মূল স্ট্রেইনের স্থলাভিষিক্ত হচ্ছে নতুন ধরনের ভাইরাস

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে নতুন ধরনের করোনাভাইরাস যুক্তরাজ্য, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ব্রাজিলে দ্রুত মূল স্ট্রেইনের স্থলাভিষিক্ত হচ্ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মঙ্গলবার প্রচারিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত অক্টোবর মাস থেকে নতুন ধরনের সংক্রমণ যুক্তরাজ্য ও দক্ষিণ আফ্রিকায় দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে সেইসব দেশে এখন তা অধিকাংশ সংক্রমণ হয়ে উঠেছে। এতে আরও বলা হয়েছে যে ব্রাজিলে নতুন ধরনের সংক্রমণের আনুপাতিক হার হচ্ছে মোট হিসাবের প্রায় অর্ধেক।

প্রতিবেদন বলছে বন্য ধরনের সংক্রমণের তুলনায় কার্যকর পুনর্জনন সংখ্যা হিসাব করা হয়েছে যুক্তরাজ্যে প্রথম শনাক্ত হওয়া ভাইরাসের বেলায় ৪১ শতাংশ, দক্ষিণ আফ্রিকার ধরনের বেলায় ৩৬ শতাংশ এবং ব্রাজিলের বেলায় ১১ শতাংশ। ভাইরাসের একক একজন বাহক গড়ে কতজনকে সংক্রমিত করবে, কার্যকর পুনর্জনন সংখ্যা সেই আভাস দেয়।

প্রতিবেদন বলছে গত এক সপ্তাহে অতিরিক্ত সাতটি দেশে যুক্তরাজ্যের ধরনের সংক্রমণ খুঁজে পাওয়া গেছে এবং মোট ১২৫টি দেশ এধরনের সংক্রমণের খবর দিয়েছে।

এতে বলা হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার ধরনের সংক্রমণের খবর দেয়া দেশের সংখ্যা গত এক সপ্তাহে ১১টি বৃদ্ধি পেয়ে ৭৫টিতে দাঁড়িয়েছে। ব্রাজিলের ধরনের বেলায় সংখ্যা ৩টি বৃদ্ধি পেয়ে ৪১টিতে দাঁড়ায়।

এসব সংক্রমণকে “উদ্বেগজনক সংক্রমণ” হিসেবে চিহ্নিত করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নজর রাখার ব্যবস্থা জোরদার করে নিচ্ছে।

সর্বশেষ এই প্রতিবেদনে আরও দুই ধরনের সংক্রমণকে “দৃষ্টি আকৃষ্ট করা” সংক্রমণ হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়।

আংশিকভাবে ব্রাজিল, ভারত ও ফ্রান্সে সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে রবিবার পর্যন্ত এক সপ্তাহে বিশ্ব জুড়ে নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণের সংখ্যা টানা চার সপ্তাহ ধরে বৃদ্ধি পায়। একই সপ্তাহে নতুন মৃত্যুর সংখ্যাও ছয় সপ্তাহ ধরে হ্রাস পাওয়ার পর বৃদ্ধি পেয়েছে।