সমস্যা সমাধানের জন্য জাপান ও উত্তর কোরিয়ার প্রতি অপহৃতদের পরিবারগুলোর পুনঃআহ্বান

উত্তর কোরিয়ায় অপহৃত জাপানি নাগরিকদের পরিবারগুলো, অপহরণ সমস্যাটির দ্রুত সমাধানের পুনঃআহ্বান জানিয়েছে যাতে বৃদ্ধ বাবা-মা'রা তাদের সন্তানদের সাথে পুনরায় মিলিত হতে পারেন।

গতকাল শনিবার টোকিওতে ওই পরিবারগুলোর একটি গ্রুপ এবং তাদের সমর্থকরা একটি সমাবেশের আয়োজন করে। প্রধানমন্ত্রী কিশিদা ফুমিও'সহ প্রায় ৮শ ব্যক্তি এতে অংশ নেন।

গ্রুপের নেতা ইয়োকোতা তাকুইয়া বলেন, আরিমোতো কেইকোর বাবা ৯৫ বছর বয়সী আরিমোতো আকিহিরো এবং তার নিজের ৮৮ বছর বয়সী মা সাকিয়েই এখন একমাত্র বেঁচে থাকা বাবা-মা।

তার বড় বোন মেগুমিকে ১৯৭৭ সালে অপহরণ করা হয় যখন তার বয়স ছিল ১৩ বছর।

তিনি অপহরণের বিষয়টিকে একটি মানবাধিকার ও মানবিক বিষয় বলে অভিহিত করেন, যেটি সমাধানের সময়সীমা বেশ সীমিত।

অবিলম্বে অপহৃতদের ফিরিয়ে দেয়ার দাবির উপর জোর না কমিয়ে আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

ইয়োকোতা সাকিয়ে বলেন, মেগুমি কোথায় আছে তা না জেনেই তার ফিরে আসার জন্য অপেক্ষা করছে পরিবার। তিনি উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনকে তার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে অপহৃতদের তাদের বাবা-মা'র কাছে ফিরিয়ে দেয়ার আহ্বান জানান।

২২ বছর আগে জাপানে ফিরে আসা একদা অপহৃত সোগা হিতোমিও সমাবেশে বক্তব্য রাখেন। ১৯৭৮ সালে তার মা মিইয়োশিকেও তার সাথেই অপহরণ করা হয়েছিল এবং তার অবস্থান এখনও অজানা রয়ে গেছে।

সোগার ভাষ্যানুযায়ী, আজ রবিবার জাপানে মা দিবস কিন্তু তিনি ৪৬ বছর ধরেই এই অনুষ্ঠানটি উদযাপন করতে সক্ষম হচ্ছেন না। তিনি এও বলেন যে, কেন তাকে এবং তার মা'কে এমন দুর্ভাগ্য সহ্য করতে হবে তা তিনি বুঝতে পারছেন না।

তিনি আরও বলেন, সময় ফুরিয়ে আসছে এবং তিনি আশা করেন যে যত দ্রুত সম্ভব সমস্ত ভুক্তভোগীরা বাড়ি ফিরে আসবেন।

অংশগ্রহণকারীরা একটি প্রস্তাব গ্রহণ করেছে যাতে সরকারকে অবিলম্বে সকল অপহৃতদের দেশে ফিরিয়ে আনতে বলার পাশাপাশি উত্তর কোরিয়ার প্রতিও ভুক্তভোগীদের ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণের আহ্বান জানানো হয়।