রাফাহ অভিযান বন্ধের জন্য ইসরায়েলের প্রতি আইসিজে'র নির্দেশ

আন্তর্জাতিক বিচার আদালত বা আইসিজে, এই প্রথমবারের মতো হামাসের সাথে বিরোধে সামরিক অভিযান স্থগিত করতে ইসরায়েলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। আদালত গতকাল শুক্রবার রাফায় হামলা "তাৎক্ষণিকভাবে বন্ধ" করতে অস্থায়ী ব্যবস্থা হিসাবে পরিচিত এই নির্দেশ দেয়।

হেগের আদালতের বিচারকরা বলছেন, লড়াইয়ের ফলে যেটাকে তারা "বিপর্যয়কর" মানবিক পরিস্থিতি হিসাবে অভিহিত করেন, সেরকম পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে।

আইসিজে'র সভাপতি বিচারক নওয়াফ সালাম বলেন যে, রাফাহ হামলার ফলে উদ্ভূত পরিস্থিতি ফিলিস্তিনিদের অধিকারের জন্য "অপূরণীয়" ক্ষতির আরও একটি ঝুঁকি তৈরি করবে।

বিচারকরা এর আগে, ইসরায়েলকে বেসামরিক মানুষের গণহত্যা রোধে এবং মানবিক ত্রাণ সহায়তা বিতরণ নিশ্চিত করতে সম্ভাব্য সব ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। তবে সেরকম প্রচেষ্টা যথেষ্ট হয়েছে কিনা সেবিষয়ে তারা নিশ্চিত নন।

রাফাহ হামলার পরিপ্রেক্ষিতে বিপুল সংখ্যক বাসিন্দাদের বারবার সরে যেতে বাধ্য করা হওয়ায় বিচারকরা, "অবাধ" মানবিক সহায়তার জন্য রাফাহ ক্রসিং উন্মুক্ত থাকা নিশ্চিত করা'সহ আরও ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছেন।

আদালতে আবেদনকারী দক্ষিণ আফ্রিকার কর্মকর্তারা এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও সহযোগিতা বিভাগের মহাপরিচালক জেন ডাঙ্গর বলেন যে, "আদেশটি যুগান্তকারী, কারণ এতে গাজার কোনো এলাকায় ইসরায়েলের সামরিক পদক্ষেপ বন্ধ করতে প্রথমবারের মতো স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।"

ইসরায়েলি নেতারা, দেশটির কার্যক্রমকে সমর্থন করে দক্ষিণ আফ্রিকার গণহত্যার অভিযোগকে "মিথ্যা" এবং "জঘন্য" বলে অভিহিত করেন।

আইসিজে'র প্রদত্ত রায় বাধ্যতামূলক হলেও আদেশ কার্যকর করার ক্ষমতা আদালতের নেই। ইসরায়েলি নেতারা, অভিযান চালিয়ে যাওয়ার অঙ্গীকার ব্যক্ত করায়, এ থেকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ে নতুন করে সমালোচনা দেখা দিতে পারে।