“নতুন পুঁজিবাদে” উত্তরণের পথনির্দেশিকা প্রণয়ন জাপানের সরকারি প্যানেলের

জাপান সরকারের একটি প্যানেল গতকাল সোমবার অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার জন্য প্রধানমন্ত্রী কিশিদা ফুমিও’র সমর্থন করা একটি নতুন ধরনের পুঁজিবাদ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কিছু প্রস্তাবের একটি অগ্রাধিকার তালিকা প্রণয়ন করেছে।

এই তালিকায় প্রবৃদ্ধি এবং বিতরণের একটি ন্যায়পরায়ণ চক্র সৃষ্টির লক্ষ্যে কিশিদা মন্ত্রিসভার মোকাবেলা করার মত কিছু কাজের উপর আলোকপাত করা হয়েছে।

এতে ধনী এবং দরিদ্রের মধ্যে ব্যবধান কমানোর প্রচেষ্টা চালানোর পাশাপাশি টেকসই পুঁজিবাদকে উৎসাহিত করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

প্যানেল সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য সবকিছু বাজারের হাতে ছেড়ে দেয়ার বিরুদ্ধে যুক্তি তুলে ধরে। এটি বরং সরকার ও বেসরকারি খাতের মধ্যে সহযোগিতার মাধ্যমে একটি নতুন যুগের উপযোগী অর্থনীতি নির্মাণের আহ্বান জানিয়েছে।

এছাড়া, আরও অধিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নির্ভর জাতিতে পরিবর্তিত হওয়াকে উৎসাহ দেয়ার জন্য তরুণ ও মেধাবী গবেষকদের অব্যাহতভাবে আর্থিক এবং অন্যান্য ধরনের সহায়তা প্রদানের আহ্বানও সরকারের কাছে জানানো হয়।

প্যানেলটির ভাষ্যানুযায়ী, ২০৫০ সালের মধ্যে কার্বন নিরপেক্ষতা অর্জনে সহায়তা করার জন্য সরকারের উচিত হবে যতটা সম্ভব নবায়নযোগ্য জ্বালানির উৎস বেছে নেয়া।

তালিকাটিতে, নতুন উদ্যোক্তা কোম্পানিতে তহবিল যোগান দেয়া বৃহৎ বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য কর-ছাড়ের একটি সম্ভাব্য সম্প্রসারণের পাশাপাশি প্রত্যন্ত এলাকায় রোবটের মাধ্যমে সরবরাহের নেটওয়ার্কের মতো আঞ্চলিক ডিজিটালকরণ উদ্যোগগুলোর জন্য বড় আকারের ভর্তুকি প্রদানের বিষয়ে বিস্তারিতভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

সম্পদের একটি বিস্তৃত-ভিত্তিক বিতরণকে উৎসাহিত করার জন্য প্যানেলটি, শুধুমাত্র নতুন নিয়োগ দেয়াদের নয় বরং যারা ইতিমধ্যে বেতন-ভাতা পাচ্ছেন তাদের বেতন বাড়াতে ইচ্ছুক কোম্পানিগুলোর জন্য, আরও বেশি কর-ছাড় দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে।