নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের আগে সম্ভাব্য প্রতিক্রিয়ার ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছে উত্তর কোরিয়া

উত্তর কোরিয়া জানিয়েছে যে, দেশটির আত্মরক্ষার অধিকার লঙ্ঘনের যেকোন প্রচেষ্টা অপরিহার্যভাবে একটি পাল্টা জবাবকে উস্কে দেবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সংস্থা সংক্রান্ত বিভাগের মহাপরিচালক জো চোল সু রাষ্ট্র-পরিচালিত কোরীয় কেন্দ্রীয় সংবাদ সংস্থার মাধ্যমে এক বিবৃতি প্রকাশ করেন।

গত সপ্তাহের বৃহস্পতিবার উত্তর কোরিয়া দু’টি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের পরে, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ মঙ্গলবার একটি রুদ্ধদ্বার বৈঠক করার পরিকল্পনা করছে বলে জানা গেছে।

জো বলেন, অন্যান্য অনেক দেশ তাদের সামরিক শক্তি বাড়ানোর উদ্দেশ্যে নানা ধরনের বস্তু নিক্ষেপ করে থাকে। তিনি এও বলেন, “এটার কোন মানেই হয় না” যে কেবল উত্তর কোরিয়ার “নীতিগতভাবে সমর্থনযোগ্য আত্মরক্ষামূলক পদক্ষেপকেই নিন্দার জন্য এককভাবে বেছে নেয়া হবে”।

জো এও বলেন, কোরীয় উপদ্বীপে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ যদি তাদের দ্বিমুখী নীতি বজায় রাখা অব্যাহত রাখে, তাহলে তা কেবল পরিস্থিতির “অবনতির কারণ হবে কোন উন্নতির নয়” এবং “সংলাপ নয়, সংঘর্ষে লিপ্ত হওয়াকে উস্কে দেবে”।

উত্তর কোরিয়ার সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক থাকা চীন এবং রাশিয়া বলছে, একটি দীর্ঘ মেয়াদি দৃষ্টিকোণ থেকে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা নিরাপত্তা পরিষদের শিথিল করা উচিত। এই বিষয়ে তাদের অবস্থান যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থানের একেবারে বিপরীত।