরত্বে থাকবেন তখন আপনি মাস্ক খুলে রাখতে পারেন, অন্যদিকে যেখানে সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে সেখানে আপনার অবশ্যই মাস্ক পরিধান করা উচিত। তিনি এও বলছেন, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে স্থান এবং পরিস্থিতির উপর নির্ভর করেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

এই তথ্যগুলো জুন মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩৪: মুখে মাস্ক পরা এবং হিটস্ট্রোক প্রতিরোধের পদক্ষেপ
(২) মাস্কের কি নিজস্ব ঝুঁকি রয়েছে?

উত্তর-৪৩৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। কোভিড-১৯’এর সংক্রমণ ঠেকাতে মুখের মাস্ক পরলে গরম আবহাওয়ায় কিছু অসুবিধা হতে পারে। আমাদের সাম্প্রতিক ধারাবাহিকে, ক্রমবর্ধমান তাপমাত্রার মাঝে হিটস্ট্রোক এড়ানোর জন্য কীভাবে কার্যকরভাবে মাস্ক ব্যবহার করতে হয়, সে সম্পর্কে তথ্য প্রদান করা হচ্ছে। এবারে আমরা মাস্ক পরিধান হিটস্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায় কিনা, সেবিষয়ের উপর নজর দিব।

আমরা নাগোইয়া প্রযুক্তি ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও’র হিটস্ট্রোকের ঝুঁকি বিষয়ক গবেষণা দলের সদস্য হিরাতা আকিমাসার কাছে এসম্পর্কে জানতে চাই। হিরাতার ভাষ্যানুযায়ী, অতীতের গবেষণায় দেখা গেছে যে কেউ মাস্ক পরলে তা ঢেকে রাখা অংশ এবং ঠিক আশেপাশের অংশ ছাড়া শরীরের তাপমাত্রার উপর খুব একটা প্রভাব ফেলে না। তিনি বলেন, মাস্ক পরিধানকারীর শরীরের ভেতরের তাপমাত্রা ০.০৬ থেকে ০.০৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি পায়, যা হিটস্ট্রোকের ঝুঁকির মোটামুটি ইঙ্গিতবাহী এক ডিগ্রী সেলসিয়াস বৃদ্ধির চাইতে অনেক কম।

হিরাতার ভাষ্যমতে, এটি এই ইঙ্গিত দেয় যে মাস্ক পরা সম্ভবত হিটস্ট্রোকের ঝুঁকির উল্লেখযোগ্য কোন বৃদ্ধি ঘটাবে না। তিনি বলেন, কিন্তু যদি কেউ মাস্ক পরার পাশাপাশি অত্যধিক ব্যায়াম করেন, তবে সেই ব্যক্তি হিটস্ট্রোকের বর্ধিত ঝুঁকির সম্মুখীন হতে পারেন।

তিনি এও বলেন যে ছোট শিশু এবং মাত্র হাঁটতে শেখা শিশুদের মাস্ক পরার সাথে সংশ্লিষ্ট হিটস্ট্রোকের ঝুঁকি সম্পর্কে খুব কম তথ্য রয়েছে। তিনি অভিভাবকদের পক্ষ থেকে সরকারি নির্দেশিকা অনুসারে হিটস্ট্রোকের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বনের আহ্বান জানান।

এই তথ্যগুলো জুন মাসের ১৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩৩: মুখে মাস্ক পরা এবং হিটস্ট্রোক প্রতিরোধের পদক্ষেপ
(১) ফেস-মাস্কের ব্যবহার সম্পর্কে চিন্তাভাবনা

উত্তর-৪৩৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধের বিভিন্ন উপায়ের মধ্যে একটি হলো মুখে মাস্ক পরা। তবে গরমকালে মুখে মাস্ক গরমের কষ্ট বাড়িয়ে দিতে পারে, দমবন্ধ করা হাঁসফাস অবস্থা হতে পারে। আমাদের সর্বসাম্প্রতিক ধারাবাহিকে, তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার মধ্যে হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়া ঠেকানোয় মাস্কের কার্যকর ব্যবহার নিয়ে নানান তথ্য জানানো হচ্ছে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধের পদক্ষেপ সংক্রান্ত যে মৌলিক নীতি জাপান সরকারের, ২৩শে মে তাতে পরিবর্তন আনা হয়েছে।

কর্মকর্তারা বলছেন, যদিও ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপের মধ্যে মাস্ক ব্যবহারের গুরুত্ব অপরিসীম, তবে এখন কিছু কিছু পরিস্থিতিতে মাস্ক ব্যবহারের বাধ্যবাধকতায় ছাড় দেওয়া গ্রহণযোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

ঘরের বাইরে মাস্ক খুলে রাখার অনুমতি মিলবে যদি ব্যক্তিদের পরস্পরের মধ্যে ২ মিটার বা তার চেয়ে বেশি দূরত্ব বজায় রাখা হয়। কাছাকাছি লোকজন থাকলেও, তাদের মধ্যে যদি কথোপকথন না হয়, মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা থাকবে না। সরকার হিটস্ট্রোক এড়ানোর জন্য, বিশেষ করে গ্রীষ্ম ঋতুর কয়েক মাস কিছু কিছু ক্ষেত্রে মাস্ক না পরতে সুপারিশ করছে।

ঘরের ভিতরে মাস্ক খুলে রাখা যাবে যদি লোকজনের মধ্যে ২ মিটার বা তার চেয়ে বেশি ব্যবধান বজায় রাখা যায় এবং যদি তাদের মধ্যে বলতে গেলে কোনই কথোপকথন না হয়।

স্কুলে ফিজিক্যাল এডুকেশনের ক্লাসে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক নয়। এই নির্দেশ স্কুলের পরে ক্লাবের কর্মকান্ডের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। প্রতিযোগীদের মধ্যে দৈহিক সংস্পর্শ হয়, এমন ক্রীড়া বিষয়ক প্রতিযোগিতার ক্ষেত্রে ক্রীড়া সমিতিগুলোর তৈরি করা নির্দেশাবলী অনুসরণ করতে হবে।

দু বছরের কম বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে মাস্ক পরানোর সুপারিশ করা হয় না। প্রি-স্কুলের শিশু যাদের বয়স দু বছর বা তার চেয়ে বেশি, এদের কিন্ডারগার্টেন বা নার্সারি স্কুলে পরস্পরের মধ্যে দূরত্ব যাই থাকুক না কেন, মাস্ক পরা আবশ্যক নয়।

এই তথ্যগুলো জুন মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩২: শিশুদের টিকাদান (৯) শিশুদের টিকা নেওয়া উচিত হবে কি?

উত্তর-৪৩২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের সর্বশেষ ধারাবাহিকে টিকা নেয়া উচিত হবে কিনা - শিশু ও বাবা-মায়েদের মিলিতভাবে সেই সিদ্ধান্ত গ্রহণে সাহায্য করার জন্য নতুন উপাত্ত সহ বিভিন্ন তথ্য আমরা উপস্থাপন করছি। সর্বশেষ এই পর্বে আমরা শিশুদের টিকা নেওয়ার বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামতের দিকে নজর দেব।

টিকা সম্পর্কে ভালভাবে জানা থাকা শিশু চিকিৎসক, কিতাসাতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নাকাইয়ামা তেৎসুও এ বিষয়ে তার চিন্তা-ভাবনা এখানে তুলে ধরেছেন। নাকাইয়ামা বলছেন মারাত্মক হাঁপানির মত স্বাস্থগত সমস্যা থাকা শিশুদের বেলায় টিকা নেয়ার সুপারিশ তিনি করলেও শারীরিক সমস্যা না থাকা শিশুদের বেলায় শিশুর পরিবারকে যে উপদেশ তিনি দিচ্ছেন তা হল, শিশুর জীবনধারা এবং নিজেদের পরিবারের পরিস্থিতির উপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত তারা যেন গ্রহণ করেন। স্কুলের বাইরের নানারকম কর্মকাণ্ড, স্কুলের ক্লাবের কাজ কিংবা খেলাধুলায় জড়িত হওয়ার মত মানুষের ভিড় হওয়া জায়গায় প্রায়শই যাওয়া শিশুদের বেলায় টিকা নেয়ার সুপারিশ তিনি করেন। দাদা-দাদীর সাথে থাকা শিশুদের বেলায়ও প্রিয়জনদের সুরক্ষার জন্য শিশুদের টিকা নেয়ার উপদেশ তিনি দিচ্ছেন।

নাকাইয়ামা বলছেন টিকা সাধারণভাবে স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনে আমাদের সাহায্য করেছে। হামের মত রোগের বেলায় যেমন সংক্রমিতদের মধ্যে মাত্র এক হাজারে এক জনের বেলায় এনসেফালাইটিস বা মস্তিস্কের প্রদাহের মত মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়। তবে তা সত্ত্বেও মানুষ টিকা নিচ্ছে এবং কদাচিৎ অসুস্থ হচ্ছে।

তিনি বলছেন করোনাভাইরাস টিকাকে আমাদের অন্য সকল টিকার মতই একইভাবে দেখা উচিত এবং টিকা ও সংক্রামক রোগ বিষয়ে নিজেদের শিক্ষিত করে তোলার উপর তিনি গুরুত্ব আরোপ করেন।

এই তথ্যগুলো মে মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩১: শিশুদের টিকাদান (৮) টিকার নতুন প্রযুক্তি নিয়ে কি উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত?

উত্তর-৪৩১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের এই নতুন ধারাবাহিকে, টিকা দেওয়া হবে কি না, সে ব্যাপারে শিশু এবং তাদের অভিভাবকদের একসাথে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করার জন্য আমরা নতুন উপাত্ত সহ তথ্য উপস্থাপন করছি। এবারের পর্বে, আমাদের করোনাভাইরাসের টিকা নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত কিনা তার উপর আলোকপাত করব, কেননা এতে এক নতুন প্রযুক্তি প্রয়োগ করা হচ্ছে।

করোনাভাইরাসের টিকা বিশ্বে প্রথমবারের মত ম্যাসেঞ্জার আরএনএ প্রযুক্তি প্রয়োগ করছে। রোগের চিকিৎসায় এর সম্ভাব্য প্রয়োগের জন্য এই প্রযুক্তি নিয়ে ৩০ বছরেরও বেশি গবেষণা করা হয়েছে। ম্যাসেঞ্জার আরএনএ হচ্ছে একটি পদার্থ যা সহজেই রাসায়নিকভাবে ভেঙ্গে যায়। টিকা দেয়ার পরে এটি ভেঙে গিয়ে অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই বেরিয়ে যায়।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, এই পদার্থটি শরীরের মধ্যে থেকে যায় না এবং এর কোন প্রতিকূল প্রভাব নেই। তারা এও জানাচ্ছে, এই টিকা নেয়ার বহু বছর পর টিকাটি কোন রোগের কারণ হওয়ার সম্ভাবনা একেবারে নেই বললেই চলে।

এই তথ্যগুলো মে মাসের ১৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪৩০: শিশুদের টিকাদান (৭) গুরুতর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু?

উত্তর-৪৩০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের এই নতুন ধারাবাহিকে, টিকা দেওয়া হবে কি না, সে ব্যাপারে শিশু এবং তাদের অভিভাবকদের একসাথে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করার জন্য আমরা নতুন উপাত্ত সহ তথ্য উপস্থাপন করছি। এবারের পর্বে, আমরা টিকা গ্রহণের পর গুরুতর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হওয়ার সম্ভাবনার উপর আলোকপাত করব।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ভাষ্যানুযায়ী, টিকা গ্রহণের পরে কিছু বিরল ক্ষেত্রে হৃদপিণ্ডের পেশীর প্রদাহ ঘটতে পারে বলে জানা গেছে, যা এর কার্যকারিতাকে প্রভাবিত করতে পারে। ১লা এপ্রিল পর্যন্ত জাপানে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের ৫ লক্ষ ৩৪ হাজার ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে শুধুমাত্র একটি শিশুর ক্ষেত্রে এই ধরনের উপসর্গ দেখা দিয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জাপানের আগে শিশুদের টিকা দেওয়া শুরু করেছিল এবং সেখানে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নিয়ে আরও বেশি গবেষণা করা হয়েছে। মার্কিন রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রের ভাষ্যানুযায়ী, বালকদের প্রথম টিকা দেওয়ার পর ১০ লক্ষ শিশুর ক্ষেত্রে হৃদপিণ্ডকে প্রভাবিত করে এমন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কোন ঘটনা ঘটেনি। তবে, দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার পরে এই সংখ্যাটি ছিল ১০ লক্ষের মধ্যে ৪.৩ জন।

অন্যদিকে, বালিকাদের ক্ষেত্রে, প্রথম টিকা দেওয়ার পরে পর্যাপ্ত উপাত্ত ছিল না। তবে, দ্বিতীয় টিকা দেওয়ার পর প্রতি ১০ লক্ষ টিকার জন্য এই ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ঘটনা ছিল মাত্র ২টি। সবগুলো ক্ষেত্রেই উপসর্গগুলো ছিল মৃদু এবং সংশ্লিষ্ট শিশুরা সুস্থ হয়ে উঠেছিল।

মার্কিন প্রতিবেদনগুলোতে বলা হয়েছে যে টিকা নেওয়ার পরে ২টি শিশুর মৃত্যু হয়। তবে, উভয় শিশুরই অন্তর্নিহিত রোগ ছিল এবং এমনকি টিকা নেওয়ার আগেও তারা অসুস্থ ছিল। আর তাদের মৃত্যুর সাথে টিকাদানের সংযোগ বের করার মত কোন উপাত্ত পাওয়া যায়নি।

এই তথ্যগুলো মে মাসের ১৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২৯: শিশুদের টিকাদান (৬) সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

উত্তর-৪২৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের টিকাদান শুরু হয়েছে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। টিকা নেওয়া হবে কিনা সে ব্যাপারে শিশু ও তাদের অভিভাবকদের সিদ্ধান্ত গ্রহণে সাহায্য করতে আমাদের চলতি ধারাবাহিকে নতুন নতুন উপাত্ত সহ নানান তথ্য প্রদান করা হচ্ছে। এবারের পর্বে টিকার সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ওপর আলোকপাত করা হবে।

টিকা নেওয়ার পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় শরীরে কিছু কিছু অসুবিধা হতে পারে। যেমন, জ্বর হতে পারে অথবা যেখানে টিকা দেওয়া হয়েছে সেই জায়গায় ব্যথা হতে পারে। এটা হয় কারণ আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা টিকায় সাড়া দেয় অথবা এই ব্যবস্থা করোনাভাইরাসকে সনাক্ত করতে “শেখে”। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার উপসর্গ সম্বন্ধে কয়েকটা সুনির্দ্দিষ্ট তথ্য জেনে নেওয়া যাক।

টিকা নিয়েছে এমন শিশুদের ওপর মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি ফাইজারের পরিচালিত সমীক্ষায় জানা গেছে, প্রথম ডোজ নেওয়ার পর শতকরা ৭৪ ভাগ এবং দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পর শতকরা ৭১ ভাগ শিশুর ক্ষেত্রে ইঞ্জেকশনের জায়গায় ব্যাথা হয়েছে। প্রথম ডোজ নেওয়ার পর ৩৪ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পর ৩৯ শতাংশ শিশু ক্লান্তি বা অবসাদের কথা বলেছে। প্রথম ডোজের পর শতকরা ৩ ভাগ শিশুর ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার চেয়ে বেশি জ্বর হয়েছে, দ্বিতীয় ডোজের পর যে মাত্রার জ্বরে ভুগেছে শতকরা ৭ ভাগ শিশু।

সমীক্ষার ফলাফল দেখে এটা বোঝা যাচ্ছে যে বড়দের তুলনায় ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ায় ভোগার আশংকা কম। অধিকাংশ শিশুর উপসর্গ হয় হাল্কা। যেমন ইঞ্জেকশনের জায়গায় ব্যাথা বা হাত নাড়াতে অসুবিধা হওয়া, যা দু এক দিনের মধ্যেই সেরে যায়।

এই তথ্যগুলো মে মাসের ১৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২৮: শিশুদের টিকাদান (৫) টিকা কতটা কার্যকর?

উত্তর-৪২৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। আমাদের এই নতুন ধারাবাহিকে, টিকা নেওয়া হবে কি না, সে ব্যাপারে শিশু এবং তাদের অভিভাবকদের একসাথে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করার জন্য আমরা নতুন উপাত্ত সহ তথ্য উপস্থাপন করছি। এবারের পর্বে, শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ প্রতিরোধে টিকার কার্যকারিতার উপর আমরা আলোকপাত করব।


২০২১ সালে মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজার ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের উপর টিকার ক্লিনিকাল ট্রায়াল পরিচালনা করে। ওষুধ প্রস্তুতকারী কোম্পানিটি জানায় যে টিকার দ্বিতীয় ডোজ পাওয়ার ৭ বা তার বেশি দিন পর শিশুদের মধ্যে উপসর্গ সমেত সংক্রমণ প্রতিরোধে টিকা ৯০ দশমিক ৭ শতাংশ কার্যকর ছিল বলে পরীক্ষার ফলাফলে দেখা গেছে। তবে ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে টিকা অতটা কার্যকর নয় বলে জানা গেছে। বর্তমানে জাপান এবং বিশ্বের বিভিন্ন অংশে করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনটাই বিস্তার লাভ করছে।

চলতি বছর ১১ই মার্চ প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে, মার্কিন গবেষকরা বলেন যে ফাইজারের দুই ডোজ টিকা নেয়া থাকলে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে ওমিক্রন সংক্রমণের ঝুঁকি তা ৩১ শতাংশ হ্রাস করে বলে তারা গবেষণায় দেখতে পেয়েছেন।

মার্চ মাসের ৩০ তারিখ প্রকাশিত এক গবেষণায় মার্কিন গবেষকরা বলেন যে ওমিক্রনের সময় ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি প্রতিরোধে টিকার কার্যকারিতা ছিল ৬৮ শতাংশ। মারাত্মক ধরনের উপসর্গ দেখা দেয়া শিশুদের প্রায় সকলেরই টিকা নেয়া ছিল না বলে গবেষণায় উল্লেখ করা হয়।

এই উপাত্ত থেকে দেখা যাচ্ছে যে টিকা পুরোপুরি সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে না পারলেও হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন পড়বে এধরনের গুরুতর উপসর্গ যাতে শিশুদের মধ্যে দেখা না যায় তা প্রতিরোধে টিকা কার্যকর।

এই তথ্যগুলো মে মাসের ১২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২৭: শিশুদের টিকাদান (৪) শিশুদের মধ্যে করোনাভাইরাসের উপসর্গ

উত্তর-৪২৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ফেব্রুয়ারি মাসে জাপান ৫ থেকে ১১ বছর বয়সের শিশুদের টিকা দেয়া শুরু করেছে। শিশুদের টিকা নেওয়া উচিত হবে কিনা, সেই সিদ্ধান্ত গ্রহণে শিশু ও তাদের বাবা-মা’কে সাহায্য করার জন্য এই ধারাবাহিকে আমরা নতুন উপাত্ত সহ প্রয়োজনীয় বিভিন্ন তথ্য সরবরাহ করে আসছি।
এই পর্বে শিশুদের মধ্যে দেখা দেয়া কোভিড-১৯ এর উপসর্গ সংক্রান্ত তথ্য আমরা দেব।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে এপ্রিল মাসের ১৯ তারিখ পর্যন্ত এক সপ্তাহে সারা দেশে ৩ লক্ষ ১৪ হাজার ৩৭০টি নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে। ১০ বছরের কম বয়সী শিশুদের সংখ্যা হচ্ছে ৪৭ হাজার ৬৫৯, বা সমস্ত ঘটনার ১৫.২ শতাংশ, যা হচ্ছে সব কয়টি বয়স গ্রুপের মধ্যে সর্বোচ্চ।
মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে গত দুই বছরে দশ বছরের কম বয়সী ৯ লক্ষ ৫৯ হাজার ৬৬২টি শিশু করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়। এদের মধ্যে চারটি শিশু মারা গেছে।
১৯শে এপ্রিল পর্যন্ত সপ্তাহে চারটি শিশু সঙ্কটজনক অবস্থায় ছিল।

শিশু রোগীদের মধ্যে অধিকাংশের বেলায় হালকা ধরনের উপসর্গ দেখা দেয়, যদিও উপসর্গের মধ্যে কখনও কখনও উচ্চ তাপমাত্রা, বমি এবং গলা ফুলে যাওয়ার কারণে শ্বাসকষ্ট হওয়া অন্তর্ভুক্ত থাকে। জাপানের শিশু রোগ চিকিৎসকদের সমিতি – জাপান পেডিয়াট্রিক সোসাইটি বলছে হৃৎপিণ্ড কিংবা ফুসফুসের অসুখে আক্রান্ত শিশুদের বেলায় মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেওয়ার ঝুঁকি হচ্ছে বেশি। এমনকি উপসর্গ ছাড়া সংক্রমণের বেলাতেও কাশি এবং নি:শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়ার মত পরবর্তী প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে।

এই তথ্যগুলো মে মাসের ১১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২৬: শিশুদের টিকাদান (৩) শিশুদের কি টিকা দেয়া উচিত?

উত্তর-৪২৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। আমাদের এই নতুন ধারাবাহিকে, টিকা নেওয়া হবে কি না, সে ব্যাপারে শিশু এবং তাদের অভিভাবকদের একসাথে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করার জন্য আমরা নতুন উপাত্ত সহ তথ্য উপস্থাপন করছি। এবারের পর্বে, “শিশুদের কি টিকা দেয়া উচিত?” এই প্রশ্নটি নিয়ে আমরা আলোচনা করব।

প্রতিটি পরিবার ভিন্ন ভিন্ন পরিস্থিতির মুখোমুখি হচ্ছে এবং তাদের রয়েছে নিজস্ব চিন্তা-ভাবনা। তাই শিশুদের টিকা দেয়া হবে কিনা সেব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার সময় আপনাদের কী কী বিষয় বিবেচনা করা দরকার?

গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হচ্ছে প্রত্যাশিত উপকারগুলোর মূল্যায়ন করা এবং টিকা নেয়ার সম্ভাব্য ঝুঁকিগুলোর কথা বিবেচনা করা।

উপকারগুলোর মধ্যে শিশুদের নিজেদের সংক্রমিত হওয়া এবং গুরুতরভাবে অসুস্থ হয়ে পড়া রোধ, অন্যদের কাছে এই ভাইরাস ছড়িয়ে দেয়া রোধ এবং স্কুল ও অন্যান্য স্থানে আরও বেশি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার আশঙ্কা, যা টিকার অপ্রত্যাশিত প্রতিক্রিয়া। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অন্যান্য যে বিষয়গুলো বিবেচনা করতে হবে তা হচ্ছে, এই বাস্তবতা যে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শিশুদের মধ্যে ব্যাপকভাবে বিস্তৃত হচ্ছে এবং জাপানে আক্রান্ত শিশুদের মধ্যে গুরুতর উপসর্গ দেখা দেয়ার বিষয়টি বিরল। তারা এও বলছেন, অন্য যে বিষয়টি বিবেচনা করতে হবে তা হচ্ছে, জাপান এবং সারা বিশ্বে প্রভাব বিস্তার করা ওমিক্রন ধরনের সংক্রমণ রোধে টিকা কম কার্যকর।

৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের করোনাভাইরাসের টিকা বিনামূল্যে দেয়া হচ্ছে, ঠিক যেমনটা অন্যান্য বয়সীদের গ্রুপের ক্ষেত্রে রয়েছে। কিন্তু হাম, জলবসন্ত ও জাপানিজ এনসেফালাইটিসের টিকার মত এটি কোন বাধ্যতামূলক বিষয় নয় যে অভিভাবকদের তাদের শিশুদের টিকা নেয়ার জন্য প্রচেষ্টা চালাতে হবে।
বিভিন্ন পরিবারের জন্য এটা গুরুত্বপূর্ণ যে, তাদের শিশুদের সাথে কী করতে হবে তা সতর্কতার সাথে বিবেচনা করা। আমাদের পরবর্তী পর্বে, আমরা লোকজনকে তাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণে সাহায্য করার জন্য বিভিন্ন উপাত্ত সরবরাহ করব।

এই তথ্যগুলো মে মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২৫: শিশুদের টিকাদান (২) টিকা কীভাবে কাজ করে?

উত্তর-৪২৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। আমাদের এই নতুন ধারাবাহিকে, টিকা নেওয়া হবে কি না, সে ব্যাপারে শিশু এবং তাদের অভিভাবকদের একসাথে সিদ্ধান্ত নিতে সাহায্য করার জন্য আমরা নতুন উপাত্ত সহ তথ্য উপস্থাপন করছি। এবারের পর্বে, আমরা টিকা কীভাবে কাজ করে তার উপর নজর দিব।

টিকাগুলো আমাদের শরীরের "ইমিউন সিস্টেম" বা “রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থায়” প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করার মধ্য দিয়ে ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদান করে। এই ব্যবস্থা মূলত ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়ার মত বাইরে থেকে শরীরে প্রবেশ করা জীবাণুকে আক্রমণ করে। করোনাভাইরাসগুলোর পৃষ্ঠ থেকে "স্পাইক প্রোটিন" ঝুলে থাকে। করোনাভাইরাসের টিকাগুলোতে "মেসেঞ্জার বা বার্তাবাহী আরএনএ" রয়েছে, যা কীভাবে এই "স্পাইক প্রোটিন" উৎপাদন করতে হয় তার নির্দেশাবলী বহন করে। যখন ইনজেকশনের মাধ্যমে একটি টিকাকে আমাদের শরীরে প্রবেশ করানো হয়, তখন এই নির্দেশাবলীর ভিত্তিতে শরীরের ভিতরে "স্পাইক প্রোটিন" তৈরি হয়। "স্পাইক প্রোটিন" করোনাভাইরাসের অংশ হওয়ায় আমাদের "রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা" এগুলোকে অবাঞ্ছিত উপাদান হিসেবে সনাক্ত করে এবং এর প্রতিক্রিয়ায় "অ্যান্টিবডি" নামক একটি পদার্থ তৈরি করে, যা ভাইরাসকে আক্রমণ করার জন্য একটি অস্ত্র হিসাবে কাজ করে। এই উপায়ে আমাদের শরীর কোনও সত্যিকারের ভাইরাস প্রবেশ করার পর কীভাবে সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে হয়, তা শিখে নেয়।

কেউ যখন টিকা গ্রহণ না করা অবস্থায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন, তখন আমাদের "রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা" শরীরে প্রবেশ করা করোনাভাইরাসের আকারের সাথে মিল রেখে একই মাপের "অ্যান্টিবডি" তৈরি করে এর বিরুদ্ধে লড়াই করার চেষ্টা করে। কিন্তু আমাদের শরীর সম্ভবত পর্যাপ্ত পরিমাণে "অ্যান্টিবডি" দ্রুত তৈরি করতে সক্ষম নাও হতে পারে বা ভাইরাসটি লড়াইয়ের জন্য অতিরিক্ত শক্তিশালী হতে পারে। এরকম সময়েই আমাদের দেহে কাশি এবং চরম ক্লান্তির মতো উপসর্গ তৈরি হয় এবং কখনও কখনও আমরা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ি। টিকাদান আমাদের শরীরকে আগে থেকেই ভাইরাস-প্রতিরোধী "অ্যান্টিবডি" তৈরি করার সুযোগ দেয়। ভবিষ্যতের একটি ভাইরাস আক্রমণের জন্য আমাদের শরীরকে এভাবে প্রস্তুত করার মাধ্যমে আমরা এই ভাইরাসের থেকে সংক্রমণ, উপসর্গ দেখা দেয়া এবং গুরুতর অসুস্থ হওয়া প্রতিরোধ করতে পারি।

এই তথ্যগুলো মে মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২৪: শিশুদের টিকাদান (১) কতজন শিশু টিকা নিয়েছে?

উত্তর-৪২৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে দু মাসের ওপর হলো ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে এই বয়সসীমার শতকরা প্রায় ৯ ভাগ শিশু দু ডোজ টিকা নিয়ে নিয়েছে। এই ভাইরাসে শিশুদের গুরুতর উপসর্গ দেখা দেওয়ার আশংকা তেমন নেই। তবু এই বয়সের ছেলেমেয়েদের সংক্রমিত হওয়ার সংখ্যা যে কমেনি, সেটা একটা চিন্তার ব্যাপার। শিশুদের ক্ষেত্রেও কি টিকার উপকারিতা এর ঝুঁকির চাইতে বেশি? টিকা নেওয়া হবে কি না, সে ব্যাপারে শিশুদের এবং তাদের অভিভাবকদের একসাথে সিদ্ধান্তে উপনীত হতে সাহায্য করার জন্য আমাদের নতুন ধারাবাহিকে আমরা নতুন নতুন উপাত্ত সহ বিভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করবো।

জাপানে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের করোনাভাইরাসের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাস থেকে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি ফাইজারের টিকা এক্ষেত্রে ব্যবহার করা হচ্ছে। তিন সপ্তাহের ব্যবধানে দুটো করে ডোজ দেওয়া হচ্ছে শিশুদের। প্রাপ্তবয়স্কদের যে ডোজ দেওয়া হয়, শিশুদের ডোজের শক্তি হচ্ছে তার তিন ভাগের এক ভাগ।

২০২২ সালের ২রা মে পর্যন্ত যা খবর তাতে জাপানে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী ৯ লক্ষ ৯৮ হাজার শিশুর অন্তত এক ডোজ টিকা নেওয়া হয়ে গিয়েছে। সংখ্যাটি হলো দেশে এই বয়সী মোট ৭৪ লক্ষ ১০ হাজার শিশুর শতকরা প্রায় ১৩ দশমিক ৫ ভাগ। প্রায় ৬ লক্ষ ৬০ হাজার বা ৮ দশমিক ৯ শতাংশ শিশু টিকার দুটো ডোজই নিয়েছে।

কিছু কিছু দেশে শিশুদের টিকাদান শুরু হয়েছে জাপানের আগে। ২০শে এপ্রিল পর্যন্ত যা খবর তাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ২৮ দশমিক ৩ শতাংশ শিশুর দু ডোজ টিকা নেওয়া হয়ে গেছে। কানাডায় ১০ই এপ্রিল পর্যন্ত যা খবর তাতে এই হার হচ্ছে ৪০ দশমিক ৭ শতাংশ।

এই তথ্যগুলো মে মাসের ৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২৩: “বিএ.২” এবং “এক্সই” ধরন দুটি কী রকমের? (৬) মৌলিক সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপে কোন পরিবর্তন নেই

উত্তর-৪২৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসের নতুন নতুন ধরন এবং কোন পদক্ষেপ এই ক্ষেত্রে নেয়া দরকার তার উপর আলোকপাত করছি। ধারাবাহিক এই আয়োজনের শেষ পর্বে আমরা দৈনন্দিন সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপের উপর আলোকপাত করব।

আমাদের আগের পর্বে যেসব পুন:সংযোজিত ধরন এবং সাব-ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে আমরা কথা বলেছি সেগুলো ছাড়াও ওমিক্রনের “বিএ.৪” এবং “বিএ.৫” সাব-ভ্যারিয়েন্ট রয়েছে যা দক্ষিণ আফ্রিকা এবং অন্যত্র দেখতে পাওয়া গেছে। তবে এগুলো কতটা সংক্রামক বা কতটা মারাত্মক তা বিশেষজ্ঞরা এখনো নির্ধারণ করতে পারেননি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সতর্ক করে দিয়ে বলেছে যে একাধিক স্ট্রেইনের সংমিশ্রণে নতুন করোনাভাইরাসের উদয় হওয়ার ঝুঁকি এখনো খুব বেশি। ডব্লিউএইচও’র কর্মকর্তারা বলেন যে একারণে করোনাভাইরাসের জিন বিশ্লেষণ করা চালিয়ে যেতে হবে এবং এই সংক্রান্ত উপাত্ত আমাদের একে অন্যের সাথে ভাগাভাগি করে নিতে হবে।

টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুরো বলেন যে “বিএ.২” এর মতই “বিএ.৪” এবং “বিএ.৫” হল ওমিক্রনের সাব-ভ্যারিয়েন্ট। করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনটি সংক্রমণ এবং সংখ্যাবৃদ্ধি প্রক্রিয়া চলাকালে রূপ পরিবর্তন করায় সবকটি সাব-ভ্যারিয়েন্টের জন্ম হয়।

তিনি বলেন যে উদীয়মান সবকটি স্ট্রেইনের উপর আমাদের নজর রাখাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, এমনকি সেটি বড় হুমকি হয়ে দাঁড়াবে কিনা সেটা জানার আগে থেকেই। পুন:সংযোজিত ধরনগুলোর মধ্যে “এক্সই” ধরনটি সম্ভবত সবচেয়ে বেশি সংক্রামক হয়ে উঠবে বলে বিশেষজ্ঞরা সন্দেহ করলেও সেটি সংক্রমণের অপর এক বড় ঢেউয়ের সূত্রপাত করবে কিনা তা আমরা এখনো বলতে পারি না। হামাদা আরও বলেন যে সম্পূর্ণ এক ভিন্ন ধরনের ভ্যারিয়েন্ট উদয় হওয়ার সম্ভাবনার উপরেও আমাদের নজর রাখতে হবে। একারণেই নজরদারী ব্যবস্থা বজায় রাখার পাশাপাশি ভাইরাসের জিনোম বিশ্লেষণ করে দেখা অব্যাহত রাখতে হবে।

স্বাস্থ্য এবং কল্যাণ বিষয়ক আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ওয়াদা কোজি বলেন যে এখনো পর্যন্ত করোনাভাইরাসের যেসব ধরন আমরা দেখতে পেয়েছি সেগুলো আমাদের কল্পনার অতীত রূপ পরিবর্তন করেনি। ভবিষ্যতেও কী ধরনের অগ্রগতি হয় তার উপর তিনি নজর রাখবেন তবে সংক্রমণ প্রতিরোধে নেয়া পদক্ষেপে বিরাট কোন পরিবর্তন আনার প্রয়োজন নেই বলেই তার ধারণা।

ওয়াদা বলেন যে বর্তমানে সংক্রমণের পিছনে প্রধান স্ট্রেইন হল “বিএ.২” তবে তা “এক্সই” তে পরিবর্তন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। স্ট্রেইন পরিবর্তন হলেই যে দৈনন্দিন জীবনে যেসব সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপ আমাদের নেয়া উচিত তাও বদলে যাবে তা নয়। কোভিড-১৯ টিকার বুস্টার ডোজ নেয়ার প্রয়োজনও তা কমিয়ে দেবে না।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২২: “বিএ.২” এবং “এক্সই” ধরন দুটি কী রকমের? (৫) কোভিড-১৯এর পুন:সংযোজিত ধরন

উত্তর-৪২২: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসের নতুন নতুন ধরন এবং কোন পদক্ষেপ এই ক্ষেত্রে নেয়া দরকার তার উপর আলোকপাত করছি। এই পর্বে বেশ কয়েকটি ধরনের সমন্বয়ে দেখা দেয়া পুন:সংযোজিত ধরনগুলোর উপর আমরা নজর দেব।

এর আগের পর্বে আমরা ওমিক্রন ধরনের সাব-ভ্যারিয়েন্ট বা উপ-ধরন “বিএ.১” এবং “বিএ.২” এর পুন:সংযোজিত ধরন “এক্সই” এর উপর আলোকপাত করেছি। তবে “এক্সই” কেবল পুন:সংযোজিত ধরন নয়।

“এক্সডি” এবং “এক্সএফ” এই উভয় স্ট্রেইন হচ্ছে ওমিক্রন ধরনের উপ-ধরন “বিএ.১” এবং ২০২১ সালের গ্রীষ্মে জাপানে আঘাত হানা পঞ্চম তরঙ্গে প্রাধান্য বিস্তারকারী ডেল্টা ধরনের সংমিশ্রণ।

“এক্সডি” প্রধানত ডেল্টা ধরনের হলেও এর স্পাইক প্রোটিন “বিএ.১” এর।

ব্রিটেনের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের প্রামাণ্য দলিলে বলা হয়েছে যে “এক্সডি” ২০২১ সালের ডিসেম্বর মাসের ১৩ তারিখে প্রথম সনাক্ত করা হয়। সেইসব দলিল বলছে যে ২০২২ সালের পয়লা এপ্রিল পর্যন্ত ফ্রান্সে “এক্সডি”র ৬৬টি সংক্রমণ, ডেনমার্কে ৮টি এবং বেলজিয়ামে একটি সংক্রমণের খবর পাওয়া গেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা “এক্সডি”কে পর্যবেক্ষণের আওতায় থাকা ধরন হিসাবে তালিকাভুক্ত করেছে। উপসর্গের মারাত্মক অবস্থার কারণ হয়ে দেখা দেয়া এবং যেসব টিকা পাওয়া যাচ্ছে, এর বিরুদ্ধে সেগুলো কাজ করে কিনা – সেরকম প্রতিক্রিয়া যেসব ধরনের বেলায় এখনও পরিষ্কার নয় সেরকম কোভিড-১৯ ধরনকে পর্যবেক্ষণের আওতায় থাকা ধরন হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে “এক্সডি” এর বিস্তার হচ্ছে সীমিত।

“এক্সএফ” ধরনের স্পাইক প্রোটিন সহ অধিকাংশ অংশ হচ্ছে “বিএ.১” এর এবং অবশিষ্ট কিছু উপকরণ ডেল্টা ধরনের। ব্রিটেনের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ বলছে এবছর জানুয়ারি মাসের ৭ তারিখ থেকে ব্রিটেনে “এক্সএফ” ধরনের ৩৯টি সংক্রমণের সন্ধান পাওয়া গেছে। তবে কর্তৃপক্ষ আরও জানায় যে ফেব্রুয়ারি মাসের ১৪ তারিখের পর থেকে নতুন কোন সংক্রমণের খবর পাওয়া যায় নি।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২১: “বিএ.২” এবং “এক্সই” ধরন দুটি কী রকমের? (৪) “এক্সই” ধরন

উত্তর-৪২১: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসের নতুন নতুন ধরন এবং এদের সংক্রমণ ও বিস্তার রোধের জন্য কোন পদক্ষেপগুলো নেয়া উচিত, তা নিয়ে আলোচনা করছি। এই পর্বে আমরা করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের সাব-ভ্যারিয়েন্ট বা উপ-ধরন “এক্সই”র উপর আলোকপাত করবো।

অনেকগুলো ধরনের সমন্বয়ে গঠিত “এক্সই” ধরনের সংক্রমণের খবর ব্রিটেন এবং অন্যান্য দেশে পাওয়া গেছে।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ১১ই এপ্রিল ঘোষণা করে যে, তারা দেশের প্রথম এক্সই ধরনে আক্রান্ত ব্যক্তিকে বিমানবন্দরের কোয়ারেন্টিনে থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে সনাক্ত করেছে।

ভাইরাস যখন বার বার ছোট ছোট রূপান্তরের মধ্য দিয়ে যায় তখন নতুন নতুন বৈশিষ্ট্য লাভ করে, তবে বিভিন্ন ধরনের ভাইরাস যখন একই ব্যক্তিকে সংক্রমিত করে ও তাদের জিনগত উপাদানকে সংযোজিত করে তখন নতুন পুন:সংযোজিত ধরনের উৎপত্তি হয়।

“এক্সই” ধরন হচ্ছে ওমিক্রন “বিএ.১” এবং “বিএ.২” ধরনের পুন:সংযোজিত ধরন। মানুষের কোষকে আক্রান্ত করার সময় একটি প্রধান ভূমিকা পালন করা ভাইরাসের উপরিভাগের স্পাইক প্রোটিন’সহ “এক্সই” ধরনের অধিকাংশ অংশ “বিএ.২” ধরনের মত, অন্যদিকে অবশিষ্ট অংশ “বিএ.১” ধরনের মত।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানাচ্ছে, “এক্সই” হচ্ছে ওমিক্রনের একটি স্ট্রেইন। ব্রিটেনের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলো এক প্রতিবেদনে জানায় যে, ২০২২ সালের ১৯শে জানুয়ারি “এক্সই” ধরনের প্রথম সনাক্তকরণের পর থেকে, ৫ই এপ্রিল পর্যন্ত এই পুন:সংযোজিত ধরনে ১ হাজার ১৭৯ জনের আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে।

ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গুচ্ছ সংক্রমণ হচ্ছে, তবে এই স্ট্রেইনকে ১ শতাংশেরও কম ক্ষেত্রে দায়ী করা হয় যেগুলো নিয়ে সেদেশে বিশ্লেষণ পরিচালনা করা হয়েছে।

ব্রিটেনের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলো ৩০শে মার্চ পর্যন্ত নেয়া উপাত্তের উপর ভিত্তি করে একটি গাণিতিক মডেল ব্যবহার করে এক বিশ্লেষণ পরিচালনা করে এবং অনুমান করে যে, এক্সই স্ট্রেইনের সংক্রমণ হার বিএ.২ ধরনের চেয়ে ১২.৬ শতাংশ বেশি।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ২৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪২০: “বিএ.২” এবং “এক্সই” ধরন দুটি কী রকমের? (৩) “বিএ.২” কি সপ্তম তরঙ্গে প্রধান ধরনে পরিণত হবে?

উত্তর-৪২০: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসের নতুন নতুন ধরন এবং এদের সংক্রমণ ও বিস্তার রোধের জন্য কোন পদক্ষেপগুলো নেয়া উচিত, তা নিয়ে আলোচনা করছি। এই পর্বে আমরা ভবিষ্যতে জাপানে করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের সাব-ভ্যারিয়েন্ট বা উপ-ধরন “বিএ.২”র সম্ভাব্য বিস্তারের ওপর আলোকপাত করবো।

সুযুকি মোতোই হচ্ছেন জাপানের জাতীয় সংক্রামক রোগ ইনস্টিটিউটের নজরদারি, টিকাদান এবং মহামারি সংক্রান্ত গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান। তিনি বলেন, সংক্রমণের সপ্তম তরঙ্গে “বিএ.২”ই প্রধান স্ট্রেইনে পরিণত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, “বিএ.২”কে যেহেতু “বিএ.১” এর চাইতে কিছুটা বেশি সংক্রামক বলে মনে করা হয়, তাই সপ্তম তরঙ্গ পূর্ববর্তী তরঙ্গকে ছাড়িয়ে যেতে পারে, এমন সম্ভাবনা বিবেচনায় নিয়ে চিকিৎসা সেবা ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার জন্য প্রস্তুতি নেওয়া প্রয়োজন। ষষ্ঠ তরঙ্গে যখন ওমিক্রনের “বিএ.১” ধরনটি ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে, তখন লোকজন কম সতর্ক হয়ে পড়েছিলেন বলে প্রতীয়মান হয় কারণ ওমিক্রন ধরনের ক্ষেত্রে গুরুতর অসুস্থতার ঝুঁকি ডেল্টা ধরনের তুলনায় কম বলে বলা হয়েছিল।
তবে, ষষ্ঠ তরঙ্গে সংক্রমণের সংখ্যা এর আগের তরঙ্গগুলোর চাইতে উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি ছিল বলে মৃত্যুর সংখ্যাও ছিল বেশি। “বিএ.২” এর ক্ষেত্রেও একই ব্যাপার ঘটবে বলে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে উদ্বেগ রয়েছে।

টোকিও চিকিৎসা বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুও বলেন, "বিএ.২" স্ট্রেইনটি বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে সংক্রমণের প্রধান উৎস হিসেবে অন্যান্য ধরনগুলোকে প্রতিস্থাপন করেছে বলে মনে করা হয়। তিনি উল্লেখ করেন যে কিছু ইউরোপীয় দেশে ৯০ শতাংশেরও বেশি সংক্রমণের ঘটনার জন্য "বিএ.২" দায়ী। তিনি এও উল্লেখ করেন যে সেকারণে লোকজনের মধ্যে পারস্পরিক সংস্পর্শ হ্রাসের পাশাপাশি বুস্টার টিকাদানের প্রসার ঘটানোর মধ্য দিয়ে সংক্রমণ প্রতিরোধে আরও কিছুটা শক্তিশালী পদক্ষেপ নেওয়া জাপানের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তিনি এও বলেন যে বিশেষ করে, ২০এর কোঠার বয়সীদের মধ্যে নতুন সংক্রমণের সংখ্যা বেড়ে চলেছে বিধায় এই বয়সী গ্রুপকে লক্ষ্য করে নেয়া পদক্ষেপসমূহ সংক্রমণের একটি পুনরুত্থানের সম্ভাবনা হ্রাসের মূল চাবিকাঠি হতে পারে।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ২৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১৯: “বিএ.২” এবং “এক্সই” ধরন দুটি কী রকমের? (২) “বিএ.২”র বৈশিষ্ট্য এবং টিকার কার্যকারিতা

উত্তর-৪১৯: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা করোনাভাইরাসের নতুন নতুন ধরন এবং এদের সংক্রমণ ও বিস্তার রোধের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করছি। এই পর্বে আমরা আলোকপাত করবো করোনাভাইরাসের একটি ধরন ওমিক্রনের আরো বেশি ছোঁয়াচে সাব-ভ্যারিয়েন্ট “বিএ.২”র বৈশিষ্ট্য এবং টিকার কার্যকারিতার ওপর।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে করোনাভাইরাসের ষষ্ঠ তরঙ্গের সময় পৃথিবী জুড়ে প্রাধান্য বিস্তার করেছিল যে ধরনটি, সেই “বিএ.১”এর চেয়ে “বিএ.২” বেশি সংক্রামক। ডেনমার্ক থেকে পাওয়া উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, “বিএ.২” ধরনটির ছড়িয়ে পড়তে “বিএ.১”এর চেয়ে ১৫ শতাংশ কম সময় লাগে। বিশ্লেষণে জানা যায়, “বিএ.২”র ক্ষেত্রে সংক্রমিত একজন ব্যক্তি থেকে আরও কতজন সংক্রমিত হবেন তার গড়পড়তা সংখ্যা বা তথাকথিত কার্যকর পুন:উৎপাদনের সংখ্যা “বিএ.১”এর চাইতে ২৬ শতাংশ বেশি হওয়ার সম্ভাবনা। অন্য দিকে রোগীর অবস্থা গুরুতর হয়ে ওঠার ঝুঁকি  কম। ডব্লিউএইচও ব্রিটেনে করা এক বিশ্লেষণের উল্লেখ করেছে যেখানে দেখা যায় “বিএ.১” এবং “বিএ.২”এ সংক্রমিত রোগীদের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার হারে কোনো তফাৎ নেই। ওতে আরও বলা হয়, কোনো ব্যক্তি “বিএ.১”এ সংক্রমিত হওয়ার পরে “বিএ.২”তেও সংক্রমিত হতে পারেন। 

ব্রিটেনে পরিচালিত গবেষণায় জানা যায়, বুস্টার ডোজ টিকা নেওয়ার অন্ততপক্ষে এক সপ্তাহ পরে “বিএ.১”এ যারা সংক্রমিত হয়েছেন, তাদের  মধ্যে ৭১ দশমিক ৩ শতাংশের বেলায় কোনো উপসর্গ ছিল না। “বিএ.২’র ক্ষেত্রে এই হার সামান্য বেড়ে ৭২ দশমিক ২ শতাংশ হয়। তৃতীয় ডোজ নেওয়ার কমপক্ষে ১৫ সপ্তাহ পরে টিকার কার্যকারিতা “বিএ.১”এর ক্ষেত্রে ৪৫ দশমিক ৫ শতাংশ এবং “বিএ.২”এর ক্ষেত্রে ৪৮ দশমিক ৪ শতাংশ হ্রাস পায়।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১৮: “বিএ.২” এবং “এক্সই” ধরন দুটি কী রকমের? (১) “বিএ.২” বিশ্বজুড়ে বিস্তার লাভ করছে

উত্তর-৪১৮: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। “বিএ.২” হল ওমিক্রনের একটি সাবভেরিয়েন্ট যেটি আরও বেশি ছোঁয়াচে। এপ্রিল মাসের ১১ তারিখ ওমিক্রনের নতুন একটি ধরন “এক্সই” মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসা এক নারীর দেহে পাওয়া যাওয়ায় জাপান তার প্রথম সংক্রমণের ঘটনা নিশ্চিত করেছে। করোনাভাইরাসের নতুন ধরনগুলো এবং এদের সংক্রমণ ও বিস্তার রোধে কী রকম পদক্ষেপ নেয়ার প্রয়োজন রয়েছে, সে বিষয়টি নিয়ে আমাদের নতুন এই ধারাবাহিকের এবারে রয়েছে প্রথম পর্ব।

করোনাভাইরাস বিশ্ব জুড়ে বিস্তার লাভ করার সাথে সাথে বারংবার তা রূপ পরিবর্তন করছে। বর্তমানে ভাইরাসের যে ধরনটি বিশ্বে প্রধানত দেখা যাচ্ছে তা হল ওমিক্রনের সাবভেরিয়েন্ট “বিএ.২” যেটি “বিএ.১” এর পরিবর্তিত রূপ। ভাইরাসের পৃষ্ঠে স্পাইক প্রোটিনের জিনগত উপাদানের কিছু অংশ পরিবর্তিত হতে দেখা যায়। মানব কোষকে সংক্রমিত করার সময় স্পাইক প্রোটিন এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

“বিএ.২”-এ সংক্রমিত লোকজনের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ব্রিটিশ স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে মার্চ মাসের ২৭ তারিখের সপ্তাহে সংক্রমিতদের ৯৩ দশমিক ৯ শতাংশই হল সাব ভেরিয়েন্টের কারণে সংক্রামিত। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিরোধ কেন্দ্রের হিসাব অনুযায়ী এপ্রিল মাসের ২ তারিখের সপ্তাহে সংক্রমিতদের ৭২ দশমিক ২ শতাংশই হল “বিএ.২” এর কারণে।

ভাইরাসের উপস্থিতি পরীক্ষা করে দেখার বেসরকারি এক কোম্পানির থেকে পাওয়া উপাত্তের উপর ভিত্তি করে সংক্রামক রোগ সংক্রান্ত জাপানের জাতীয় ইনস্টিটিউটের হিসাব অনুযায়ী মার্চ মাসের মাঝামাঝি নাগাদ দেশে আক্রান্তদের প্রায় ৩০ শতাংশ হল “বিএ.২” সাবভেরিয়েন্টের কারণে। তবে ইনস্টিটিউটের ধারণা যে মে মাসের প্রথম সপ্তাহে সংক্রমণের সংখ্যা ৯৩ শতাংশে এবং জুন মাসের প্রথম সপ্তাহে তা ১০০ শতাংশে উন্নীত হবে।

“বিএ.১” এর গোষ্ঠী সংক্রমণ ২০২১ সালের ডিসেম্বর মাসের শেষে প্রথমবারের মত জাপানে নিশ্চিত করা হয়েছিল। কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি নাগাদ সংক্রমণের প্রধান স্ট্রেইন ডেল্টাকে কার্যত স্থলাভিষিক্ত করে এই ধরনটি। ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝি নাগাদ প্রথমবার টোকিওতে “বিএ.২” এর গোষ্ঠী সংক্রমণ নিশ্চিত করা হয়। “বিএ.১” যে গতিতে ডেল্টাকে স্থলাভিষিক্ত করেছিল এই ধরনটি অতি দ্রুত “বিএ.১” কে সরাতে না পারলেও স্থিরভাবে এটি সেদিকেই এগোচ্ছে।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ২১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১৭: করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাবে ভুগছেন এমন ৪২২ জন রোগীর কেস স্টাডি (৫) ভবিষ্যতের চিকিৎসায় পর্যবেক্ষণ ফলাফল কাজে লাগানো হবে।

উত্তর-৪১৭: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাব নিয়ে আমাদের এই ধারাবাহিকের শেষ পর্বে, আমরা রোগীদের ভবিষ্যৎ চিকিৎসার উপর আলোকপাত করবো।

সাইতামা জেলা কর্তৃপক্ষ এবং সাইতামা চিকিৎসা সমিতি দীর্ঘমেয়াদী উপসর্গ যাদের বেলায় দেখা গেছে সেরকম রোগীদের উপর বিশ্লেষণ চালায়, যাদের অধিকাংশই অমিক্রন ধরনের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। বিশ্লেষণের ফলাফলকে এরা রোগ নির্ধারণ ও রোগের চিকিৎসার বেলায় ব্যবহারের নির্দেশিকায় রূপান্তরিত করে নিয়েছে। কর্মকর্তারা একই সাথে দীর্ঘমেয়াদী উপসর্গ সহ অমিক্রন-আক্রান্ত রোগীদের পরীক্ষা করে দেখারও পরিকল্পনা করছেন।

সাইতামার কর্মকর্তারা দীর্ঘমেয়াদী উপসর্গ দেখা দেয়া রোগীদের চিকিৎসা প্রদানে সক্ষম চিকিৎসা কেন্দ্রের সংখ্যা জেলায় ১৪০টির বেশীতে বৃদ্ধি করে নেয়ার পরিকল্পনা করছেন। তারা চাইছেন সেরকম চিকিৎসা কেন্দ্র যেন সমস্ত জেলা জুড়ে সমানভাবে বিস্তৃত হয়ে অবস্থান করে। সাইতামা চিকিৎসা সমিতির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা মারুকি ইয়ুইচি এরকম প্রত্যাশা করছেন যে রোগের পরবর্তী তরঙ্গে দীর্ঘমেয়াদী উপসর্গ দেখা দেয়া রোগীর সংখ্যা পঞ্চম তরঙ্গের বেলায় যতটা দেখা গিয়েছিল তার চাইতে দ্বিগুন কিংবা বেশি বৃদ্ধি পাবে। তিনি বলেছেন সেরকম রোগীদের উপর চালানো পর্যবেক্ষণ থেকে পাওয়া নতুন জ্ঞান নির্দেশিকায় যোগ করে নেওয়া হবে। তিনি আশা করছেন চিকিৎসকদের এটা করোনাভাইরাস রোগীদের চিকিৎসা প্রদানের বেলায় রোগীর অবস্থা আরও ভালভাবে বুঝে উঠতে সাহায্য করবে।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১৬: করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাবে ভুগছেন এমন ৪২২ জন রোগীর কেস স্টাডি (৪) অব্যাহত প্রচেষ্টাই সুস্থ হওয়ার চাবিকাঠি।

উত্তর-৪১৬: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাব নিয়ে আমাদের এই ধারাবাহিকের চতুর্থ পর্বে, আমরা এমন একজন রোগী সম্পর্কে আপনাদের অবহিত করব যিনি অব্যাহত প্রচেষ্টার কল্যাণেই এই রোগ থেকে সেরে উঠেছেন।

এই রোগী হচ্ছেন সাইতামা জেলায় বাস করা ১৬ বছর বয়সী একজন ছাত্রী। তিনি হাইস্কুলে ভর্তি হওয়ার পরপরই, ২০২১ সালের মে মাসে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। তিনি প্রচণ্ড মাথাব্যথা, শ্বাসকষ্ট এবং ৩৯ ডিগ্রী সেলসিয়াসের কাছাকাছি তাপমাত্রার জ্বরে ভুগেছিলেন। তিনি সরকার স্বীকৃত কোয়ারেন্টাইন থাকার হোটেলে থেকে সুস্থ হয়ে ওঠেন এবং আবার স্কুলে যাওয়া শুরু করেন। তবে তিনি অবিলম্বে বিভিন্ন সমস্যায় ভুগতে শুরু করেন যেমন, মাথাঘোরা, মাথাব্যথা, প্রচণ্ড অবসাদ এবং ঘ্রাণ ও স্বাদের পরিবর্তিত অনুভূতি পেতে থাকেন। ঐ বছরের শরৎকাল পর্যন্ত তিনি মাথা ঝিম ঝিম করার দরুণ স্কুলে যেতে পারেননি। তাকে অধিকাংশ সময় বিছানাতেই থাকতে হয়েছে। তিনি ৪টি পৃথক পৃথক চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানে যান, কিন্তু তার রোগের লক্ষণের কোন উন্নতি হয়নি।

এরপর এই ছাত্রী একটি কান, নাক ও গলার ডাক্তারখানায় যান যেখানে কোভিড পরবর্তী পরিস্থিতির জন্য একটি বিশেষ বিভাগ রয়েছে। সেখানকার একজন ডাক্তার প্রস্তাব করেন যে, মাথাঘোরা কমানোর জন্য তাকে প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে যেতে হবে এবং ঘ্রাণশক্তি ফিরিয়ে আনার জন্যও তাকে চেষ্টা করতে হবে।

এই রোগীকে দেয়ালের একটি বিন্দুতে তাকিয়ে থাকার অনুরোধ করা হয় এবং নির্দেশমত তার চোখ উপর, নিচ, বাম ও ডানে ঘুরাতে বলা হয়। তবে তখন তিনি মাথা এবং শরীরের অন্যান্য অংশ নাড়াতে পারবেন না। এই প্রশিক্ষণ হচ্ছে তার ভারসাম্যের বোধকে ফিরিয়ে আনার জন্য। ঘ্রাণশক্তি পুনরুদ্ধারের জন্য অন্য এক প্রশিক্ষণে, তাকে ল্যাভেন্ডার বা লেবুর মত গন্ধযুক্ত নির্যাস-সংক্রান্ত তেলের গন্ধ নিতে বলা হয় যেন তিনি এইসব গাছের ছবি দেখছেন। এটি হচ্ছে ঘ্রাণ এবং তার স্মৃতিশক্তির মধ্যে সংযোগ পুন:স্থাপনের জন্য। তিনি বাড়িতে প্রতিদিন এই প্রশিক্ষণ চালিয়ে যান এবং তার অবস্থা ধীরে ধীরে ঠিক হয়ে আসতে থাকে।

তার দেখানো সেই ক্লিনিকের পরিচালক, সাকাতা হিদেআকি আমাদের বলেছেন, সাথে সাথে ডাক্তার দেখানো এবং উপযুক্ত চিকিৎসা পাওয়া রোগীদের অপেক্ষাকৃত তাড়াতাড়ি সেরে ওঠার প্রবণতা রয়েছে। তবে, তিনি এও বলেন, ডাক্তার দেখানোর আগে ৩ থেকে ৬ মাস অপেক্ষা করা কোন কোন রোগীর মধ্যে তাদের অবস্থার সামান্য উন্নতি লক্ষ্য করা যায়। তিনি বলেন, পরিস্থিতি আশাবাদী হতে দিচ্ছে না, কেননা সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ থেকে আরও কোভিড পরবর্তী রোগী তাকে দেখতে হবে বলে তিনি মনে করছেন।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ১৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১৫: করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাবে ভুগছেন এমন ৪২২ জন রোগীর কেস স্টাডি (৩) ছয় মাসেরও বেশি সময় পরে।

উত্তর-৪১৫: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাব নিয়ে আমাদের এই ধারাবাহিকের তৃতীয় পর্বে, আমরা এমন এক রোগী সম্পর্কে আপনাদের অবহিত করব যিনি এই রোগ থেকে সেরে ওঠার ছয় মাস পরেও এখনও ভুগছেন।

এই রোগী হচ্ছেন সাইতামা জেলায় বাস করা ৬০ বছর বয়সী এক পুরুষ। তিনি ২০২১ সালের আগস্ট মাসে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। তিনি ক্লান্তি, নিউমোনিয়া ও ৩৯ ডিগ্রী সেলসিয়াসের কাছাকাছি তাপমাত্রার জ্বরে ভুগেছিলেন। তিনি বাড়িতেই সুস্থ হয়ে ওঠেন, তবে ঘ্রাণ ও স্বাদের অনুভূতি হারান এবং খুব বেশি খেতে পারতেন না। ঐ ব্যক্তি ১০ কিলোগ্রামেরও বেশি ওজন হারান। সুস্থ হয়ে ওঠার পরে তিনি একটি নির্মাণ স্থলে কাজে যোগ দেন। তবে তিনি দীর্ঘায়িত ক্লান্তি এবং ঘুমের সমস্যা নিয়ে অভিযোগ করেন। তিনি কাজ করা চালিয়ে যেতে না পেরে একই বছরের ডিসেম্বর মাসে চাকরি ছেড়ে দেন।

ঐ ব্যক্তি বলেন, তিনি যখন ঘুমাতে যান তখন তিনি সম্ভবত ঘন্টাখানেক ঘুমাতে পারেন এবং এরপরে ভোরের আলো না ফোটা পর্যন্ত তিনি আর ঘুমাতে পারেন না। তিনি বলেন, কাজের ক্ষেত্রে তার মনে হত যে তিনি অনেকক্ষণ ধরে কাজ করতে পারছেন না। তিনি বলেন, কি করতে হবে, সেটি তার জানা থাকলেও তার মন শীঘ্রই বিচলিত হতে শুরু করত এবং তার অঙ্গপ্রত্যঙ্গও নড়াচড়া বন্ধ করে দিত। তিনি বলেন, এই অবস্থায় যে আর কাজে যেতে পারবেন না, তা তিনি জানতেন।

কোভিড-পরবর্তী অবস্থা সংক্রান্ত একজন বিশেষজ্ঞ ঐ ব্যক্তিকে বলেন যে তার ব্রেইন ফগ সিনড্রোম বা মস্তিষ্কের ধোঁয়াশা নামক একটি উপসর্গ দেখা দিয়েছে যার মধ্যে অস্পষ্টতার পাশাপাশি স্মৃতিশক্তি ও মনোযোগ হ্রাসের সমস্যা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। যদিও তিনি ওষুধ সেবনের পাশাপাশি চিকিৎসকের দেয়া দৈনন্দিন জীবনযাত্রার নির্দেশিকা অনুসরণ করছেন, তথাপি সাত মাস পরেও এখনও তার অবস্থার কোন উন্নতি হয়নি। তিনি এখনও ক্লান্তি ও অস্পষ্টতার অভিযোগ করছেন। ঐ ব্যক্তি বলেন, তিনি এটি আশা করেননি যে এই রোগের রেশ এতদিন ধরে চলতে থাকবে। তিনি বলেন, নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন।

তার চিকিৎসক কোদাইরা মাকোতো আমাদের বলেন যে ক্লান্তি এবং মস্তিষ্কের ধোঁয়াশা হচ্ছে দুটি প্রধান কোভিড-পরবর্তী অবস্থা, যেগুলোর কখনও কখনও ছয় মাস বা তারও বেশি সময়ের জন্য দীর্ঘায়িত হওয়ার প্রবণতা রয়েছে। তিনি বলেন, এই ধরনের অবস্থা থাকা রোগীদের অব্যাহত সমর্থনের প্রয়োজন।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১৪: করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাবে ভুগছেন এমন ৪২২ জন রোগীর কেস স্টাডি (২) ডাক্তারদের জন্য নির্দেশাবলী।

উত্তর-৪১৪: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাব নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের দ্বিতীয় পর্বে জানব উপসর্গ নির্ণয় ও চিকিৎসার বিষয়ে সম্মুখসারির ডাক্তারদের সংকলন করা নির্দেশিকাতে কী বলা হয়েছে।

সাইতামা জেলা এবং সাইতামা চিকিৎসা সমিতি করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাবে ভুক্তভোগী ৪২২ জন রোগীর ওপর ২০২১ সালের অক্টোবর মাস থেকে ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসের মধ্যে পরিচালিত এক সমীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করেছে। সমীক্ষার ফলাফল যারা সংকলন করেছেন, সেই ডাক্তাররা কোভিড-পরবর্তী প্রধান প্রধান উপসর্গের তালিকা তৈরি করার পাশাপাশি, কীভাবে রোগীদের অবস্থার উন্নতি ঘটানো যায়, সে সম্পর্কে কিছু নির্দেশ ও উপদেশ-পরামর্শ দিয়েছেন।

ইন্টারনাল মেডিসিনের ডাক্তারদের তৈরি করা নির্দেশিকায় কী বলা হয়েছে, জেনে নেওয়া যাক।

১) বেশ কয়েকটা উপসর্গে রোগীরা ভোগেন, যার মধ্যে অবসাদ বা ক্লান্তি এবং তথাকথিত ব্রেইন ফগ সিনড্রোম অন্তর্ভুক্ত। ব্রেইন ফগ সিনড্রোম দেখা দিলে লোকেদের চিন্তা করার শক্তি, স্মৃতি শক্তি এবং মন:সংযোগের ক্ষমতা কমে যায়।
২) সেরে উঠতে ছয় মাস বা তার চেয়েও বেশি সময় লাগতে পারে। এসব উপসর্গ রোগীর প্রাত্যহিক জীবনের কাজকর্মে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে।
৩) ডাক্তারদের উচিত সেরে ওঠার প্রক্রিয়ায় থাকা রোগীদের বিশ্রাম ও প্রাত্যহিক জীবনের কাজকর্মের মধ্যে সঠিক ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করা।
৪) রোগীরা যাতে উপসর্গগুলো সামাল দিতে এবং এগুলো সঙ্গে নিয়েই বাঁচতে শেখে, সে ব্যাপারে তাদের সাহায্য করা উচিত ডাক্তারদের।

কান, নাক ও গলার ডাক্তাররা তাদের নির্দেশিকায় বলেছেন: --

১) কোভিড-পরবর্তী উপসর্গ কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে বেশি প্রকট।
২) ঘ্রাণ ও স্বাদ গ্রহণের ইন্দ্রিয়ে পরিবর্তন ঘটার ফলে রোগীরা জীবনমানের অবনতিতে কষ্ট পান। তাদের এ থেকে সেরে ওঠার প্রক্রিয়ায় ডাক্তারদের নৈতিক ও মানসিক সমর্থনের বিরাট গুরুত্ব রয়েছে।
৩) ঘ্রাণেন্দ্রিয়ের উন্নতি ঘটানোর একটি বিকল্প চিকিৎসা হিসেবে ডাক্তাররা তথাকথিত ওলফ্যাকটরি ট্রেইনিংয়ের সুপারিশ করেন, যেখানে রোগীকে দিয়ে বার বার নানারকম ঘ্রাণ শোঁকানো হয়।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১৩: করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাবে ভুগছেন এমন ৪২২ জন রোগীর কেস স্টাডি (১) কী ধরনের উপসর্গ জানানো হয়েছে?

উত্তর-৪১৩: এনএইচকে করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের নতুন এই ধারাবাহিকে করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাবের ওপর আমরা আলোকপাত করব।

সাইতামা জেলা এবং সাইতামা চিকিৎসা সমিতি, ২০২১ সালের অক্টোবর মাস থেকে শুরু করে ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসের মধ্যে করোনাভাইরাসের দীর্ঘ-মেয়াদী প্রভাবে ভুগছেন এমন রোগীদের ওপর চালানো এক গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করেছে। ঐ জেলার সাতটি হাসপাতালে আসা ৪২২ জন বহিরাগত রোগীর উপসর্গ গবেষণায় পরীক্ষা করে দেখা হয়।

গবেষণায় দেখা যায় যে রোগীদের ২৫ দশমিক ৬ শতাংশ ঘ্রাণের অনুভূতি জনিত সমস্যা, ১৬ দশমিক ৬ শতাংশ অল্পতে হাঁপিয়ে উঠা সহ শ্বাস-প্রশ্বাস জনিত সমস্যা, ১৫ দশমিক ৬ শতাংশ ক্লান্তির অনুভূতি এবং ১৪ দশমিক ৭ শতাংশ কাশি ও কফের সমস্যায় ভুগছেন বলে জানিয়েছেন।

৯ দশমিক ৭ শতাংশ চুল পড়ে যাওয়া, ৯ শতাংশ জ্বর, মাথাব্যাথা বা মাথার পিছনে অস্বস্তি এবং ৭ দশমিক ১ শতাংশ স্বাদের অনুভূতিতে অস্বাভাবিকতার বিষয়টি জানিয়েছেন।

রোগ নির্ণয়ের প্রায় এক বছর পরেও কয়েকজন রোগী দীর্ঘ-মেয়াদী উপসর্গে ভুগে চলেছেন বলে গবেষণায় দেখা যায়।

আমাদের পরবর্তী পর্বে আমরা কেস স্টাডি প্রতিবেদনে সংক্ষিপ্ত ভাবে উল্লেখ করা চিকিৎসা নির্দেশিকার ওপর আলোকপাত করব।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১২: করোনাভাইরাস সংক্রমণের ৬ষ্ঠ তরঙ্গে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা এখনও এত বেশি কেন এবং পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে? (৫) ভবিষ্যতের কথা ভেবে কী করা উচিত?

উত্তর-৪১২: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছালেও, নতুন সংক্রমণের সংখ্যা হ্রাসের গতিতে মন্থরতা দেখা যাচ্ছে। কেন এই সংখ্যা দ্রুত হ্রাস পাচ্ছে না চলতি ধারাবাহিকে আমরা তার ওপর আলোকপাত করছি। এবারে এর পঞ্চম ও চূড়ান্ত পর্বে আমরা জানার চেষ্টা করবো আগামী দিনগুলোর কথা ভেবে কী ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রাখা উচিত।

১৭ই মার্চ জাপান সরকারের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত উপদেষ্টা প্যানেলের প্রধান ওমি শিগেরু বলেন যে কার্যত জরুরি অবস্থা প্রত্যাহারের পর নতুন করে সংক্রমিত হওয়ার সংখ্যা আবার বৃদ্ধি পেতে পারে। তিনি বলেন, এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ হলো গুরুতর অসুস্থ রোগীর সংখ্যা কম রাখা এবং চিকিৎসা সেবা ব্যবস্থার ওপর চাপ যাতে না বাড়ে তা নিশ্চিত করা।

ওমি বলেন, লোকজনের টিকা নেওয়া প্রয়োজন, তবে সেটুকুই যথেষ্ট নয়। তিনি বলেন, সংক্রমণ রোধের বিধিনিয়ম অনুসরণ অব্যাহত না রাখলে কোভিডের কারণে প্রাণহানি বৃদ্ধি পেতে পারে, যা ঘটেছে ইউরোপের কয়েকটি দেশে। তিনি লোকজনকে নিজেদের এবং অন্যদের সুরক্ষার জন্য মাস্ক পরা অব্যাহত রাখতে আহ্বান জানান, কারণ হাঁচি-কাশি’র ফলে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার হার বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য ও কল্যাণ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ওয়াদা কোজি লোকজনের নিজেদের এবং পরিবার ও বন্ধুদের সুরক্ষার জন্য যত তাড়াতাড়ি সম্ভব টিকার অতিরিক্ত ডোজ বা বুস্টার ডোজ নেওয়ার গুরুত্বের ওপর জোর দেন। তরুণ প্রজন্ম সহ সবাইকে তিনি টিকার সবকটা ডোজ নিতে আহ্বান জানিয়েছেন, কারণ বিধিনিষেধ শিথিল হওয়ার ফলে তাদের সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে গিয়েছে। তিনি এও বলেন কার্যত জরুরি অবস্থা উঠে যাওয়ার পর লোকজন ও ব্যবসাসমূহের কী কী নিয়ম মেনে চলা সমীচীন, সরকারের তা পরিস্কার করে জানানো উচিত।

ওকিনাওয়া চুবু হাসপাতালের তাকাইয়ামা ইয়োশিহিরো বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের সপ্তম তরঙ্গ আঘাত হানার যথেষ্ট আশংকা রয়েছে, কারণ গতবছর এবং ২০২০ সাল, এই দু বছরই স্কুলে বসন্তকালীন ছুটি শেষ হওয়ার পর নতুন সংক্রমণের সংখ্যা এক লাফে অনেক বেড়ে গিয়েছিল। তিনি বলেন আবার একই পরিস্থিতির অবতারণা হতে পারে এবং তার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে রাখা ভাল।

তাকাইয়ামা বলেন যে সমাজের ওপর কড়া বিধিনিষেধ না চাপিয়েও সংক্রমণের সপ্তম তরঙ্গের মোকাবিলা করা যাবে, সেই প্রত্যাশা তিনি করছেন। এর জন্যে তিনি দুটি দিকের প্রতি নজর দিতে পরামর্শ দিয়েছেন। প্রথমত, বয়োবৃদ্ধদের পরিচর্যা বা থাকার কোনও জায়গায় কেউ সংক্রমিত হলে, ছড়িয়ে পড়া রোধ করার জন্য সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নিতে হবে। দ্বিতীয়ত, বুস্টার ডোজের টিকাদান কর্মসূচির গতি আরও বাড়াতে হবে।

এই তথ্যগুলো এপ্রিল মাসের ১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১১: করোনাভাইরাস সংক্রমণের ৬ষ্ঠ তরঙ্গে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা এখনও এত বেশি কেন এবং পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে? (৪) ওমিক্রনের বিএ.২ সাবভেরিয়েন্ট মূল সাবভেরিয়েন্টকে কি স্থলাভিষিক্ত করবে?

উত্তর-৪১১: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ সর্বোচ্চ পর্যায় অতিক্রম করেছে। তবে নতুন সংক্রমণ হ্রাস পাওয়ার গতি হচ্ছে মন্থর। ধারাবাহিক এই আয়োজনে আমরা সংক্রমণ কেন দ্রুত হ্রাস পাচ্ছে না এবং আগামীতে কি হবে তার উপর আলোকপাত করছি। চতুর্থ পর্বে এবারে আমরা ওমিক্রনের বিএ.২ সাবভেরিয়েন্ট মূল সাবভেরিয়েন্টের স্থলাভিষিক্ত করবে কিনা সে বিষয় নিয়ে কথা বলবো।

জাপানে সর্বশেষ দফার সংক্রমণের ক্ষেত্রে ওমিক্রনের বিএ.২ সাবভেরিয়েন্টই হল প্রধান উদ্বেগের কারণ। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞদের প্যানেল মার্চ মাসের ১৫ তারিখ সমবেত হয়েছিল। দেশে বিএ.২ কিভাবে বিস্তার লাভ করবে বলে তাদের ধারণা সে বিষয়ে প্যানেল তার পূর্বাভাস উপস্থাপন করেছিল।

কিয়োতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নিশিউরা হিরোশি টোকিওতে পরীক্ষামূলক উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখেন। তার অনুমান অনুযায়ী ওমিক্রনের সব ধরনের সংক্রমণের মধ্যে ৮২ শতাংশই হবে বিএ.২-এর কারণে এবং এটি পয়লা এপ্রিলের মধ্যে রাজধানীতে মূল সাবভেরিয়েন্টকে স্থলাভিষিক্ত করবে।

জাপানে সংক্রামক রোগ বিষয়ক জাতীয় ইনস্টিটিউটে নজরদারী, টিকাদান এবং মহামারি সংক্রান্ত গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান হলেন সুযুকি মোতোই। দুটি বেসরকারি পরীক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করা পরীক্ষার ফলাফলের নমুনা তিনি বিশ্লেষণ করে দেখেন এবং সারা জাপানে বিএ.২ সংক্রমণ কত শতাংশ বিস্তার লাভ করবে সে বিষয়ে পূর্বাভাস করেন। তার অনুমান অনুযায়ী এই সাবভেরিয়েন্টটি এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহে সব ধরনের সংক্রমণের ৭০ শতাংশ এবং মে মাসের প্রথম সপ্তাহে ৯৭ শতাংশে গিয়ে দাঁড়াবে।

বিএ.২ সাবভেরিয়েন্টটি বর্তমানে যে সাবভেরিয়েন্টের প্রাধান্য বেশি, সেই বিএ.১-এর তুলনায় বিশ শতাংশ বেশি সংক্রামক বলে ধারণা করা হয়ে থাকে। বিএ.২ যদি বিএ.১’কে স্থলাভিষিক্ত করতে শুরু করে তবে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে বর্তমানে নেয়া পদক্ষেপ যথেষ্ট নাও হতে পারে।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪১০: করোনাভাইরাস সংক্রমণের ৬ষ্ঠ তরঙ্গে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা এখনও এত বেশি কেন এবং পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে? (৩) যথেষ্ট মাত্রায় হ্রাস পাওয়ার আগে সংক্রমণের ফিরে আসার সম্ভাবনা নিয়ে দেখা দেয়া উদ্বেগ।

উত্তর-৪১০: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ সর্বোচ্চ পর্যায় অতিক্রম করেছে। তবে নতুন সংক্রমণ হ্রাস পাওয়ার গতি হচ্ছে মন্থর।
ধারাবাহিক এই আয়োজনে আমরা সংক্রমণ কেন দ্রুত হ্রাস পাচ্ছে না এবং আগামীতে কি হবে তার উপর আলোকপাত করছি। তৃতীয় পর্বে এবারে আমরা পর্যাপ্ত মাত্রায় হ্রাস পাওয়া দেখা না গিয়ে আবারও তা বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করবো।

নাগোইয়া প্রযুক্তি ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক হিরাতা আকিমাসার নেতৃত্বে একদল গবেষক কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা এআই’তে নানারকম উপাত্ত যুক্ত করে নিয়ে টোকিওর ভবিষ্যৎ পরিস্থিতি কি হতে পারে তার একটি নকল তৈরি করেছেন। এসব উপাত্তের মধ্যে মানুষের চলাচল, অতীতের সংক্রমণ এবং টিকার কার্যকারিতা অন্তর্ভুক্ত আছে।

একটি ধারণা ছিল এরকম যে কার্যত জরুরি অবস্থা শেষ হয়ে যাওয়ার পর মানুষ গত বছরের একই সময়ের মাত্রার মত জীবনযাপনে ফিরে যাবে। সেরকম অবস্থায় টোকিওতে দৈনিক নতুন সংক্রমণ এপ্রিল মাসের শুরুর দিকে প্রায় ৫,৪০০টির মত থাকার পর সামান্য বৃদ্ধি পেয়ে একই পর্যায়ে অবস্থান করে এপ্রিল মাসের শেষ দিকে ৫,৬০০টির কিছু বেশিতে বিরাজ করবে।

মানুষের চলাচল গত বছরের চাইতে ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে ধারণা করে নিলে এপ্রিল মাসের শুরুতে দৈনিক গণনা ধীরে বৃদ্ধি পাবে এবং এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময়ে ৭,৭০০টির বেশিতে গিয়ে দাঁড়াতে পারে।

নকল পরীক্ষা একই সাথে এরকম ধারণা নিয়ে চালানো হয়েছে যে মানুষের চলাচল বৃদ্ধি পাবে ও সেই সাথে পানাহারের জন্য লোকজনের সমাবেশও ইংরেজি নববর্ষের ছুটির সময়ের মাত্রায় বৃদ্ধি পাবে। সেরকম অবস্থায় দৈনিক নতুন সংক্রমণ মার্চ মাসের শেষ দিক থেকে বৃদ্ধি পেতে শুরু করবে এবং এপ্রিলের মাঝামাঝি সময়ে ১৩ হাজারেরও বেশিতে পৌঁছে যাবে।

গবেষকরা বলছেন, বুস্টার টিকার কার্যকারিতা বিবেচনা করে দেখলে বলা যায় যে মারাত্মক অসুস্থ রোগীর সংখ্যা সম্ভবত নাটকীয়ভাবে বৃদ্ধি পাবে না। তবে তারা আরও বলছেন সংক্রমণ পুনরায় বৃদ্ধি পাওয়া কমিয়ে আনতে হলে একসাথে খাওয়া-দাওয়া করা মানুষের সংখ্যা সীমিত করা হয়তো উচিৎ হবে।

হিরাতা বলছেন বড় দলে জড়ো হয়ে মানুষের খাওয়া-দাওয়া করা বছরের এই সময়ে সাধারণত বৃদ্ধি পায়, যা কিনা সংক্রমণ হ্রাস করা কঠিন করে তুলতে পারে।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ৩০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০৯: করোনাভাইরাস সংক্রমণের ৬ষ্ঠ তরঙ্গে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা এখনও এত বেশি কেন এবং পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে? (২) সংক্রমণের হ্রাস শ্লথ হওয়ার একটি কারণ- শিশুদের মধ্যে ভাইরাসের বিস্তার।

উত্তর-৪০৯: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে ওমিক্রন ধরনের বিস্তারের কারণে সৃষ্ট সংক্রমণের ৬ষ্ঠ তরঙ্গ এর চূড়া ছুঁয়েছে। তবে, সংক্রমণ হ্রাস পাওয়ার গতি শ্লথ এবং অনেকে এরকম আশঙ্কাও করছেন যে সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি হয়ত ৭ম তরঙ্গে রূপ নিতে পারে।
আমাদের নতুন এই ধারাবাহিকে, সংক্রমণের সংখ্যা দ্রুত হ্রাস না পাওয়ার কারণ ও সংক্রমণ পরিস্থিতির ভবিষ্যৎ গতিবিধির ওপর আলোকপাত করা হবে। ধারাবাহিকের দ্বিতীয় পর্বে আমরা শিশুদের মধ্যে সংক্রমণের কথা তুলে ধরব।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, মার্চ মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত এক সপ্তাহে ১০ বছরের ছোট ৬৫ হাজারেরও বেশি শিশু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে, যদিও সংক্রমণের ৬ষ্ঠ তরঙ্গ এর চূড়ায় ইতোমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছিল। ৫ম তরঙ্গের মাঝে গত বছরের ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত এক সপ্তাহে তাদের মধ্যে নতুন করে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা ১০ হাজার ৩৮০ জনের তুলনায় অনেক বেশি।

নতুন করে আক্রান্ত হওয়া সব বয়সের রোগীর মধ্যেও শিশুদের আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা বেড়েছে। জানুয়ারি মাসের গোড়ার দিকে এই সংখ্যা ছিল প্রায় ৫ শতাংশ, তবে মার্চ মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত সপ্তাহে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২১ শতাংশে যা এমনকি মধ্য-ফেব্রুয়ারি থেকে সংক্রমণের মোট সংখ্যা কমতে শুরু করলেও অন্য সব বয়সের গ্রুপকে ছাড়িয়ে গেছে।

নার্সারি স্কুলের মত শিশু কল্যাণ স্থাপনাগুলোতে মার্চ মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত এক সপ্তাহে গুচ্ছ সংক্রমণের সংখ্যা বেড়ে রেকর্ড ২২৯ হয়েছে যা এর আগের সপ্তাহ থেকে ৫৬টি বেশি। স্কুলগুলোতেও গুচ্ছ সংক্রমণের সংখ্যা একই সময়কালে ৫৯ থেকে বেড়ে ৩১৮-তে পৌঁছেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্কুল ও কিন্ডারগার্টেনের মত যেসব স্থানে তারা একসাথে সময় কাটাচ্ছে সেখানে শিশুদের মধ্যে ওমিক্রন ধরন ডেল্টা ধরনের চেয়ে সহজে বিস্তার লাভ করছে। তারা এই ইঙ্গিতও দিচ্ছেন যে অন্য প্রজন্মের চেয়ে শিশুদের মধ্যে টিকা নেয়ার হার কম।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ২৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০৮: করোনাভাইরাস সংক্রমণের ৬ষ্ঠ তরঙ্গে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা এখনও এত বেশি কেন এবং পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে? (১) সংক্রমণের হ্রাস শ্লথ হওয়ার একটি কারণ- বুস্টার টিকাদানে বিলম্ব এবং বয়োজ্যেষ্ঠদের মধ্যে ভাইরাসের বিস্তার।

উত্তর-৪০৮: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে ওমিক্রন ধরনের বিস্তারের কারণে সৃষ্ট সংক্রমণের ৬ষ্ঠ তরঙ্গ এর চূড়া ছুঁয়েছে। তবে, সংক্রমণ হ্রাস পাওয়ার গতি শ্লথ এবং নতুন সংক্রমণের সংখ্যা এখনও বেশি। অনেকে এরকম আশঙ্কাও প্রকাশ করছেন যে সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি হয়ত ৭ম তরঙ্গে রূপ নিতে পারে। আমাদের নতুন এই ধারাবাহিকে, সংক্রমণের সংখ্যা দ্রুত হ্রাস না পাওয়ার কারণ এবং সংক্রমণ পরিস্থিতির ভবিষ্যৎ গতিবিধির ওপর আলোকপাত করা হবে।

বিশেষজ্ঞরা সংক্রমণ হ্রাসের গতি শ্লথ হওয়ার নেপথ্যে একাধিক প্রধান কারণের কথা উল্লেখ করেছেন। প্রথম কারণ হলো, টিকার তৃতীয় ডোজ দেয়ায় বিলম্বের কারণে বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তিদের মধ্যে সংক্রমণ অব্যাহত রয়েছে। তাদের ভাষ্যানুযায়ী, অন্য কারণটি হল, শিশুদের মধ্যে করোনাভাইরাসের এযাবৎকালের মধ্যে সর্বোচ্চ প্রাদুর্ভাব অব্যাহত রয়েছে।

পঞ্চম তরঙ্গের ক্ষেত্রে প্রবীণদের মধ্যে সংক্রমণের দিকে তাকালে দেখা যাবে, ২০২১ সালের জুলাই মাসের শেষ নাগাদ সংক্রমণ তুঙ্গে ওঠার সময় ৬৫ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সীদের ৭০ শতাংশেরও বেশি টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেয়া সম্পন্ন করেছিলেন। সেসময়, তরুণ প্রজন্মের মাঝে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়লেও বয়োজ্যেষ্ঠরা এতে আক্রান্ত হননি। আর বিশেষজ্ঞদের বিশ্লেষণ অনুযায়ী, এর ফলেই সংক্রমণের সংখ্যা তখন দ্রুত হ্রাস পেয়েছিল।

অন্যদিকে, ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসের শুরুর দিকে ৬ষ্ঠ তরঙ্গের মাঝে, টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার পরে অনেক সময় অতিবাহিত হওয়ায়, কোভিড-১৯’এর বিরুদ্ধে টিকার সুরক্ষার মাত্রা ক্রমশ দুর্বল হয়ে গিয়েছিল। তার উপর, ৬৫ বছর এবং তদূর্ধ্ব বয়সীদের ১ শতাংশেরও কম তখন বুস্টার ডোজ গ্রহণ করেছিলেন।

আবার, ফেব্রুয়ারি মাসের ৫ তারিখ যখন সংক্রমণের সর্বোচ্চ সংখ্যা নিবন্ধিত হচ্ছিল, তখন বুস্টার টিকার হার ছিল মাত্র ১৫ শতাংশ। এই ধরনের পরিস্থিতিতে, তরুণ প্রজন্মের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ার পরে বয়োজ্যেষ্ঠদের মধ্যেও ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে দেখা যায়। মূলত, বয়স্কদের মধ্যে করোনাভাইরাস এখনও ছড়িয়ে পড়ছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ভাষ্যানুযায়ী, ১৪ই মার্চ পর্যন্ত সপ্তাহে সারা দেশে বয়স্ক পরিচর্যা কেন্দ্রগুলোতে সর্বোচ্চ ৩শ ৪১টি গুচ্ছ সংক্রমণ নিশ্চিত করা হয়।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০৭: এলার্জি নাকি কোভিড-১৯? (৮) পোলেন এলার্জির উপসর্গ বলে মনে হলে অবিলম্বে ডাক্তার দেখান।

উত্তর-৪০৭: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে এই ভাইরাসের ওমিক্রন ধরনটির বিস্তার যখন অব্যাহত রয়েছে, তারই মধ্যে শুরু হয়েছে পোলেন এলার্জির মৌসুমও। এ নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের অষ্টম ও শেষ পর্বে, পোলেন এলার্জির উপসর্গ বলে মনে হওয়া মাত্র ডাক্তার দেখানোর গুরুত্বের প্রতি আলোকপাত করা হবে।

আপনি যদি পোলেন এলার্জির বলে অনুমিত উপসর্গে হঠাৎ ভুগতে আরম্ভ করেন, যে উপসর্গ আপনার গতবছর ছিল না, সেক্ষেত্রে উচিত হবে সতর্ক হওয়া এবং এই উপসর্গকে এলার্জি বলেই ধরে না নেওয়া।

পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের পোলেন সংক্রান্ত তথ্য প্রদানের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে যে সিডার গাছের রেণু সারা জাপানে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে ইতোমধ্যেই। জাপান আবহাওয়া সমিতি এই মৌসুমে তার পোলেন সংক্রান্ত পূর্বাভাষে জানিয়েছে যে জাপানের বহু এলাকা, বিশেষ করে পূর্ব জাপানে ছড়িয়ে পড়ার হার বিগত মৌসুমের তুলনায় কোথাও সামান্য বেশি, কোথাও অনেক বেশি। বাইরে বেরিয়ে আপনি যদি ঘন ঘন হাঁচি দেন এবং নাক দিয়ে জল গড়ায়, তাহলে আশপাশের লোকেরা দুশ্চিন্তায় পড়ে যাবে, কারণ তারা বুঝতে পারবে না এটা এলার্জির উপসর্গ নাকি কোভিড-১৯।
তাই পোলেন এলার্জির উপসর্গ দেখা দিলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসা করানোই সমীচীন।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ২৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০৬: এলার্জি নাকি কোভিড-১৯? (৭) উপসর্গের কারণ কোভিড-১৯ না এলার্জি, বিষয়টি নিয়ে আপনি যখন নিশ্চিত নন।

উত্তর-৪০৬: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রন ধরনের সংক্রমণ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া অবস্থায় জাপান এখন পোলেন এলার্জির মৌসুমে প্রবেশ করছে। আমাদের এই ধারাবাহিকের সপ্তম পর্বে এবারে আমরা উপসর্গের কারণ কোভিড-১৯ না পোলেন এলার্জি, এটা নির্ধারণে অসুবিধার মুখে পড়লে আপনাকে কী করতে হবে তা নিয়ে আলোচনা করবো।

কিমুরা ইয়ুরিকা হলেন একজন চিকিৎসক যিনি মাথা ও গলার অস্ত্রোপচার সংক্রান্ত জাপানের অটোরাইনোল্যারিঙ্গোলজি সমিতিতে করোনাভাইরাস পদক্ষেপ বিষয়ক একটি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

তিনি বলেন, আপনার যদি সচরাচর যে এলার্জি উপসর্গগুলো দেখা দেয় সেগুলোই হয়ে থাকে এবং প্রচণ্ড জ্বরের মত অন্যান্য কোন ধরনের উপসর্গ দেখতে না পাওয়া যায় এবং তারসাথে আপনার চারিপাশে যদি কেউ কোভিড-১৯’এ সংক্রমিত না হয়ে থাকে, তাহলে সাধারণ এলার্জি চিকিৎসার জন্য ডাক্তারের কাছে যেতে কোন অসুবিধা নেই।

তিনি আরও বলেন, আপনি যদি সাধারণ হাঁচি এবং সর্দির মত সমস্যায় ভুগে থাকেন, এবং সেই সাথে এই বছরে যদি প্রচন্ড জ্বর, গলা ব্যাথা এবং মাথা ব্যাথার মত উপসর্গও আপনার শরীরে দেখা দেয়, তবে ক্লিনিকে যাওয়ার আগে এই তথ্য অবশ্যই তাদেরকে জানাবেন।

নিজেকে এবং চারিপাশের লোকজনকে সুরক্ষিত রাখার লক্ষ্যে যেসব মানুষের পোলেন এলার্জি রয়েছে তারা যেন এই মৌসুমে আগে থেকেই চিকিৎসা নিতে শুরু করেন সেটা তিনি দেখতে চান বলে জানান।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০৫: এলার্জি নাকি কোভিড-১৯? (৬) হাঁচি বা সর্দির মত উপসর্গ আপনার দেখা দিলে কী হবে?

উত্তর-৪০৫: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রন ধরনের সংক্রমণ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া অবস্থায় জাপান এখন পোলেন এলার্জির মৌসুমে প্রবেশ করছে। আমাদের এই ধারাবাহিকের ষষ্ঠ পর্বে এবারে আমরা হাঁচি কিংবা সর্দি দেখা দিলে আপনাকে কী করতে হবে তা নিয়ে আলোচনা করবো।

মাথা ও গলার অস্ত্রোপচার সংক্রান্ত জাপানের অটোরাইনোল্যারিঙ্গোলজি সমিতি পোলেন এলার্জি থাকা লোকজনকে স্বাভাবিক অবস্থার চাইতে দ্রুত সময়ে চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার আহ্বান জানাচ্ছে।

চিকিৎসকরা বলছেন আগাম চিকিৎসা পোলেন এলার্জির উপসর্গ কমিয়ে দিতে সক্ষম। তারা বলছেন গবেষণায় দেখা গেছে যে উপসর্গ দেখা দেয়ার আগে কিংবা উপসর্গ হালকা ধরনের থাকা অবস্থায় চিকিৎসা শুরু করা হলে পরবর্তীতে উপসর্গ উপশম করা যায়।

পোলেন এলার্জির নানারকম চিকিৎসা রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন এলার্জিতে যারা ভুগছেন, কান-নাক-গলার চিকিৎসকের শরণাপন্ন হলে উপসর্গের এবং স্বাস্থ্যের অবস্থাভেদে সঠিক চিকিৎসা পাওয়া তাদের পক্ষে সম্ভব।

চিকিৎসার মধ্যে দিয়ে এলার্জির উপসর্গ চলে যাওয়ার পরও গলা ব্যথা, মাথা ধরা কিংবা খুব বেশি অবসাদ বোধ করলে আপনি হয়তো করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন বলে সন্দেহ পোষণ করতে পারেন। এছাড়া পোলেন এলার্জির চিকিৎসা নেয়ার পরও এলার্জি পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে না বলে আপনার মনে হলে করোনাভাইরাসে আপনি হয়তো সংক্রমিত হতে পারেন।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ২৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০৪: এলার্জি নাকি কোভিড-১৯? (৫) এই ভাইরাসের অনিচ্ছাকৃত বিস্তারের ঝুঁকি

উত্তর-৪০৪: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের ব্যাপক বিস্তার লাভের মধ্যেই জাপান প্রবেশ করছে পোলেন এলার্জি বা ফুলের রেণু থেকে সৃষ্ট এলার্জির মৌসুমে। চলতি ধারাবাহিকের পঞ্চম পর্বে এবার আমরা আলোচনা করবো লোকজন যে আক্রান্ত হতে পারেন সেব্যাপারে সচেতন না থাকার কারণে এই ভাইরাস বিস্তারের সম্ভাবনা নিয়ে।

নাক, কান ও গলার রোগ এবং মাথা ও ঘাড়ের সম্পর্কযুক্ত অংশের সার্জারি সংক্রান্ত জাপান সমিতির প্রকাশ করা পরামর্শবলীতে বিভিন্ন সমস্যার কথা তালিকাভুক্ত করা হয়েছে যেগুলো একটি ওমিক্রন মহামারির মাঝে পোলেন এলার্জির মৌসুম শুরু হওয়ায় দেখা দিতে পারে।

এগুলোর মধ্যে একটি হচ্ছে লোকজনের তাদের উপসর্গ পোলেন এলার্জি থেকে হয়েছে, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বরং হয়নি এটা বিশ্বাস করার কারণে এই ভাইরাসের বিস্তারের ঝুঁকি এবং এভাবে প্রয়োজনীয় বিস্তার রোধী পদক্ষেপ গ্রহণে ব্যর্থ হওয়া। পোলেন এলার্জি এবং ওমিক্রন ধরনে সংক্রমিত এই উভয় ধরনে ভোগা লোকজনের বিশেষ করে হাঁচি হলে সতর্ক থাকা উচিত। জাপান সমিতি জানাচ্ছে, জোরে কাশির থেকে হাঁচি ১০ গুণ বেশি জলীয়কণা উৎপাদন করতে পারে।

সমিতি যদি এলার্জির সঠিক চিকিৎসা করানো না হয় তাহলে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি বাড়বে বলেও সতর্ক করে দিচ্ছে। এর কারণ হচ্ছে, লোকজন এলার্জির একটি উপসর্গ চুলকানির হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য ভাইরাসে দূষিত হাত দিয়ে হয়তো তাদের চোখ বা নাক চুলকাবে এবং এভাবে শ্লেষ্মা ঝিল্লির মধ্য দিয়ে সংক্রমিত হবে।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০৩: এলার্জি নাকি কোভিড-১৯? (৪) আমাদের যেসব সমস্যা হয় ১) কী হয়েছে বুঝতে না পারার ফলে দুশ্চিন্তা

উত্তর-৪০৩: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এই ভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের ব্যাপক বিস্তার লাভের মধ্যেই জাপান প্রবেশ করছে পোলেন এলার্জি বা ফুলের রেণু থেকে সৃষ্ট এলার্জির মৌসুমে। চলতি ধারাবাহিকের চতুর্থ পর্বে এবার আমরা আলোচনা করবো তফাৎ বুঝতে না পারার জন্য মনে যে উদ্বেগ জন্মায়, তা নিয়ে।

নাক, কান ও গলার রোগ এবং মাথা ও ঘাড়ের সম্পর্কযুক্ত অংশের সার্জারি সংক্রান্ত জাপান সমিতির প্রকাশ করা পরামর্শবলীতে ওমিক্রন সংক্রমণের মধ্যে পোলেন এলার্জির মৌসুম শুরু হওয়ার পর যেসব সমস্যা দেখা দিতে পারে তার একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে।

প্রথমত তালিকায় সেই উদ্বেগের কথা উল্লেখ করা হয়েছে যা মানুষ অনুভব করে যখন তারা বুঝতে পারে না যে তাদের কী হয়েছে, এলার্জি নাকি কোভিড-১৯। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কারুর যদি পোলেন এলার্জি হয়, সেই ব্যক্তির পক্ষে উপসর্গ থেকে বোঝা কঠিন এটা করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নাকি এলার্জি। এমনকি একজন দক্ষ চিকিৎসকের পক্ষেও উপসর্গ দেখে নিশ্চিত হওয়া কঠিন যে রোগী পোলেন এলার্জিতে ভুগছেন নাকি ওমিক্রনের সংক্রমণে। চিকিৎসকের পক্ষেই যেখানে বোঝা সহজ নয় সেখানে রোগী যে তার উপসর্গের আসল হেতু বুঝে উঠতে পারবে না, তাতে আর আশ্চর্যের কী আছে।

পোলেন এলার্জির জন্য সর্দি হলে স্কুলে বা কাজে যাওয়ায় বাধা নেই। কিন্তু যদি আশংকা থাকে যে এটা হয়তো ওমিক্রন সংক্রমণের উপসর্গ, তখন বাড়িতে থাকা উচিত এবং ডাক্তার দেখানো উচিত। কীসের উপসর্গ, কী করা উচিত, এসব জানা না থাকলে মানুষের উৎকন্ঠা হয়।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০২: এলার্জি নাকি কোভিড-১৯? (৩) পোলেন এলার্জিতে ভুগছেন, এমন সবাইকে কোভিড-১৯ পরীক্ষা নাও করানো হতে পারে।

উত্তর-৪০২: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রন ধরনের সংক্রমণ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া অবস্থায় জাপান এখন পোলেন এলার্জি মৌসুমে প্রবেশ করছে। আমাদের এই ধারাবাহিকের তৃতীয় পর্বে এবারে আমরা কান, নাক এবং গলার ডাক্তারদের একটি গ্রুপের দেওয়া পরামর্শের উপর নজর দেব।

২০১৯ সালে দেশ জুড়ে চালানো এক জরিপের ফলাফলে দেখা যায় যে জবাবদাতাদের ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ তাদের কোন না কোন ধরনের পোলেন এলার্জি ছিল বলে জানিয়েছিলেন এবং ৩৮ দশমিক ৮ শতাংশ তাদের সিডার বা পাইন জাতীয় গাছের পোলেনে এলার্জি ছিল বলে জানান। জরিপটি চালিয়েছিল জাপান সোসাইটি অব ইমিউনোলজি এন্ড এলার্গোলজি ইন অটোল্যারিঙ্গোলজিকে অন্তর্ভুক্ত করে একটি দল। জরিপের ফলাফলে আভাস দেয়া হয়েছিল যে জাপানে প্রতি তিন ব্যক্তির একজন পোলেন এলার্জিতে ভুগছেন। তবে বিরাট সংখ্যক এই লোকজনের হাঁচি এবং সর্দির মত উপসর্গ দেখা দিলে এদের সবাইকে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করে দেখা সহজ কাজ নয়।

এধরনের বিভ্রান্তি দেখা দিতে পারে বলে তা আগে থেকে অনুমান করে নিয়ে জাপানিজ সোসাইটি অব অটোরাইনোল্যারিঙ্গোলজি- হেড এন্ড নেক সার্জারি, পোলেন এলার্জি মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই জানুয়ারি মাসের ২৫ তারিখ তাদের ওয়েবসাইটে একটি পরামর্শ পোস্ট করে।

এতে বলা হয় যে সর্দি, হাঁচি, নাক বন্ধ, ঘ্রাণের অনুভূতি চলে যাওয়া এবং ক্লান্তির মত উপসর্গগুলো পোলেন এলার্জিতে ভুগছেন এমন লোকজনের ক্ষেত্রে যেমন দেখা যায় ঠিক তেমনই কোভিড-১৯ রোগের বেলায় বিশেষ করে ওমিক্রন ধরনের ক্ষেত্রেও উপসর্গগুলো একই ধরনের। এলার্জি উপসর্গে যারা ভুগছেন তারা করোনাভাইরাসে সংক্রমিত কিনা তা নির্ণয় করা খুবই কঠিন হয়ে ওঠে বলে সোসাইটি জানায়।

এরপরের পর্বে আমরা সোসাইটির পরামর্শ নিয়ে আপনাদের আরও জানাবো।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ১৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০১: এলার্জি নাকি কোভিড-১৯? (২) মৌসুমি এলার্জি এবং করোনাভাইরাসের মধ্যে পার্থক্য খুঁজে পেতে এমন কি চিকিৎসকদেরও অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে

উত্তর-৪০১: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রন ধরনের সংক্রমণ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া অবস্থায় জাপান এখন পোলেন এলার্জি মৌসুমে প্রবেশ করছে। আমাদের এই ধারাবাহিকের দ্বিতীয় পর্বে এবারে আমরা সেরকম উপসর্গের রোগীদের চিকিৎসা প্রদানে নিয়োজিত একজন চিকিৎসকের সাথে কথা বলবো।

কিমুরা ইয়ুরিকা হচ্ছেন একজন চিকিৎসক, যিনি নাক, কান ও গলার চিকিৎসা সংক্রান্ত জাপানের সমিতি অটোরাইনোলারিনগোলোজি সোসাইটির করোনাভাইরাস পদক্ষেপ সম্পর্কিত একটি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিনি বলেছেন মৌসুমি পোলেন এলার্জি ও ওমিক্রন ধরনের মধ্যে পার্থক্য খুঁজে পেতে এমনকি চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে।

এরকম একটি ঘটনার বর্ণনা কিমুরা দিয়েছেন, যেখানে একজন রোগী হাঁচি ও সর্দির উপসর্গ থেকে আরোগ্য লাভের জন্য পোলেন এলার্জির নিয়মিত চিকিৎসা নিতে গিয়েছিলেন। তবে দুই দিন পর সেই রোগী গলা ব্যথা নিয়ে আবারও চিকিৎসা কেন্দ্রে ফিরে যান এবং রোগ নির্ণয়ে তার করোনাভাইরাস ধরা পড়ে।

কিমুরা বলছেন প্রাথমিক পর্যায়ে করোনাভাইরাস উপসর্গের পার্থক্য বুঝতে পারার জটিলতা অনুধাবন করতে সেই ঘটনা তাকে সাহায্য করেছে। তিনি বলেছেন নাকের শ্লেষ্মা ঝিল্লির রঙ সাদা হয়ে যাওয়া পোলেন এলার্জির বৈশিষ্টসুলভ চিহ্ন বলে প্রথাগত দিক থেকে বলা হলেও অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় যে এরকম উপসর্গ এলার্জির প্রাথমিক পর্যায়ে ফুটে উঠে না। কিমুরা আরও বলেছেন রোগীর পরীক্ষা করানো ছাড়া পোলেন এলার্জির সাথে কোভিড-১৯এর পার্থক্য খুঁজে পাওয়া চিকিৎসকদের জন্য কঠিন।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ১৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৪০০: এলার্জি নাকি কোভিড-১৯? (১) ওমিক্রন সংক্রমণ এবং পোলেন এলার্জির রয়েছে একই ধরনের উপসর্গ

উত্তর-৪০০: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে ওমিক্রন ধরনের ব্যাপক সংক্রমণের মাঝে সিডার এবং হিনোকি সাইপ্রেস পোলেন এলার্জির মৌসুম শুরু হয়ে গেছে। যখন আপনি হাঁচি দেবেন বা নাক দিয়ে জলের মত সর্দি পড়তে থাকবে, তখন আপনি হয়তো ভাবতে থাকবেন এটা পোলেন এলার্জি নাকি কোভিড-১৯। আমাদের নতুন ধারাবাহিকে, যখন আপনি আপনার উপসর্গ সম্বন্ধে বুঝতে পারবেন না তখন কী করতে হবে, তার পাশাপাশি কী কী ব্যাপারে সতর্ক থাকবে হবে এবং কী ধরনের প্রস্তুতি নিতে হবে সে ব্যাপারে তুলে ধরব।

কান, নাক এবং গলার ডাক্তাররা এই উপসর্গগুলোকে পোলেন এলার্জির প্রধান উপসর্গ হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছেন – হাঁচি, নাক দিয়ে জল পড়া, নাক বন্ধ হয়ে থাকা, চোখ চুলকানো, অবসাদ, ঠিকমত গন্ধ না পাওয়া, জ্বর জ্বর ভাব হওয়া, গলা ব্যথা, গলার ভিতর চুলকানো, কফ, সামান্য মাথাব্যথা এবং কান চুলকানো।

এদিকে, জাপানের জাতীয় সংক্রমণ রোগ ইনস্টিটিউট জানাচ্ছে, ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত লোকজনের মধ্যে এই ধরনের উপসর্গ দেখা যায় – ৬৬.৬ শতাংশ রোগীর জ্বর থাকে, ৪১.৬ শতাংশ রোগীর কফ থাকে, ২২.৫ শতাংশ রোগীর সাধারণ অবসাদ থাকে এবং ২১.১ শতাংশ রোগীর থাকে মাথাব্যথা। ইনস্টিটিউটটি এও জানাচ্ছে, ১২.৯ শতাংশ রোগীর কফের চেয়ে বরং শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত উপসর্গ দেখা যায়, ২.৭ শতাংশ রোগীর বমি বমি ভাব থাকে বা তারা বমি করে থাকে, ২.৩ শতাংশ রোগীর থাকে ডায়রিয়া এবং ০.৮ শতাংশ রোগীর থাকে গন্ধ বা স্বাদে সমস্যা।

জাতীয় ইনস্টিটিউটের অন্য এক সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে যে, ৪৫.১ শতাংশ রোগীর থাকে কফ, ৩২.৮ শতাংশ রোগীর থাকে জ্বর, ৩২.৮ শতাংশ রোগীর থাকে গলা ব্যথা, ২০.৫ শতাংশ রোগীর থাকে সর্দি, ১.৬ শতাংশ রোগীর থাকে গন্ধে সমস্যা এবং ০.৮ শতাংশ রোগীর থাকে স্বাদে সমস্যা। কিন্তু যুক্তরাজ্যের গবেষকদের একটি দলের অন্য এক সমীক্ষা থেকে দেখা যাচ্ছে যে, ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত উপসর্গ থাকা রোগীর ৬০ শতাংশের মধ্যে হাঁচির লক্ষণ দেখা যায়।

যেহেতু উপসর্গ মানুষভেদে ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে, তাই পোলেন এলার্জি এবং ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত উভয় ধরনের লোকের হাঁচি এবং নাক দিয়ে জল পড়া’সহ একই ধরনের উপসর্গ দেখা দেয়ার প্রবণতা রয়েছে।

আমাদের ধারাবাহিকের পরবর্তী পর্বে, আমরা এই ধরনের উপসর্গ থাকা রোগী দেখা ডাক্তারদের সাথে কথা বলব।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯৯: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (১০) টিকার ভাল ও মন্দ দিক বিবেচনা করুন: বিশেষজ্ঞ

উত্তর-৩৯৯: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সী শিশুদের কোভিডের টিকাদান শুরু হয়েছে। শিশুদের টিকাদান বিষয়ক চলতি এই ধারাবাহিকের দশম পর্বে আমরা এবিষয়ে একজন বিশেষজ্ঞের মতামত তুলে ধরব।

কিতাসাতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নাকাইয়ামা তেৎসুও হচ্ছেন টিকাদান সম্পর্কে জ্ঞানসম্পন্ন একজন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ। তিনি বলেন, টিকাদানের ভাল দিকের পাশাপাশি বিরূপ প্রতিক্রিয়ার মত নেতিবাচক দিকগুলো বা কোন শিশু সংক্রামিত হলে কী হতে পারে, সেই বিষয়গুলো লোকজনের অনুধাবন করা উচিত।

নাকাইয়ামা বিবেচনায় নেয়ার জন্য কিছু বিষয় উল্লেখ করেন। তার ভাষ্যমতে, যদি শিশুরা সংক্রামিত হয়, তবে উপসর্গগুলো মৃদু হলেও তাদের দীর্ঘ সময়ের জন্য বাড়িতে থাকতে হবে এবং এরফলে শারীরিক ও মানসিকভাবে কঠিন সময় পার করতে হবে।

নাকাইয়ামা বলেন, টিকা পুরোপুরি সংক্রমণ প্রতিরোধ না করলেও উপসর্গগুলোকে মৃদু রাখতে পারে। তিনি এও বলেন যে টিকা শিশুদের ভাইরাসটি বাড়িতে এনে একত্রে বসবাসকারী পিতামাতা এবং দাদা-দাদি বা নানা-নানিদের সংক্রামিত করাকে রোধ করতে পারে।

নাকাইয়ামার ভাষ্যমতে, আগে থেকে স্বাস্থ্যগত সমস্যা থাকা শিশু যারা গুরুতরভাবে অসুস্থ হয়ে পড়তে পারে, তাদের সক্রিয়ভাবেই টিকা নেয়ার পরামর্শ দেয়া উচিত। তিনি বলেন, তবে সব শিশুকেই টিকাদানের পরামর্শ দেয়া উচিত কিনা, সেটি নিয়ে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে।

নাকাইয়ামা বলেন, কেউ একজন এমন ভাবতে পারেন যে শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ বেড়ে চললেও খুব বেশি কেউ গুরুতর অসুস্থ হচ্ছেনা বিধায় তাদের টিকা দেয়ার কোন প্রয়োজন নেই। তবে তিনি এও বলেন যে, কে আসলে গুরুতরভাবে অসুস্থ হয়ে পড়বে, তা আগে থেকে জানা সম্ভব নয়।

নাকাইয়ামার ভাষ্যানুযায়ী, জনসাধারণকে টিকা নিতে বাধ্য করা উচিত নয়। তিনি বলেন, তাদের বিষয়টি অনুধাবন করা এবং নিজেদের সিদ্ধান্ত নিজেরাই নেয়াটা গুরুত্বপূর্ণ। তিনি এও বলেন যে এক্ষেত্রে তার চাওয়া হল, লোকজন যেন নিজেদের সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য সঠিক তথ্য খুঁজে নেয়ার পাশাপাশি বিজ্ঞানভিত্তিক দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণ করেন।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯৮: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (৯) শিশুসন্তানদের টিকাদানের বিষয়ে পিতামাতা ও অভিভাবকরা কী মনে করছেন।

উত্তর-৩৯৮: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সী শিশুদের কোভিড ১৯’এর টিকাদান শুরু হয়েছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা শিশুদের টিকাদানের ওপর আলোকপাত করছি। এবারে এর নবম পর্বে আমরা জানার চেষ্টা করবো শিশুসন্তানদের টিকাদানের বিষয়ে পিতামাতা ও অভিভাবকরা কী মনে করছেন।

টোকিও’র কোতো ওয়ার্ড লাইন অ্যাপ’এর মাধ্যমে নিবন্ধিত পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সী শিশুসন্তান থাকা পিতামাতাদের মধ্যে একটি সমীক্ষা চালায়। ফেব্রুয়ারি মাসের ১০ থেকে ১৩ তারিখের মধ্যে পরিচালিত এই সমীক্ষায় প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন ২ হাজারের ওপর উত্তরদাতা।

শিশুসন্তানদের টিকাকরণে তারা ইচ্ছুক কি না জানতে চাওয়া হলে ৩১ দশমিক ৩ শতাংশ উত্তরদাতা বলেন, “হ্যাঁ। আমরা চাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব টিকা দেওয়া হোক”। ৪৮ দশমিক ৭ শতাংশ উত্তরদাতা বলেন, “একটু অপেক্ষা করে দেখতে চাই। কোনো সমস্যা দেখা না দিলে তখন দেওয়াতে চাই”। ওদিকে ২০ শতাংশ উত্তরদাতা পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন যে শিশুসন্তানদের টিকাকরণে তাদের একেবারেই সম্মতি নেই।

শিশুসন্তানদের টিকাকরণ নিয়ে মনে উদ্বেগ আছে কি না জানতে চাওয়া হলে ৩৯ দশমিক ৬ শতাংশ উত্তরদাতা বলেন যে তারা “খুব উদ্বিগ্ন”। ৪৯ দশমিক ৭ শতাংশ উত্তরদাতা বলেন যে তারা “একটু উদ্বিগ্ন”। এ থেকে বোঝা যাচ্ছে শিশুসন্তানদের টিকাকরণ নিয়ে বহু লোকের মনে উদ্বেগ রয়েছে।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ১১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯৭: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (৮) শিশু এবং কিশোর কিশোরীদের ক্ষেত্রে হাসপাতালে ভর্তি প্রতিরোধে টিকা কার্যকর জানিয়েছে সিডিসি।

উত্তর-৩৯৭: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপান ৫ থেকে ১১ বছর বয়সের শিশুদের কোভিড-১৯ টিকাদান শুরু করেছে। ধারাবাহিক এই আয়োজনে আমরা শিশুদের টিকাদানের ওপর আলোকপাত করছি এবং অষ্টম পর্বে এবারে আমরা টিকার কার্যকারিতার উপর নজর দেব।


পয়লা মার্চ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র সিডিসি ৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশু এবং কিশোর-কিশোরীদের উপর ফাইজার-বিয়োনটেক টিকার কার্যকারিতা বিষয়ে এক গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করেছে। গত বছর এপ্রিল মাসের গোড়া থেকে শুরু করে চলতি বছর জানুয়ারি মাসের প্রায় শেষের দিক পর্যন্ত এই গবেষণা পরিচালনা করা হয়েছিল। কোভিড-১৯’এ সংক্রমিত প্রায় ৪০ হাজার শিশু, কিশোর ও কিশোরী যাদেরকে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্থানে জরুরি ভিত্তিতে সেবা প্রদান করা হয় বা চিকিৎসা কেন্দ্রে ভর্তি করতে হয়, তাদের উপর এই গবেষণা চালানো হয়েছিল।

গবেষণা অনুযায়ী ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুরা যারা টিকার দ্বিতীয় ডোজ সমাপ্ত করেছে, সেইসব শিশুদের বেলায় ৭৪ শতাংশ ক্ষেত্রে হাসপাতালে ভর্তি এড়ানো গেছে। ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী কিশোর-কিশোরীদের বেলায় তারা কোন সময়ে টিকা নিয়েছে তার উপর ভিত্তি করে ৭৩ থেকে ৯৪ শতাংশ ক্ষেত্রে হাসপাতালে ভর্তি প্রতিরোধ করা গেছে।


এই বয়সের জন্য টিকাদানের সুপারিশ অব্যাহত রেখেছে সিডিসি। সংস্থা জানায় যে সময়ের সাথে সাথে টিকার কার্যকারিতা হ্রাস পেলেও হাসপাতালে ভর্তি আটকাতে এটা খুবই কার্যকর।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯৬: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (৭) টিকা শিশুদের মধ্যে মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়া প্রতিরোধ করতে পারবে বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

উত্তর-৩৯৬: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপান ৫ থেকে ১১ বছর বয়সের শিশুদের কোভিড-১৯ টিকাদান শুরু করেছে। ধারাবাহিক এই আয়োজনে আমরা শিশুদের টিকাদানের ওপর আলোকপাত করছি এবং সপ্তম পর্বে এবারে আমরা অল্প বয়সী শিশুদের টিকা দেয়া কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেদিকে নজর দেব।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ একটি গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করেছে, যেখানে দেখানো হয়েছে যে ওমিক্রন ধরন প্রাধান্য বিস্তার করার সময় ফাইজারের টিকার সংক্রমণ প্রতিহত করার সামর্থ্য ৫ থেকে ১১ বছর বয়সীদের বেলায় যথেষ্ট হ্রাস পেয়েছিল। কিতাসাতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ নাকাইয়ামা তেৎসুও টিকার বিষয়টি নিয়ে যথেষ্ট পরিচিত। তিনি বলছেন ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের টিকার যে ডোজ দেয়া হয়, পরিমাণে সেটা হচ্ছে ১২ বছর কিংবা বেশি বয়সীদের টিকার এক তৃতীয়াংশ। তিনি উল্লেখ করেছেন ১১ ও ১২ বছর বয়সীদের মধ্যে দেহের আকারের দিক থেকে সাধারণত খুব বেশি পার্থক্য নেই। তিনি বলছেন টিকার পরিমাণ কম হলে এর কার্যকারিতাও হবে কম। ফলে তিনি উল্লেখ করেন যে এটা খুব সহজেই ধারণা করে নেয়া হয় যে শিশুদের বেলায় টিকা কার্যকর থাকার মেয়াদ হবে কম সময়ের।

অধ্যাপক নাকাইয়ামা বলছেন টিকার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে যারা সংক্রমিত হয়েছেন তাদের অসুখ মারাত্মক হয়ে উঠা প্রতিহত করা। সেদিক থেকে তিনি উল্লেখ করেছেন যে, হাসপাতালে ভর্তি হওয়া বন্ধ করতে কার্যকারিতা কমপক্ষে ৫০ শতাংশ প্রমাণিত হওয়ায় ফাইজারের টিকা নিশ্চিতভাবেই হচ্ছে কিছুটা কার্যকর। তিনি বলেছেন কোন রকম সুরক্ষা ছাড়া সংক্রমিত হওয়ার চাইতে বরং টিকা নিয়ে রোগ প্রতিরোধ করা ভাল।

তিনি আরও বলেছেন যে শিশুদের বেলায় সঠিক ডোজ কোনটি হবে তা নির্ধারণ করা কঠিন। তিনি উল্লেখ করেন যে প্রাপ্ত বয়ষ্কদের ডোজের পরিমাণ থেকে কতটা এবং কোন ভিত্তিতে হ্রাস করতে হবে, সতর্কতার সাথে তা বিবেচনা করে দেখা দরকার। কেবল বয়স নয়, একই সাথে শিশুর দেহের আকারের দিকটিও বিবেচনায় রাখা দরকার বলে তিনি উল্লেখ করেন। তিনি আরও বলেছেন যে ছোট আকারের ডোজের বেলায় বয়স-সীমা কমিয়ে আনা একটি বিকল্প হতে পারে।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯৫: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (৬) সময়ের সাথে সাথে সংক্রমণের বিরুদ্ধে সুরক্ষা হয়তো ক্ষীণ হয়ে আসবে।

উত্তর-৩৯৫: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সী শিশুদের কোভিডের টিকাদান শুরু হয়েছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা শিশুদের টিকাদানের ওপর আলোকপাত করছি। এর ষষ্ঠ পর্বে এবার আমরা সময়ের সাথে সাথে সংক্রমণের বিরুদ্ধে সুরক্ষার কী ধরনের পরিবর্তন হবে তার উপর নজর দিব।

মার্কিন অঙ্গরাজ্য নিউ ইয়র্কের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ২৮ তারিখে সংক্রমণ রোধে ফাইজারের টিকার কার্যকারিতা এবং ৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশুদের হাসপাতালে ভর্তি হওয়া সংক্রান্ত এক সমীক্ষা নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে যে, ওমিক্রন ধরন যখন প্রাধান্য বিস্তার করতে শুরু করে তখন ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ রোধে টিকার সুরক্ষার হার মধ্য-ডিসেম্বরের ৬৬ শতাংশ থেকে জানুয়ারি মাসের শেষ নাগাদ ৫১ শতাংশে নেমে এসেছে।

তবে, ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে এর কার্যকারিতায় আরও বেশি উল্লেখযোগ্য পরিমাণের পতন লক্ষ্য করা গেছে। এর পতন ৬৮ শতাংশ থেকে ১২ শতাংশে নেমে এসেছে।

গবেষকরা বলছেন, অল্প বয়সী শিশুদের মধ্যে এই হারের পতন হয়তো এই কারণে হয়েছে যে, তারা ১২ বা তদূর্ধ্ব বয়সী শিশুদের টিকার ডোজের পরিমানের কেবল এক-তৃতীয়াংশ পেয়েছে।

জানুয়ারি মাসের শেষ নাগাদ, হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ক্ষেত্রে ফাইজারের টিকার কার্যকারিতা ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে ৭৩ শতাংশ এবং ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে ৪৮ শতাংশ দেখা গেছে।

গবেষকরা বলছেন, একটি নির্ভুল বিশ্লেষণ প্রদান করার জন্য পর্যাপ্ত উপাত্ত তাদের হাতে নেই, কারণ অনেক বেশি শিশুর মধ্যে মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়নি।

যদিও এই ফলাফল একটি তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে এখনও যাচাই করে দেখা হয়নি, তবুও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, তারা শিশুদের জন্য বিকল্প টিকার ডোজের পাশাপাশি বুস্টার ডোজ বা তৃতীয় ডোজের টিকা সংক্রান্ত সমীক্ষার এক সম্ভাব্য প্রয়োজনীয়তার উপর আলোকপাত করছেন।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯৪: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (৫) সিডিসি’র ভাষ্যানুযায়ী এই টিকা “নিরাপদ, কার্যকর এবং উপকারী”।

উত্তর-৩৯৪: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সী শিশুদের কোভিডের টিকাদান শুরু হয়েছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা শিশুদের টিকাদানের ওপর আলোকপাত করছি। এর পঞ্চম পর্বে এবার আমরা শিশুদের টিকাদান নিয়ে মার্কিন স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলোর মূল্যায়নের উপর নজর দিব।

টিকাদানের সুবিধাগুলো সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার মত ঝুঁকিগুলোকে ছাড়িয়ে গেলে স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষসমূহ সাধারণত টিকা দেয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকে। মার্কিন রোগ নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিরোধ কেন্দ্র বা সিডিসি এই বলে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের কোভিড টিকা দেয়ার পরামর্শ দিয়েছে যে এটি নিরাপদ, কার্যকর এবং এর উপকারিতা বা সুবিধাগুলো অসুবিধার চাইতে বেশি।

এক্ষেত্রে, কানাডা এবং ফ্রান্সের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষও একই মত পোষণ করে। এদিকে, যুক্তরাজ্য এবং জার্মানির কর্তৃপক্ষগুলোর ভাষ্যমতে, শুধুমাত্র উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা শিশু এবং পরিবারের দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাসম্পন্ন সদস্যদের সাথে বাস করা শিশুদেরই কোভিডের টিকা দেয়া উচিত।

২০২১ সালের নভেম্বরে টিকাদানের প্রয়োগ সংক্রান্ত সিডিসি’র পরামর্শক কমিটি শিশুদের টিকাদানের সুবিধার দিকগুলোর কথা উল্লেখ করে।
সংস্থাটির ভাষ্যানুযায়ী, টিকাদান অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে শিশুদের সংক্রমিত হওয়া বা সংক্রমিত হলে গুরুতর উপসর্গ দেখা দেয়া প্রতিরোধ করে, শিশুদের মাধ্যমে সংক্রমণ ছড়ানো বন্ধ করে এবং স্কুলে যাওয়ার ক্ষেত্রে শিশুদের মনে নিরাপত্তার অনুভূতি জাগিয়ে তোলে। আর অসুবিধার ক্ষেত্রে, কমিটি স্বল্পমেয়াদী বিরূপ ঘটনার পাশাপাশি মায়োকার্ডাইটিস বা হৃৎপিণ্ডের প্রদাহ অন্তর্ভুক্ত থাকা বিরল কিছু গুরুতর পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার কথা উল্লেখ করে।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯৩: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (৪) পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে সিডিসি’র রিপোর্ট।

উত্তর-৩৯৩: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সী শিশুদের কোভিডের টিকাদান শুরু হয়েছে। চলতি ধারাবাহিকে আমরা শিশুদের টিকাদানের ওপর আলোকপাত করছি। এর চতুর্থ পর্বে এবার আমরা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্রে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে কী বলা হয়েছে, তা জানার চেষ্টা করবো।

নভেম্বর মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাঁচ থেকে এগারো বছরের শিশুদের কোভিডের টিকাদান শুরু হয়েছে। ১৯শে ডিসেম্বরের মধ্যে যাদের টিকা দেওয়া সম্পন্ন হয়, সেই শিশুদের মধ্যে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার ৪ হাজার ২শো ৪৯টি ঘটনা বিশ্লেষণ করে দেশটির রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র বা সিডিসি একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ওই সময়ের মধ্যে এই বয়সসীমার শিশুদের প্রায় ৮৭ লক্ষ টিকা দেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রে টিকা নেওয়ার পর কারোর কোনো সমস্যা হলে, সেটিকে সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো যায়। সিডিসি’র প্রতিবেদনে বলা হয় ৪ হাজার ১শো ৪৯টি ঘটনায়, অর্থাৎ শতকরা ৯৭ দশমিক ৬ ভাগ ক্ষেত্রেই উপসর্গ গুরুতর ছিল না। এরকম কয়েকটি সুনির্দিষ্ট উপসর্গের উল্লেখ করা যাক। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে বমি হওয়ার কথা জানা গেছে ৩শো ১৬টি অর্থাৎ মোট সংখ্যার ৭ দশমিক ৬ শতাংশ ক্ষেত্রে। জ্বরের কথা জানা গেছে ২শো ৯১ অর্থাৎ শতকরা ৭ ভাগ ক্ষেত্রে। মাথাব্যথা ২শো ৫৫ বা ৬ দশমিক ২ শতাংশ এবং সমান সংখ্যক ক্ষেত্রে সংজ্ঞা হারানোর কথা জানা গেছে। ২শো ৪৪ জন বা ৫ দশমিক ৯ শতাংশের মাথা ঘোরা এবং ক্লান্তি বা অবসাদে ভোগার কথা জানা গেছে ২০১ অর্থাৎ ৪ দশমিক ৮ শতাংশের কাছ থেকে।

১শোটি ক্ষেত্রে উপসর্গ গুরুতর বলে চিহ্নিত করেছে সিডিসি। সেগুলোর মধ্যে ২৯ জন বা ২৯ শতাংশের জ্বর হওয়ার কথা জানা গেছে। বমি হওয়ার কথা জানা গেছে ২১ জন বা ২১ শতাংশের ক্ষেত্রে, আর ১২ জন বা ১২ শতাংশের খিচুনি হওয়ার কথা জানা গেছে।
.
টিকা নেওয়া শিশুদের মধ্যে ১১ জন মায়োকার্ডাইটিস বা হৃৎপিণ্ডের পেশীর প্রদাহে ভুগলেও, প্রত্যেকেই সুস্থ হয়ে গেছে বলে জানা যায়। প্রতিবেদনে বলা হয় টিকা নেওয়ার পর পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সীদের মধ্যে মায়োকার্ডাইটিস হওয়ার অনুপাত ১২ বছর বা তার চেয়ে বেশি বয়সীদের তুলনায় অনেকটাই কম।

টিকা নেওয়ার পর দুটি শিশুর মৃত্যু হয়েছে। তবে সিডিসি’র প্রতিবেদনে জানানো হয় এদের দুজনেরই জটিল অসুখ ছিল এবং টিকা নেওয়ার আগে থেকেই স্বাস্থ্য খুব খারাপ ছিল। প্রতিবেদনে আরও জানানো হয় যে এই মৃত্যু এবং টিকার মধ্যে কোন কার্যকারণ সম্পর্ক থাকার প্রমাণ কোন তথ্যেই মেলেনি।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯২: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (৩) ক্লিনিকাল পরীক্ষার নিরাপত্তা

উত্তর-৩৯২: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপান পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সের শিশুদের কোভিড টিকাদান শুরু করেছে। শিশুদের টিকাদান সংক্রান্ত এই ধারাবাহিকের তৃতীয় পর্বে এবারে আমরা ক্লিনিকাল পরীক্ষার নিরাপত্তার ওপর আলোকপাত করবো।

ফাইজার এবং বিয়োনটেক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন এবং অন্যান্য এলাকায় পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সের ২ হাজার ২০০ জন শিশুর উপর ক্লিনিকাল পরীক্ষা চালিয়েছে। ইঞ্জেকশন দেয়ার জায়গায় ব্যাথা এবং ক্লান্তির মত কয়েকটি বিরূপ প্রভাবের বিষয়ে জানা গেলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই টিকার প্রতিক্রিয়া ছিল মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের এবং ১-২ দিনের মধ্যেই তা ভালো হয়ে যায়।

এবার তাহলে নির্দিষ্ট কয়েকটি উপসর্গের ওপর আলোকপাত করা যাক।

টিকার প্রথম ডোজের পর ৭৪ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজের পর ৭১ শতাংশ ক্ষেত্রে ইঞ্জেকশন দেয়ার জায়গায় ব্যাথা হয়েছে বলে জানানো হয়।

প্রথম ডোজের পর ৩৪ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজের পর ৩৯ শতাংশ ক্ষেত্রে ক্লান্তির বিষয়টি জানানো হয়েছে।

প্রথম ডোজের পর ২২ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজের পর ২৮ শতাংশ ক্ষেত্রে মাথাব্যাথার কথা জানানো হয়েছে।

ইঞ্জেকশন দেয়ার জায়গায় লাল হয়েছে বলে প্রথম ডোজের পর ১৫ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজের পর ১৯ শতাংশ ক্ষেত্রে জানানো হয়েছে।

ইঞ্জেকশন দেয়ার জায়গাটা ফুলে গেছে বলে প্রথম ডোজের পর ১০ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজের পর ১৫ শতাংশ ক্ষেত্রে জানানো হয়েছে।

পেশিতে ব্যাথা বলে প্রথম ডোজের পর ৯ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজের পর ১২ শতাংশ ক্ষেত্রে জানানো হয়েছে।

টিকা নেয়ার পর শীত করছে বলে প্রথম ডোজের পর ৫ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজের পর ১০ শতাংশ ক্ষেত্রে জানানো হয়েছে।

৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার বেশি তাপমাত্রা ছিল বলে প্রথম ডোজের পর ৩ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজের পর ৭ শতাংশ ক্ষেত্রে জানানো হয়েছে।

এন্টিপাইরেটিক বা জ্বর, গায়ে ব্যাথা কমানোর ওষুধ প্রথম ডোজের পর ১৪ শতাংশ এবং দ্বিতীয় ডোজের পর ২০ শতাংশ ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯১: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (২) ক্লিনিকাল পরীক্ষায় উপসর্গ প্রতিরোধে ৯০.৭ শতাংশ কার্যকারিতা প্রমাণিত

উত্তর-৩৯১: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে।
ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে জাপান পাঁচ থেকে এগারো বছর বয়সের শিশুদের কোভিড টিকাদান শুরু করেছে। শিশুদের টিকাদান সংক্রান্ত এই ধারাবাহিকের দ্বিতীয় পর্বে এবারে আমরা টিকার কার্যকারিতার ওপর আলোকপাত করবো।

ফাইজার যুক্তরাষ্ট্র এবং স্পেনের মত দেশে ২,২০০র বেশি শিশুর উপর ক্লিনিকাল পরীক্ষা চালিয়েছে। ওষুধ নির্মাতা বলছে পরীক্ষার ফলাফল সংক্রমণ উপসর্গ প্রতিরোধে টিকার ৯০.৭ শতাংশ কার্যকারিতা নিশ্চিত করেছে। ফাইজার আরও জানায় যে টিকা নেয়ার পর যেসব উপসর্গ শিশুদের মধ্যে দেখা গেছে তা মূলত হালকা ও মাঝারি ধরনের হওয়ায় টিকা হচ্ছে নিরাপদ।

পরীক্ষায় ১,৫০০র বেশি শিশু তিন সপ্তাহের বিরতিতে ১০ মাইক্রোগ্রামের প্রতিটি ডোজের দুটি করে ডোজ পায়, যে পরিমাণ হচ্ছে প্রাপ্ত বয়স্কদের পরিমাণের এক তৃতীয়াংশ। সাড়ে সাত’শ শিশুকে নকল বা মেকি ডোজ দেয়া হয়েছে। গবেষকরা নিশ্চিত করেছেন যে নিষ্ক্রিয় করে দেয়া অ্যান্টিবডির মাত্রা টিকা নেয়া শিশুদের বেলায় ছিল ১৬ থেকে ২৫ বছর পর্যন্ত বয়সসীমার যারা নিয়মিত টিকা নিয়েছেন তাদের মতই উচ্চ পর্যায়ের। টিকার দ্বিতীয় ডোজ পাওয়ার সাত কিংবা আরও বেশিদিন পর কোভিডের উপসর্গ যাদের মধ্যে দেখা গেছে, তাদের সংখ্যা নকল টিকা যারা নিয়েছে সেই দলের ১৬ জনের তুলনায় ছিল তিন জন। গবেষকরা এরকম সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে উপসর্গ প্রতিরোধে টিকা ৯০.৭ শতাংশ কার্যকর।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৯০: জাপান শিশুদের জন্য কোভিড টিকাদান শুরু করেছে (১) শিশুদের টিকাদান সংক্রান্ত সরকারি নীতি

উত্তর-৩৯০: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে।
জাপান ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ নাগাদ ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের কোভিড টিকা দেয়া শুরু করেছে। এই ধারাবাহিকে আমরা শিশুদের টিকাদান সম্পর্কে ও এতে কী ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়ার সম্ভাবনা আছে এবং কিভাবে এই কর্মসূচি পরিচালনা করা হবে তার ওপর আলোকপাত করব। এর প্রথম পর্বে আমরা সরকারি নীতির দিকে ঘনিষ্ঠভাবে নজর দেব।

জাপান সরকার আনুষ্ঠানিকভাবে ২১শে ফেব্রুয়ারি থেকে ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের কোভিড টিকা নেয়ার বিষয়টি কার্যকর করেছে। এই বয়সের শিশুদের গ্রুপের টিকা ১২ বা তদূর্ধ্ব বয়সীদের টিকার পরিমাণের এক-তৃতীয়াংশ। শিশুদের ৩ সপ্তাহের ব্যবধানে দু’বার টিকা দেয়া হবে। সরকার স্কুলে গণটিকাদানের বিষয়টির ব্যাপারে সুপারিশ করছে না। শিশুরা তাদের পৌরসভা বা শিশুদের ডাক্তারখানায় ব্যক্তিগতভাবে এই টিকা নিচ্ছে।

বর্তমানে, ৫ থেকে ১১ বছর বয়সী শিশুদের কোভিড টিকা নেয়া অপরিহার্য নয়, কেননা ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে এর কার্যকারিতা যাচাই করার জন্য পর্যাপ্ত উপাত্ত এখনও নেই। যখন এই বয়সের গ্রুপের শিশুদের টিকা দেয়া হবে তখন তাদের পিতামাতা বা অভিভাবকের অনুমতির প্রয়োজন হবে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পিতামাতা বা অভিভাবকদের প্রতি আগেভাগেই টিকার কার্যকারিতা এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত উপাত্তের উপর ভিত্তি করে টিকা নিয়ে শিশুদের সাথে বিস্তারিত আলোচনা করার আহ্বান জানাচ্ছে। টিকা দেয়া হবে নাকি হবে না সেব্যাপারেও পারিবারিক ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার সুপারিশ করা হচ্ছে।
মন্ত্রণালয় শ্বাস-প্রশ্বাসজনিত সমস্যা এবং অন্যান্য কোন মৌলিক সমস্যা থাকা শিশুদের টিকা নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছে, কেননা তাদের মারাত্মক কোভিড উপসর্গ দেখা দেয়ার উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে।

এই তথ্যগুলো মার্চ মাসের ১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮৯: গবেষক দল বুস্টার ডোজ হিসাবে ভিন্ন কোম্পানির টিকা নেয়ার বিষয়ে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেছে (৩) টিকার বুস্টার ডোজ বেছে নেয়ার ক্ষেত্রে কার্যকারিতা এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া উভয়ই বিবেচনায় নেয়া উচিত।

উত্তর-৩৮৯: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে।
জাপান সরকারের একটি গবেষণা দল প্রথমবারের মত আগের দুটি ডোজের থেকে ভিন্ন কোম্পানির টিকার বুস্টার ডোজ নেয়ার কার্যকারিতা এবং নিরাপত্তা বিষয়ে তাদের গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করেছে।

এই ধারাবাহিকে লোকজনের শুরুতে নেয়া টিকার দুটি ডোজের অনুরূপ বুস্টার টিকা নেয়ার পরিবর্তে ভিন্ন কোম্পানির টিকা নেয়ার ওপর আলোকপাত করা হচ্ছে।
এর তৃতীয় এবং শেষ পর্বে আমরা এবিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত তুলে ধরব।

গবেষণা দলটির নেতা এবং জুনতেনদো বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা অনুষদের অধ্যাপক ইতো সুমিনোবু বলেন যে তিনটি টিকাই ফাইজারের নেয়ার পরিবর্তে তৃতীয় টিকাটি মডার্নার নিলে টিকার এই মিশ্রণের ফলে এন্টিবডির মাত্রা তুলনামূলকভাবে বেশি হবে। এতে আরও বেশি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবর পাওয়া গেলেও অসুস্থতার জন্য ছুটি নেওয়া লোকের সংখ্যার ক্ষেত্রে সামান্য পার্থক্যই ঘটেছে। তিনি বলেন, টিকা বেছে নেয়ার ক্ষেত্রে লোকজনের উচিত হবে এর কার্যকারিতা এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া উভয়ই বিবেচনায় নেয়া।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ এবং টোকিও মেডিকেল ইউনিভার্সিটি হসপিটালের অধ্যাপক হামাদা আৎসুও বলেন, যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের দেশগুলো জীবনযাত্রা এবং আর্থ-সামাজিক অবস্থাকে দ্রুত বৈশ্বিক মহামারির পূর্বের সময়কালের পর্যায়ে ফিরিয়ে নিচ্ছে। তবে, তিনি উল্লেখ করেন যে জাপানে নতুন সংক্রমণের সংখ্যা মাত্র চূড়ায় পৌঁছেছে এবং বুস্টার ডোজ নেয়া লোকের সংখ্যা মাত্র ১০ শতাংশের কিছুটা উপরে। তিনি বলেন, অনেক সংক্রমণের খবর না পাওয়া এলাকাগুলোর জন্য সেখানকার আর্থ-সামাজিক অবস্থা পুনরুদ্ধারের পদক্ষেপ নেয়া ঠিক আছে। তবে, অব্যাহতভাবে একটি বড় সংখ্যক নতুন সংক্রমণের খবর দিয়ে যাওয়া টোকিও এবং ওসাকার মতো এলাকাগুলোর জন্য কার্যত জরুরি অবস্থা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে, বিশেষ করে, ঠিক কত শতাংশ প্রবীণ লোক এখন পর্যন্ত বুস্টার টিকা পেয়েছেন, সেই বিষয়টি’সহ কর্তৃপক্ষের সার্বিক চিকিৎসা পরিস্থিতি বিবেচনায় নেয়া উচিত।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮৮: গবেষক দল বুস্টার ডোজ হিসাবে ভিন্ন কোম্পানির টিকা নেয়ার বিষয়ে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেছে (২) পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া।

উত্তর-৩৮৮: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে।
করোনাভাইরাসের টিকার প্রথম দুটি ডোজে যে কোম্পানির টিকা ব্যবহার করা হয়েছে, তার থেকে আলাদা টিকা বুস্টার ডোজে ব্যবহারের নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা নিয়ে এই প্রথম জাপান সরকারের একটি গবেষক দল তার পরীক্ষানিরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করেছে। প্রথম দুটি ডোজের অনুরূপ টিকা না নিয়ে, বুস্টার ডোজে ভিন্ন কোম্পানির টিকা নেওয়া সম্পর্কে আমাদের এই ধারাবাহিকের দ্বিতীয় পর্বে সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার বিষয়ে জানার চেষ্টা করবো।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের গবেষক দলের রিপোর্টে, বুস্টার ডোজ নেওয়ার পর লোকেদের কীরকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়, তার একটি তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। যারা তিনটি ডোজেই ফাইজারের টিকা নিয়েছেন, তাদের মধ্যে ২১ দশমিক ৪ শতাংশ লোকের ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার চেয়েও বেশি মাত্রার জ্বর এসেছিল। ৬৯ দশমিক ১ শতাংশ লোক ক্লান্তি বা অবসাদে কষ্ট পেয়েছেন। ৫৫ শতাংশ লোক ভুগেছেন মাথার যন্ত্রণায়। যারা প্রথম দুটো ডোজ ফাইজার এবং বুস্টারে মডার্নার টিকা নিয়েছেন, তাদের মধ্যে ৪৯ দশমিক ২ শতাংশ লোকের ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার চেয়েও বেশি মাত্রায় জ্বর এসেছিল। ৭৮ শতাংশ ভুগেছেন ক্লান্তি বা অবসাদে এবং ৬৯ দশমিক ৬ শতাংশ মাথার যন্ত্রণায় কষ্ট পেয়েছেন। সবকটি ক্ষেত্রে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সবচেয়ে তীব্র আকার ধারন করে বুস্টার ডোজ নেওয়ার পরদিন, এবং দু তিন দিনের মধ্যে নিরাময় হয়ে যায়।

তিনটিই ফাইজারের টিকা নিয়েছেন এমন ব্যক্তিদের মধ্যে দু জনের ক্ষেত্রে হৃৎপিণ্ডের পেশীর প্রদাহজনিত সমস্যা দেখা দিয়েছিল বলে ধারণা। তবে জানা গেছে তাদের কারুরই উপসর্গ গুরুতর ছিল না। প্রথম দু ডোজ ফাইজারের টিকা এবং বুস্টারে মডার্না যারা নিয়েছেন তাদের কারুর ক্ষেত্রেই গুরুতর কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে দেখা যায়নি।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ২৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮৭: গবেষক দল বুস্টার ডোজ হিসাবে ভিন্ন কোম্পানির টিকা নেয়ার বিষয়ে তাদের ফলাফল প্রকাশ করেছে (১) বুস্টার ডোজের কার্যকারিতা।

উত্তর-৩৮৭: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে।
জাপান সরকারের গবেষকদের একটি দল প্রথমবারের মত আগের দুটি ডোজের থেকে ভিন্ন কোম্পানির বুস্টার ডোজ নেয়ার কার্যকারিতা এবং নিরাপত্তা বিষয়ে তাদের গবেষণার ফলাফল প্রকাশ করেছে।
এই ধারাবাহিকে লোকজনের প্রাথমিক দুটি টিকার ডোজের মত অনুরূপ টিকা নেয়ার বদলে ভিন্ন কোম্পানির টিকা নেয়ার ওপর আলোকপাত করা হবে। প্রথম পর্বে আমরা এধরনের টিকার কার্যকারিতার ওপর নজর দেব।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের গবেষক দল, দেশে প্রথম টিকার তৃতীয় ডোজ পেয়ে থাকা স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখে। এদের সকলেই প্রাথমিকভাবে ফাইজারের দুটি ডোজ পেয়েছিলেন। তৃতীয় ডোজের ক্ষেত্রে ২৮শে জানুয়ারির মধ্যে ২ হাজার ৮২৬ জন ফাইজার নেন এবং ৭৭৩ জন মডার্নার টিকা নিয়েছেন।

গবেষকরা তাদের দেহে মূল ভাইরাসের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডির মাত্রা পরিমাপ করে দেখেন এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া পরীক্ষা করেন। ফেব্রুয়ারি মাসের ১৮ তারিখ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞদের প্যানেলের একটি বৈঠকে দলটি তাদের ফলাফল ব্যাখ্যা করে জানায়।

তৃতীয় টিকা নেয়ার এক মাস পর লোকজনের দেহে অ্যান্টিবডির মাত্রা পরীক্ষা করে দেখে দলটি। তাদের শরীরে ভাইরাস দ্বারা সংক্রমিত হওয়া থেকে সৃষ্ট কোন অ্যান্টিবডি ছিল না। ফাইজারের বুস্টার ডোজ যারা নিয়েছেন তাদের শরীরে টিকা নেয়ার ঠিক আগের পর্যায়ের সাথে তুলনা করলে অ্যান্টিবডির মাত্রা ছিল গড়ে ৫৪ দশমিক ১ শতাংশ গুণ বেশি। এদিকে, যারা মডার্নার বুস্টার নিয়েছেন তাদের শরীরে অ্যান্টিবডির মাত্রা গড়ে ৬৭ দশমিক ৯ শতাংশ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

গবেষকরা বলছেন যে বিদেশে চালানো পরীক্ষার ফলাফল বিবেচনা করে দেখার পর দৃশ্যত: মনে হচ্ছে যে ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধেও মডার্না টিকা আরও বেশি কার্যকর।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (২২) কোচি জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। চলমান এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার ওপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দিব কোচি জেলার ওপর।

কোচি জেলা:
পুরো অঞ্চল জুড়েই কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করা হয়েছে। জেলাটি সবগুলো পানাহারের দোকানকেই তাদের কার্যক্রম পরিচালনার সময় সংক্ষিপ্ত করতে বলছে।

জেলা সরকারের কাছ থেকে ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়ার সনদপ্রাপ্ত স্থাপনাগুলো অ্যালকোহল পরিবেশন চালিয়ে যাবে এবং রাত ৯টায় দোকান বন্ধ করবে নাকি অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত ৮টায় দোকান বন্ধ করবে, সেই বিকল্প বেছে নিতে পারবে।

আর সনদপ্রাপ্ত নয় এরকম স্থাপনাসমূহকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করার অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

প্রতি টেবিলে একত্রে আহার বা পানীয় পান করা লোকের সংখ্যা চার জনে সীমিত করা হয়েছে এমনকি একই পরিবারের সদস্য হলেও।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি আকারের কোম্পানি পরিচালিত স্থাপনাসমূহ যারা রাত ৯টা পর্যন্ত কার্যক্রম চালাবে ও অ্যালকোহল পরিবেশন করবে তারা দৈনিক ২৫ হাজার থেকে ৭৫ হাজার ইয়েন পর্যন্ত ভর্তুকি পাবে। অন্যদিকে, অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করা স্থাপনাসমূহ তাদের বিক্রির উপর নির্ভর করে প্রতিদিন ৩০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত ভর্তুকি পাবে।

কর্মকর্তারা অপ্রয়োজনীয় উদ্দেশ্যে এই জেলার বাইরে যাওয়া থেকে লোকজনকে বিরত থাকার আহ্বানও জানাচ্ছেন।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (২১) ওয়াকাইয়ামা জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। চলমান এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার ওপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দিব ওয়াকাইয়ামা জেলার ওপর।

ওয়াকাইয়ামা জেলা:
পুরো অঞ্চল জুড়েই কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করা হয়েছে। জেলাটি সবগুলো পানাহারের দোকানকেই তাদের কার্যক্রম পরিচালনার সময় সংক্ষিপ্ত করতে বলছে।

জেলা সরকারের কাছ থেকে ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়ার সনদপ্রাপ্ত স্থাপনাগুলো অ্যালকোহল পরিবেশন চালিয়ে যাবে নাকি যাবে না, সেই বিকল্প বেছে নিতে পারবে।

আর যেসব স্থাপনা অ্যালকোহল পরিবেশন অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নিবে, তাদের রাত ৮টায় অ্যালকোহল পরিবেশন বন্ধের পাশাপাশি রাত ৯টার মধ্যে দোকানের কার্যক্রম বন্ধ করারও অনুরোধ জানানো হচ্ছে। সনদপ্রাপ্ত অন্যান্য দোকানগুলোকে রাত ৮টায় কার্যক্রম বন্ধ করতে বলা হচ্ছে।

আর সনদপ্রাপ্ত নয় এরকম স্থাপনাসমূহকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করার অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

প্রতি টেবিলে একত্রে আহার বা পানীয় পান করা লোকের সংখ্যা চার জনে সীমিত করা হয়েছে।

এছাড়া, ওয়াকাইয়ামা সরকারের কর্মকর্তারা সরাসরি অনুষ্ঠান স্থলে পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়ার দাবিও জানাচ্ছেন।

১ হাজারের বেশি দর্শক থাকা অনুষ্ঠানসমূহের আয়োজকদের অগ্রিম জেলা সরকারের কাছে তাদের অনুষ্ঠানসূচি দাখিল করতে হবে। আর দর্শকের সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়িয়ে গেলে, আয়োজকদের অনুষ্ঠানের দু’সপ্তাহ আগেই সরকারের কাছে বিস্তারিত নিরাপত্তা পরিকল্পনা দাখিলের পাশাপাশি অনুষ্ঠান-পরবর্তী একটি প্রতিবেদনও জমা দিতে হবে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ২১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (২০) কাগোশিমা জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার উপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দেব কাগোশিমা জেলার উপর।

কাগোশিমা জেলা:
এই জেলার সবটা জুড়ে কার্যত জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। জেলা কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সব পানশালা ও রেস্তোরাঁকে দোকান খোলা রাখার সময় কমাতে আহ্বান জানানো হয়েছে।

ভাইরাস-রোধী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সার্টিফিকেট প্রাপ্ত পান-ভোজনের জায়গাগুলোকে দেওয়া হয়েছে দুটো বিকল্প। হয় তারা মদ্যপানীয় বিক্রি করবে এবং দোকান খোলা রাখবে রাত ৯টা পর্যন্ত, অথবা মদ্যপানীয় বিক্রি করা থেকে বিরত থাকবে এবং দোকান বন্ধ করে দেবে রাত ৮টার মধ্যে।

সার্টিফিকেট নেই এমন পান-ভোজনের জায়গাগুলোকে মদ্যপানীয় পরিবেশনে বিরত থাকতে এবং রাত ৮টার মধ্যে দোকান বন্ধ করতে আহ্বান জানানো হয়েছে।

জেলা সরকারের অনুরোধ মেনে চলা রেস্তোরাঁ ও পানশালাকে আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়া হচ্ছে। ছোট বা মাঝারি আকারের জায়গাগুলোকে তাদের বিক্রির পরিমাণের উপর নির্ভর করে দৈনিক ৭৫ হাজার ইয়েন পর্যন্ত দেওয়া হচ্ছে। ভাইরাস-রোধী সার্টিফিকেটধারী পান-ভোজনের জায়গা যারা মদ্যপানীয় পরিবেশন করছে না, তারা পাচ্ছে দৈনিক ৩০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েনের মধ্যে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১৯) সাগা ও ওইতা জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার ওপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দিব সাগা ও ওইতা জেলার ওপর।

সাগা জেলা:
কার্যত জরুরি অবস্থা পুরো জেলায় কার্যকর রয়েছে।

জেলা সরকার খাওয়ার জায়গাগুলোকে তাদের পরিচালনার সময় সংক্ষিপ্ত করে নিতে বলছে।

ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ ও পানশালাগুলো অ্যালকোহল পরিবেশন করতে এবং রাত নয়টা পর্যন্ত খোলা রাখতে পারবে। সনদপ্রাপ্ত নয় এরকম স্থাপনাসমূহকে রাত আটটার পর অ্যালকোহল পরিবেশন করা এবং স্থাপনা খোলা রাখা থেকে বিরত থাকতে বলা হচ্ছে।

এই অনুরোধ মেনে চলা প্রতিষ্ঠানগুলোর সনদ থাকলে বা না থাকলেও তাদের বিক্রির পরিমাণের উপর ভিত্তি করে প্রতিদিন ৩০ হাজার থেকে এক লাখ ইয়েন দেয়া হবে।

জেলা কর্মকর্তারা দীর্ঘ সময় ধরে বিরাট আকারের দল নিয়ে খাওয়াদাওয়া থেকে বিরত থাকার জন্য ক্রেতাদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছেন। প্রতিটি টেবিলে সর্বোচ্চ চারজন করে বসা উচিত এবং দুই ঘন্টার মধ্যে খাওয়া সমাপ্ত করা উচিত বলে কর্মকর্তারা জানান।

যেসব খাওয়ার জায়গাগুলোতে ভাইরাস প্রতিরোধ পদক্ষেপগুলো পুরোপুরি বাস্তবায়ন করা হয়নি সেখানে না যাওয়ার জন্য জেলা সরকার লোকজনকে পরামর্শ দিচ্ছে।

ওইতা জেলা:
জেলা সরকার পুরো এলাকার রেস্তোরাঁ ও পানশালাগুলোকে তাদের ব্যবসার সময় সংক্ষিপ্ত করে নিতে বলেছে।

ভাইরাস প্রতিরোধ পদক্ষেপ নেয়ার সনদ থাকা প্রতিষ্ঠানকে দুটি বিকল্পের একটি বেছে নিতে বলা হয়েছে – অ্যালকোহল পরিবেশন করে রাত নয়টার মধ্যে স্থাপনা এরা বন্ধ করে দিতে পারে, অথবা অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত আটটায় এরা বন্ধ করে দিতে পারে।

সনদ নেই এমন প্রতিষ্ঠানগুলোকে রাত আটটার মধ্যে বন্ধ করে দেয়া এবং অ্যালকোহল পরিবেশন না করার জন্য অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

ক্ষুদ্র এবং মাঝারি আকারের প্রতিষ্ঠানগুলো যারা অনুরোধ মেনে চলবে তাদেরকে প্রতিদিন ৩০ হাজার ইয়েন বা তার বেশি দেয়া হবে যদি তারা অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত আটটায় স্থাপনা বন্ধ করে দেয়। সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো যারা রাত নয়টার মধ্যে বন্ধ করে দেয় এবং অ্যালকোহল পরিবেশন করে থাকে তাদেরকে প্রতিদিন ২৫ হাজার ইয়েন বা তার বেশি দেয়া হবে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ১৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১৮) শিমানে ও ওকাইয়ামা জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার উপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দেব শিমানে ও ওকাইয়ামা জেলার উপর।

শিমানে জেলা:
কার্যত জরুরি অবস্থা পুরো জেলায় কার্যকর রয়েছে।

জেলা সরকার সংক্রমণ প্রতিহত করার পদক্ষেপ গ্রহণের সনদ যাদের আছে সেরকম পানশালা ও খাওয়ার জায়গাগুলোকে দুটি বিকল্পের একটি বেছে নেয়ার অনুমতি দিচ্ছে। রাত ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন অব্যাহত রেখে রাত ৯টার মধ্যে স্থাপনা বন্ধ করে দিতে, অথবা অ্যালকোহল পরিবেশন করা থেকে বিরত থেকে এবং রাত ৮টার মধ্যে বিক্রি বন্ধ করে দিতে এদের বলা হচ্ছে।

সনদ না থাকা প্রতিষ্ঠানকে রাত ৮টার মধ্যে স্থাপনা বন্ধ করে দেয়া এবং অ্যালকোহল পরিবেশন থেকে বিরত থাকতে বলা হচ্ছে।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি আকারের ব্যবসার পরিচালিত রেস্তোরাঁ ও পানশালাকে এদের বিক্রয়ের পরিমাণের উপর নির্ভর করে প্রতিদিনের জন্য ৩০ হাজার থেকে এক লক্ষ ইয়েন দেয়া হচ্ছে। যেসব প্রতিষ্ঠান অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত ৮টার মধ্যে স্থাপনা বন্ধ করে দিচ্ছে, তাদের বেলায় এটা প্রযোজ্য।

সনদপ্রাপ্ত যে সব স্থাপনা অ্যালকোহল পরিবেশন করছে এবং রাত ৯টায় বিক্রি বন্ধ করে দিচ্ছে, প্রতিদিনের জন্য তারা পাবে ২৫ থেকে ৭৫ হাজার ইয়েন।

দলবদ্ধভাবে খাওয়াদাওয়া ও পান করার সময় প্রতিটি টেবিলে চারজন করে বসার অনুমতি দেয়া হচ্ছে।

ওকাইয়ামা জেলা:
কার্যত জরুরি অবস্থা পুরো জেলার সকল অংশে কার্যকর আছে।

সনদ না থাকা খাওয়ার জায়গা, কারাওকে পার্লার এবং বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হলকে রাত ৮টার মধ্যে স্থাপনা বন্ধ করে দিতে এবং সারা দিন ধরে অ্যালকোহল পরিবেশন না করতে বলা হয়েছে।

সনদ থাকা প্রতিষ্ঠানকে দুটি বিকল্পের একটি বেছে নিতে বলা হয়েছে– রাত ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল পরিবেশন করে রাত ৯টার মধ্যে স্থাপনা এরা বন্ধ করে দিতে পারে, অথবা অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত ৮টায় স্থাপনা এরা বন্ধ করে দিতে পারে।

প্রয়োজনীয় নির্দেশনা এরা মেনে চলছে, সেই শর্তে রেস্তোরাঁ ও পানশালাকে ভর্তুকি দেয়া হচ্ছে।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি আকারের কোম্পানির পরিচালিত প্রতিষ্ঠানের বেলায় অ্যালকোহল পরিবেশন করে এবং রাত ৯টায় যারা স্থাপনা বন্ধ করে দিচ্ছে, তাদেরকে প্রতিদিনের জন্য ৭৫ হাজার ইয়েন পর্যন্ত; এবং অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত ৮টার মধ্যে স্থাপনা বন্ধ করে দেয়া সনদ পাওয়া কিংবা না পাওয়া উভয় প্রতিষ্ঠানকে দেয়া হবে প্রতিদিনের জন্য এক লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ১৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১৭) নাগানো ও শিযুওকা জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার ওপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দিব নাগানো ও শিযুওকা জেলার ওপর।

নাগানো জেলা:
পুরো জেলা জুড়েই কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করা হয়েছে।

জেলাটি বিভিন্ন রেস্তোরাঁ ও পানশালা এবং কারাওকে পার্লার ও বিবাহ হল’সহ অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের প্রতি তাদের কর্মঘণ্টা হ্রাসের আহ্বান জানাচ্ছে।

ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সনদপ্রাপ্ত স্থাপনাগুলোকে দুটো বিকল্প থেকে একটি বেছে নিতে বলা হয়েছে। স্থাপনাসমূহ অ্যালকোহল পরিবেশন থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি রাত ৮টায় কার্যক্রম বন্ধ করা অথবা অ্যালকোহল পরিবেশনের পাশাপাশি রাত ৯টার মধ্যে দোকান বন্ধ করা- এরমধ্যে যেকোন একটি বিকল্পকে বেছে নিতে পারবে।

আর সনদপ্রাপ্ত নয় এরকম স্থাপনাসমূহকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করার আহ্বান জানানো হচ্ছে।

অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করা স্থাপনাসমূহ তাদের বিক্রির উপর নির্ভর করে প্রতিদিন ৩০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত ভর্তুকি পাবে। রাত ৯টা পর্যন্ত কার্যক্রম চালানো ও অ্যালকোহল পরিবেশন করা সনদপ্রাপ্ত স্থাপনাসমূহ অপেক্ষাকৃত কম দৈনিক ২৫ হাজার থেকে ৭৫ হাজার ইয়েন পর্যন্ত ভর্তুকি পাবে।

খাবারের স্থাপনাগুলোকে প্রতি টেবিলে ক্রেতার সংখ্যা ৪ জনে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে।

শিযুওকা জেলা:
পুরো জেলা জুড়েই কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করা হয়েছে।

জেলাটি সমস্ত রেস্তোরাঁ ও পানশালার প্রতি তাদের ব্যবসায়িক কর্মঘণ্টা হ্রাস করার আহ্বান জানাচ্ছে।

সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ এবং পানশালাগুলো অ্যালকোহল পরিবেশন করবে কী করবে না তা বেছে নিতে পারবে। হয় রাত ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল পরিবেশনের পাশাপাশি রাত ৯টার মধ্যে দোকান বন্ধ করা অথবা অ্যালকোহল পরিবেশন থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি রাত ৮টায় কার্যক্রম বন্ধ করা।

উপরের প্রথম স্থাপনাসমূহকে তাদের বিক্রির ওপর নির্ভর করে দৈনিক ২৫ হাজার থেকে ৭৫ হাজার ইয়েন পর্যন্ত এবং দ্বিতীয় স্থাপনাসমূহকে দৈনিক ৩০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে।

আর সনদপ্রাপ্ত নয় এরকম স্থাপনাসমূহকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করার আহ্বান জানানো হচ্ছে। এই অনুরোধ মেনে চলা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো ভর্তুকি পাওয়ার জন্য যোগ্য বিবেচিত হবে।

খাবারের স্থাপনাগুলোকে প্রতি টেবিলে ক্রেতার সংখ্যা ৪ জনে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১৬) তোচিগি ও ইশিকাওয়া জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার উপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দিব তোচিগি ও ইশিকাওয়া জেলার উপর।

তোচিগি জেলা:
পুরো অঞ্চল জুড়েই কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করা হয়েছে।
ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ এবং বারগুলো হয় অ্যালকোহল পরিবেশন থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি রাত ৮টায় কার্যক্রম বন্ধ করা অথবা রাত ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল পরিবেশনের পাশাপাশি রাত ৯টার মধ্যে দোকান বন্ধ করা- এরমধ্যে যেকোন একটি বিকল্পকে বেছে নিতে পারবে।

আর সনদপ্রাপ্ত নয় এরকম স্থাপনাসমূহকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করার আহ্বান জানানো হচ্ছে। জেলা সরকার এই অনুরোধ মেনে চলা স্থাপনাসমূহকে দৈনিক ১ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত ভর্তুকি পরিশোধ করছে।

ইশিকাওয়া জেলা:
পুরো জেলা জুড়েই কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করা হয়েছে। ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ এবং বারগুলো হয় অ্যালকোহল পরিবেশন থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি রাত ৮টায় কার্যক্রম বন্ধ করা অথবা রাত ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল পরিবেশনের পাশাপাশি রাত ৯টার মধ্যে দোকান বন্ধ করার বিকল্পকে বেছে নিতে পারবে। আর সনদপ্রাপ্ত নয় এরকম স্থাপনাসমূহকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করার আহ্বান জানানো হচ্ছে।

এই অনুরোধ মেনে চলা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো ভর্তুকি পাওয়ার জন্য যোগ্য বিবেচিত হবে। ছোট ও মাঝারি আকারের কোম্পানি দ্বারা পরিচালিত স্থাপনাগুলোর ক্ষেত্রে, অ্যালকোহল পরিবেশন না করা দোকানগুলো পরিবেশন করা দোকানগুলোর চাইতে অপেক্ষাকৃত বেশি প্রণোদনার জন্য যোগ্য বিবেচিত হবে। অ্যালকোহল পরিবেশন করা সনদপ্রাপ্ত স্থাপনাসমূহকে দৈনিক ৭৫ হাজার ইয়েন পর্যন্ত এবং অ্যালকোহল পরিবেশন না করা স্থাপনাসমূহকে দৈনিক ১ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১৫) আওমোরি ও ইয়ামাগাতা জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিহত করার জন্য সারা দেশ জুড়ে টোকিও ও অন্য বেশ কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। কার্যত জরুরি অবস্থার আওতায় প্রতিটি জেলা সুনির্দিষ্ট যেসব পদক্ষেপ কার্যকর করছে, আমাদের সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে আমরা তার ওপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা আলোকপাত করবো আওমোরি ও ইয়ামাগাতা জেলার ওপর।

আওমোরি জেলা:
এই প্রথমবার আওমোরি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা কার্যকর করা হল।

হিরোসাকি শহরের খাওয়ার জায়গাগুলোকে তাদের ব্যবসার সময় সীমিত করে নিয়ে সকাল পাঁচটা থেকে রাত আটটার মধ্যে রাখার অনুরোধ জানিয়েছে জেলা সরকার। তবে এটি বিতরণ এবং টেকআউটের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়।

প্রতিষ্ঠানগুলোকে মূলত অ্যালকোহল পরিবেশন না করার জন্য বলা হচ্ছে তবে সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপ গ্রহণের সনদ যাদের কাছে আছে তাদেরকে সকাল এগারোটা থেকে রাত আটটার মধ্যে অ্যালকোহল পরিবেশনের অনুমতি দেয়া হচ্ছে।

প্রতিটি টেবিলে চারজন পর্যন্ত একটি দলের বসার অনুমতি দেয়া হবে।

অনুরোধ মেনে চললে প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাদের বিক্রির পরিমাণ, ব্যবসায়িক সামর্থ্য এবং তারা অ্যালকোহল পরিবেশন করে কিনা তার উপর ভিত্তি করে প্রতিদিন ২৫ হাজার থেকে ২ লাখ ইয়েন দেয়া হবে।

ইয়ামাগাতা জেলা:
নয়টি বড় এবং ছোট শহরে কার্যত জরুরি অবস্থা বলবৎ করা হয়েছে। এর মধ্যে ইয়ামাগাতা, তেনদো, ইয়োনেযাওয়া, ৎসুরুওকা, সাকাতার বড় শহর এবং তাকাহাতা, মিকাওয়া, শোনাই ও ইয়ুযার ছোট শহর অন্তর্ভুক্ত।

এই সব এলাকার লোকজনকে অপরিহার্য কাজ ছাড়া বাইরে যাওয়া থেকে বিরত থাকতে বলা হচ্ছে। বাইরে খাবার খেতে হলে প্রতিটি টেবিলে চারজন পর্যন্ত একটি দলের বসার অনুমতি দেয়া হবে এবং দুই ঘন্টার মধ্যে খাবার শেষ করে তাদেরকে বেরিয়ে যেতে হবে।

খাবারের স্থানগুলোকে তাদের ব্যবসায়িক সময় সংক্ষিপ্ত করে নেয়ার অনুরোধ জানাচ্ছে জেলা সরকার। তবে বিতরণ এবং টেকআউটের ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য নয়।

সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপ গ্রহণের সনদ যাদের কাছে আছে তাদেরকে সকাল পাঁচটা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত খোলা রাখার এবং অ্যালকোহল পরিবেশনের অনুমতি দেয়া হচ্ছে।

সনদ নেই এমন প্রতিষ্ঠানগুলোকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করে সকাল পাঁচটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত খোলা রাখার জন্য বলা হচ্ছে।

নির্দেশ মেনে চলা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো ভর্তুকি পাওয়ার যোগ্য হিসাবে বিবেচিত হবে। সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রতিদিন ১ লাখ ১০ হাজার ইয়েন পর্যন্ত দেয়া হবে এবং সনদ না থাকা ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ১ লাখ ইয়েন পর্যন্ত দেয়া হবে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১৪) ফুকুশিমা ও ইবারাকি জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিহত করার জন্য সারা দেশ জুড়ে টোকিও ও অন্য বেশ কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। কার্যত জরুরি অবস্থার আওতায় প্রতিটি জেলা সুনির্দিষ্ট যেসব পদক্ষেপ কার্যকর করছে, আমাদের সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে আমরা তার উপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা আলোকপাত করবো ফুকুশিমা ও ইবারাকি জেলার উপর।

ফুকুশিমা জেলা:
কার্যত জরুরি অবস্থা সমগ্র জেলা জুড়ে কার্যকর আছে। সেই সব এলাকার রেস্তোরাঁ ও পানশালাকে খোলা রাখার সময় সংক্ষিপ্ত করতে বলা হয়েছে। ব্যাপক সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপ গ্রহণের সনদ যাদের নেই, সেসব প্রতিষ্ঠানকে রাত ৮টার মধ্যে ব্যবসা বন্ধ করে দেয়া এবং অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন না করার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানের জন্য দুটি বিকল্প রাখা হয়েছে। রাত ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল পরিবেশন করে রাত ৯টা পর্যন্ত এরা নিজেদের প্রতিষ্ঠান খোলা রাখতে পারবে, অথবা অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত ৮টা পর্যন্ত ব্যবসা এরা চালাতে পারবে। প্রথম দলের প্রতিষ্ঠানগুলোকে প্রতিদিন ২৫ হাজার ইয়েন বা তার বেশি দেয়া হবে এবং দ্বিতীয় দলভুক্তরা দিনে কমপক্ষে ৩০ হাজার ইয়েন পাবে।

প্রতিটি টেবিলে চারজন পর্যন্ত একটি দলের বসার অনুমতি দেয়া হবে।

ইবারাকি জেলা:
সমগ্র জেলা কার্যত জরুরি অবস্থার আওতায় পড়ছে। রেস্তোরাঁ ও পানশালা অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন করা থেকে বিরত থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত ব্যবসা চালাতে পারবে কিংবা অ্যালকোহল পরিবেশন করে রাত ৯টা পর্যন্ত প্রতিষ্ঠান খোলা রাখতে পারবে।

ক্ষুদ্র কিংবা মাঝারি আকারের কোম্পানির পরিচালিত খাওয়ার যেসব জায়গা রাত ৮টার মধ্যে বিক্রি বন্ধ করে দিচ্ছে এবং অ্যালকোহল পরিবেশন করছে না, প্রতিদিনের জন্য এরা ৩০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত পাবে। আর যেসব প্রতিষ্ঠান রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা রাখা এবং অ্যালকোহল পরিবেশন করা বেছে নিয়েছে, এরা পাবে প্রতিদিনের জন্য ২৫ হাজার থেকে ৭৫ হাজার ইয়েন।

ভর্তুকি পাওয়ার যোগ্য বিবেচিত হতে হলে প্রতিষ্ঠানকে “ইবারাকি’র আমাবিয়ে-চান” নামে অভিহিত জেলার সংক্রমণ তথ্য সম্পর্কে জানতে পারার ব্যবস্থায় নথিবদ্ধ হতে হবে।

জায়গা খালি আছে কি না কিংবা ভাইরাস সংক্রমণ পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ এসেছে কি না, তার উপর নির্ভর না করে টেবিল প্রতি অতিথির সংখ্যা চারজনে সীমিত রাখতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে বলা হয়েছে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১৩) হোক্কাইদো জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার ওপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দেব হোক্কাইদো জেলার ওপর।

হোক্কাইদো জেলা:
এই জেলার পুরো এলাকা জুড়ে কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করা রয়েছে।

ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সনদপ্রাপ্ত কারাওকে পার্লার এবং বিবাহ হলগুলো’সহ রেস্তোরাঁ এবং বারগুলো দুটি বিকল্প থেকে একটি বেছে নিতে পারবে। তারা হয় রাত ৮ পর্যন্ত অ্যালকোহল পরিবেশনের পাশাপাশি রাত ৯টার মধ্যে দোকান বন্ধ করতে পারবে অথবা তারা অ্যালকোহল পরিবেশন থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি রাত ৮টায় কার্যক্রম বন্ধ করবে।

আর সনদপ্রাপ্ত নয় এমন স্থাপনাসমূহকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করার আহ্বান জানানো হচ্ছে।

খাবারের স্থাপনাগুলোকে প্রতি টেবিলে ক্রেতার সংখ্যা ৪ জনে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে।

কারাওকের বন্দোবস্ত থাকা স্থাপনাগুলোকে অতিরিক্ত ভিড় এড়িয়ে যেতে এবং ভেন্টিলেশন বা বাতাস চলাচলের মত সংক্রমণ রোধী অন্যান্য পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানানো হচ্ছে।

অ্যালকোহল পরিবেশন করা’সহ রাত ৯টার মধ্যে বন্ধ হওয়া সনদপ্রাপ্ত ক্ষুদ্র এবং মাঝারি আকারের দোকান বা ব্যবসা মালিকদের তাদের বিক্রির ওপর নির্ভর করে প্রতিটি দোকানকে দৈনিক ২৫ হাজার থেকে ৭৫ হাজার ইয়েন পরিশোধ করা হচ্ছে। অন্যদিকে, অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করা সনদবিহীন স্থাপনাসমূহকে দৈনিক ৩০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েন পরিশোধ করা হচ্ছে।

আর বড় পরিচালনা কোম্পানিগুলোকে সেগুলো সনদপ্রাপ্ত নাকি সনদপ্রাপ্ত নয় তার ওপর নির্ভর না করে তাদের বিক্রি ঠিক কতটা কমেছে, তার ওপর নির্ভর করে দৈনিক ২ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত পরিশোধ করা হচ্ছে।

দর্শকরা উল্লসিত হবেন এমন অনুষ্ঠানসমূহে উপস্থিতির সর্বোচ্চ সংখ্যা ৫ হাজার বা ধারণ ক্ষমতার ৫০ শতাংশের মধ্যে যেটি নিম্ন সেটিতে সীমিত করা হয়েছে। তবে, দর্শকরা উল্লসিত হবেন না সেইসব অনুষ্ঠানে পূর্ণ ধারণ ক্ষমতা বা ৫ হাজার জন দর্শক সংখ্যার মধ্যে যেটি নিম্ন সেটিতে সীমিত করা হয়েছে।

৫ হাজারেরও বেশি লোক সমাগম হবে যেসব অনুষ্ঠানে, সেইসব অনুষ্ঠানের আয়োজকরা যদি দুই সপ্তাহ আগে আগাম ভাইরাস-রোধী পরিকল্পনা দাখিল করেন, তবে ২০ হাজার বা ধারণ ক্ষমতার ১০০ শতাংশের মধ্যে যেটি নিম্ন সেই সংখ্যক দর্শকের উপস্থিতির অনুমতি পাবে।

দর্শক সমাগম হওয়া অনুষ্ঠানগুলো রাত ৯টার মধ্যে বন্ধ করে দেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। এছাড়া আয়োজকদের রাত ৮টার পরে অ্যালকোহল পরিবেশন না করারও আহ্বান জানানো হয়েছে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১২) ফুকুওকা জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার উপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দিব ফুকুওকা জেলার উপর।

ফুকুওকা জেলা:
ফুকুওকায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণার পরেও জেলা সরকার গত ২৪শে জানুয়ারি তাদের আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলি সমগ্র এলাকায় বজায় রেখেছে।

খাবারের স্থাপনাগুলোকে প্রতি টেবিলে ক্রেতার সংখ্যা ৪ জনে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে।

ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ এবং বারগুলো দুটি বিকল্প থেকে একটি বেছে নিতে পারবে। তারা হয় অ্যালকোহল পরিবেশনের পাশাপাশি রাত ৯টার মধ্যে দোকান বন্ধ করতে পারবে অথবা তারা অ্যালকোহল পরিবেশন থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি রাত ৮টায় কার্যক্রম বন্ধ করবে।

আর সনদপ্রাপ্ত নয় এরকম স্থাপনাসমূহকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করার আহ্বান জানানো হচ্ছে।

রাত ৯টার মধ্যে বন্ধ হওয়া ছোট এবং মাঝারি আকারের সনদপ্রাপ্ত স্থাপনাসমূহকে তাদের বিক্রির উপর নির্ভর করে প্রতিটি দোকানকে দৈনিক ২৫ হাজার থেকে ৭৫ হাজার ইয়েন পরিশোধ করা হচ্ছে।

অন্যদিকে, অ্যালকোহল পরিবেশন না করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধ করা সনদপ্রাপ্ত এবং সনদবিহীন স্থাপনাসমূহের পরিচালনা কোম্পানিগুলোকে দৈনিক ৩০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েন পরিশোধ করা হচ্ছে।

আর বড় পরিচালনা কোম্পানিগুলোকে তাদের বিক্রি ঠিক কত কমেছে, সেটির উপর নির্ভর করে দৈনিক ২ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত পরিশোধ করা হচ্ছে।

বড় আকারের অনুষ্ঠানসমূহে উপস্থিতির সর্বোচ্চ সংখ্যা নীতিগতভাবে ৫ হাজারে সীমিত করা হয়েছে। তবে, এই সীমা ২০ হাজারে উন্নীত করা যাবে যদি আয়োজকরা ভাইরাস-রোধী পরিকল্পনা দাখিলের পর জেলা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে তা নিশ্চিত করে নেয়।

এছাড়া, জেলার অধিবাসীদের অন্য জেলায় অনাবশ্যক যাওয়া-আসা থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১১) কিয়োতো জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের ক্রমবর্ধমান সংক্রমণ সামাল দিতে টোকিও এবং দেশের আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন এই জেলাগুলোর প্রত্যেকটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে, চলতি ধারাবাহিকে আমরা তা জানার চেষ্টা করছি। এবারে কিয়োতোর ওপর আলোকপাত করা যাক।

কিয়োতো জেলা:
এই জেলার সমস্তটা জুড়ে কার্যত জরুরি অবস্থাকালীন বিধিনিষেধ বলবৎ করা হয়েছে।

পানাহারের জায়গাগুলোকে খোলা রাখার সময় কমিয়ে ফেলতে অনুরোধ করেছে জেলা সরকার।

ভাইরাস রোধী ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সার্টিফিকেট পাওয়া রেস্টুরেন্ট ও পানশালাগুলোকে দুটো বিকল্প দেওয়া হয়েছে। এরা হয় মদ্যপানীয় বিক্রি করে যেতে পারবে রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত এবং রাত ৯টার মধ্যে দোকান বন্ধ করতে হবে, নয়তো মদ্যপানীয় পরিবেশনে বিরত থেকে দোকান বন্ধ করে দেবে রাত ৮টার মধ্যে।

ভাইরাস রোধী ব্যবস্থা গ্রহণের সার্টিফিকেট না থাকা পান-ভোজনের জায়গাগুলোকে মদ্যপানীয় পরিবেশন না করতে এবং রাত ৮টার মধ্যে দোকান বন্ধ করতে বলা হয়েছে।

অনুরোধ মেনে চলা পান-ভোজনের জায়গাগুলোকে, তারা মদ্যপানীয় পরিবেশন করছে কিনা এবং তাদের আগেকার বিক্রি-পরিমাণ কত ছিল তার ভিত্তিতে ভর্তুকি দেওয়া হচ্ছে।

যথাযথ ভাইরাস রোধী ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সার্টিফিকেট প্রাপ্ত ছোট ও মাঝারি আকৃতির পানশালা ও রেস্টুরেন্ট, যেগুলো রাত ৯টার মধ্যে বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে, তারা ক্ষতিপূরণ পাচ্ছে দৈনিক ৭৫ হাজার ইয়েন পর্যন্ত। যারা মদ্যপানীয় পরিবেশন করছে না এবং রাত ৮টার মধ্যে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে এবং সার্টিফিকেটধারী নয় এমন রেস্টুরেন্ট ও পানশালা যারা সরকারি অনুরোধে সাড়া দিচ্ছে, তাদের বিক্রির ওপর নির্ভর করে দৈনিক ১ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়া হচ্ছে।

প্রত্যেক টেবিলে সর্বোচ্চ চার জন পর্যন্ত লোককে বসতে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। ভাইরাসরোধী ব্যবস্থা গ্রহণের সার্টিফিকেট প্রাপ্ত রেস্টুরেন্ট বা পানশালায় পাঁচ বা ততোধিক লোক এক টেবিলে বসতে পারেন যদি তারা সবাই এই প্রমাণ দাখিল করতে পারেন যে করোনাভাইরাস পরীক্ষায় তাদের নেগেটিভ ফল এসেছে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১০) হিয়োগো জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়া প্রতিহত করতে টোকিও এবং সারা দেশ জুড়ে আরও বেশ কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার আওতায় প্রতিটি জেলা সুনির্দিষ্ট যেসব পদক্ষেপ নিচ্ছে তার উপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দেব হিয়োগো জেলার উপর।

হিয়োগো জেলা:
পুরো এলাকায় কার্যত জরুরি পদক্ষেপ বলবৎ আছে। রেস্তোরাঁ এবং পানশালাগুলোকে তাদের পরিচালনার সময় কমিয়ে নিতে বলা হয়েছে।

ভাইরাস প্রতিরোধ পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে সনদ পাওয়া রেস্তোরাঁ ও পানশালাগুলোকে দুটি বিকল্প দেয়া হয়েছে। রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন করে রাত নয়টা পর্যন্ত এরা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখতে পারে, কিংবা অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন বিরত রেখে রাত ৮টায় প্রতিষ্ঠান এরা বন্ধ করে দিতে পারে।

সনদ না পাওয়া প্রতিষ্ঠানকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করা এবং রাত আটটার মধ্যে ব্যবসা বন্ধ করে দিতে বলা হয়েছে।

সরকারের এই অনুরোধ মেনে চললে অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন করে থাকা সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো যারা রাত নয়টার মধ্যে বন্ধ করে দিচ্ছে, বিক্রির উপর নির্ভর করে তাদেরকে প্রতিদিন ২৫ থেকে ৭৫ হাজার ইয়েন ভর্তুকি দেয়া হবে।

সনদ থাকা বা না থাকা রেস্তোরাঁগুলো যারা অ্যালকোহল পরিবেশন করে না এবং রাত আটটার মধ্যে বন্ধ করে দিচ্ছে, তাদেরকে প্রতিদিন ৩০ হাজার থেকে এক লক্ষ ইয়েন আর্থিক সহযোগিতা দেয়া হবে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (৯) ওসাকা জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়া প্রতিহত করতে টোকিও এবং সারা দেশ জুড়ে আরও বেশ কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে আমরা কার্যত জরুরি অবস্থার আওতায় প্রতিটি জেলা সুনির্দিষ্ট যেসব পদক্ষেপ নিচ্ছে তার উপর আলোকপাত করছি। এবারে আমরা নজর দেব ওসাকা জেলার উপর।

ওসাকা জেলা:
পুরো এলাকায় কার্যত জরুরি পদক্ষেপ বলবৎ আছে।

ভাইরাস প্রতিরোধ পদক্ষেপ নিচ্ছে বলে সনদ পাওয়া রেস্তোরাঁ ও পানশালাগুলোকে দুটি বিকল্প থেকে একটি বেছে নেয়ার অনুমতি জেলা সরকার দিচ্ছে। রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন করে রাত নয়টা পর্যন্ত এরা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখতে পারে, কিংবা অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন বিরত রেখে রাত ৮টায় প্রতিষ্ঠান এরা বন্ধ করে দিতে পারে। দ্বিতীয় পছন্দের বেলায় বড় অঙ্কের ভর্তুকি পাওয়া যাবে।

সনদ না পাওয়া প্রতিষ্ঠানকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করা এবং রাত আটটার মধ্যে ব্যবসা বন্ধ করে দিতে বলা হয়েছে।

সনদ পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রতিটি টেবিলে চারজন করে বসার অনুমতি দেয়া হয়েছে। ক্রেতাদের সকলে করোনাভাইরাস পরীক্ষায় নেগেটিভ ফলাফল পাওয়ার প্রমাণ দেখাতে পারলে অবশ্য পাঁচজন কিংবা তার বেশি একটি টেবিলে বসতে পারবেন।

সনদ না পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোকে পাঁচ কিংবা বেশি লোকজনের দলকে গ্রহণ না করার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

বড় আকারের অনুষ্ঠানের বেলায় আয়োজকরা আগে থেকে সংক্রমণ প্রতিরোধ পরিকল্পনা জমা দিলে প্রতিটি অনুষ্ঠানে ২০,০০০ জন পর্যন্ত অংশগ্রহণের অনুমতি দেয়া হয়েছে। ২০ হাজার জনের বেশি অংশগ্রহণের অনুমতি দেয়া হবে যদি অংশগ্রহণকারীদের সবার করোনাভাইরাসের পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ প্রমাণিত হয়েছে তা নিশ্চিত করা হয়।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (৮) কুমামোতো ও মিইয়াযাকি জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। আমাদের সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার উপর আলোকপাত করা হবে। এবারে আমরা কুমামোতো ও মিইয়াযাকি’র উপর নজর দিব।

কুমামোতো জেলা:
এই জেলায় পুরো অঞ্চল জুড়ে কার্যত জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।
পৌরসভার সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ এবং পানশালাগুলো সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশনের পাশাপাশি রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা রাখতে পারবে অথবা অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকতে পারবে। শেষের নিয়মটি বেছে নেয়া প্রতিষ্ঠানসমূহ বেশি করে আর্থিক সহায়তা পাবে।

সনদ না থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোকে সারাদিন অ্যালকোহল পরিবেশন না করা এবং রাত ৮টার মধ্যে ব্যবসা বন্ধ করে দিতে বলা হয়েছে। যারা এই অনুরোধ মেনে চলবে তাদেরকে জেলা থেকে ভর্তুকি দেয়া হবে।

জেলাটি একই টেবিলে বসা লোকের সংখ্যা ৪ জনে সীমিত রাখার আহ্বান এইসব স্থাপনার প্রতি অব্যাহতভাবে জানিয়ে আসছে।
এদিকে, সনদ থাকা স্থাপনাগুলোতে টেবিলে বসা লোকের সংখ্যার উপর কোন বিধিনিষেধ আরোপ করা হবে না যদি তারা নেতিবাচক পরীক্ষার ফলাফল নিশ্চিত করতে পারে।

মিইয়াযাকি জেলা:
এই জেলায় সারা অঞ্চল জুড়ে সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপ হাতে নেয়া হয়েছে। জেলাটি রেস্তোরাঁ এবং পানশালাগুলোকে সারাদিন অ্যালকোহল পরিবেশন করা থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা রাখার অনুরোধ জানাচ্ছে। যেসব স্থাপনা এই অনুরোধ মেনে চলবে সেগুলোই তাদের ব্যবসায়িক আকারের উপর নির্ভর করে দৈনিক ৩০ হাজার থেকে ২ লক্ষ ইয়েন আর্থিক সহায়তা পাওয়ার যোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

এই তথ্যগুলো ফেব্রুয়ারি মাসের ১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (৭) কাগাওয়া এবং নাগাসাকি জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে।
আমাদের সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ কার্যকর করা হচ্ছে, তার উপর আলোকপাত করা হবে। এবারে আমরা কাগাওয়া ও নাগাসাকি’র উপর নজর দিব।

কাগাওয়া জেলা:
এই জেলায় নাওশিমা শহর ছাড়া ১৬টি পৌরসভা, বা পুরো এলাকাকে লক্ষ্য হিসেবে ধরে নিয়ে সংক্রমণ-রোধী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

পৌরসভার সনদপ্রাপ্ত নয়, এমন রেস্তোরাঁ এবং পানশালাগুলোকে রাত ৮টার মধ্যে কার্যক্রম বন্ধের পাশাপাশি অ্যালকোহল পরিবেশন করতে নিষেধ করা হয়েছে। অন্যদিকে, সনদপ্রাপ্ত স্থাপনাসমূহকে দুটি বিকল্প দেয়া হয়েছে। এগুলো রাত ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশনের পাশাপাশি রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা রাখতে পারবে অথবা অ্যালকোহল পরিবেশন না করে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকতে পারবে। এই নিয়ম মেনে চলা প্রতিষ্ঠানসমূহ তাদের আকারের ভিত্তিতে আর্থিক সহায়তা পাবে।

নাগাসাকি জেলা:
জেলাটি পুরো অঞ্চল জুড়ে কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করেছে।
জেলার খাবার এবং পানীয় বিক্রির স্থাপনাগুলোকে রাত ৮টায় দোকান বন্ধ করার পাশাপাশি সারাদিন ধরে অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানানো হয়েছে। এই অনুরোধ মেনে চলা ছোট এবং মাঝারি আকারের কোম্পানিগুলোকে তাদের আয় অনুযায়ী দৈনিক ৩০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েন পরিশোধ করা হবে। আর এই আদেশ মেনে চলার জন্য বৃহদাকারের স্থাপনাসমূহ তাদের লোকসানের ৪০ শতাংশ ক্ষতিপূরণ পাবে। তবে, এক্ষেত্রে দৈনিক ২ লক্ষ ইয়েনের একটি সর্বোচ্চ সীমা রয়েছে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ৩১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (৬) গিফু ও মিয়ে জেলা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের ক্রমবর্ধমান সংক্রমণ সামাল দিতে টোকিও এবং দেশের আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন এই জেলাগুলোর প্রত্যেকটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে, চলতি ধারাবাহিকে আমরা তা জানার চেষ্টা করছি। এবারে আলোকপাত করা যাক গিফু এবং মিয়ে’র ওপর।

গিফু জেলা:
গিফু’র ৪২টি পৌর এলাকার মধ্যে সবকটি এলাকার পানশালা ও রেস্তোরাঁকে রাত ৮টার মধ্যে দোকান বন্ধ করে দিতে এবং মদ্যপানীয় বিক্রি না করতে অনুরোধ করেছে জেলা সরকার। ভাইরাস প্রতিরোধের যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য যারা সার্টিফিকেট পেয়েছে এবং যারা পায়নি, তা নির্বিশেষে সব রেস্তোরাঁ ও পানশালাকে এই অনুরোধ জানানো হয়েছে।

যেসব পানশালা ও রেস্তোরাঁ এই অনুরোধে সাড়া দিচ্ছে, তাদের দৈনিক ৩০ হাজার ইয়েন থেকে ২ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়া হচ্ছে।

কোভিড নাইন্টিনের টিকা নেওয়ার রেকর্ড অথবা পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ আসা সাপেক্ষে কিছু কিছু সামাজিক বিধিনিষেধ শিথিল করার যে নীতি কেন্দ্রীয় সরকারের, গিফু জেলা সরকার সেটি অনুসরণ করছে না।

মিয়ে জেলা:
মিয়ে জেলায় ওয়াসে এবং কুমানো সিটি সহ দক্ষিণের পাঁচটি পৌর এলাকা ছাড়া বাদবাকি আর সব জায়গায় ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ কার্যকর করা হয়েছে।

এই পদক্ষেপ বলবৎ থাকা পৌর এলাকাসমূহে পানাহারের যেসব জায়গা ভাইরাস-রোধের যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সার্টিফিকেট পেয়েছে, তাদের দুটো বিকল্প দেওয়া হয়েছে। একটি হচ্ছে, মদ্যপানীয় বিক্রি করতে পারবে এবং দোকান বন্ধ করতে হবে রাত ৯টায়। অপর বিকল্পটি হচ্ছে, মদ্যপানীয় বিক্রি করবে না এবং খোলা থাকবে রাত ৮টা পর্যন্ত।
পানাহারের যেসব জায়গার ভাইরাস-রোধী যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের সার্টিফিকেট নেই, তাদের মদ্যপানীয় বিক্রি না করতে এবং রাত ৮টায় দোকান বন্ধ করে দিতে বলা হয়েছে।

সরকারের এই অনুরোধে যারা সাড়া দিচ্ছে সেসব রেস্তোরাঁ ও পানশালাগুলোকে তাদের সাইজের ভিত্তিতে অর্থ ক্ষতিপূরণ দেওয়া হচ্ছে। যারা মদ্যপানীয় বিক্রি করায় বিরত থেকে রাত ৮টার মধ্যে দোকান বন্ধ করে দিচ্ছে, তাদের ভর্তুকি দেওয়া হচ্ছে তুলনায় বেশি পরিমাণে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (৫) আইচি

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। আমাদের সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে, তার ওপর আলোকপাত করা হবে। এবারে আমরা আইচি’র ওপর নজর দিব।

আইচি জেলা:
তোয়েই শহর এবং তোইয়োনে গ্রাম বাদ দিয়ে ৫২টি পৌরসভায় সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

ভাইরাস রোধী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে বলে সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ এবং পানশালাগুলো অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন না করে রাত আটটা পর্যন্ত খোলা রাখতে পারবে, অথবা রাত আটটা পর্যন্ত অ্যালকোহল পরিবেশন করে নয়টায় বন্ধ করতে পারবে।

তবে অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন না করা প্রতিষ্ঠানগুলোকে আরও বেশি পরিমাণ আর্থিক সাহায্য দেয়া হবে।

সনদ না থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করা এবং রাত ৮টার মধ্যে ব্যবসা বন্ধ করে দিতে বলা হয়েছে।

সবকয়টি প্রতিষ্ঠানকে টেবিল প্রতি গ্রাহকের সংখ্যা চার জনে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে।

স্পোর্টিং ইভেন্ট সহ বিরাট আকারের অনুষ্ঠানগুলোতে বিশ হাজার পর্যন্ত দর্শকদের অনুমতি দেয়া হবে যদি আয়োজকদের সংক্রমণ রোধী পরিকল্পনা জেলা সরকার নিশ্চিত করে থাকে। অন্যান্য অনুষ্ঠানের জন্য যোগদানকারীদের সংখ্যা পাঁচ হাজারে সীমিত রাখা হয়েছে। তবে যে সব অনুষ্ঠানে দর্শকরা উল্লাস জানানোর সম্ভাবনা রয়েছে সেই সব ক্ষেত্রে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা ভেন্যুর আসন সংখ্যার ৫০ শতাংশের মধ্যে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে।

পৃথক সময়ে শিক্ষার্থীদের স্কুলে আসা এবং বাড়ি ফিরে যাওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করে দেখার জন্য স্কুলগুলোকে বলা হয়েছে। অথবা এক দিন পরপর বা বিভিন্ন ঘন্টায় শিক্ষার্থীরা যাতে স্কুলে আসে সেই ব্যবস্থা করতে এবং তার সাথে সাথে অনলাইন ক্লাসের ব্যবস্থাও রাখতে বলা হয়েছে।

পাঠক্রম বর্হিভূত কার্যক্রমের ক্ষেত্রে অনুশীলন ম্যাচ খেলা থেকে বিরত থাকার জন্য স্কুলগুলোকে বলা হয়েছে।

ভ্রমণ সহ স্কুলের বাইরে অন্যান্য ইভেন্ট আয়োজনের ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করার জন্যেও তাদেরকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (৪) গুনমা ও নিইগাতা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। আমাদের সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে, তার ওপর আলোকপাত করা হবে। এবারে আমরা গুনমা ও নিইগাতা’র ওপর নজর দিব।

গুনমা জেলা:
এই জেলা পুরো এলাকা জুড়ে কার্যত জরুরি অবস্থা কার্যকর করেছে। সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ এবং পানশালাকে দুটি পছন্দের মধ্যে থেকে একটি বেছে নেয়ার অনুমতি জেলা দিচ্ছে। একটি হচ্ছে ভোর ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন না করে ব্যবসা চালু রাখা। অন্যটি হচ্ছে রাত ৯টার মধ্যে প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা এবং রাত ৮টায় অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশন বন্ধ করে দেয়া। সনদ না থাকা প্রতিষ্ঠানগুলোকে অ্যালকোহল পরিবেশন না করা এবং রাত ৮টার মধ্যে ব্যবসা বন্ধ করে দিতে বলা হয়েছে।

সবকয়টি প্রতিষ্ঠানকে টেবিল প্রতি গ্রাহকের সংখ্যা চার জনে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে।

এসব অনুরোধ মেনে চলা সকল প্রতিষ্ঠানকে আর্থিক সমর্থন দেয়া হবে। ছোট আকারের সনদ-প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানকে এদের বিক্রির উপর নির্ভর করে প্রতিদিন ২৫ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েন দেয়া হবে। বড় আকারের ব্যবসাকে দেয়া হবে ২ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত।

নিইগাতা জেলা:
কার্যত জরুরি অবস্থা বলবৎ থাকা অবস্থায় জেলার সকল রেস্তোরাঁ এবং পানশালাকে রাত ৮টার মধ্যে সেবা প্রদান বন্ধ করে দিতে এবং অ্যালকোহল পরিবেশন করা থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে। সনদ-প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানকে বন্ধ করে দেয়ার এক ঘণ্টা আগে, রাত ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় পরিবেশনের অনুমতি দেয়া হয়েছে কিংবা কোনরকম অ্যালকোহল পরিবেশন ছাড়া রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা রাখতে বলা হয়েছে। সকল প্রতিষ্ঠানকে টেবিল প্রতি গ্রাহকের সংখ্যা চার জনে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (৩) কানাগাওয়া

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। আমাদের সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে, তার ওপর আলোকপাত করা হবে। এবারে আমরা কানাগাওয়া’র ওপর নজর দিব।

কানাগাওয়া জেলা:
পুরো জেলা জুড়েই কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করা হয়েছে।

সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ এবং পানশালাকে দু’টি বিকল্প থেকে একটি বেছে নেয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে। একটি হচ্ছে রাত ৯টার মধ্যে দোকান বন্ধের পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে অ্যালকোহল পরিবেশন বন্ধ করা। অন্য বিকল্পটি হচ্ছে অ্যালকোহল পরিবেশন ছাড়াই রাত ৮টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখা।

সনদবিহীন রেস্তোরাঁ ও পানশালাগুলোকে রাত ৮টার মধ্যে দোকান বন্ধ করার পাশাপাশি অ্যালকোহল পরিবেশন করতে নিষেধ করা হয়েছে।

সব ধরনের স্থাপনাসমূহকে প্রতি টেবিলে গ্রাহকের বসার সংখ্যাকে ৪ জনে সীমিত রাখার আহ্বান জানানো হয়েছে।

সব ধরনের স্থাপনা এই অনুরোধ মেনে চললে আর্থিক সহযোগিতা পাবে। যদি তারা রাত ৯টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখে, তাহলে তাদেরকে তাদের বিক্রির সাথে সঙ্গতি রেখে ২৫ হাজার থেকে ৭৫ হাজার ইয়েন পর্যন্ত ভর্তুকি দেয়া হবে। যদি তারা রাত ৮টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখে, তাহলে তাদেরকে ৩০ হাজার থেকে ১ লক্ষ ইয়েন পর্যন্ত ভর্তুকি দেয়া হবে।

সনদপ্রাপ্ত স্থাপনায় বিয়ের অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানের জন্য, যদি অনুষ্ঠানের দিন অংশগ্রহণকারীদের করোনাভাইরাসের পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ হয় তাহলে প্রতি টেবিলে অতিথিদের বসার সংখ্যার ওপর কোন সীমা আরোপ করা হবে না।

বড় ধরনের অনুষ্ঠানের জন্য সর্বোচ্চ অংশগ্রহণকারীর সীমা ২০ হাজার জনে নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে, এই সীমা তুলে নেয়া হবে যদি অংশগ্রহণকারীদের সবার অনুষ্ঠানের দিনে করোনাভাইরাসের পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ হয়।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (২) সাইতামা এবং চিবা

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশ জুড়ে আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। আমাদের সর্বসাম্প্রতিক এই ধারাবাহিকে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীনে থাকাকালীন এই জেলাগুলোর প্রতিটিতে সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে, তার উপর আলোকপাত করা হবে। এবারে আমরা সাইতামা ও চিবা’র উপর নজর দিব।

সাইতামা জেলা:
পুরো জেলা জুড়েই কার্যত জরুরি অবস্থা আরোপ করা হয়েছে। সনদপ্রাপ্ত এবং সনদবিহীন উভয় ধরনের পানশালা এবং রেস্তোরাঁকেই রাত ৮টার মধ্যে দোকান বন্ধের পাশাপাশি অ্যালকোহল পরিবেশন করতেও নিষেধ করা হয়েছে।

এই স্থাপনাসমূহ অবশ্য রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা থাকার অনুমতি পাবে যদি তারা কোভিড-১৯ টিকাদানের রেকর্ড বা নেতিবাচক পরীক্ষার ফলাফল ব্যবহারের মাধ্যমে বিধিনিষেধ শিথিল রাখার সরকারি কর্মসূচির জন্য প্রাক-নিবন্ধন করে রাখে।

ঐ স্থাপনাগুলোতে ক্রেতাদের প্রতিটি দলে সদস্য সংখ্যার উপর কোন বিধিনিষেধ আরোপ করা হবে না যদি তারা ক্রেতাদের টিকাদানের রেকর্ড বা নেতিবাচক পরীক্ষার ফলাফল নিশ্চিত করতে পারে। এছাড়া, তারা বেলা ১১টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত অ্যালকোহল পরিবেশন করতে পারবে।

চিবা জেলা:
এই জেলা সনদপ্রাপ্ত রেস্তোরাঁ এবং পানশালাগুলোকে অ্যালকোহল পরিবেশন করতে নিষেধ না করলেও রাত ৯টার মধ্যে দোকান বন্ধ করার অনুরোধ জানিয়েছে। যারা এই অনুরোধ মেনে চলবে তারা আর্থিক সহায়তা পাওয়ার জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

অন্যদিকে, সনদপ্রাপ্ত নয়, এরকম স্থাপনাসমূহকে অ্যালকোহল পরিবেশন করতে নিষেধ করার পাশাপাশি রাত ৮টার মধ্যে বাণিজ্যিক কার্যক্রম বন্ধ করতেও বলা হয়েছে। এমনকি এই অনুরোধ মেনে চললেও তাদেরকে কোন ক্ষতিপূরণের অর্থ পরিশোধ করা হবে না।

সব স্থাপনাতেই ক্রেতাদের দলগুলো চারজনের মধ্যে সীমিত থাকবে। তবে, বিয়ের অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে প্রতি টেবিলে পাঁচ বা ততোধিক ব্যক্তিকে একত্রে বসার অনুমতি দেয়া হবে যদি সকল অতিথির পরীক্ষার নেতিবাচক ফলাফল নিশ্চিত করা হয়। জেলাটি এই ধরনের অনুষ্ঠানের জন্য কর্তৃপক্ষকে আগে থেকেই অবহিত করার আহ্বান জানাচ্ছে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

করোনাভাইরাস সামাল দিতে কার্যত জরুরি অবস্থার অধীন জেলাসমূহে কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে (১) টোকিও

জাপান সরকার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি সামাল দিতে টোকিও এবং দেশের আরও কয়েকটি জেলায় কার্যত জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। কার্যত জরুরি অবস্থা বলবৎ থাকার সময় এই জেলাগুলোতে ভাইরাস ঠেকানোর সুনির্দিষ্ট কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে, আমরা তা জানার চেষ্টা করবো আমাদের সর্বসাম্প্রতিক ধারাবাহিকে। এবারে টোকিও’র ওপর আলোকপাত করা হবে।

টোকিও মেট্রোপলিটন সরকার মহানগরের পানশালা ও রেস্তোরাঁগুলোকে ১৩ই ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত দোকান খোলা রাখার সময় কমিয়ে আনতে অনুরোধ করেছে।

ভাইরাস প্রতিরোধের উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য যেসব রেস্তোরাঁ ও পানশালা সার্টিফিকেট পেয়েছে, তারা মদ্যপানীয় পরিবেশন করা বা না করার ওপর নির্ভর করে দোকান খোলা রাখার সময়টা বেছে নিতে পারবে, অর্থাৎ যারা মদ্যপানীয় পরিবেশন করবে তারা খোলা রাখতে পারবে ভোর ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত, যার মধ্যে রাত ৮টা পর্যন্ত ৯ ঘন্টা মদ্যপানীয় পরিবেশন অন্তর্ভুক্ত। যারা মদ্যপানীয় পরিবেশন করে না তাদের রাত ৮টায় দোকান বন্ধ করতে বলা হয়েছে।

একসাথে খাওয়াদাওয়া বা মদ্যপান যারা করেন তাদের সেই গ্রুপে লোকসংখ্যা চার জনে সীমিত রাখতে বলা হয়েছে। তবে সংখ্যাটি পাঁচের অধিক করার অনুমতি দেওয়া হবে যদি সবার করোনা পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ থাকে।

ভাইরাস ঠেকানোর উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের সার্টিফিকেট নেই এমন রেস্তোরাঁ ও পানশালাগুলোকে রাত ৮টায় দোকান বন্ধ করতে বলা হয়েছে। এদের মদ্যপানীয় পরিবেশন করা বারণ এবং সেখানে একেকটি গ্রুপে চারজনের বেশি লোক থাকা চলবে না।

মদ্যপানীয় পরিবেশনকারী যেসব রেস্তোরাঁ ও পানশালা রাত ৯টার মধ্যে বন্ধ হয়ে যাবে তাদের দৈনিক ২৫ হাজার ইয়েন থেকে ২ লক্ষ ইয়েন দেওয়া হবে ক্ষতিপূরণ হিসেবে।

মদ্যপানীয় পরিবেশন না করে যেসব রেস্টুরেন্ট ও পানশালা রাত ৮টার মধ্যে বন্ধ হয়ে যাবে, তাদের দৈনিক ৩০ হাজার থেকে ২ লক্ষ ইয়েন ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে।

পান-ভোজনের জায়গা ছাড়া অন্য কোনো দোকানকে ব্যবসার সময় কমিয়ে আনতে অনুরোধ করা হচ্ছে না। তবে তাদের প্রত্যেক শিল্পের জন্য নির্ধারণ করে দেওয়া নির্দেশিকা অনুসরণ করে কাজ করতে বলা হয়েছে।

এছাড়া টোকিও’র জনসাধারণকে অনুরোধ করা হয়েছে অপ্রয়োজনীয় কাজে বাইরে বেরোনো থেকে বিরত থাকতে অথবা জনাকীর্ণ জায়গা এড়িয়ে চলতে এবং বেরোতে হলে ভিড়ের সময় এড়িয়ে অন্য কোনো সময় বেছে নিতে। এছাড়া তাদের এমন রেস্তোরাঁ বা পানশালায় বার বার যেতে বারণ করা হয়েছে যারা দোকান খোলা রাখার সময় কমায়নি।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮৬: জাপানের করোনাভাইরাসের দৈনিক সংখ্যা ২০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে- ওমিক্রন সম্পর্কে আমরা কী জেনেছি? (৪) টিকার কার্যকারিতা।

উত্তর-৩৮৬: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ভাইরাসের ওমিক্রন ধরন নজিরবিহীন দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা সংক্রমণ সক্ষমতা এবং মারাত্মক অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকির মত ভাইরাসের এই ধরন সম্পর্কে যা জানতে পেরেছি, সে বিষয়ে আপনাদের অবগত করবো। চতুর্থ পর্বে এবারে আমরা ওমিক্রনের বিরুদ্ধে টিকা কতটা কার্যকর সে বিষয়টির উপর নজর দেব।

টিকার দুটি ডোজ নেয়ার পরেও লোকজন ওমিক্রনে আক্রান্ত হতে পারেন বলে জানা গেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানুয়ারি মাসের ১১ তারিখ তাদের সাপ্তাহিক আপডেটে সতর্ক করে দিয়ে জানায় যে পুনরায় সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি বৃদ্ধি পেতে দেখা যাচ্ছে। আপডেটে আরও জানানো হয় যে ওমিক্রন সংক্রমণের ক্ষেত্রে এবং রোগের উপসর্গ দেখা দেয়ার ক্ষেত্রে টিকা যথেষ্ট পরিমাণ সুরক্ষা প্রদান করে না। সংস্থা আরও জানায় যে ওমিক্রনে আক্রান্ত হয়ে মারাত্মক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার ক্ষেত্রেও টিকা সম্ভবত খুব বেশি সুরক্ষা প্রদান করে না।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ তাদের ৩১শে ডিসেম্বরের ব্রিফিংয়ে জানিয়েছে যে ফাইজার এবং মডার্না যে ধরনের টিকা উন্নয়ন করেছে সেই এমআরএনএ টিকার দুটি ডোজ রোগের লক্ষণ দেখা যাচ্ছে এমন ধরনের ওমিক্রন সংক্রমণ প্রতিরোধে ৬৫ থেকে ৭০ শতাংশ কার্যকর। দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার দুই থেকে চার সপ্তাহ পরে এই ধরনের কার্যকারিতা লক্ষ্য করা গেছে। তবে প্রায় ২০ সপ্তাহ পর কার্যকারিতা হ্রাস পেয়ে প্রায় ১০ শতাংশে নেমে আসে।

উপাত্তে আরও দেখা যায় যে দুটি ফাইজার ডোজ পেয়েছেন যারা তাদেরকে ফাইজার বা মডার্নার বুস্টার বা তৃতীয় ডোজ দেয়ার দুই থেকে চার সপ্তাহ পর উপসর্গ দেখা যাচ্ছে এমন ধরনের সংক্রমণ প্রতিরোধে তা ৬৫ থেকে ৭৫ শতাংশ কার্যকর। তবে পাঁচ থেকে নয় সপ্তাহের পর এই কার্যকারিতা ৫৫ থেকে ৭০ শতাংশে নেমে যায় এবং দশ সপ্তাহ পর এটি ৪০ থেকে ৫০ শতাংশের মধ্যে নেমে আসে।

এদিকে, স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ জানতে পারে যে মারাত্মক ধরনের উপসর্গ দেখা দেয়া এবং হাসপাতালে ভর্তি কমিয়ে আনতে টিকা আরও বেশি কার্যকর। যারা ফাইজার, মডার্না বা অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা নিয়েছেন, দুটি ডোজ নেয়ার দুই থেকে চব্বিশ সপ্তাহের মধ্যে তা হাসপাতালে ভর্তি রোধ করতে ৭২ শতাংশ এবং পঁচিশ সপ্তাহের পর থেকে তা ৫২ শতাংশ কার্যকর। উপাত্তে দেখা গেছে যে দুটি টিকা এবং বুস্টার ডোজ নেয়ার দুই সপ্তাহ পর তা হাসপাতালে ভর্তি রোধে ৮৮ শতাংশ কার্যকর।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮৫: জাপানের করোনাভাইরাসের দৈনিক সংখ্যা ২০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে- ওমিক্রন সম্পর্কে আমরা কী জেনেছি? (৩) মারাত্মক রোগের স্বল্প ঝুঁকি সত্ত্বেও আমাদের সতর্ক থাকতে হবে – ২

উত্তর-৩৮৫: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ভাইরাসের ওমিক্রন ধরন নজিরবিহীন দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে। এই ধারাবাহিকে আমরা সংক্রমণ সক্ষমতা এবং মারাত্মক অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকির মত ভাইরাসের এই ধরন সম্পর্কে যা জানতে পেরেছি, সে বিষয়ে আপনাদের অবগত করবো। তৃতীয় পর্বে এবারে আমরা ওমিক্রন মারাত্মক অসুস্থ হওয়ার কারণ হয়ে দেখা দিতে পারে কিনা, সেদিকে আরও বেশি নজর দেব।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ ডিসেম্বর মাসের ৩১ তারিখে দেয়া ব্যাখ্যায় বলেছে, ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত লোকজনের হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকি হচ্ছে ডেলটা ধরনের প্রায় এক তৃতীয়াংশ। কর্তৃপক্ষ আরও জানিয়েছে যে দ্বিতীয় টিকা নেয়ার পর যাদের বেলায় ১৪ দিন কিংবা আরও বেশি সময় পার হয়ে গেছে, তাদের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকি হচ্ছে টিকা যারা নেয়নি তাদের চাইতে ৬৫ শতাংশ কম। এছাড়া তৃতীয় ডোজ নেয়ার পর ১৪ দিনের বেশি পার হয়ে গেলে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার ঝুঁকি হচ্ছে ৮১ শতাংশ কম।

তবে এই উপাত্ত ব্যাখ্যা করার বেলায় আমাদের সতর্ক থাকা দরকার। যুক্তরাজ্যের কর্তৃপক্ষ বলেছে বুস্টার টিকা ওমিক্রনে আক্রান্ত রোগীদের বেলায় মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়া প্রতিহত করে। যুক্তরাজ্যে ১০ই জানুয়ারি পর্যন্ত জনসংখ্যার ৬২.৩ শতাংশ টিকার তৃতীয় ডোজ নিয়েছে।

অন্যদিকে জাপানে জনসংখ্যার মাত্র ১.১ শতাংশ ১৭ই জানুয়ারি পর্যন্ত বুস্টার টিকা নিয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আভাস দিয়েছে যে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার কম ঝুঁকি সত্ত্বেও ভাইরাসের এই ধরন প্রতিটি দেশে চিকিৎসা সেবা ব্যবস্থার উপর যথেষ্ট চাপ সৃষ্টি করছে। একারণে এটা হচ্ছে যে সংক্রমণের বিশাল সংখ্যা মারাত্মক অসুস্থ হওয়া এবং মৃত্যুর সংখ্যা ঊর্ধ্বমুখী দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ১৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮৪: জাপানের করোনাভাইরাসের দৈনিক সংখ্যা ২০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে- ওমিক্রন সম্পর্কে আমরা কী জেনেছি? (২) মারাত্মক রোগের স্বল্প ঝুঁকি সত্ত্বেও আমাদের সতর্ক থাকতে হবে - ১

উত্তর-৩৮৪: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন নজিরবিহীন গতিতে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। নতুন এই ধারাবাহিকে আমরা ওমিক্রন ধরন সম্পর্কে কী জেনেছি, যেমন এর ছড়িয়ে পড়া, মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি এবং চিকিৎসা ব্যবস্থার উপর এর সম্ভাব্য চাপের কথা তুলে ধরছি। এবারে এর দ্বিতীয় পর্বে আমরা ওমিক্রন মারাত্মক রোগের কারণ হবে কি না তার উপর নজর দিব।

ওমিক্রন ধরন যে অন্যান্য স্ট্রেইনের তুলনায় কম মারাত্মক সে সম্বন্ধে ক্রমবর্ধমান সংখ্যক প্রমাণ রয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও ১১ জানুয়ারি প্রকাশিত তাদের এক সাপ্তাহিক প্রতিবেদনে জানায় যে, ওমিক্রন ধরনের আধিপত্য বিস্তার করা সময় চলাকালীন, হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার সংখ্যা দৃশ্যত দেখা গেছে কম এবং খুব অল্প সংখ্যক রোগীর মারাত্মক উপসর্গ দেখা গেছে।

জানুয়ারি মাসের ৪ তারিখে, ডব্লিউএইচও’র কর্মকর্তারা বলেন, অন্যান্য ধরনের তুলনায়, ওমিক্রন ধরন নাক ও গলা’সহ শ্বাসযন্ত্রের উপরের অংশকে আক্রান্ত করছে, তবে ফুসফুস পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছানোর এবং মারাত্মক উপসর্গের সৃষ্টি করার সম্ভাবনা কম। তবুও, কর্মকর্তারা সতর্ক করেন যে, এইসব দর্শনকে প্রমাণ করার জন্য আরও গবেষণার প্রয়োজন।

জাপানে, ওকিনাওয়ায় প্রাককলিত প্রাথমিক উপাত্ত বিভিন্ন করোনাভাইরাসের ট্রেইনের কারণে দেখা দেয়া রোগের প্রচণ্ডতা নিয়ে তথ্য সরবরাহ করছে। কর্মকর্তারা এই জেলার কোভিড-১৯ রোগীদের উপর সমীক্ষা পরিচালনা করে যখন বৈশ্বিক মহামারির কোন এক পর্যায়ে সংক্রমণের সংখ্যা ৬৫০’এ পৌঁছায়।

তারা দেখতে পান যে, গত বছরের ১ এপ্রিল পর্যন্ত যখন মূল স্ট্রেইনটি প্রবলভাবে বিস্তার লাভ করছিল, তখন ৮৪.৮ শতাংশ রোগীর হালকা উপসর্গ রয়েছে এবং শূন্য দশমিক ছয় শতাংশ রোগীর মারাত্মক উপসর্গ রয়েছে। জুলাই মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত, আলফা ধরনটি যখন প্রবল ছিল, তখন ৭২.৮ শতাংশ রোগীর হালকা উপসর্গ বা কোন উপসর্গ ছিল না। অন্যদিকে শূন্য দশমিক নয় শতাংশ রোগী ছিল মারাত্মকভাবে আক্রান্ত। চলতি বছরের ৪ জানুয়ারি, যখন ওমিক্রন ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে তখন ৯২.৩ শতাংশ রোগীর হালকা উপসর্গ বা কোন উপসর্গ ছিল না। কেউই মারাত্মকভাবে আক্রান্ত হননি।

তবে, বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করছেন যে, বর্তমানে ওকিনাওয়ার অধিকাংশ রোগী হচ্ছেন তরুণ এবং যদি সংক্রমণ বয়স্ক লোকদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে তাহলে মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়া লোকের সংখ্যা বাড়তে পারে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ১৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮৩: জাপানের করোনাভাইরাসের দৈনিক সংখ্যা ২০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে- ওমিক্রন সম্পর্কে আমরা কী জেনেছি? (১) ডব্লিউএইচও ওমিক্রনের “বর্ধিত সংক্রমণ ক্ষমতার” উল্লেখ করেছে।

উত্তর-৩৮৩: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন নজিরবিহীন গতিতে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। সারা বিশ্ব থেকে আসা ধারাবাহিক কিছু প্রতিবেদনে এই ধরনের উচ্চ-সংক্রমণ ক্ষমতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। জাপানেও ওমিক্রনের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং দৈনিক ২০ হাজারের অধিক সংক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। এক্ষেত্রে, সংক্রমণ এবং গুরুতর উপসর্গ দেখা দেয়ার ঝুঁকিগুলো কী? এবং এগুলো কীভাবে আমাদের চিকিৎসা পরিষেবার উপর প্রভাব ফেলবে? নতুন এই ধারাবাহিকে আমরা ওমিক্রন সম্পর্কে কী জেনেছি, তা তুলে ধরব। আর এর প্রথম পর্বে আমরা ওমিক্রনের সংক্রমণ ক্ষমতার উপর নজর দিব।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও ১১ই জানুয়ারি তাদের সাপ্তাহিক প্রতিবেদনে ওমিক্রন ধরনের “বর্ধিত সংক্রমণ ক্ষমতার” উল্লেখ করেছে।

ঐ প্রতিবেদনে ২০২১ সালের ডিসেম্বরে ডেনমার্কে পরিচালিত একটি গবেষণার উল্লেখ করা হয়েছে, যেটিতে দেখা গেছে যে একই বাড়ির ভেতরে পরোক্ষ বা দ্বিতীয় পর্যায়ের সংক্রমণের ক্ষেত্রে ডেল্টা ধরনের ২১ শতাংশের তুলনায় ওমিক্রন ধরনের হার ছিল ৩১ শতাংশ।

মার্কিন রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র বা সিডিসি’র ভাষ্যানুযায়ী, তারা ওমিক্রনের সংক্রমণ ক্ষমতা ডেল্টা ধরনের তুলনায় সর্বোচ্চ তিনগুণ হিসেবে দেখতে পেয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় দেশগুলোতে ওমিক্রন দ্রুত ডেল্টাকে প্রতিস্থাপন করে প্রধান ধরনে পরিণত হচ্ছে।

ব্রিটেনে, ২০২১ সালের ৩০শে ডিসেম্বর পর্যন্ত ইংল্যান্ডের প্রায় বেশির ভাগ অঞ্চল জুড়ে নিশ্চিত করা করোনাভাইরাসের নতুন সংক্রমণের প্রায় ৯৫ শতাংশই ছিল ওমিক্রন ধরনের।

সিডিসি বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে জানুয়ারি মাসের ৮ তারিখ পর্যন্ত নতুন সংক্রমণের প্রায় ৯৮.৩ শতাংশই ছিল ওমিক্রন ধরনের, যা এটি প্রদর্শন করছে যে ওমিক্রন প্রধান ধরনে পরিণত হয়েছে এবং করোনাভাইরাসের অন্য প্রায় সবগুলো ধরনকেই প্রতিস্থাপিত করেছে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ১৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮২: যদি কেউ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হন, তাহলে কীভাবে বুঝবেন (৪) অ্যান্টিজেন পরীক্ষার কিট।

উত্তর-৩৮২: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সাধারণ সর্দি-জ্বর ছড়িয়ে পড়ার এই সময়ে জাপানে এখন ওমিক্রন ধরনের করোনাভাইরাসের দ্রুত বিস্তার লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ঠাণ্ডা লাগার হালকা উপসর্গ দেখা দিলে এবং সেটা কোভিড-১৯ কি না তা জানতে চাইলে আমাদের কী করা দরকার? এবারে আমরা জানবো উপসর্গ দেখা দিলে কীভাবে অ্যান্টিজেন পরীক্ষার কিট ব্যবহার করতে হয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ওষুধের দোকানে যে করোনাভাইরাস পরীক্ষার অ্যান্টিজেন টেস্ট কিট কিনতে পাওয়া যায়, সেগুলো রাত্রিবেলায় হঠাৎ উপসর্গ দেখা দিলে অথবা ডাক্তারের কাছে যাওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া কঠিন হলে তখন ব্যবহারের পক্ষে বেশ উপযোগী। তবে উপসর্গ না থাকলে অ্যান্টিজেন পরীক্ষার কিট ব্যবহারের সুপারিশ করা হয় না, কারণ সে অবস্থায় এই পরীক্ষার ফলাফল যে সব সময় নির্ভুল হয় তা না।

বলা হয় যে উপসর্গ যদি থাকে এবং তা স্পষ্ট হয়ে ওঠার নয় দিনের মধ্যে পরিচালিত অ্যান্টিজেন পরীক্ষার ফলাফল হয় নির্ভরযোগ্য। তবে এক্ষেত্রে নিশ্চিত করা জরুরি যে প্যাকেটে “ইন ভিটরো ডায়াগনোস্টিক্স” সংক্ষেপে আইভিডি লেখা কিট কেনা হয়েছে। প্রয়োজনে ব্যবহার করার জন্য এই কিট সঙ্গে রাখতে লোকেদের উৎসাহিত করছেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে মনে রাখতে হবে, অ্যান্টিজেন পরীক্ষার কিট’এ ভুলভাবে নেগেটিভ ফলাফল আসতে পারে। তাই পরীক্ষার ফল নেগেটিভ হওয়া সত্ত্বেও যদি দেখা যায় যে উপসর্গ রয়েই গেছে, তখন উচিত ডাক্তার দেখানো। কামেদা মেডিকেল সেন্টারের ওৎসুকা ইওশিহিতো বলেন, সরকার দ্বারা অনুমোদিত অ্যান্টিজেন টেস্ট কিট সহজলভ্য এবং একেকটার দাম ২০০০ ইয়েন বা ২০ ডলারের চেয়ে কম। তিনি বলেন এই কিট বাড়িতে কিনে রাখা ভাল। তবে তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন যে শরীরে ভাইরাস একটি নির্দিষ্ট মাত্রায় পৌঁছানোর আগ অব্দি অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় ভুলভাবে নেগেটিভ ফল আসতে পারে। তিনি বলেন উপসর্গের নিরাময় যদি না হয় এবং দুশ্চিন্তার জন্ম দেয়, সেক্ষেত্রে ডাক্তার দেখানো সমীচীন হবে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮১: যদি কেউ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হন, তাহলে কীভাবে বুঝবেন (৩) হালকা উপসর্গ বা উপসর্গ না থাকার ক্ষেত্রে কী করা উচিত।

উত্তর-৩৮১: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সাধারণ সর্দি-জ্বর ছড়িয়ে পড়ার এই সময়ে জাপানে এখন ওমিক্রন ধরনের করোনাভাইরাসের দ্রুত বিস্তার লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ঠাণ্ডা লাগার হালকা উপসর্গ দেখা দিলে এবং সেটা কোভিড-১৯ কি না তা জানতে চাইলে আমাদের কী করা দরকার? হালকা উপসর্গ বা কোন উপসর্গ না থাকার সময় কী করা উচিত এবারে আমরা তা নিয়ে আলোচনা করব।


কেন্দ্রীয় সরকার যেসব এলাকায় বিশেষ করে সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপ নেয়ার প্রয়োজন রয়েছে, সেখানে বিনামূল্যে করোনাভাইরাস পরীক্ষার ব্যবস্থা করার জন্য স্থানীয় সরকারদের জানিয়েছে। এমনকি যাদের মধ্যে কোন উপসর্গ দেখা যাচ্ছে না তাদের জন্যেও এই পরীক্ষার ব্যবস্থা রাখতে হবে। অন্যদিকে, স্থানীয় সরকার ইতিমধ্যেই যেসব লোকজন টিকা নিতে পারবেন না তাদের জন্য বিনামূল্যে পরীক্ষার ব্যবস্থা রেখেছে। তবে এই পরীক্ষাগুলো যাদের মধ্যে করোনাভাইরাসের কোন উপসর্গ দেখতে পাওয়া যাচ্ছে না, শুধুমাত্র তাদের জন্য।

কারোর শরীরে রোগের হালকা উপসর্গ দেখা দেয়ার ক্ষেত্রে কী করা উচিত?

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেল হালকা জ্বর, ক্লান্তিভাব এবং অন্য কোন কারণে শরীর ভাল না থাকলে চিকিৎসা স্থাপনাগুলোতে পরামর্শ করার জন্য লোকজনকে আহ্বান জানাচ্ছে।

কামেদা মেডিকাল সেন্টারের ওৎসুকা ইয়োশিহিতো হলেন করোনাভাইরাস পরীক্ষা বিষয়ক নির্দেশিকা তৈরি করে থাকা বিশেষজ্ঞ প্যানেলের একজন সদস্য। তিনি বলেন, গলা ব্যাথা, সর্দি, জ্বর, মাথাব্যাথা, ক্লান্তির মত সাধারণ ঠাণ্ডা লাগার উপসর্গ যাদের মধ্যে দেখা যাচ্ছে তাদের পরীক্ষা করা উচিত।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ১৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৮০: যদি কেউ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হন, তাহলে কীভাবে বুঝবেন (২) ওমিক্রন ধরনের উপসর্গ।

উত্তর-৩৮০: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সাধারণ সর্দি-জ্বর ছড়িয়ে পরার এই সময়ে জাপানে এখন ওমিক্রন ধরনের করোনাভাইরাসের দ্রুত বিস্তার লক্ষ্য করা যাচ্ছে। ঠাণ্ডা লাগার হালকা উপসর্গ দেখা দিলে এবং সেটা কোভিড-১৯ কি না তা জানতে চাইলে আমাদের কী করা দরকার? ওমিক্রন ধরনের উপসর্গগুলো কেমন, এবারে আমরা তা নিয়ে আলোচনা করব।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞ প্যানেল জানুয়ারি মাসের ৬ তারিখে বৈঠকে মিলিত হয় এবং ১ জানুয়ারির মধ্যে যাদের ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত হতে দেখা গেছে, ওকিনাওয়া জেলার সেরকম ৫০ জন রোগীর অবস্থা সংক্রান্ত প্রতিবেদন সম্পর্কে অবগত হয়।

প্রতিবেদনে দেখানো হয়েছে যে ৭২ শতাংশ রোগী ৩৭.৫ ডিগ্রি কিংবা এর চাইতে বেশি মাত্রার জ্বরে ভুগেছেন, অন্যদিকে ৫৮ শতাংশের কাশি ছিল এবং ৫০ শতাংশ ক্লান্ত বোধ করেছেন। এতে আরও বলা হয়েছে যে ৪৪ শতাংশের গলা ব্যথা ছিল, ৩৬ শতাংশের নাক বন্ধ হয়ে আসছিল কিংবা সর্দিতে তারা ভুগেছেন, ৩২ শতাংশের মাথা ব্যথা এবং ২৪ শতাংশের গ্রন্থিতে ব্যথা ছিল। রোগের লক্ষণ যাদের মধ্যে দেখা গেছে, এদের ৮ শতাংশ বিবমিষায় ভুগেছেন কিংবা বমি করেছেন, ৬ শতাংশের নিশ্বাস নিতে কষ্ট হচ্ছিল এবং ২ শতাংশ স্বাদ কিংবা ঘ্রাণ হারিয়ে ফেলার সমস্যায় ভুগেছেন। প্রতিবেদন অনুযায়ী এদের মধ্যে মাত্র ৪ শতাংশের বেলায় রোগের উপসর্গ দেখা যায়নি।

প্যানেলের প্রধান এবং জাতীয় সংক্রামক রোগ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ওয়াকিতা তাকাজি বলেছেন, কোভিড-১৯ রোগীদের বেলায় প্রায়শই পরিপাক সম্পর্কিত কিংবা স্বাদ ও ঘ্রাণ হারিয়ে ফেলার উপসর্গ দেখা দেয়ার কথা বলা হলেও ওকিনাওয়ার প্রতিবেদন আভাস দিচ্ছে যে ওমিক্রন ধরনে সংক্রমিত হওয়ার বেলায় সেরকম দেখা যায় না। তিনি বলেছেন ওমিক্রনের উপসর্গ অনেকটা হচ্ছে সাধারণ সর্দি-জ্বরের মতো একই ধরনের।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ১২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭৯: যদি কেউ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হন, তাহলে কীভাবে বুঝবেন (১) অভিন্ন কোভিড-১৯ উপসর্গ।

উত্তর-৩৭৯: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের সংক্রমণ দ্রুত বিস্তার লাভ করছে। সাধারণ সর্দি-জ্বর লাগার জন্য শীতকাল হচ্ছে বিশেষ সময়। লোকজন হয়তো উদ্বিগ্ন হতে পারেন যখন তাদের ঠাণ্ডার হালকা উপসর্গ দেখা দেবে। তারা ভাবতে পারেন তাদের কোভিড-১৯ হল কিনা। এ ধরনের পরিস্থিতিতে আমাদের কী করা উচিত?

কোভিড-১৯’এর উপসর্গ একজনের থেকে আরেকজনের ভিন্ন হতে পারে। যখন কেউ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হবেন তাদের মধ্যে নিচের বিষয়গুলোকে অভিন্ন উপসর্গ হিসেবে দেখা যাবে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও চিহ্নিত করেছে। এই উপসর্গগুলো হচ্ছে জ্বর, শুকনো কফ, অবসাদ এবং স্বাদ ও গন্ধ না পাওয়া। কোন কোন রোগীর মধ্যে দেখা দিতে পারে এমন অন্যান্য উপসর্গগুলোর মধ্যে গলা ব্যথা, মাথা ব্যথা, ডায়রিয়া, ত্বকে র‍্যাশ ওঠা বা হাত ও পায়ের আঙ্গুল বর্ণহীন হয়ে যাওয়া এবং চোখ লাল হয়ে যাওয়া অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

মার্কিন রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রও শ্বাসকষ্ট হওয়া বা অক্সিজেনের অভাব দেখা দেয়া, পেশী বা শরীরের ব্যথা, রক্ত জমাট বাধা বা নাক দিয়ে জল পড়া, বমি বমি লাগা এবং শীত শীত লাগাকে কোভিড-১৯’এর উপসর্গ হিসেবে উল্লেখ করে।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, যদি ওমিক্রন ধরনে আক্রান্ত হওয়ার সময়েও একই ধরনের উপসর্গ দেখা দেয় তাহলে?

একজন ডব্লিউএইচও কর্মকর্তা ৪ঠা জানুয়ারি বলেন, আরও অনেক সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে যে, এই ধরনটি শ্বাসযন্ত্রের উপরের দিকের অংশকে আক্রান্ত করছে। এটা ঠিক অন্যান্য স্ট্রেইনের মত ফুসফুসকে আক্রান্ত করছে না এবং মারাত্মক নিউমোনিয়ার কারণ হচ্ছে না। তিনি ইঙ্গিত দেন যে, ওমিক্রনজনিত প্রদাহ প্রধানত নাক এবং গলার মধ্যেই হচ্ছে। এর থেকে এই আভাস পাওয়া যাচ্ছে যে, বিরাজমান উপসর্গগুলো এক ধরন থেকে অন্য ধরনের জন্য আলাদা হতে পারে।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ১১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭৮: বর্ষশেষ থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে টোকিওতে (২) বাড়ছে ওমিক্রন সংক্রমণ।

উত্তর-৩৭৮: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। বর্ষশেষ এবং নববর্ষের শুরুতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে টোকিও জানিয়েছে। ওমিক্রন ধরন থেকে সংক্রমণ ঘটছে বলে ধারণা করা গোষ্ঠীগত সংক্রমণের সংখ্যাও বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। এবারে আমরা স্থানীয় সম্প্রদায়ে ওমিক্রন ধরনের বিস্তারের ওপর আলোকপাত করব।

টোকিও মহানগরে করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনে সংক্রমিত হওয়ার প্রথম ঘটনাটি সম্পর্কে নিশ্চিত খবর পাওয়া যায় ১৬ই ডিসেম্বর। এর সপ্তাহ দুয়েক পর ২৮শে ডিসেম্বর ওমিক্রন সংক্রমণের মোট সংখ্যা বেড়ে ১৩’তে পৌঁছায়। ৩০শে ডিসেম্বর দৈনিক সংখ্যাটাই হয়ে উঠলো ৯, আর ৩রা জানুয়ারি সেই সংখ্যা দাঁড়ায় ২৫’এ।

দৃশ্যত যেখানে ওমিক্রনের গোষ্ঠীগত সংক্রমণ বলে মনে হওয়া ঘটনার সংখ্যা ২৮শে ডিসেম্বরের আগ অব্দি ছিল মাত্র একটি, সেখানে ৩০শে ডিসেম্বর ও ৩রা জানুয়ারি মিলিয়ে সংখ্যাটি পৌঁছায় ১২’তে।

টোকিও মহানগর সরকারের একজন কর্মকর্তা জানান, বড়দিনের পর ওমিক্রন সংক্রমণের ঘটনা চোখে পড়ার মত বেড়েছে এবং বর্ষশেষ ও নববর্ষ, এই সময়ের মধ্যে সম্ভবত দ্রুত ছড়িয়েছে এই ধরনটি।

চিকিৎসা ব্যবস্থার প্রস্তুতি প্রসঙ্গে বলতে হয়, করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য বিভিন্ন হাসপাতাল মিলিয়ে সর্বোচ্চ ৬ হাজার ৯শো ১৯টি শয্যা সংরক্ষিত রাখা হয়েছে। ৩রা জানুয়ারি পর্যন্ত যা খবর তাতে শয্যা পূর্ণ থাকার হার হচ্ছে ৩ দশমিক ৫ শতাংশ। মহানগর সরকারের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে চিকিৎসা কেন্দ্রগুলোর পক্ষে সুষ্ঠু ভারসাম্য বজায় রেখে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী ও অন্যান্য ব্যধিতে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব। তবে ওমিক্রন যদি আরও ছড়ায়, হাসপাতালে শয্যার অভাব দেখা দিতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছেন তারা।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭৭: বর্ষশেষ থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে টোকিওতে (১) সংক্রমণ বৃদ্ধির গতি ঊর্ধ্বমুখী।

উত্তর-৩৭৭: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। বর্ষশেষ এবং নববর্ষের শুরুতে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে টোকিও জানিয়েছে। ওমিক্রন ধরন থেকে সংক্রমণ ঘটছে বলে ধারণা করা গোষ্ঠীগত সংক্রমণের সংখ্যাও বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। আমরা ২৯শে ডিসেম্বর থেকে শুরু করে ৫ই জানুয়ারি পর্যন্ত সময়ের মধ্যে সংক্রমণ কী হারে বৃদ্ধি পেয়েছে তার উপর আলোকপাত করব।

ডিসেম্বর মাসের ২৯ তারিখ নতুন ভাবে ভাইরাসে সংক্রমিতের সংখ্যা ৭৬ বলে টোকিও নিশ্চিত করেছিল। তবে পরপর ৭৩ দিন ধরে দৈনিক নতুন সংক্রমণের হার ৫০ এর নীচে থাকার রেকর্ড ঐ দিন শেষ হয়ে যায়। ডিসেম্বর মাসের ৩০ তারিখ নতুন ভাবে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৬৪ এবং ৩১ তারিখ ছিল ৭৮, যা হল গতমাসের সর্বোচ্চ। সবকটি দিনেই দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা এক সপ্তাহ আগের একই দিনের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণে গিয়ে দাঁড়ায়।

নতুন বছরের শুরুতে দৈনিক হার আরও বেশি বৃদ্ধি পায়। পয়লা জানুয়ারি নিশ্চিত ভাবে জানা সংক্রমণের সংখ্যা ছিল ৭৯ এবং ২রা জানুয়ারি এই সংখ্যা ছিল ৮৪। জানুয়ারি মাসের ৩ তারিখ এই সংখ্যা এক ধাপ বৃদ্ধি পেয়ে ১০৩-এ গিয়ে দাঁড়ালে ২০২১ সালের ৮ই অক্টোবরের পর থেকে এই প্রথম দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়ে যায়। জানুয়ারি মাসের ৫ তারিখ এই সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ায় ৩৯০এ। টোকিও মেট্রোপলিটন সরকারের একজন কর্মকর্তা বলেন যে বৃদ্ধির হারে গতি সঞ্চারিত হচ্ছে এবং কর্তৃপক্ষ সংকটের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে।

এই সময়ের মধ্যে পরিবারের সদস্যদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়া সংক্রমণের সংখ্যা বিশেষ ভাবে উল্লেখযোগ্য। ৩রা জানুয়ারি পর্যন্ত ছয় দিনের মধ্যে সংক্রমিত ৪৮৪ জনের মধ্যে ১৭৫ জন বা মোট সংখ্যার ৩৬ দশমিক ২ শতাংশ ব্যক্তি কিভাবে সংক্রমিত হয়েছেন তা সনাক্ত করা গেছে। এদের মধ্যে ১০১ জন বা বেশিরভাগই পরিবারের মাধ্যমে সংক্রমিত হয়েছেন, যা হল ৫৭ দশমিক ৭ শতাংশ। এর পরে রয়েছে ১২ শতাংশ ব্যক্তি যারা কর্মক্ষেত্রে সংক্রমিত হয়েছেন। ৯ দশমিক ১ শতাংশ বাইরে খাওয়ার সময় এবং ৭ দশমিক ৪ শতাংশ বিভিন্ন স্থাপনায় ভাইরাস থেকে সংক্রমিত হয়েছেন।

এই তথ্যগুলো জানুয়ারি মাসের ৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭৬: করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন সম্পর্কে আমরা এখন পর্যন্ত যা জানি (২) আমাদের অবশ্যই ওমিক্রনের তীব্রতা সম্বন্ধে সতর্ক থাকতে হবে।

উত্তর-৩৭৬: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের এই ধারাবাহিকে, আমরা সর্বশেষ করোনাভাইরাসের উদ্বেগজনক ধরন ওমিক্রন সম্পর্কে এখন পর্যন্ত যা জানি তার দিকে নজর দেব। এবারে ওমিক্রনের তীব্রতার উপর আলোকপাত করা হবে।

এরকম অভিমত রয়েছে যে যদি কোনো ব্যক্তি ওমিক্রন ধরনে সংক্রমিত হন তাহলে এর উপসর্গগুলো হয়তো পূর্ববর্তী ধরনগুলোর তুলনায় কম গুরুতর হতে পারে। তবে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সতর্ক করে দিয়েছে যে ওমিক্রনের তীব্রতা সম্পর্কে আমাদের সতর্কতা অব্যাহত রাখা উচিত।

ইউরোপ, যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, এই ধরনের আক্রান্ত অধিকাংশ রোগীর কোনো উপসর্গ নেই বা হালকা উপসর্গ রয়েছে।

মার্কিন রোগ নিয়ন্ত্রণ এবং প্রতিরোধ কেন্দ্র জানাচ্ছে, “এর আগের উপাত্ত থেকে এই আভাস পাওয়া যাচ্ছিল যে, আগের কোনো ধরন থেকে এই ধরন হয়তো কম মারাত্মক। তবে, ক্লিনিকাল তীব্রতা সংক্রান্ত নির্ভরযোগ্য উপাত্ত এখনও সীমিত। এমনকি মারাত্মকভাবে আক্রান্ত সংক্রমণের অনুপাত আগের ধরনগুলোর থেকে কম হলেও, সংক্রমণের সংখ্যার সম্ভাব্য বৃদ্ধির সাথে সাথে মারাত্মকভাবে আক্রান্ত চূড়ান্ত লোকের সংখ্যাও উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বাড়তে পারে।”

এছাড়াও, সংক্রমণ বাড়ার সময় এবং মারাত্মকভাবে আক্রান্ত হওয়া বা মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ার সময়ের মধ্যে একটা সময়ের ব্যবধান রয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তাদের ডিসেম্বর মাসের ২১ তারিখে প্রকাশিত এক সাপ্তাহিকে জানায়, এখনও ওমিক্রনের ক্লিনিকাল তীব্রতার উপর উপাত্ত সীমিত। এরপর তারা জানায়, “যুক্তরাজ্য এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়া লোকের সংখ্যা বেড়েই চলেছে এবং সংক্রমণের সংখ্যা দ্রুত বাড়ার কারণে এমন সম্ভাবনাও দেখা দিতে পারে যে, স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা হয়তো ভেঙ্গে পড়তে পারে।”

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭৫: করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন সম্পর্কে আমরা এখন পর্যন্ত যা জানি (১) নানা প্রতিবেদনে আভাস পাওয়া যাচ্ছে যে এটি উচ্চ সংক্রামক।

উত্তর-৩৭৫: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রন হচ্ছে করোনাভাইরাসের সর্বশেষ উদ্বেগজনক ধরন। যুক্তরাষ্ট্র এবং যেসব ইউরোপীয় দেশে স্থানীয়ভাবে লোকজনের মধ্যে এই ধরনটি ছড়িয়ে পড়ছে, সেখানে ওমিক্রন দ্রুত প্রধান ধরন হিসেবে ডেল্টাকে প্রতিস্থাপিত করছে। জাপানেও ওমিক্রনের কম্যুনিটি সংক্রমণ বা স্থানীয়ভাবে ছড়িয়ে পড়া নিশ্চিত করা হয়েছে। আমাদের এই নতুন ধারাবাহিকে ওমিক্রন ধরন সম্পর্কে আমরা ঠিক কতটুকু জানি, সেসম্পর্কে আলোকপাত করা হবে।

সারা বিশ্ব থেকে আসা নানা প্রতিবেদনে এই আভাস পাওয়া যাচ্ছে যে এর আগের ধরনগুলোর তুলনায় ওমিক্রন হচ্ছে সবচেয়ে সংক্রামক ধরন। যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্রের মত দেশগুলোতে ওমিক্রন দ্রুত প্রধান স্ট্রেইনে পরিণত হচ্ছে, যেখানে এর আগে পর্যন্ত প্রায় সবগুলো সংক্রমণের জন্যই করোনাভাইরাসের ডেল্টা ধরনই দায়ী ছিল।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ডব্লিউএইচও’র ভাষ্যানুযায়ী, কম্যুনিটি সংক্রমণ ঘটা দেশগুলোতে দেড় থেকে তিনদিনে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুণ হচ্ছে।
গত ২০শে ডিসেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে ডব্লিউএইচও’র মহাপরিচালক তেদ্রোস আদহানোম ঘেব্রেইসুস বলেন, ওমিক্রন যে ডেল্টা ধরন থেকে উল্লেখযোগ্য হারে দ্রুত ছড়াচ্ছে, তার ধারাবাহিক প্রমাণ এখন রয়েছে। তিনি আরও বলেন, টিকা নেয়া এবং কোভিড-১৯ থেকে সেরে ওঠা লোকজনেরও সংক্রমিত বা পুনরায় সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭৪: টিকার বুস্টার ডোজ এবং করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন (৭) গবেষণার ফলাফল আভাস দিচ্ছে টিকার তৃতীয় ডোজ উচ্চ পর্যায়ের সুরক্ষা দেবে – চতুর্থ অংশ।

উত্তর-৩৭৪: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নতুন দেখা দেওয়া ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে টিকার বুস্টার ডোজ কতটা কার্যকর হতে পারে? এই প্রশ্নে বিশেষজ্ঞদের মতামত নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের সপ্তম পর্বটি এবারে পেশ করছি।

মার্কিন ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি মডার্না জানায় গবেষণাগারে পরীক্ষা নিরীক্ষায় দেখা যাচ্ছে যে তাদের তৈরি করা করোনাভাইরাস টিকার বুস্টার ডোজ ওমিক্রন মোকাবিলায় উচ্চ মাত্রায় কার্যকর হতে পারে।

২০ ডিসেম্বর কোম্পানির প্রকাশিত গবেষণার প্রাথমিক ফলাফল সংক্রান্ত রিপোর্টে বলা হয় যারা টিকার দুটো ডোজ নিয়েছেন, তাদের দেহে ওমিক্রন রোধের অ্যান্টিবডির অভাব থাকে।

এই কোম্পানির অনুমোদিত ৫০ মাইক্রোগ্রামের বুস্টার ডোজ জাপান ও যুক্তরাষ্ট্র উভয় দেশে প্রয়োগ করে দেখা গেছে এতে ওমিক্রনকে প্রতিরোধ করতে পারার মতো অ্যান্টিবডির পরিমাণ, বুস্টার ডোজ নেওয়ার আগের মাত্রার চেয়ে প্রায় ৩৭ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

বুস্টার ডোজের মাত্রা বাড়িয়ে ১০০ মাইক্রোগ্রাম করে নেওয়ার পর দেখা যায় অ্যান্টিবডির পরিমাণ, প্রাক্‌-বুস্টার মাত্রার চেয়ে মোটামুটি ৮৩ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। উল্লেখ্য, মডার্নার টিকার প্রথম দুটি ডোজের প্রত্যেকটি হয় ১০০ মাইক্রোগ্রামের।

মডার্না বলছে, বর্তমানে ব্যবহৃত টিকার বুস্টার ডোজ ওমিক্রনের বিরুদ্ধে প্রথম ধাপের প্রতিরক্ষা ব্যুহ গড়ে তুলবে। কোম্পনিটি বলছে, সুনির্দিষ্টভাবে ওমিক্রন মোকাবিলার টিকা উন্নয়নের কাজ তারা চালিয়ে যাবে ঠিকই, তবে এ মুহূর্তে সেরকম টিকার প্রয়োজন আছে বলে তারা মনে করে না।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭৩: টিকার বুস্টার ডোজ এবং করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন (৬) গবেষণার ফলাফল আভাস দিচ্ছে টিকার তৃতীয় ডোজ উচ্চ পর্যায়ের সুরক্ষা দেবে – তৃতীয় অংশ।

উত্তর-৩৭৩: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নতুনভাবে দেখা দেয়া ওমিক্রন ধরনের ভাইরাসের বিরুদ্ধে টিকার বুস্টার ডোজ কতটা কার্যকর, সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে সেই প্রশ্ন আমরা বিশেষজ্ঞদের করেছিলাম। ধারাবাহিক আয়োজনের ষষ্ঠ পর্বে এবারে আমরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কী ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছে তার দিকে নজর দেব।

হোয়াইট হাউসের প্রধান চিকিৎসা উপদেষ্টা এন্থনি ফাউচি ডিসেম্বর মাসের ১৫ তারিখ বলেছিলেন যে বর্তমানে পাওয়া যাওয়া টিকার বুস্টার ডোজ ওমিক্রন রূপের বিরুদ্ধে যথেষ্ট পরিমাণে কাজ করে।

ফাউচি বলেন যে ফাইজার-বিয়োনটেক বা মডার্না উন্নয়ন করা টিকার দুটি ডোজ নেয়া থাকলেও তা ভাইরাসের নতুন ধরনের সংক্রমণ ঠেকাতে এবং গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়া রোধে একেবারেই কার্যকর নয়। তবে সম্প্রতি চালানো একাধিক গবেষণা থেকে আভাস পাওয়া যাচ্ছে যে বুস্টার ডোজ নিরপেক্ষ অ্যান্টিবডির মাত্রা যথেষ্ট পরিমাণ বৃদ্ধি করছে যার ফলে নতুন রূপের বিরুদ্ধে তা আরও বেশি সুরক্ষা প্রদান করতে পারছে বলে তিনি আরও উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন এই মুহুর্তে ভাইরাসের নতুন কোন এক ধরনের বিষয়টি চিন্তা করে নির্দিষ্ট কোন টিকার প্রয়োজন নেই বলেই তার মনে হয়। ফাইজার এবং মডার্না ঘোষণা দিয়েছে যে ওমিক্রন ধরনকে বিশেষভাবে লক্ষ্য স্থির করে তারা নতুন টিকার উন্নয়ন করছে। টিকা নেয়ার জন্য এবং বর্তমানে যে টিকা পাওয়া যাচ্ছে তার বুস্টার ডোজ নেয়ার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লোকজনের প্রতি পুনরায় আহ্বান জানান ফাউচি।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭২: টিকার বুস্টার ডোজ এবং করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন (৫) গবেষণার ফলাফল আভাস দিচ্ছে টিকার তৃতীয় ডোজ উচ্চ পর্যায়ের সুরক্ষা দেবে – দ্বিতীয় অংশ।

উত্তর-৩৭২: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নতুনভাবে দেখা দেয়া ওমিক্রন ধরনের ভাইরাসের বিরুদ্ধে টিকার বুস্টার ডোজ কতটা কার্যকর, সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে সেই প্রশ্ন আমরা বিশেষজ্ঞদের করেছিলাম। ধারাবাহিক আয়োজনের পঞ্চম পর্বে এবারে আমরা দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে পাওয়া ফলাফলের দিকে নজর দেব।

আফ্রিকা স্বাস্থ্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক অ্যালেক্স সিগালের নেতৃত্বে পরিচালিত ল্যাবরেটরি গবেষণায় এরকম বলিষ্ঠ আভাস দেয়া হয়েছে যে ফাইজার-বিয়োনটেকের টিকার মধ্যে দিয়ে লাভ করা অ্যান্টিবডি রোগ প্রতিরোধ নিরাপত্তা ওমিক্রন ধরন যথেষ্ট মাত্রায় কমিয়ে দেয়। টিকা নিয়েছেন সেরকম ১২ জনের থেকে সংগ্রহ করা রক্তের প্লাজমা ব্যবহার করে চালানো পরীক্ষায় দেখা গেছে যে ভাইরাসের ধরনকে নিষ্ক্রিয় করে দিতে টিকা থেকে পাওয়া অ্যান্টিবডি সক্ষমতা ৪০ গুণ হ্রাস পায়। ইনস্টিটিউটের সাম্প্রতিক হিসাবে দেখা যায় ওমিক্রন ধরনের উপসর্গমূলক বা অভিলাক্ষণিক সংক্রমণের বিরুদ্ধে টিকা সম্ভবত কেবল ২২.৫ শতাংশ কার্যকর।

গবেষণার ফলাফল থেকে দেখা যায়, সংক্রমিত যারা হয়েছেন এবং টিকার দুটি ডোজ নিয়েছেন সেরকম ছয় জনের রক্তের নমুনার মধ্যে পাঁচ জনের বেলায় অ্যান্টিবডি নিষ্ক্রিয় করে দেওয়ার তুলনামূলক উচ্চ হার দেখা গেছে। ইনস্টিটিউটের মুখপাত্র বলছেন, তৃতীয় ডোজ নেওয়ার মধ্যে দিয়ে মানুষের অ্যান্টিবডি মাত্রা আরও সতেজ করে তোলা এবং মারাত্মক উপসর্গ দেখা দেয়া এড়িয়ে যাওয়ার ভালো সম্ভাবনা রয়েছে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭১: টিকার বুস্টার ডোজ এবং করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন (৪) গবেষণার ফলাফল আভাস দিচ্ছে টিকার তৃতীয় ডোজ উচ্চ পর্যায়ের সুরক্ষা দেবে – প্রথম অংশ।

উত্তর-৩৭১: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। নতুনভাবে দেখা দেয়া ওমিক্রন ধরনের ভাইরাসের বিরুদ্ধে টিকার বুস্টার ডোজ কতটা কার্যকর, সর্বশেষ এই ধারাবাহিকে সেই প্রশ্ন আমরা বিশেষজ্ঞদের করেছিলাম। এবারে রয়েছে এই ধারাবাহিক আয়োজনের চতুর্থ পর্ব।

মার্কিন বৃহৎ ওষুধ কোম্পানি ফাইজার এবং তাদের জার্মান অংশীদার বিয়োনটেক ডিসেম্বর মাসের ৮ তারিখে ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে তাদের টিকা কতখানি কার্যকর সে সংক্রান্ত প্রাথমিক সমীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করে। ফলাফলে দেখা যাচ্ছে যে, টিকার একটি তৃতীয় ডোজ প্রথম দুই ডোজের তুলনায় ২৫ গুণ অ্যান্টিবডি বাড়াতে পারে যা মূল স্ট্রেইনের বিরুদ্ধে একই পর্যায়ের সুরক্ষা দিতে পারে। সমীক্ষায়, কোম্পানি দু’টি ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডির পর্যায় কতখানি নিষ্ক্রিয় করতে পারে তা দেখার জন্য তৃতীয় ডোজ নেয়ার এক মাস পরে লোকজনের কাছ থেকে রক্তের নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করে দেখে। তারা দেখতে পায়, মূল স্ট্রেইনের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেয়ার তিন সপ্তাহ পরে লোকজনের দেহে যে পরিমাণ অ্যান্টিবডির পর্যায় ছিল তার প্রায় সমকক্ষ। তারা জানাচ্ছে, টিকার একটি তৃতীয় ডোজ ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে একটি উচ্চ পর্যায়ের সুরক্ষা দিতে পারবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

কোম্পানি দু’টি এও জানাচ্ছে, রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করা কোষগুলোর লক্ষ্য হিসাবে সনাক্ত স্পাইক প্রোটিনের অংশবিশেষের ৮০ শতাংশ ওমিক্রন ধরনের রূপান্তর দ্বারা প্রভাবিত হয় না। তারা জানাচ্ছে, এর অর্থ হচ্ছে টিকার দু’টি ডোজ এখনও মারাত্মক রোগের বিরুদ্ধে সুরক্ষা প্রদান করছে। তারা আরও জানাচ্ছে, তৃতীয় ডোজ রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করা কোষের পর্যায়কে বাড়ায় এবং কোভিড-১৯ রোগীদের মারাত্মকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়া রোধে সাহায্য করে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৭০: টিকার বুস্টার ডোজ এবং করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন (৩) ভাইরাসকে আক্রমণকারী ইমিউন কোষ লোকজনের গুরুতর অসুস্থ হওয়া প্রতিরোধ করতে পারে।

উত্তর-৩৭০: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। আমাদের চলতি ধারাবাহিকে, আমরা বিশেষজ্ঞদের কাছে জানতে চাইছি যে নতুন আবির্ভূত করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে টিকার বুস্টার ডোজ ঠিক কতটা কার্যকর হতে পারে। এবার ধারাবাহিকের তৃতীয় পর্বে আমরা ইমিউন বা শরীরের রোগ প্রতিরোধকারী কোষগুলোর কাজের উপর আলোকপাত করবো।

ভাইরাস এবং টিকাদান প্রক্রিয়া নিয়ে অত্যন্ত অভিজ্ঞ কিতাসাতো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক নাকাইয়ামা তেৎসুও উল্লেখ করেন যে ওমিক্রন ধরনের স্পাইক প্রোটিনে ৩০টি পরিবর্তন ঘটলেও সেটি পুরো স্পাইক প্রোটিনের মাত্র ৩ শতাংশে ঘটেছে। উল্লেখ্য, এই প্রোটিন মানুষের কোষে লেপ্টে থেকে সেগুলোকে আবদ্ধ করে ফেলে। সেকারণে তিনি এই যুক্তি তুলে ধরছেন যে ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে টিকা পুরোপুরি অকার্যকর হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কম। তিনি বলেন, সংক্রমণ প্রতিরোধে টিকাগুলোর কার্যকারিতা হয়তো কিছু পরিমাণে কমতে পারে, তবে সংক্রমিত ব্যক্তির গুরুতর অসুস্থ হওয়া রোধে এগুলোর সক্ষমতা খুব একটা কমবে না।

নাকাইয়ামার ভাষ্যানুযায়ী, অ্যান্টিবডির স্তর বাড়ানোর পাশাপাশি শরীরে প্রবেশ করা ভাইরাসকে আক্রমণকারী ইমিউন কোষের সক্ষমতা বৃদ্ধির সামর্থ্যও টিকার বুস্টার ডোজগুলোর রয়েছে। তিনি বলেন, এই পরিবর্তনগুলোর ভাইরাসকে অ্যান্টিবডি এড়িয়ে যেতে সাহায্য করার সম্ভাবনা থাকলেও, বুস্টার ডোজের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের পরিবর্তনে প্রতিক্রিয়া প্রদর্শনকারী ইমিউন কোষগুলোর দেয়া সুরক্ষা উচ্চ পর্যায়ে অক্ষুণ্ণ রাখা যাবে। আর এটি শেষ পর্যন্ত গুরুতর রোগীর সংখ্যাই কমাবে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬৯: টিকার বুস্টার ডোজ এবং করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন (২) টিকার প্রাইম-বুস্ট কর্মকৌশল

উত্তর-৩৬৯: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের নতুন নতুন ধরন দেখা দেওয়ার মধ্যে লোকজনকে টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়ার পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন দেশে। এমনই এক পটভূমিতে আমরা বিশেষজ্ঞদের কাছে জানতে চেয়েছিলাম বুস্টার ডোজ ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে কতটা কার্যকর হবে বলে ধারনা। এই ধারাবাহিকের দ্বিতীয় পর্বটি এবারে পেশ করছি।

জাতীয় মিয়ে হাসপাতালের ক্লিনিকাল রিসার্চের প্রধান তানিগুচি কিইয়োসু জাপান সরকারের করোনাভাইরাস বিশেষজ্ঞ প্যানেলের একজন সদস্যও। তিনি বলছিলেন টিকার তৃতীয় ডোজ শুধু যে শরীরে অ্যান্টিবডির পরিমাণ বাড়াবে তাই নয়, রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার মেমরি বা স্মৃতিশক্তি আরও বাড়ানোয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

টিকার প্রথম ডোজ যাকে প্রাইম বলে উল্লেখ করা হয়, সেটি যখন দেওয়া হয় তখন শরীর ভাইরাসকে জন্মগত রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার জন্য একটি শত্রু হিসেবে এবং আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু হিসেবে শনাক্ত করার ক্ষমতা অর্জন করে। এরপর টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হলে রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাতে টার্গেট শত্রু সম্পর্কে মেমরি বা চিনে রাখার ক্ষমতা তৈরি হয়। বুস্টার ডোজ নামে পরিচিত টিকার তৃতীয় ডোজের উদ্দেশ্য হোল এই মেমরিকে শক্তিশালী এবং দীর্ঘস্থায়ী করে তোলা। তার মানে এই ‘প্রাইম এবং বুস্ট’ কর্মকৌশলের লক্ষ্য হচ্ছে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে ‘শত্রু’ সম্পর্কে আরও ওয়াকিবহাল করে তোলা এবং শত্রুকে চিনে রাখার শক্তি আরও বাড়ানো।

তানিগুচি বলেন টিকার সাহায্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যথেষ্ট বাড়িয়ে তোলার এই কৌশলের উদ্দেশ্য যেহেতু গুরুতর উপসর্গ রোধ করা, তাই ওমিক্রন সহ করোনাভাইরাসের নতুন নতুন ধরনগুলোর সবকটির বিরুদ্ধেই এটি কার্যকরী হওয়া উচিত। তিনি বুস্টার ডোজ দেওয়ার পদক্ষেপকে আরও ত্বরান্বিত করার গুরুত্বের ওপর জোর দেন।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬৮: টিকার বুস্টার ডোজ এবং করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন (১) অ্যান্টিবডি বৃদ্ধি করা হলে তা ভাইরাসের নতুন ধরনের সাথে লড়াই করতে সাহায্য করবে।

উত্তর-৩৬৮: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। বর্তমানে যে ধরনের করোনাভাইরাস টিকা দেয়া হচ্ছে তা ওমিক্রন রূপের বিরুদ্ধে খুব একটা কার্যকর নয় বলে উদ্বেগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। ভাইরাসের নতুন এই রূপ বিশ্বজুড়ে ক্রমশ বিস্তার লাভ করছে। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে যেসব লোকজন ইতোমধ্যেই টিকার দুটি ডোজ পেয়ে গেছেন তাদেরকে বুস্টার ডোজ দেয়া নিয়ে চিন্তাভাবনা চলছে এবং সেই সময়েই এই উদ্বেগ দেখা দিল। বুস্টার ডোজে যে ধরনের টিকা ব্যবহার করা হচ্ছে তা হল প্রথম দুটি টিকার মতই। এতদিন পর্যন্ত ভাইরাসের যে রূপের প্রকোপ ছিল সেটি চিন্তা করেই এই টিকা তৈরি করা হয়েছে। তৃতীয় ডোজ নেয়ার প্রয়োজন এখনো কেন রয়েছে এবং ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত এই টিকা কার্যকর হওয়ার সম্ভাবনা কতটা, সে বিষয়ে আমরা বিশেষজ্ঞদের সাথে কথা বলেছি। এবার এই বিষয়ের উপর তৈরি আমাদের ধারাবাহিকের প্রথম পর্ব উপস্থাপন করবো।

ওমিক্রনের স্পাইক প্রোটিনের অনেকগুলো রূপান্তর ঘটেছে। হোস্ট সেল বা পোষক কোষগুলোকে সংক্রমিত করতে স্পাইক প্রোটিন গুরুত্বপূর্ণ এক ভুমিকা পালন করে থাকে। বিভিন্নবার রূপান্তরের অর্থ হল নিরপেক্ষকারী অ্যান্টিবডির জন্য স্পাইক প্রোটিনগুলোর সাথে যুক্ত হয়ে সংক্রমণ রোধ করা আরও কঠিন হতে পারে।

তানিগুচি কিইয়োসু হলেন জাতীয় মিয়ে হাসপাতালের ক্লিনিকাল রিসার্চ বিভাগের প্রধান এবং করোনাভাইরাস সম্পর্কিত বিশেষজ্ঞদের নিয়ে জাপান সরকার গঠিত প্যানেলের একজন সদস্য। তিনি বলেন ওমিক্রন ধরনের জন্য টিকা কম কার্যকর হলেও বুস্টার ডোজ নেয়াটা অর্থপূর্ণ হবে। তানিগুচি বলেন, উদাহরণস্বরূপ ভাইরাসের রূপান্তরের ফলে নিরপেক্ষ অ্যান্টিবডির কার্যকারিতা এক চতুর্থাংশে পরিণত হলেও বুস্টার ডোজ আমাদের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করে তুললে অ্যান্টিবডির সংখ্যা যদি চারগুণ বৃদ্ধি পায় তবে আমরা একই পর্যায়ের সুরক্ষা পেতে সক্ষম হবো। তিনি বলতে চাইছেন যে তৃতীয় ডোজ নেয়ার পর তা মোট সংখ্যক অ্যান্টিবডির পরিমাণ বৃদ্ধি করবে যার ফলে ওমিক্রন ধরনের সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য আমাদের দেহে অনেক বেশি সংখ্যক অ্যান্টিবডি থাকবে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬৭: ওমিক্রন মোকাবিলায় ওষুধ কি কার্যকর হবে? (৪) যেসব ওষুধ মাত্রাতিরিক্ত রোগ প্রতিরোধ প্রতিক্রিয়া চাপা দিয়ে রাখে, “ওমিক্রনের বিরুদ্ধে সেগুলোর কাজ করার কথা”।

উত্তর-৩৬৭: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ওমিক্রন ধরনের ভাইরাস বিস্তৃত হওয়া বিশ্ব জুড়ে নিশ্চিত করা হচ্ছে। নতুন এই ধরনের বিরুদ্ধে ওষুধ কার্যকর হবে কি? বিভিন্ন ধরনের ওষুধের কার্যকারিতা সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের আমরা প্রশ্ন করেছিলাম। বিষয়টির উপর আমাদের ধারাবাহিক আয়োজনের এটা হচ্ছে চতুর্থ পর্ব।

ডেক্সামেথাসন এবং ব্যারিসিটিনিব মাত্রাতিরিক্ত রোগ প্রতিরোধ প্রতিক্রিয়া - ভাইরাসের বৃদ্ধি পাওয়া সুনির্দিষ্ট একটি পরিমাণ পর্যন্ত চাপা দিয়ে রাখে। ফলে মনে করা হয় যে ভাইরাসের রূপান্তর বিবেচনায় না রেখে কোভিড-১৯’এর বিরুদ্ধে এগুলো কার্যকর।

জাপানের আইচি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মোরিশিমা ৎসুনেও বলেছেন, এটা হতে পারে না যে এন্টিবডি ওষুধ নতুন ধরনের বিরুদ্ধে একেবারেই কার্যকর নয়। তবে তিনি বলেছেন যেসব রোগী এই চিকিৎসা নিচ্ছেন তাদের কাছ থেকে নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত নতুন ধরনের বিরুদ্ধে ওষুধের কার্যকারিতা কোন মাত্রা পর্যন্ত হ্রাস পেতে পারে তার পরিষ্কার ছবি পাওয়া আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়।

উদ্ভাবনের পর্যায়ে থাকা খাওয়ার ওষুধ সম্পর্কে তিনি বলেছেন, এসব ওষুধ ভাইরাস কোষের সংখ্যা বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে বলে আগের বিভিন্ন ধরনের বেলায় যেমন দেখা গেছে, ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধেও এগুলোর সেভাবে কাজ করার কথা। মোরিশিমা বলেছেন প্রাথমিক পর্যায়ে এন্টিবডি ওষুধ হিসেবে এগুলো অনুমোদন পেলে বর্তমান কৌশল এসব ওষুধ ব্যবহারের আহ্বান জানাচ্ছে। তিনি উল্লেখ করেছেন যে এমন কি ওমিক্রন ধরনের বেলায় ওষুধের কার্যকারিতা হ্রাস পেলেও এই কৌশলের কোন বদল হবে না।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬৬: ওমিক্রন মোকাবিলায় ওষুধ কি কার্যকর হবে? (৩) আন্তঃকোষীয় বৃদ্ধি রোধে ওষুধ কি ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে সমান কার্যকর হবে?

উত্তর-৩৬৬: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সারা বিশ্ব থেকেই এখন করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনে নতুনভাবে সংক্রমিত হওয়ার নিশ্চিত খবর পাওয়া যাচ্ছে। সর্বশেষ এই ধরনটির বিরুদ্ধে ওষুধ কি কার্যকর হবে? ওমিক্রনে সংক্রমণের চিকিৎসায় বিভিন্ন ওষুধের কার্যকারিতা সম্পর্কে আমরা কয়েকজন বিশেষজ্ঞের কাছে জানতে চেয়েছি। এবারে উপস্থাপন করছি এই বিষয় নিয়ে আমাদের নতুন ধারাবাহিকের তৃতীয় পর্ব।

করোনাভাইরাসের রোগীদের চিকিৎসা করার জন্য উন্নয়ন করা ওষুধের মধ্যে কিছু ওষুধ হচ্ছে এই ভাইরাসের আন্তঃকোষীয় বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় এনজাইম সৃষ্টি রোধ করার জন্য। জাপানের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলোর অনুমোদন প্রাপ্ত রেমডেসিভির হচ্ছে এধরনের একটি ওষুধ যা মাঝারি থেকে মারাত্মক উপসর্গ থাকা রোগীদের চিকিৎসায় শিরার মধ্যে ফোঁটায় ফোঁটায় ঢুকানো হয়।

প্রধানত হালকা ধরনের উপসর্গ থাকা রোগীরা বাড়িতে বসে সেবন করতে পারা ওষুধের উন্নয়নও এগিয়ে চলেছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে মার্কিন ওষুধ কোম্পানি মার্ক’এর উদ্ভাবন করা মলনুপিরাভির, মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজারের উদ্ভাবন করা প্যাক্সলোভিড এবং একই ধরনের মুখে খাওয়ার একটি ওষুধ যেটি বর্তমানে একটি জাপানি ওষুধ কোম্পানি শিয়োনোগি উন্নয়ন করছে। এগুলোর মধ্যে মলনুপিরাভির’এর জন্য কোম্পানিটি জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে অনুমোদনের আবেদন করেছে এবং প্যাক্সলোভিড’এর জন্য এর কোম্পানি জরুরি ব্যবহারের জন্য মার্কিন নিয়ন্ত্রকদের কাছে আবেদন করেছে।

আইচি মেডিকেল ইউনিভার্সিটি’র মোরিশিমা ৎসুনেও বলছেন, যেহেতু এইসব চিকিৎসা পদ্ধতি মানব কোষের মধ্যে প্রবেশ করা ভাইরাসকে লক্ষ্য ধরছে, তাই এইসব ওষুধের ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধেও একইরকম কার্যকর হওয়া উচিত।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬৫: ওমিক্রন মোকাবিলায় ওষুধ কি কার্যকর হবে? (২) মানব কোষ আক্রমণ প্রতিরোধে নেয়া চিকিৎসার কার্যকারিতা হ্রাস পাওয়ার সম্ভাবনা সংক্রান্ত উদ্বেগ।

উত্তর-৩৬৫: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। সারা বিশ্ব থেকেই এখন করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনে নতুনভাবে সংক্রমিত হওয়ার নিশ্চিত খবর পাওয়া যাচ্ছে। সর্বশেষ এই ধরনটির বিরুদ্ধে কি ওষুধ কার্যকর হবে? ওমিক্রনে সংক্রমণের চিকিৎসায় নানা ওষুধের কার্যকারিতা সম্পর্কে আমরা কয়েকজন বিশেষজ্ঞের কাছে জানতে চেয়েছি। এবারে উপস্থাপন করছি এই বিষয় নিয়ে আমাদের নতুন ধারাবাহিকের দ্বিতীয় পর্ব।

জাপানে অনুমোদন পাওয়া ওষুধগুলোর মধ্যে এন্টিবডি মিশ্রণ এবং সোট্রোভিমাবকে এন্টিবডি ওষুধ হিসেবে বর্ণনা করা হয়। এগুলো স্পাইক প্রোটিনকে লক্ষ্য ধরে নিয়ে করোনাভাইরাসের আক্রমণ প্রতিরোধ করে। এটি ভাইরাসের পৃষ্ঠে থাকা প্রসারিত অংশ যা ভাইরাসটি মানুষের দেহে প্রবেশের অবলম্বন হিসেবে ব্যবহার করে। এই ওষুধসমূহকে হালকা উপসর্গ থাকা রোগীদের গুরুতর অসুস্থ হয়ে যাওয়া রোধে ইন্ট্রাভেনাস ড্রিপ বা শিরার ভেদ করে প্রয়োগ করা হয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে ওমিক্রন ধরনের স্পাইক প্রোটিনে ৩০ বারের মত পরিবর্তন ঘটেছে এবং এটি ভাইরাসটির মানব কোষে প্রবেশে বাধা দেয়ার ক্ষেত্রে এই ওষুধের কার্যকারিতাকে হ্রাস করতে পারে।

আইচি চিকিৎসা বিশ্ববিদ্যালয়ের মোরিশিমা ৎসুনেও’র ভাষ্যানুযায়ী, এন্টিবডি ওষুধ স্পাইক প্রোটিনকেই লক্ষ্য হিসেবে ধরে নেয়, তাই তিনি মনে করেন যে সর্বশেষ এই পরিবর্তন এই চিকিৎসার কার্যকারিতার উপরে বড় ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে। একইসাথে তিনি এটিও বলছেন যে যদি সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য হিসেবে ধরে নেয়া স্পাইক প্রোটিনে এই পরিবর্তন না ঘটে, তাহলে ওষুধটির কার্যকারিতা অক্ষুণ্ণ থেকে যেতে পারে।

সোট্রোভিমাব অবশ্য ওমিক্রন ধরনের বিরুদ্ধে কাজ করে বলে মনে করা হচ্ছে কারণ এই ওষুধের উদ্ভাবনকারী কোম্পানি গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইন ধরনটির অনুরূপ ভাইরাসের উপর পরীক্ষা চালিয়ে এর কার্যকারিতা খুঁজে পেয়েছে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬৪: ওমিক্রন মোকাবিলায় ওষুধ কি কার্যকর হবে? (১) শিরার মধ্য দিয়ে প্রয়োগের ওষুধ বা ইন্ট্রাভেনাস ড্রিপ এবং বড়ির মধ্যে পার্থক্য কী?

উত্তর-৩৬৪: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনে সংক্রমিত হওয়ার নিশ্চিত খবর এখন পৃথিবীর বহু দেশ থেকেই পাওয়া যাচ্ছে। এই নতুন ধরনটির বিরুদ্ধে ওষুধ কি কার্যকর হবে? ওমিক্রনে সংক্রমিত রোগীর চিকিৎসায় ওষুধের কার্যকারিতা সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের কাছে জানতে চেয়েছিলাম আমরা। এইসব ওষুধের মধ্যে বর্তমানে ব্যবহৃত ওষুধ এবং উন্নয়নাধীন ওষুধ, দুইই অন্তর্ভুক্ত। এ নিয়ে আমাদের নতুন ধারাবাহিকের প্রথম পর্বটি উপস্থাপন করছি।

করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তির চিকিৎসায় তিন রকম ওষুধ ব্যবহার করা হয়। ভাইরাসকে মানুষের শরীরের কোষের মধ্যে প্রবেশে বাধা দেওয়ার একটা ওষুধ। দ্বিতীয় ওষুধটি হচ্ছে কোষের মধ্যে প্রবেশ করা ভাইরাসের বিস্তার লাভে বাধা দেওয়ার জন্য, আর তৃতীয় ওষুধটির কাজ হল প্রতিরূপ ভাইরাসকে শনাক্ত করার অত্যধিক তৎপরতা নিয়ন্ত্রণ।

আইচি মেডিকেল ইউনিভার্সিটির মোরিশিমা ৎসুনেও হচ্ছেন করোনাভাইরাস চিকিৎসার একজন বিশেষজ্ঞ। তিনি বলেন, ভাইরাসের বহির্ভাগে “স্পাইক প্রোটিন”কে লক্ষ্যবস্তু করে শিরার মধ্যে দিয়ে প্রয়োগ করা ওষুধ বা ইন্ট্রাভেনাস ড্রিপের কার্যকারিতা স্পাইকের প্রলম্বিত অংশের অবস্থানের ওপর নির্ভর করে বদলাতে পারে। তবে হাল্কা উপসর্গের রোগীদের জন্যে যে বড়ি, যার কাজ হল ভাইরাসের সংখ্যাবৃদ্ধি রোধ করা, এই বড়ির কার্যকারিতা বেশি হবে বলে তিনি মনে করেন। এ সম্পর্কে আমরা আরও জানবো ধারাবাহিকের পরবর্তী পর্বগুলিতে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬৩: টিকার বুস্টার ডোজ দেয়া শুরু করেছে জাপান (৩) পৌরসভাগুলো কী প্রস্তুত রয়েছে?

উত্তর-৩৬৩: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ডিসেম্বর মাসের ১ তারিখে সারা জাপান জুড়ে স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের টিকা দেওয়ার মধ্যে দিয়ে করোনাভাইরাস টিকার তৃতীয় ডোজ দেওয়া জাপান শুরু করেছে। ধারাবাহিক এই আয়োজনের মধ্যে দিয়ে আমরা টিকার তৃতীয় ডোজের বিতরণ নিয়ে তথ্য প্রদান করছি। এবারে আমরা বুস্টার ডোজ দেয়ার জন্য পৌরসভাগুলো কী ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে তার উপর আলোকপাত করবো।


বাসিন্দাদের তৃতীয় ডোজ দেয়ার দায়িত্ব পড়েছে দেশ জুড়ে বড় ও ছোট আকারের শহর এবং গ্রামগুলোর উপর। অনেক মানুষকে টিকার প্রথম ডোজের বুকিং নেয়ার সময় সমস্যার মুখে পড়তে হয়েছিল কেননা ফোন লাইনগুলো খুব ব্যস্ত ছিল এবং ইন্টারনেটেও অনেকে একসাথে ওয়েবসাইটে প্রবেশের চেষ্টা করলে তা অকার্যকর হয়ে পড়েছিল।

টিকার তৃতীয় ডোজ দেয়ার সময় এই সমস্যা কিভাবে মোকাবিলার পরিকল্পনা করছে তারা সে বিষয়ে নভেম্বর মাসের ২৬ তারিখ টোকিওর ২৩টি ওয়ার্ডকে প্রশ্ন করেছিল এনএইচকে। জবাবে এদের মধ্যে ১৯টি ওয়ার্ড জানায় যে এই ধরনের বিভ্রান্তি রোধ করতে তারা পদক্ষেপ নিচ্ছে। বুস্টার ডোজের তারিখ, সময় এবং স্থান পূর্বনির্ধারিত থাকবে এবং এই তথ্য লোকজনের কাছে পাঠিয়ে দেয়া হবে বলে ছয়টি ওয়ার্ড জানিয়েছে। আটটি ওয়ার্ড জানায় যে বুকিংয়ের জন্য ফোন লাইনের সংখ্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি বিভিন্ন জায়গায় নির্দিষ্ট স্থানের ব্যবস্থা করা হবে যেখানে লোকজন সরাসরি গিয়ে বুকিংয়ের জন্য সহযোগিতা পেতে পারবেন।

টোকিওর এদোগাওয়া ওয়ার্ড পরিকল্পনা করছে যে বয়স্ক লোকজন যারা তাদের দ্বিতীয় ডোজ ওয়ার্ডের গণটিকাদান কেন্দ্রে নিয়েছিলেন, ঠিক আট মাস পর একই সময় এবং তারিখে তাদের তৃতীয় ডোজটিও সেখানেই পাবেন। ঐ একই কেন্দ্রে বা তার কাছাকাছি স্থানে তাদেরকে বুস্টার ডোজ দেয়া হবে।
যারা তারিখ বা স্থান পরিবর্তন করতে আগ্রহী তারা টেলিফোন বা ওয়ার্ডের নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তা করতে পারবেন। ওয়ার্ডের কর্মকর্তারা বলছেন যে প্রবীণদের জড়িত করে এই প্রচেষ্টা যদি সফল হয় তবে অন্যান্য বয়সের জন্যেও তারা অনুরূপ পদক্ষেপ চালু করার বিষয়টি বিবেচনা করে দেখছেন।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬২: টিকার বুস্টার ডোজ দেয়া শুরু করেছে জাপান (২) বুস্টার ডোজের জন্য ভিন্ন ধরনের টিকার ব্যবহার সম্ভব।

উত্তর-৩৬২: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ডিসেম্বর মাসের ১ তারিখে সারা জাপান জুড়ে স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের টিকা দেওয়ার মধ্যে দিয়ে করোনাভাইরাস টিকার তৃতীয় ডোজ দেওয়া জাপান শুরু করেছে। ধারাবাহিক এই আয়োজনের মধ্যে দিয়ে আমরা টিকার তৃতীয় ডোজের বিতরণ নিয়ে তথ্য প্রদান করছি। এবারে আমরা শুরুতে নেয়া মূল টিকার চাইতে ভিন্ন ধরনের টিকার ব্যবহারের উপর আলোকপাত করবো।

আগের দুটি ডোজের চাইতে ভিন্ন ধরনের টিকা ব্যবহারের অনুমতি প্রদানের সিদ্ধান্ত সরকার গ্রহণ করেছে। ফাইজারের দুটি টিকা যারা নিয়েছেন, তাদের সকলের জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক ফাইজার টিকা দ্রুত পাওয়া যাবে কি না তা নিয়ে নিশ্চিত হতে না পারায় কর্মকর্তারা এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে ডিসেম্বর ও জানুয়ারি মাসে যারা তৃতীয় ডোজের জন্য বৈধ বিবেচিত হবেন, সেরকম প্রায় ৪০ লক্ষ মানুষের জন্য ফাইজার টিকা ইতিমধ্যে সংগ্রহ করা হয়েছে। তবে ফেব্রুয়ারি এবং মার্চ মাসে আরও যে প্রায় ৩ কোটি ৪০ লক্ষ মানুষ টিকা নেয়ার জন্য বৈধ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবেন, তাদের বেলায় সরকার সম্ভবত মাত্র ২ কোটির জন্য ফাইজার টিকা প্রস্তুত রাখতে সক্ষম হবে।

সেরকম অবস্থায় মন্ত্রণালয় নিরাপত্তা এবং কার্যকারিতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেলে তৃতীয় ডোজের জন্য মডার্না টিকা ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে। মন্ত্রণালয় বলছে টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার আট মাস পর তৃতীয় ডোজ যারা নিতে চাইছেন, তাদের সকলের জন্য ফাইজারের টিকা পাওয়া যাবে কি না সে সম্পর্কে মন্ত্রণালয় এখনও নিশ্চিত নয়। মন্ত্রণালয় বলছে সেরকম অবস্থায় মডার্না টিকার ব্যবহার বিবেচনা করে দেখা উচিত হবে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৮ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬১: টিকার বুস্টার ডোজ দেয়া শুরু করেছে জাপান (১) কখন আমরা আমাদের ডোজ নিতে পারবো?

উত্তর-৩৬১: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। ডিসেম্বর মাসের ১ তারিখে সারা জাপান জুড়ে স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের টিকা দেওয়ার মধ্যে দিয়ে করোনাভাইরাস টিকার তৃতীয় ডোজ দেওয়া জাপান শুরু করেছে। ৬৫ বছর এবং তদূর্ধ্ব বয়সী লোকদের ২০২২ সালের জানুয়ারি মাস থেকে তৃতীয় ডোজ টিকা দেয়া শুরু হবে। আমাদের নতুন এই ধারাবাহিকে আমরা টিকার তৃতীয় ডোজের বিতরণ নিয়ে তথ্য প্রদান করছি।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় প্রাথমিকভাবে জানায়, নীতিগতভাবে, লোকজন যারা ন্যূনতম ৮ মাস আগে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন তারা তৃতীয় ডোজ টিকা নেয়ার যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। তবে, সরকার সম্প্রতি ইঙ্গিত দেয়, তাদের লক্ষ্য হচ্ছে দ্বিতীয় ও তৃতীয় ডোজ টিকার মধ্যে সময়ের ব্যবধান কমিয়ে আনা। প্রতিটি গ্রুপের লোকজনের জন্য তৃতীয় ডোজ টিকা দেয়ার সময়ের বিষয়টি পৌরসভাগুলো তাদেরকে টিকা দেয়ার জন্য প্রস্তুত কিনা এবং কতগুলো টিকা আছে তার উপর ভিত্তি করে নেয়া হবে।
তৃতীয় ডোজ টিকার জন্য পৌরসভাগুলো থেকে লোকজনের কাছে টিকার কুপন পৌঁছে দেয়া হবে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আগে জানায় যে, ডিসেম্বরে ১০ লক্ষ ৪০ হাজার স্বাস্থ্যসেবা কর্মী তাদের তৃতীয় ডোজ টিকা নেয়ার যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। জানুয়ারি মাস থেকে, ৬৫ বছর এবং তদূর্ধ্ব বয়সী লোকজন যারা তাদের প্রথম দুই ডোজ টিকা আগেই নিয়েছেন তারা তৃতীয় ডোজ টিকা নিতে পারবেন।
মার্চ মাসে, কাজের স্থানে এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে তৃতীয় ডোজ টিকা দেয়া শুরু হবে।

মন্ত্রণালয় জানিয়েছে যে, তৃতীয় ডোজ টিকা দেয়া কমপক্ষে ২০২২ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৭ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৬০: হোক্কাইদোতে করোনা পরিস্থিতির উপর নজর রাখা দরকার (৪) মৌলিক ভাইরাস-রোধী পদক্ষেপ নেয়াই হচ্ছে মূল চাবিকাঠি: বিশেষজ্ঞ।

উত্তর-৩৬০: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে নতুন সংক্রমণ এখন বছরের সর্বনিম্ন পর্যায়ে রয়েছে। তবে, তাপমাত্রা কম থাকাকালীন সারা দেশের অন্যান্য এলাকার চাইতে সর্বোত্তরের জেলা হোক্কাইদোতেই সাধারণত সবার আগে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে দেখা যায়। বিশেষজ্ঞদের ভাষ্যানুযায়ী, উত্তরের এই জেলাটির প্রবণতার উপর আমাদের ঘনিষ্ঠ নজর রাখা উচিত। এবারে সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ে আমাদের ধারাবাহিক অনুষ্ঠানের সর্বশেষ পর্ব উপস্থাপন করব।

সরকারের বৈশ্বিক মহামারি বিষয়ক বিশেষজ্ঞ প্যানেলের একজন সদস্য এবং তোহো বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তাতেদা কাযুহিরো বলছেন, ২০২০ সালে জাপানের মধ্যে হোক্কাইদো ছিল প্রথম জেলাগুলোর একটি, যেখানে নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রবণতা পরিলক্ষিত হয়েছিল।

তিনি বলেন, আবহাওয়া শীতল হলে লোকজনের থেকে নির্গত ভাইরাস বাতাসে অপেক্ষাকৃত বেশি সময় ধরে ভাসমান অবস্থায় থাকে। তিনি আরও বলেন, শুষ্ক আবহাওয়ায় শ্বাসনালীর ঝিল্লি আরও সহজে আঘাত প্রাপ্ত হয়, যা ভাইরাসজনিত সংক্রমণের সম্ভাবনা বৃদ্ধি করে। তার উপর, তাতেদা এটিও বলছেন যে শীতকালে লোকজন তুলনামূলকভাবে বেশি সময় ধরে আবদ্ধ স্থানে থাকার প্রবণতা দেখায়। তার ভাষ্যানুযায়ী, এটি সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

তাতেদা বলছেন, নতুন করোনাভাইরাস এখনও সর্বত্র বিদ্যমান এবং যখন আমরা সবচেয়ে কম প্রত্যাশা করি, তখনই এগুলো বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়ে ছড়িয়ে পড়তে পারে। তিনি বলেন, শীতকাল হচ্ছে সংক্রমণ বিস্তারের সবেচেয়ে উপযোগী মৌসুম এবং আমাদের সংক্রমণ-রোধী মৌলিক পদক্ষেপগুলো পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে বাস্তবায়নের প্রয়োজন রয়েছে। যেমন, মাস্ক পরিধান করা, কক্ষগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা করা এবং “থ্রি সি” নামক পরিস্থিতি এড়ানো অর্থাৎ একইসাথে বদ্ধ স্থান, জনাকীর্ণ এলাকা এবং ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শের পরিস্থিতি এড়িয়ে যাওয়া।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫৯: হোক্কাইদোতে করোনা পরিস্থিতির উপর নজর রাখা দরকার (৩) জেলা ভিত্তিক টাস্ক ফোর্স বলছে নতুন করে ব্যাপক সংক্রমণের লক্ষণ দেখতে পাওয়া যাচ্ছে না।

উত্তর-৩৫৯: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে এখন নতুন সংক্রমণের সংখ্যা বছরের ন্যূনতম মাত্রায় রয়েছে। তবে তাপমাত্রা যখন কম থাকে তখন দেশের অন্য জায়গার তুলনায় সর্বোত্তরের জেলা হোক্কাইদোতে আগে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার প্রবণতা দেখা যায়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন সর্বোত্তরের এই জেলাটির সংক্রমণ পরিস্থিতির ওপর ঘনিষ্ঠ নজর রাখা দরকার। হোক্কাইদোর করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে আমাদের ধারাবাহিকের তৃতীয় পর্বটি এবারে উপস্থাপন করছি।

হোক্কাইদোর করোনাভাইরাস টাস্কফোর্স বলছে, সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ার কারণ হল গুচ্ছ সংক্রমণ। টাস্কফোর্স জানায়, সংক্রমণ যে সম্প্রদায়ের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে তা নয়, এবং সংক্রমণ খুব তাড়াতাড়ি বিস্তার লাভ করবে এমন কোনো লক্ষণ এখন পর্যন্ত নেই।

টাস্কফোর্স একথাও জানায় যে নতুন সংক্রমণের অধিকাংশ ঘটনাই ঘটেছে এমন লোকজনের মধ্যে যারা টিকা নেননি।

স্বয়ং রোগী এবং এই রোগীদের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদ করে হোক্কাইদোর জনস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোর কর্মকর্তারা গুচ্ছ সংক্রমণ রোধের পদক্ষেপ নিচ্ছেন। সংক্রমিত লোকের সংখ্যাবৃদ্ধি রোধ করার জন্য তারা চেষ্টা করছেন সংক্রমণের পথ খুঁজে বের করতে এবং লোকজনকে সংক্রমণ বিরোধী প্রাথমিক নিয়মগুলো মেনে চলতে আহ্বান জানাচ্ছেন।

টাস্কফোর্স বলে নতুন কেসের সংখ্যা যদি বাড়তে থাকে, তাতে সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ আরম্ভ হয়ে যেতে পারে। তাই তারা পরিস্থিতির ওপর ঘনিষ্ঠ নজরদারী অব্যাহত রাখবেন।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ৩ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫৮: হোক্কাইদোতে করোনা পরিস্থিতির উপর নজর রাখা দরকার (২) বাতাস চলাচল নিশ্চিত করা এবং বন্ধ স্থান, মানুষের ভিড় ও ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শ এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ।

উত্তর-৩৫৮: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে নতুন সংক্রমণ বর্তমানে বছরের সর্বনিম্ন পর্যায়ে বজায় থাকলেও তাপমাত্রা নিম্নে বিরাজমান থাকা অবস্থায় সারা দেশের অন্যান্য এলাকার চাইতে আগে হোক্কাইদোতে করোনাভাইরাস সাধারণত ছড়িয়ে পড়ে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন দেশে ষষ্ঠবারের মত সংক্রমণ শুরু হওয়ার সঙ্কেত এটা দিতে পারে বলে উত্তরের জেলার পরিস্থিতির উপর আমাদের ঘনিষ্ঠ নজর রাখা উচিত হবে। এবারে এই বিষয়টি নিয়ে আমাদের ধারাবাহিক অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্ব উপস্থাপন করব।

বন্ধ স্থানে যেখানে বাতাস চলাচল নেই এমন জায়গায় যে অনেক সহজেই করোনাভাইরাস বিস্তার লাভ করে সে বিষয়টি আমাদের সবার জানা। শীতকালে তাপমাত্রা নিম্ন থাকায় এবং বাতাস চলাচলের সুযোগ কম থাকায় সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক বেশি হতে পারে বলে লক্ষ্য করা গেছে।

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে সাপ্পোরো তুষার উৎসবের সময় অভ্যন্তরীণ এক বিশ্রাম এলাকায় সময় কাটানোর পরেই লোকজন সংক্রমিত হয়েছে দেখে প্রথমবারের মত বোঝা গিয়েছিল যে বন্ধ ঘরে করোনাভাইরাস অনেক বেশি সংক্রামক। অনুরুপ আরও কয়েকটি ঘটনা দেখেও এই উপসংহারে পৌঁছানো যায়। বিশেষজ্ঞরা বিশ্লেষণ করে দেখেন যে বন্ধ স্থানে ভাইরাস ধারণকারী ছোট ফোঁটা কিছু সময়ের জন্য বাতাসে ঘুরে বেড়ায় এবং শ্বাস নেয়ার সময় লোকজন এতে সংক্রমিত হতে পারেন। এই ফলাফলের উপর ভিত্তি করে লোকজনকে হাত ধোয়া, জীবাণুনাশকের ব্যবহার এবং মাস্ক ছাড়া কথা না বলার পরামর্শ দেয়া হয়। লোকজনকে বন্ধ স্থান, মানুষের ভিড় এবং ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শ, যাকে জাপান সরকার ‘থ্রি সি’ বলে অভিহিত করছে তা এড়িয়ে যেতে বলা হয়। বাতাস চলাচল ব্যবস্থা ভালো হলে তা সংক্রমণের ঝুঁকি কমিয়ে আনে বলেও জানা যায়।

তবে শীতকালে তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় লোকজন আরও বেশি ঘরের ভিতরে সময় কাটাতে পছন্দ করেন, যার ফলে বর্ষশেষ এবং নববর্ষের ছুটিতে একে অন্যের সংস্পর্শে আসার সুযোগ অনেক বেশি থাকে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষজ্ঞদের প্যানেল বলছে যে সংক্রমণের ঝুঁকি বৃদ্ধি পেতে পারে। বাতাস চলাচলের মত মৌলিক সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপগুলো পুরোপুরি মেনে চলার জন্য তারা লোকজনের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫৭: হোক্কাইদোতে করোনা পরিস্থিতির উপর নজর রাখা দরকার (১) ষষ্ঠ তরঙ্গের বেলায় অগ্রবর্তী ভূমিকা হোক্কাইদো পালন করতে পারে।

উত্তর-৩৫৭: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। জাপানে নতুন সংক্রমণ বর্তমানে বছরের সর্বনিম্ন পর্যায়ে বজায় থাকলেও দেশের সবচেয়ে উত্তরের জেলা হোক্কাইদোতে নভেম্বর মাসে দৈনিক গণনা সাময়িকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছিল। তাপমাত্রা নিম্নে বিরাজমান থাকা অবস্থায় সারা দেশের অন্যান্য এলাকার চাইতে আগে হোক্কাইদোতে করোনাভাইরাস সাধারণত ছড়িয়ে পড়ে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন দেশে ষষ্ঠবারের মত সংক্রমণ শুরু হওয়ার সঙ্কেত এটা দিতে পারে বলে উত্তরের জেলার পরিস্থিতির উপর আমাদের ঘনিষ্ঠ নজর রাখা উচিত হবে।

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দিকে জাপানে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার অভিজ্ঞতা হওয়া প্রথম জায়গাটি ছিল হোক্কাইদো। এরপর মার্চ মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে টোকিওতে সংক্রমণের নতুন ঘটনা বৃদ্ধি পেতে থাকে।

এছাড়া ২০২০ সালের শীতকালে সংক্রমণের তৃতীয় তরঙ্গ আঘাত হানার সময় চোখে পড়ার মত একটি প্রবণতা দেখা গিয়েছিল, যেটা হচ্ছে: টোকিও সহ দেশের অন্যান্য এলাকায় সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার দু’সপ্তাহ আগে হোক্কাইদোতে করোনাভাইরাস বিস্তৃত হয়। গত বছর অক্টোবর মাসের শেষ দিকে নতুন সংক্রমণের সাপ্তাহিক হিসাবের গড় সেখানে এক সপ্তাহ আগের তুলনায় বৃদ্ধি পেতে দেখা যায়। প্রায় এক মাস পর প্রবণতা অবশ্যম্ভাবী হয়ে উঠার আগে মধ্য নভেম্বরে টোকিওতে সংক্রমণের সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছিল।

মধ্য নভেম্বরের আগে পর্যন্ত সারা দেশ জুড়ে গড় সংখ্যা পরিষ্কারভাবেই বৃদ্ধি পায় নি। নভেম্বর মাসের শুরুতে দৈনিক সংক্রমণ এক হাজারের নিচে বজায় থাকলেও নভেম্বরের শেষ দিকে সংখ্যা দুই হাজার ছুঁয়ে যায়, এবং ডিসেম্বরের শেষে চার হাজারে পৌঁছে যায়। ২০২১ সালের ৮ জানুয়ারি সংখ্যা আট হাজারের কাছাকাছি পর্যন্ত বৃদ্ধি পায়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন করোনাভাইরাস মনে হয় আংশিকভাবে টিকাদান প্রক্রিয়ায় অগ্রগতির কারণে চলতি বছরের শীতকালে কোন এক মাত্রায় নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে। তবে তারা সতর্ক করে দিয়ে বলছেন যে বন্ধ কোন জায়গার ভিতরে দীর্ঘ সময় ধরে অবস্থান করা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। তারা বলছেন সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গের সম্ভাব্য চিহ্ন খুঁজে পেতে হলে আমাদের উচিত হবে হোক্কাইদোর করোনাভাইরাস পরিস্থিতির উপর ঘনিষ্ঠ নজর রেখে যাওয়া।

এই তথ্যগুলো ডিসেম্বর মাসের ১ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫৬: সংক্রমণের পরবর্তী তরঙ্গ কখন জাপানে আঘাত হানতে পারে সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মতামত (৯) চলতি শীতে অন্য একটি বৃদ্ধির তরঙ্গ কীভাবে রোধ করা যাবে?

উত্তর-৩৫৬: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এবারে আমরা সাক্ষাৎকার ভিত্তিক চলমান ধারাবাহিকের নবম পর্ব উপস্থাপন করছি। এতে সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ আদৌ আঘাত হানবে কি না, কিংবা কখন তা আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে, সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের কাছে আমরা জানতে চেয়েছি।

সাক্ষাৎকারে সব বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে দিয়েছেন যে, সংক্রমণের একটি ষষ্ঠ তরঙ্গ সম্ভবত চলতি শীতে আমাদের উপর আঘাত হানতে যাচ্ছে। অনেকেই বলেন, যদি এবং কখন একটি বৃদ্ধি ঘটবে এর পূর্বাভাসের একটি প্রধান নিয়ামক হবে লোকের সাথে লোকের সংস্পর্শ বেড়ে যাওয়া।

করোনাভাইরাসের পদক্ষেপ সংক্রান্ত একটি উপদেষ্টা প্যানেলের প্রধান, ওমি শিগেরু এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে সংযুক্ত বিশেষজ্ঞদের একটি প্যানেলের চেয়ারম্যান, ওয়াকিতা তাকাজি উভয়ই বছর শেষ এবং নববর্ষের ছুটির সময়ে সতর্কতা অবলম্বনের কথা বলছেন যখন সামাজিক কর্মকাণ্ডের বৃদ্ধি পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তারা প্রত্যেককে অব্যাহতভাবে মাস্ক পরিধান করার মতো মৌলিক সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপ গ্রহণ এবং বদ্ধ, ভিড়পূর্ণ ও ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শ সৃষ্টি করা পরিস্থিতি দূর করার অনুরোধ জানাচ্ছেন।

আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য ও কল্যাণ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ওয়াদা কোজি বলেন, অন্য একটি বৃদ্ধি যে ঘটবে তারা পূর্বাভাস করা সহজ নয়, কেননা বিভিন্ন বিষয় একটি জটিল উপায়ে পারস্পরিকভাবে সক্রিয় থাকে। তবে, ওয়াদা বলেন, টিকা এবং নতুন করোনাভাইরাসের চিকিৎসার উন্নয়ন হচ্ছে বিভিন্ন বিষয় যা আমাদের আশার আলো দেখাচ্ছে।

চলতি শীতে অন্য একটি বৃদ্ধি রোধে সংক্রমণের পঞ্চম তরঙ্গ পর্যন্ত নিজস্ব অভিজ্ঞতার উপর ভিত্তি করে নিজেদের গড়ে নেয়া এবং বিভিন্ন সংক্রমণ রোধী পদক্ষেপ বাস্তবায়ন অব্যাহত রাখাই সবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ৩০ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫৫: সংক্রমণের পরবর্তী তরঙ্গ কখন জাপানে আঘাত হানতে পারে সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মতামত (৮) “মিনি টোকিও” সিমুলেশন-পর্ব ২: চিবা আসাকো, টোকিও ফাউন্ডেশন ফর পলিসি রিসার্চ।

উত্তর-৩৫৫: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এবারে আমরা সাক্ষাৎকার ভিত্তিক চলমান ধারাবাহিকের অষ্টম পর্ব উপস্থাপন করছি। এতে সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ আদৌ আঘাত হানবে কি না, কিংবা কখন তা আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে, সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের কাছে আমরা জানতে চেয়েছি। এই পর্বেও আমরা টোকিও ফাউন্ডেশন ফর পলিসি রিসার্চের পোস্টডক্টরাল গবেষক চিবা আসাকোর সঙ্গে কথা বলব।

চিবার ভাষ্যানুযায়ী, সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ সম্ভবত তখনই আঘাত হানবে যখন টিকাদানের প্রভাব কমে যাওয়া আর ঘরের বাইরে বের হওয়া মানুষের সংখ্যা বৃদ্ধি একসাথে ঘটবে। তার কাছে আমাদের প্রশ্ন ছিল, পরবর্তী তরঙ্গ মোকাবিলায় আমরা কী করতে পারি।

চিবা বলেছেন, এক্ষেত্রে মূল চাবিকাঠি হচ্ছে সরকার অভিহিত “টিকা এবং পিসিআর প্যাকেজ”এর সর্বোত্তম ব্যবহার করা।
সরকার সামাজিক বিধিনিষেধ শিথিলকরণের সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে, করোনাভাইরাসের টিকাদানের রেকর্ড এবং ভাইরাস পরীক্ষার নেতিবাচক ফলাফলের প্রমাণকে সম্মিলিতভাবে ব্যবহারের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। চিবা টোকিওর ক্ষুদ্র সংস্করণ ভিত্তিক তার “মিনি টোকিও” মডেলে এসংশ্লিষ্ট একটি সিমুলেশন পরিচালনা করেছেন। তিনি এটি বের করেছেন যে এমনকি বাড়ির বাইরে বেরুনো টিকাপ্রাপ্ত বা পরীক্ষায় নেতিবাচক ফল আসা ব্যক্তির সংখ্যা প্রাক-মহামারি স্তরে ফিরে গেলেও, নতুন সংক্রমণের সংখ্যা সম্ভবত হ্রাস পেতে থাকবে। তবে এটি শুধুমাত্র তখনই সম্ভব হবে যখন টিকা না নেয়া এবং ভাইরাস পরীক্ষা না করা বাইরে বেরুনো লোকের মোট সংখ্যা, প্রাক-মহামারি স্তরের অর্ধেকে রাখা যাবে।

চিবার ভাষ্যানুযায়ী, মানুষের চলাচলকে অভিন্নভাবে হ্রাসের মাধ্যমে সংক্রমণ কার্যকরভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব। তিনি এও বলেন যে তবে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড এবং সংক্রমণ-রোধী পদক্ষেপের ভারসাম্যের বিষয়টি বিবেচনায় নিলে, এক্ষেত্রে একটি কার্যকর উপায় হল, এখনও টিকা গ্রহণ না করা ব্যক্তির মত সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকি থাকা লোকজনের চলাচলকে নিয়ন্ত্রণ করা। তার মতে, কীভাবে “টিকা এবং ভাইরাস পরীক্ষা প্যাকেজ” কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন করা যায়, এটি নিয়ে সরকারের আরও আলোচনা করা উচিত।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫৪: সংক্রমণের পরবর্তী তরঙ্গ কখন জাপানে আঘাত হানতে পারে সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মতামত (৭) “মিনি টোকিও” সিমুলেশন: চিবা আসাকো, টোকিও ফাউন্ডেশন ফর পলিসি রিসার্চ।

উত্তর-৩৫৪: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এবারে আমরা সাক্ষাৎকারভিত্তিক ধারাবাহিকের সপ্তম পর্ব উপস্থাপন করছি, সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ আদৌ আঘাত হানবে কি না ও কখন তা আঘাত হানতে পারে এবং এর প্রতিক্রিয়া কী হতে পারে - সেই প্রশ্ন যেখানে আমরা বিশেষজ্ঞদের কাছে রেখেছিলাম। এবারে আমরা টোকিও ফাউন্ডেশন ফর পলিসি রিসার্চের পোস্টডক্টরাল গবেষক চিবা আসাকো’র মতামত জানবো।

চিবা এই শীতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সংখ্যার সম্ভাব্য বৃদ্ধি নিয়ে চিন্তিত। তিনি মনে করেন, টিকার কার্যকারিতা ক্রমশ কমে আসার পাশাপাশি মানুষের প্রবাহ বৃদ্ধি, এই দ্বিমুখী কারণে ষষ্ঠ তরঙ্গ আঘাত হানবে। এই তরঙ্গকে যতটা সম্ভব ছোট রাখা যায় কীভাবে? এই উত্তরটাই খোঁজার চেষ্টা করছেন চিবা কাল্পনিক ‘মিনি টোকিও’র মডেলের ওপর অনুমান ভিত্তিক দৃশ্যপট বিশ্লেষণ করে, অর্থাৎ সিমুলেশন করে। ৭০ হাজার লোকের চেয়ে সামান্য বেশি জনসংখ্যার এই কাল্পনিক শহরে সংক্রমণ কীভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে, চিবা তা বোঝার চেষ্টা করেছেন সিমুলেশনের মাধ্যমে। আদমশুমারি ও অন্যান্য উপাত্ত অনুযায়ী এই কাল্পনিক শহরটি হচ্ছে টোকিও’র একটি ক্ষুদ্র সংস্করণ। এই শহরে বসবাসকারীদের বয়স কাঠামো, পেশা, পারিবারিক কাঠামো - এই সবই জাপানের আসল রাজধানীর অনুরূপ।

চিবা তার সিমুলেশনে ২০২১ সালের অক্টোবর মাসে বা তার পরে করোনার নতুন সংক্রমণের দৈনিক সংখ্যা ৪’এ নির্ধারণ করেন, যে দৈনিক সংখ্যা আসল টোকিও’র বেলায় কমবেশি ৮০০’তে দাঁড়াবে। এইরকম পরিস্থিতিতে মানুষের প্রবাহ যদি প্রাক মহামারি মাত্রার চেয়ে ৩০ শতাংশ কম রাখা যায়, সেক্ষেত্রে হিসেব করে দেখা যাচ্ছে টিকার কার্যকারিতা যদি কমেও আসে, নতুন সংক্রমণের সংখ্যা বাড়বে না। তারপর টিকার তৃতীয় ডোজ বা বুস্টার ডোজ নেওয়া লোকের সংখ্যা যদি বাড়ে, তখন নতুন সংক্রমণের সংখ্যা কমতে শুরু করবে।

তবে লোকের প্রবাহ যদি প্রাক মহামারি মাত্রার চেয়ে কেবল ২০ শতাংশ কমে, সংক্রমণের নতুন সংখ্যা বাড়তে থাকবে, এমনকি যদি বহু লোক টিকার তৃতীয় ডোজ নেন, তবু। চিবা বলেন, সিমুলেশনে দেখা যাচ্ছে জনপ্রবাহে সামান্য বৃদ্ধিও সংক্রমণ পরিস্থিতিতে ব্যাপক পরিবর্তন ঘটাতে পারে। তিনি বলেন, সমাজের সামগ্রিক পরিবেশে যদি বর্ষ-বিদায়ের পার্টি আয়োজনের প্রবণতা থাকে, সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবে। তবে চিবা এও বলেন, অর্থনীতির কথা চিন্তা করলে জনপ্রবাহ অব্যাহতভাবে কম রাখা হয়তো কঠিন।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২৬ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫৩: সংক্রমণের পরবর্তী তরঙ্গ কখন জাপানে আঘাত হানতে পারে সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মতামত (৬) শহর ও গ্রাম অঞ্চলের মধ্যে বিরাজমান পার্থক্য নিয়ে বলছেন ওকিনাওয়ার চুবু হাসপাতালের তাকাইয়ামা ইয়োশিহিরো।

উত্তর-৩৫৩: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এবারে আমরা সাক্ষাৎকারভিত্তিক ধারাবাহিকের ষষ্ঠ পর্ব উপস্থাপন করছি, সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ আদৌ আঘাত হানবে কি না ও কখন তা আঘাত হানতে পারে এবং এর প্রতিক্রিয়া কী হতে পারে - সেই প্রশ্ন যেখানে আমরা বিশেষজ্ঞদের কাছে রেখেছিলাম। আমরা ওকিনাওয়ার চুবু হাসপাতালের তাকাইয়ামা ইয়োশিহিরোর বক্তব্য টানা দ্বিতীয় দিনের মতো শোনা অব্যাহত রাখব।

তাকাইয়ামা সতর্ক করে দিয়ে বলেন যে আসন্ন বর্ষশেষ ও নববর্ষের ছুটির সময় সংক্রমণ পুনরায় বৃদ্ধি পেতে পারে।

তিনি বলেন, সংক্রমণ প্রতিরোধ পদক্ষেপ আমরা যাই নি না কেন ছুটির মৌসুমে প্রাদেশিক এলাকাগুলোতে কিছুটা হলেও যে ভাইরাস বিস্তার লাভ করবে তা অবশ্যম্ভাবী। দীর্ঘ সময় দেখা না হওয়ার কারণে সন্তান এবং নাতি-নাতনিদের সাথে নববর্ষ কাটানোর জন্য প্রবীণ ব্যক্তিদের অনেকেই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে আছেন। বয়স্ক লোকজন এবং তাদের সন্তানসন্ততি, উভয়ের জন্যেই এটা নিশ্চিত করে নেয়াটা গুরুত্বপূর্ণ যে তারা টিকা নিয়েছেন এবং অন্যান্য প্রতিরোধ পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন যাতে করে কোন দুশ্চিন্তা ছাড়াই তারা একত্রে সময় কাটাতে পারেন।

সংক্রমণের সম্ভাব্য ষষ্ঠ তরঙ্গের জন্য প্রস্তুতি জোরদার করে তোলার গুরুত্বের উপর তাকাইয়ামা জোর দেন।

তিনি বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপে সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি দেখে আরও বিরাট আকারের এক তরঙ্গ আঘাত হানতে পারে বলে অনুমান করে আমাদের উচিত প্রস্তুতি জোরদার করে নেয়া। শীত শুরু হয়ে গেলে অন্যান্য রোগে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় হাসপাতালের শয্যা বৃদ্ধি করা বিশেষ করে পল্লী এলাকায় খুব একটা সহজ কাজ নয়। একারণে তিনি যুক্তি দেখান যে এমন ধরনের স্থাপনার সংখ্যা বৃদ্ধি করাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যেখানে বিশ্রাম নিয়ে রোগীরা হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন, তাতে করে তাদের হাসপাতালে থাকার সময় সংক্ষিপ্ত করা যেতে পারে। হাসপাতালে ভর্তি থাকার সময়ের দৈর্ঘ্য অর্ধেকে কমিয়ে আনা গেলে শয্যার সংখ্যা দ্বিগুণ করে তোলার মত একই রকম প্রভাব তাতে লক্ষ্য করা যাবে। সংক্রমণের নতুন তরঙ্গের সম্ভাবনা বিবেচনায় রেখে পুরোদমে প্রস্তুত কিনা তা নিশ্চিত করতে পরামর্শ করার জন্য স্থানীয় সরকার এবং হাসপাতালগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তাকাইয়ামা।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২৫ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫২: সংক্রমণের পরবর্তী তরঙ্গ কখন জাপানে আঘাত হানতে পারে সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মতামত (৫) শহর ও গ্রাম অঞ্চলের মধ্যে বিরাজমান পার্থক্য নিয়ে বলছেন ওকিনাওয়ার চুবু হাসপাতালের তাকাইয়ামা ইয়োশিহিরো।

উত্তর-৩৫২: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এবারে আমরা সাক্ষাৎকারভিত্তিক ধারাবাহিকের পঞ্চম পর্ব উপস্থাপন করছি, সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ আদৌ আঘাত হানবে কি না ও কখন তা আঘাত হানতে পারে এবং এর প্রতিক্রিয়া কী হতে পারে - সেই প্রশ্ন যেখানে আমরা বিশেষজ্ঞদের কাছে রেখেছিলাম। এবারে আমরা শুনবো ওকিনাওয়ার চুবু হাসপাতালের তাকাইয়ামা ইয়োশিহিরোর বক্তব্য। তিনি হলেন সংক্রামক রোগের একজন বিশেষজ্ঞ এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একটি করোনাভাইরাস বিশেষজ্ঞ প্যানেলে তিনি কাজ করছেন।

শহর ও পল্লী এলাকায় ভাইরাস কীভাবে ছড়িয়ে পড়ছে সেই পার্থক্যের উল্লেখ তাকাইয়ামা করেছেন। তার অভিমত হচ্ছে এরকম:

তিনি মনে করেন ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে শহর ও গ্রাম এলাকার ভিন্ন অবস্থান গ্রহণ করা উচিত। শহর এলাকায় এরকম কিছু হটস্পট রয়েছে, সংক্রমণ যেখানে প্রতিনিয়ত অব্যাহত আছে। সেরকম জায়গায় মানুষ একে অন্যের সাথে যোগাযোগ করতে শুরু করলে সংক্রমণের বিস্তার সেখানে অনেকটা ফিউজে আগুন ধরিয়ে দেয়ার মত করে দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। অন্যদিকে ওকিনাওয়া জেলা সহ দেশের অধিকাংশ পল্লী এলাকায় প্রধানত সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে থাকতে এবং কোনো কোনো অঞ্চলে সংক্রমণ একেবারেই অনুপস্থিত থাকতে দেখা গেছে। এসব এলাকার লোকজনের শহর অঞ্চল থেকে সংক্রমণ এসে পড়া নিয়ে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। মুখ্য বিষয়টি এখানে হচ্ছে বাইরে থেকে আসা ভ্রমণকারীদের জন্য “টিকা-পিসিআর পরীক্ষা প্যাকেজ” কার্যকর রাখা আছে কি না এবং সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে শুরু করলে জেলার সীমান্তের ভেতরে ভ্রমণ না করার অনুরোধ স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানাতে পারে কি না। মফস্বল এলাকার মানুষ সংক্রমণ নিয়ে অনেক বেশি চিন্তিত এবং সতর্কতা অবলম্বনের আহ্বান জানাতে তারা আগ্রহী। তবে শহরবাসীরা এদের সেই আহ্বানে সারা না দিলে অবশ্য করার কিছু নেই। সংক্রমণের সংখ্যা এখন তুলনামূলক নিচের দিকে বজায় থাকায় খুব কম লোকজনই এরকম বার্তা গুরুত্বের সাথে নিচ্ছেন। মানুষ যেন সতর্কতা বজায় রাখে, লোকজনকে সেটা মনে করিয়ে দেওয়া শহর এলাকার কর্তৃপক্ষের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

বলছিলেন ওকিনাওয়ার চুবু হাসপাতালের তাকাইয়ামা ইয়োশিহিরো।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫১: সংক্রমণের পরবর্তী তরঙ্গ কখন জাপানে আঘাত হানতে পারে সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মতামত (৪) স্বাস্থ্য ও কল্যাণ বিষয়ক আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ওয়াদা কোজি।

উত্তর-৩৫১: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এবারে আমাদের ধারাবাহিক সাক্ষাৎকারের চতুর্থ পর্ব আপনাদের জন্য উপস্থাপন করছি। এতে সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ আদৌ আঘাত হানবে কি না, কিংবা কখন তা আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে, সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের কাছে আমরা জানতে চেয়েছি। এই পর্বে আমরা স্বাস্থ্য ও কল্যাণ বিষয়ক আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ওয়াদা কোজির মতামত শুনব। তিনি সংক্রামক রোগের মত বিষয়ে একজন গণস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যুক্ত বিশেষজ্ঞ প্যানেলের একজন সদস্য।

ওয়াদা অন্যান্য বিশেষজ্ঞদের মতই সতর্ক করে দিয়ে বলেন যে বছরের শেষ এবং শুরুতে লোকজনের চলাচল যখন বেড়ে যায়, সেই সময়টিতে অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

তিনি উল্লেখ করেন যে লোকজনের চলাচলের সাথে ঠাণ্ডা এবং আর্দ্রতার মত মৌসুমি বিষয়গুলোর সংমিশ্রণে বছরান্তে এবং নতুন বছরে ভাইরাস সম্ভবত দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। কারণ নববর্ষ উদযাপনের জন্য লোকজন এসময় বেশ সক্রিয় হয়ে ওঠেন। এই পরিস্থিতি মৌসুমি ইনফ্লুয়েঞ্জার অনুরূপ এবং এসময় অবশ্যই বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।

ওয়াদা বলেন, এমনকি বিশেষজ্ঞরাও ভাইরাসের সম্ভাব্য একটি ষষ্ঠ তরঙ্গ নিয়ে আগাম অনুমান করাটা কঠিন বলে মনে করছেন। কারণ এটি টিকাদান কর্মসূচির অগ্রগতি, সামাজিক কার্যক্রমের উপর বিধিনিষেধ শিথিলকরণ এবং সময় কীভাবে টিকার কার্যকারিতার উপর ভূমিকা রাখবে, এরকম অনেকগুলো বিষয়ের উপর নির্ভর করছে। এর পাশাপাশি এসংশ্লিষ্ট অনেক কিছুই এখনও অজানা রয়ে গেছে।

তবে, ওয়াদা বিশ্বাস করেন যে টিকাদানের হার বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে এক্ষেত্রে, আগের তরঙ্গগুলোর মত লোকজনের গুরুতরভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ার ঝুঁকি হ্রাস পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি বলেন, বিদেশের ঘটনাগুলোর বিশ্লেষণের উপর ভিত্তি করে এটি সন্দেহাতীতভাবে বলা যায় যে, প্রধানত টিকা না নেয়া লোকজনের ভেতরেই ভাইরাসটি ছড়াবে এবং গুরুতর কোভিডের উপসর্গ দেখা দিবে। উল্লেখ্য, টোকিওতে ৪০’এর কোঠার বয়সীদের ক্ষেত্রে প্রতি পাঁচজনের মধ্যে একজন টিকা নেননি। তিনি বলেন, ব্যক্তি এবং অঞ্চলের নিরাপত্তার অনুভূতির জন্য টিকাদানের হার বাড়ানো জরুরি।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ২২ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৫০: সংক্রমণের পরবর্তী তরঙ্গ কখন জাপানে আঘাত হানতে পারে সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মতামত (৩) আর্টিফিশিয়াল ইন্টালিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে বিচার করে ভবিষ্যৎ সংক্রমণ সম্পর্কে পূর্বাভাস - নাগোইয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির অধ্যাপক হিরাতা আকিমাসা।

উত্তর-৩৫০: এনএইচকে নতুন করোনাভাইরাস সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে। এবারে আমাদের ধারাবাহিক সাক্ষাৎকারের তৃতীয় পর্ব আপনাদের সামনে উপস্থাপন করছি যেখানে সংক্রমণের ষষ্ঠ তরঙ্গ আদৌ আঘাত হানবে কি না, কিংবা কখন তা আঘাত হানবে, সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের কাছে আমরা জানতে চেয়েছি। এবারে আমরা জানবো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে ভবিষ্যৎ সংক্রমণের গতিপ্রকৃতি পূর্বাভাস করার কী প্রচেষ্টা চলছে।

নাগোইয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির অধ্যাপক হিরাতা আকিমাসা সিমুলেশন বা অনুমানের ভিত্তিতে তৈরি করা পরিবেশ বিচার করে টোকিও’র ভবিষ্যৎ সংক্রমণ পরিস্থিতি সম্পর্কে পূর্বাভাস করেছেন। এর জন্য তিনি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবস্থায় অতীতের সংক্রমণ সংক্রান্ত উপাত্ত ব্যবহার করেন। ব্যাপক হারে নানারকম উপাত্ত ব্যবহার করা হয়, যার মধ্যে সংক্রমিত লোকের সংখ্যা হ্রাস, তাপমাত্রা, আর্দ্রতা, লোকজনের প্রবাহ সংক্রান্ত অবস্থা, সেইসঙ্গে জরুরি অবস্থা ঘোষিত ছিল কি না ইত্যাদি বিষয়ে উপাত্ত অন্তর্ভুক্ত ছিল।

অনুমান এটাই যে লোকজনের প্রবাহ ক্রমশ আবার স্বাভাবিক হয়ে আসবে। দুই ডোজ টিকা নেয়া লোকজনের অনুপাত, অতিরিক্ত ডোজ টিকা বা বুস্টার ডোজ দেয়া কবে থেকে শুরু হতে পারে ইত্যাদি নানান পরিস্থিতি অনুমান করে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দিয়ে ২৭ রকমের সিমুলেশন করা হয়। সবকটি সিমুলেশনের ফলাফল বলছে জানুয়ারি মাসের গোড়ার দিকে ষষ্ঠ তরঙ্গ আঘাত হানতে পারে।

হিরাতা বলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার পূর্বাভাস হল, যতই রোখার চেষ্টা করা হোক না কেন জানুয়ারি মাসের গোড়ার দিকে ষষ্ঠ তরঙ্গ দৃষ্টিগোচর হবে। সংক্রমণ ঘটার পর শরীরে উপসর্গগুলো স্পষ্ট হয়ে ওঠার আগ পর্যন্ত সময়টুকু বিবেচনায় আনলে বলতে হয় ভাইরাসের বিস্তার নির্ভর করবে বড়দিন থেকে নববর্ষ পর্যন্ত ছুটির সময় লোকজনের এদিক ওদিক যাতায়াতের প্রবাহ এবং পরিবার ও আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে পুনর্মিলনের সংখ্যার ওপর।

একই সাথে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার পূর্বাভাসে এও দেখা যাচ্ছে যে বুস্টার ডোজ টিকা যদি দ্রুত দেয়া যায়, সংক্রমিত লোকের সংখ্যা কমে আসবে অপেক্ষাকৃত তাড়াতাড়ি। গুরুতর উপসর্গে ভোগা লোকজনের সংখ্যা বৃদ্ধিও রুখে দেয়া যাবে বলে পূর্বাভাসে বলা হচ্ছে।

হিরাতা বলেন, উচ্চমাত্রায় টিকার কার্যকারিতা বজায় রাখার জন্য সার্বিকভাবে সকলেরই তৃতীয় অর্থাৎ বুস্টার ডোজের টিকা নেয়া জরুরি। জাপানে টিকাকরণ বাস্তবায়িত হচ্ছে দ্রুত, যার আরেকটি অর্থ হল টিকা যে সুরক্ষা দেয় তার মেয়াদ দ্রুত ফুরিয়ে আসার আশংকা থেকে যাচ্ছে। তিনি বলেন, বুস্টার ডোজ দ্রুত আরম্ভ করা না হলে, জাপানের পক্ষে টিকার কার্যকারিতা বজায় রাখা কঠিন হয়ে উঠতে পারে।

এই তথ্যগুলো নভেম্বর মাসের ১৯ তারিখ পর্যন্ত নেয়া।

প্রশ্ন-৩৪৯: সংক্রমণের পরবর্তী তরঙ্গ কখন জাপানে আঘাত হানতে পারে সে সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের মতামত (২) ফুরুসে ইয়ুকি, মহামারি সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞ।