মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্র

জাতিসংঘের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এবং মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন শনিবার শতাধিক বেসামরিক লোকের মৃত্যুর পরে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর নিন্দা জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীগুলো সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভরত বেসামরিক নাগরিকদের উপর দিনের পর দিন গুলি চালিয়ে যাচ্ছে। একটি মানবাধিকার গ্রুপ বলছে, শনিবার ১শ ১৪ ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছেন।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট এবং সংস্থাটির গণহত্যা প্রতিরোধ বিষয়ক বিশেষ পরামর্শক এলিস ওয়াইরিমু ন্দেরিতু রবিবার এক যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করেন।

তারা বলেন, “সামরিক বাহিনী এবং পুলিশের লজ্জাজনক, কাপুরুষোচিত এবং নিষ্ঠুর কর্মকাণ্ডসমূহ” অবশ্যই অবিলম্বে বন্ধ হওয়া উচিত। তারা আরও বলেন, “মিয়ানমারের লোকজনকে নৃশংস অপরাধ থেকে রক্ষা করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দায়িত্ব রয়েছে।”

মিয়ানমারের মানবাধিকার পরিস্থিতি বিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ র‍্যাপর্টিয়ের টম এন্ড্রুজ এক টুইট বার্তায় বলেন, “জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ মিয়ানমারের সামরিক জান্তার বর্বরতার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে পারে।”

এন্ড্রুজ পরামর্শ দেন যে পরিষদ সদস্যদের উচিত হবে জরুরি ভিত্তিতে মিয়ানমার নিয়ে একটি প্রস্তাব প্রণয়ন করা, যেটিতে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা এবং অস্ত্রের সরবরাহ বন্ধের বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

প্রেসিডেন্ট বাইডেন বলেন, এই হত্যাকাণ্ডগুলো ভয়ানক, একেবারে গর্হিত এবং সম্পূর্ণ অপ্রয়োজনীয়। তিনি এই ইঙ্গিত দেন যে মার্কিন সরকার অতিরিক্ত নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে বিবেচনা করছে।