সেনা ঘাটতি সামাল দিতে বাধ্যতামূলক সেনা নিয়োগ আইন কঠোর করছে ইউক্রেন

তীব্র সেনা ঘাটতি পূরণ করতে বাধ্যতামূলক সেনা নিয়োগ সংক্রান্ত আইন কঠোর করেছে ইউক্রেন।

উল্লেখ্য, রুশ আক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে, ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়সী ইউক্রেনীয় পুরুষদের দেশত্যাগ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার কার্যকর হওয়া বাধ্যতামূলক সেনা নিয়োগ আইনে বলা হয়েছে যে যোগ্য বয়সের পুরুষদের এখন থেকে আগামী ৬০ দিনের মধ্যে সেনাবাহিনীর কাছে তাদের ঠিকানা এবং অন্যান্য ব্যক্তিগত তথ্য নিবন্ধন করতে হবে।

গতমাসে ইউক্রেনে সেনা নিযুক্তির বয়স ২৭ থেকে ২৫-এ নামিয়ে আনার পরে এই পদক্ষেপটি নেয়া হলো এবং এর উদ্দেশ্য হচ্ছে সেনা নিযুক্তির বাধ্যবাধকতা এড়িয়ে যাওয়া প্রতিরোধ করা।

একটি স্বাধীন গণমাধ্যম গত জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারি মাসে ১৮ থেকে ৫৫ বছর বয়সী ইউক্রেনীয় পুরুষদের উপর এই বিষয়ে একটি সমীক্ষা পরিচালনা করে।

এতে অংশগ্রহণকারীদের ১৮ শতাংশ বলেন, বাধ্যতামূলক সেনা নিযুক্তির কোনো প্রয়োজন নেই। অন্যদিকে, ৮০ শতাংশেরও বেশি জানান যে এর প্রয়োজন রয়েছে, তবে অবশ্যই এটি ন্যায্যভাবে পরিচালনা করতে হবে।

৩০ শতাংশেরও বেশি জানান যে তাদের যোগ দিতে বলা হলে তারা দায়িত্ব পালনে প্রস্তুত রয়েছেন। তবে প্রায় অর্ধেক উত্তরদাতা এর জন্য প্রস্তত নন বলে উল্লেখ করেন। এরকম উত্তেজনার মাঝে, লোকজন এখনও সেনা নিযুক্তি এড়িয়ে যেতে অবৈধভাবে ইউক্রেন ত্যাগের প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন।

কঠোর পরিস্থিতির মধ্যে প্রতিবেশী দেশে পালিয়ে যাওয়ার এরকম অনেক প্রচেষ্টায় সহায়তা করেছেন দালালেরা। আর এরকম করতে গিয়ে, কেউ কেউ নদী ও খাড়া পার্বত্য গিরিপথ অতিক্রম করতে গিয়ে প্রাণও হারিয়েছেন।