এপেক নেতাদের কোভিড ও টিপিপি নিয়ে আলোচনা

এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা ফোরামের একটি অনলাইন বৈঠকে যোগ দিয়েছেন ২১টি দেশ ও অঞ্চলের নেতৃবৃন্দ। এতে তারা বৈশ্বিক করোনাভাইরাস মহামারী থেকে বিশ্ব অর্থনীতির পুনরুদ্ধারে সহায়তা করার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন।

এবারের স্বাগতিক দেশ ছিল নিউজিল্যান্ড। প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরদার্ন বলেন, “নেতারা টিকার সহজলভ্যতা উন্নত করার উপর অগ্রাধিকার দিতে সম্মত হয়েছেন।” তিনি টিকাসমূহকে, বৈশ্বিক মহামারীর ব্যবস্থাপনা এবং এর প্রভাব থেকে অঞ্চলটির পুনরুদ্ধারের উপায়ের একটি কেন্দ্রীয় অংশ বলে অভিহিত করেন।

এছাড়া, ডিজিটাল অবকাঠামোর উন্নয়ন এবং প্রযুক্তিতে সবার প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার জন্য পদক্ষেপ নিতেও নেতৃবৃন্দ সম্মত হন। তারা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে তারা তাদের পদক্ষেপগুলোও সমন্বয় করে নেবেন।

তাদের আলোচ্যসূচিতে মুক্ত বাণিজ্যও অন্তর্ভুক্ত ছিল। উল্লেখ্য, এপেকভুক্ত ১১টি রাষ্ট্র আন্তঃপ্রশান্ত মহাসাগরীয় বাণিজ্য চুক্তি বা টিপিপি’র সদস্য। চীন ও তাইওয়ান সম্প্রতি এতে যোগ দেয়ার জন্য আবেদন করেছে।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী কিশিদা ফুমিও চীনের ব্যাপারে সতর্ক মনোভাব ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, টিপিপি অন্যায্য বাণিজ্য বা অর্থনৈতিক বলপ্রয়োগের অনুমোদন দেয় না।