শীতের মধ্যে বেলারুশে পরিযায়ী ব্যক্তিরা পরিত্যক্ত

বৃহস্পতিবার বেলারুশের কর্তৃপক্ষ পোল্যান্ডের সাথে দেশটির অভিন্ন সীমান্ত থেকে পরিযায়ী লোকজনকে সরিয়ে দিয়েছে। ভাগ্যের সন্ধানে পশ্চিমের দেশগুলোতে যাওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠা হাজার হাজার লোক অস্থায়ী শিবিরে সমবেত হয়েছিলেন।

এই ব্যক্তিরা এসেছেন মধ্যপ্রাচ্য থেকে। তারা সীমান্ত অতিক্রম করার চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু পোল্যান্ডের নিরাপত্তা বাহিনী তাদের বাধা দেয়। নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে পরিযায়ী ব্যক্তিরা ইট পাটকেল ও আবর্জনা নিক্ষেপ করেন। নিরাপত্তা বাহিনী জলকামান ব্যবহার করে তাদের হটিয়ে দেয়।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের নেতারা, তাদের ভাষায়, বেলারুশে নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে বলে অভিযোগ করে, দেশটির ওপর গত বছর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। তারা নির্বাচনে বিজয়ী প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার লুকাশেংকোর বিরুদ্ধে এই বলে অভিযোগ করেন যে লুকাশেংকো এই সীমান্ত সংকট তৈরি করছেন। নেতৃবর্গ বলেন ইইউ’তে পরিযায়ী লোকজনের ঢল নামানোর জন্য লুকাশেংকো তাদের এই অঞ্চলে আকর্ষণ করে নিয়ে এসেছেন।

গ্রুপ অফ সেভেন জোটের পররাষ্ট্র মন্ত্রীরা একটি বিবৃতি প্রকাশ করেন যেখানে বলা হয় লুকাশেংকোর প্রশাসন “নিয়ম বহির্ভূত অভিবাসন”এ মদদ দিয়েছে। তারা বলেন এ ধরনের কাজ হোল আন্তর্জাতিক আইন, মৌলিক স্বাধীনতা ও মানবাধিকারের প্রতি যে অশ্রদ্ধা তা থেকে পৃথিবীর মনোযোগ সরিয়ে দেওয়ার একটি চেষ্টা।