কূটনীতিবিদদের আশংকা আফগানিস্তানে অর্থনীতি ভেঙে পড়তে পারে

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রী বৃহস্পতিবার এই বলে সতর্ক করে দিয়েছেন যে আফগানিস্তান “অর্থনৈতিক দিক দিয়ে ভেঙে পড়ার মুখে” রয়েছে। শাহ মাহমুদ কুরেশি ট্রোইকা প্লাস নামে পরিচিত একটি গ্রুপের প্রতিনিধিদের নিয়ে একটি বৈঠকের আয়োজন করেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, চীন এবং রাশিয়া এই গ্রুপের অন্তর্ভুক্ত।

গ্রুপের প্রতিনিধিরা ইসলামাবাদে বৈঠকে মিলিত হন। তিন মাস আগে তালিবান আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ পুনরায় দখল করার পর এটি ছিল তাদের প্রথম বৈঠক। কুরেশি বলেন শান্তি ও স্থিতিশীলতার ব্যাপারে এই গ্রুপের অভিন্ন স্বার্থ রয়েছে এবং এ বিষয়ে প্রত্যেক পক্ষেরই রয়েছে নিজ নিজ দায়িত্ব।

কুরেশি বলেন কোনো পক্ষই চায় না যে গৃহযুদ্ধ পুনরায় আরম্ভ হোক। তিনি বলেন, প্রত্যেক পক্ষই চায় আফগানিস্তানের ভেতরে সন্ত্রাসবাদীদের কার্যকরভাবে মোকাবিলা করা হোক।

বিদেশি নেতারা বিদেশের অ্যাকাউন্টে গচ্ছিত আফগান সম্পত্তির লেনদেন বন্ধ করে দিয়েছেন এবং ব্যাংকিং ব্যবস্থার ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করেছেন। বৈঠকে প্রতিনিধিরা এই বলে প্রতিশ্রুতি দেন যে তারা এই ব্যবস্থার ওপর চাপ যাতে কমে, সেই চেষ্টা করবেন।

মানবিক সাহায্য সরবরাহের বিষয়ে আলোচনার জন্য কুরেশি আফগানিস্তানের তালিবান অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র মন্ত্রী আমীর খান মুত্তাকির সঙ্গে বৈঠক করেন। তালিবানরা আফগানিস্তানে পুনরায় ক্ষমতা দখল করার পর দেশটিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য দেশ যে কোটি কোটি ডলার সাহায্য দিয়ে আসছিল, তা বন্ধ করে দেয়।

আসন্ন শীতের মুখে আফগানিস্তানের মোট জনসংখ্যার শতকরা ৫০ ভাগের ওপর লোক এখন মারাত্মক খাদ্যাভাবের সম্মুখীন হয়েছেন।