ইউক্রেনের বিদ্যুৎ সরবরাহ গ্রিডে রাশিয়ার হামলা

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় শনিবার জানিয়েছে যে তাদের বাহিনী ইউক্রেনের বিদ্যুৎ স্থাপনায় ক্ষেপণাস্ত্র এবং ড্রোন দিয়ে হামলা চালিয়েছে, যেগুলো তাদের ভাষ্যমতে, ইউক্রেনের সামরিক শিল্পের পরিচালনায় সহায়তা করে।

ইউক্রেনের রাষ্ট্র-পরিচালিত জ্বালানি পরিষেবা প্রতিষ্ঠান ইউক্রেনারগো নিশ্চিত করেছে যে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় জাপোরিঝিয়া এবং পশ্চিমাঞ্চলে অবস্থিত লভিভের স্থাপনাগুলো এই হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

চলতি মাসের শুরুতে ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রী ডেনিস শ্যামিহাল এই তথ্য প্রকাশ করেছিলেন যে দেশটির তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর এক তৃতীয়াংশেরও কম বর্তমানে ঠিকভাবে কার্যকর অবস্থায় রয়েছে।

ইউক্রেনের জনগণের দৈনন্দিন জীবন বিদ্যুৎ ঘাটতির কারণে আরও প্রভাবিত হতে পারে।

এদিকে, শুক্রবার মার্কিন সংবাদপত্র ওয়াশিংটন পোস্ট ইউক্রেনের কর্মকর্তাদের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছে যে খারকিভকে রক্ষা করতে মার্কিন অস্ত্র দিয়ে রুশ ভূখণ্ডের দিকে গোলাবর্ষণে সক্ষম হওয়া রুশ হামলা হ্রাসে সাহায্য করেছে।

তবে ইউক্রেনীয় কর্মকর্তারা এও বলেছেন যে যুক্তরাষ্ট্র "রুশ সীমান্ত থেকে শুধুমাত্র ১০০ কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে গোলাবর্ষণের ব্যাপারে ইউক্রেনের উপর সীমাবদ্ধতা আরোপ করেছে"। এই সীমাবদ্ধতা "ইউক্রেনকে রাশিয়ার মূল বিমানঘাঁটিগুলোতে হামলা করার ক্ষেত্রে বাধা দিচ্ছে", যা রুশ বিমানগুলো ইউক্রেনে আক্রমণ করার জন্য ব্যবহার করে।

গ্লাইড বোমা এবং অন্যান্য অস্ত্র দিয়ে পরিচালিত রুশ হামলায় খারকিভের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। মেয়রের ভাষ্যানুযায়ী, শহরটি এখনও "অব্যাহত হুমকি"র মাঝে রয়েছে।