মিয়ানমারে নতুন ত্রাণ সহযোগিতা পাঠানো স্থগিত রাখার পরিকল্পনায় জাপান

মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর প্রতি বেসামরিক লোকজনের উপর সহিংসতা বন্ধ করে গণতন্ত্র পুন:প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়ে জাপান সরকার আপাতত দেশটিতে নতুন সহায়তা স্থগিত রাখার পরিকল্পনা করছে।

মিয়ানমারের সামরিক জান্তার সাথে সংলাপে জড়িত থাকার পাশাপাশি তাদের উপর চাপ প্রয়োগের লক্ষ্য নিয়ে এই পদক্ষেপ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিল জাপান। পশ্চিমা দেশগুলো আরোপিত নিষেধাজ্ঞার থেকেও অর্থনৈতিক সহযোগিতা স্থগিত রাখাটা আরো বেশি কার্যকর হবে বলে জাপান সরকারের ধারণা।

মঙ্গলবার জাপানের প্রধান ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি একটি খসড়া প্রস্তাব তৈরি করে যেখানে মিয়ানমারকে নতুন সরকারি উন্নয়ন সহযোগিতা প্রদানের বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বনের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

মিয়ানমারের পরিবর্তনশীল পরিস্থিতি বিবেচনায় রেখে দেশটিকে অর্থনৈতিক এবং প্রতিরক্ষা সহযোগিতা করা উচিত বলে ঐ খসড়ায় যুক্তি দেখানো হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রী মোতেগি তোশিমিৎসু বলেন যে জাপান হল মিয়ানমারে সবচেয়ে বৃহত্তম অর্থনৈতিক সহযোগিতা প্রদানকারী দেশ এবং নতুন কোন প্রকল্পের সাথে জাপান সরকার জড়িত হবে না বলে সরকারের অবস্থান এবিষয়ে খুব পরিষ্কার।

২০২০ সালের মার্চ মাসে শেষ হওয়া ২০১৯ অর্থবছরে মিয়ানমারে পাঠানো জাপানের সরকারি উন্নয়ন সহযোগিতার মোট পরিমাণ ছিল প্রায় বিশ হাজার কোটি ইয়েন বা প্রায় ১৮০ কোটি ডলার।

মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী প্রতিবাদকারীদের উপর শক্তি প্রয়োগ অব্যাহত রাখার কারণে সামরিক বাহিনীর সাথে সংযোগ রয়েছে এমন প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডা এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন সম্পদ অবরোধ সহ অন্যান্য নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।