যৌথ সংবাদ সম্মেলন এড়িয়ে গেল জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া

জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়া উত্তর কোরিয়ার পরমাণু ও ক্ষেপণাস্ত্র উন্নয়ন সহ বৈশ্বিক বিষয়াবলী নিয়ে একসাথে কাজ করা নিশ্চিত করে নিয়েছে। তবে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে বিরাজমান ভূখণ্ডগত বিরোধের কারণে পরিকল্পিত একটি যৌথ সংবাদ সম্মেলন বাতিল করে দেয়া হয়।

জাপানের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোরি তাকেও, যুক্তরাষ্ট্রের উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়েন্ডি শেরম্যান এবং দক্ষিণ কোরিয়ার প্রথম উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী চোই জং-কুন বুধবার ওয়াশিংটনে বৈঠকে মিলিত হন।

ত্রি-পক্ষীয় বৈঠকের পর শেরম্যান সাংবাদিকদের বলেছেন যে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে “দ্বিপাক্ষিক কিছু পার্থক্য” রয়েছে।

দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় পুলিশ বাহিনীর প্রধান কিম চং-ইয়ং মঙ্গলবার জাপানের শিমানে জেলার তাকেশিমা দ্বীপমালায় অবতরণ করেন।

দক্ষিণ কোরিয়া এই দ্বীপমালা নিয়ন্ত্রণ করে। জাপান তাদের মালিকানা দাবি করে। দ্বীপগুলো যে জাপানি ভূখণ্ডের অবিচ্ছেদ্য অংশ, জাপান সরকার সেই অবস্থান বজায় রেখেছে। সরকার বলছে দক্ষিণ কোরিয়া অবৈধভাবে দ্বীপগুলো দখল করে রেখেছে।

জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্রসমূহ বলছে, উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর যৌথ একটি সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেয়া যথাযথ বিবেচিত হত না।

সূত্রসমূহ উল্লেখ করে যে মোরি ভিন্নভাবে চোইয়ের সাথে সাক্ষাত করেছেন এবং তার দেশ যে সফর মেনে নেবে না, তা উল্লেখ করে একটি প্রতিবাদ দাখিল করেছেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সূত্রসমূহ বলেছে, দেশটি যে জাপানের দাবী মেনে নিতে পারে না সেই ব্যাখ্যা চোই দিয়েছেন।

শীতল দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যাশা করা তিন দেশের মধ্যেকার ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার উপর ছায়া ফেলছে।