মার্কিন সামরিক বিমানে চড়ে দেশটির আইনপ্রণেতারা তাইওয়ানে এসে পৌঁছেছেন

তাইওয়ানের সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে যে মার্কিন কংগ্রেসের সদস্যরা মঙ্গলবার মার্কিন সামরিক বাহিনীর এক বিমানে করে তাইওয়ানের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন। এই খবরের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে চীন।

তাইওয়ানের সম্প্রচার কেন্দ্র টিভিবিএস জানিয়েছে যে মার্কিন কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদ এবং সিনেট, উভয় কক্ষের সদস্যরাই তাইপেই সফরে এসেছেন।

ঐ সম্প্রচার কেন্দ্র মার্কিন আইনপ্রণেতাদের বহন করে নিয়ে আসা বিমানের ভিডিও চিত্র প্রচার করেছে। তবে তাদের নাম এবং সফরের লক্ষ্য সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত কিছুই জানানো হয়নি।

তাইওয়ানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে যে প্রতিনিধি দলের সময়সূচির ব্যবস্থা করছে তাইওয়ানের আমেরিকান ইনস্টিটিউট। অতিরিক্ত বিস্তারিত তথ্য প্রদানে অস্বীকৃতি জানিয়ে মন্ত্রণালয় আরও জানায় যে সফরের লক্ষ্যের বিষয়ে ব্যাখ্যা শীঘ্রই প্রদান করা হবে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং তাইওয়ানের মধ্যে আনুষ্ঠানিক কোনো কূটনৈতিক সম্পর্ক না থাকায় মার্কিন সামরিক বিমানের তাইওয়ানে অবতরণ করার বিষয়টি স্বাভাবিক নয়।

জুন মাসে মার্কিন সামরিক বাহিনীর বিমানে করে দেশটির সিনেটরদের তাইওয়ান সফরের পর পুনরায় এই ধরনের সফরের আয়োজন করা হল। তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট ৎসাই ইং-ওয়েন বিমানবন্দরে তাদের সাথে সাক্ষাৎ করেন।

চীনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র, সর্বশেষ এই সফরের নিন্দা জানিয়ে মঙ্গলবার একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছেন।

এতে বলা হয় “তাইওয়ান হল চীনের ভূখণ্ডের পবিত্র এবং অবিচ্ছেদ্য এক অংশ। যুক্তরাষ্ট্র এই পদক্ষেপের মধ্যে দিয়ে চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়াদিতে ব্যাপকভাবে হস্তক্ষেপ করার পাশাপাশি চীনের ভূখণ্ডগত সার্বভৌমত্বকে গুরুতরভাবে বিপন্ন করেছে এবং তাইওয়ান প্রণালী জুড়ে শান্তি ও স্থিতিশীলতাকে ব্যাপকভাবে হুমকির মুখে ফেলেছে”।

বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে দিয়ে বলা হয় যে “প্ররোচনামূলক কর্মকাণ্ড অবিলম্বে বন্ধ, তাইওয়ান প্রণালীতে উত্তেজনা বৃদ্ধি পেতে পারে এমন সমস্ত নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড অবিলম্বে স্থগিত এবং তাইওয়ানের স্বাধীনতার দাবি জানিয়ে থাকা বিচ্ছিন্নতাবাদী বাহিনীর উদ্দেশ্যে ভুল সংকেত পাঠানো বন্ধ করতে হবে।”