জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া যোগাযোগ বজায় রাখতে সম্মত

জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ইতিবাচক দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক পুনরুদ্ধারে দু’পক্ষের বিদেশ বিষয়ক কর্তৃপক্ষের মধ্যে যোগাযোগ বজায় রাখতে সম্মত হয়েছেন।

জাপানের এশীয় ও ওশেনীয় অঞ্চল বিষয়ক ব্যুরোর প্রধান ফুনাকোশি তাকেহিরো এবং দক্ষিণ কোরিয়ার এশীয় ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল বিষয়ক বিভাগের মহাপরিচালক ই সাং-রিওল গতকাল সোমবার দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সউলে বৈঠক করেন।

জাপানি পক্ষের ভাষ্যানুযায়ী, ফুনাকোশি স্বীকার করেন যে যুদ্ধকালীন কমফোর্ট উইমেন নামে পরিচিত নারীদের সাথে সম্পর্কিত সমস্যা’সহ অন্যান্য কিছু বিষয়ে ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গির কারণে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক টানাপোড়েনের মধ্যে রয়েছে।

যুদ্ধকালীন শ্রম সমস্যা নিয়ে ফুনাকোশি জাপানের এই দাবি পুনর্ব্যক্ত করেন যে জাপান দ্রুত মেনে নেয়ার মতো সমাধান যেন সউল উপস্থাপন করে।

এছাড়া, তাকেশিমা দ্বীপমালার সাথে সংশ্লিষ্ট ঘটনার সর্বশেষ অগ্রগতির বিষয়েও তিনি কথা বলেন। উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় পুলিশ এজেন্সির প্রধান ঐ দ্বীপমালা সফর করেন।

দক্ষিণ কোরিয়া ঐ দ্বীপমালা নিয়ন্ত্রণ করে। জাপান এগুলোর মালিকানা দাবি করে এবং বলে যে দক্ষিণ কোরিয়া অবৈধভাবে দ্বীপগুলো দখল করে রেখেছে।

ফুনাকোশি বিষয়টি নিয়ে জাপানের ধারাবাহিক অবস্থানের দৃষ্টিকোণ থেকে ঐ সফরকে সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য বলে উল্লেখ করেন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার কাছ থেকে যথাযথ প্রতিক্রিয়ার আহ্বান জানান।

দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভাষ্যানুযায়ী, ই এই বিষয়ের উপর জোর দিয়েছেন যে সউল কোনভাবেই এই বিষয়ে জাপানের দাবি গ্রহণ করতে পারে না।

ফুনাকোশি এবং ই অবশ্য এই মর্মে সম্মত হন যে ইতিবাচক সম্পর্ক পুনরুদ্ধারের লক্ষ্যে উভয় পক্ষের পররাষ্ট্র বিষয়ক কর্মকর্তারা যোগাযোগ বজায় রাখবেন।