পরমাণু অস্ত্রের মহড়া নিয়ে আলোচনা করেছেন পুতিন ও লুকাশেঙ্কো

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন তার এক গুরুত্বপূর্ণ মিত্রের সাথে আরও গভীর সহযোগিতার অঙ্গীকার করেছেন। বৃহস্পতি ও শুক্রবার তিনি বেলারুশের মিনস্কে প্রেসিডেন্ট আলেকসান্দর লুকাশেঙ্কোর সাথে অর্থনৈতিক সম্পর্ক এবং পরমাণু অস্ত্রের যৌথ মহড়া নিয়ে আলোচনা করে সময় কাটান।

চলতি সপ্তাহের শুরুতে রুশ বাহিনী, তারা যেটাকে কৌশলগত পরমাণু অস্ত্র ভাণ্ডার নিয়ে চলানো "বাস্তব প্রশিক্ষণ" আখ্যায়িত করে থাকে, তা শুরু করেছে। পুতিন বলেন যে মহড়ায় তিনটি পর্যায় জড়িত থাকবে এবং নিজ ভূখণ্ডে রাশিয়ার পরমাণু অস্ত্র মোতায়েন রাখা দেশ বেলারুশ দ্বিতীয় পর্যায়ে যোগ দেবে।

পুতিন মহড়াকে "পরিকল্পিত ও নিয়মিত" হিসাবে বর্ণনা করে বলেন যে, রাশিয়া ও বেলারুশ "কিছুই বৃদ্ধি করছে না।" তিনি আরও বলেন দুই দেশের এ কারণে সমন্বয় করে নেয়া প্রয়োজন যে, কোনরকম "ব্যর্থতা" বা "ভুল" হওয়ার অনুমতি তারা দিতে পারে না এবং উল্লেখ করেন যে ন্যাটো সদস্যরা একই ধরণের অনুশীলন পরিচালনা করে থাকে।

লুকাশেঙ্কো বলেছেন যে বেলারুশ এবং রাশিয়ার "কাউকে আক্রমণ করার ইচ্ছা নেই," তবে তাদের অবশ্যই নিজেদের "রক্ষা করার" জন্য অস্ত্র ব্যবহারে সক্ষম হতে হবে।

তিনি আরও বলেন, দেশ দুটি তাদেরকে নিষেধাজ্ঞা আরোপের লক্ষ্য ধরে নেয়া পশ্চিমের দেশগুলো থেকে একে অন্যকে রক্ষা করবে। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে তাদের অবশ্যই একটি সমন্বিত শিল্প নীতি "দ্রুত শেষ করা" দরকার।

নেতারা ইউক্রেনের যুদ্ধ নিয়েও আলোচনা করেছেন। পুতিন বলেছেন শান্তি আলোচনা পুনরায় শুরু করা প্রয়োজন, তবে রাষ্ট্রপ্রধান হিসাবে প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির "বৈধতা" নিয়ে প্রশ্ন তিনি তোলেন।

জেলেনস্কি যুদ্ধের কারণে এ বছরের শুরুতে নির্বাচন স্থগিত করে দেন। পুতিন বলেছেন যে নেতার পাঁচ বছরের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে এবং আলোচনা চালানোর জন্য তার যে "বৈধ কর্তৃত্ব" রয়েছে, তা তাকে অবশ্যই "নিশ্চিত" করিয়ে নিতে হবে।