জাপানের জিডিপি প্রথম ত্রৈমাসিক সময়ে হ্রাস পায় বলে বেসরকারী বিশ্লেষকদের ধারণা

বেসরকারী খাতের বিশ্লেষকরা অনুমান করছেন যে জাপানের অর্থনীতি জানুয়ারি থেকে মার্চ মাস সময়ের মধ্যে সঙ্কুচিত হয়েছে।

এর কারণ হিসাবে দুর্বল ভোক্তা ব্যয় এবং রপ্তানির উল্লেখ তারা করেন।

এগারোটি গবেষণা সংস্থার মধ্যে চালানো এক জরিপে দেখা গেছে যে প্রথম ত্রৈমাসিকে জিডিপি সঙ্কুচিত হয়েছে বলে সবকটি সংস্থাই পূর্বাভাস দিয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার সরকার প্রাথমিক উপাত্ত প্রকাশ করবে।

বিশ্লেষকরা মাইনাস ১ শতাংশ থেকে মাইনাস ৩.৩ শতাংশের মধ্যে মুদ্রাস্ফীতি-সামঞ্জস্যপূর্ণ শর্তে বার্ষিক প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছেন।

একটি ছাড়া সবকটি কোম্পানি বলেছে যে ভোক্তা ব্যয় বৃদ্ধির হার সম্ভবত আগের ত্রৈমাসিকের থেকে হ্রাস পেয়েছে।

উল্লেখ্য, জাপানের জিডিপি বা মোট দেশজ উৎপাদনের অর্ধেকেরও বেশি আসে ব্যক্তিগত খরচাপাতি থেকে।

তারা উল্লেখ করেছে যে গাড়ির বিক্রয় দুর্বল ছিল, কারণ কিছু নির্মাতা সরকারী সনদ প্রক্রিয়ায় অনিয়মের কারণে উৎপাদন ও চালান স্থগিত রেখেছিল।

তারা আরও বলছে যে ক্রমবর্ধমান মূল্যবৃদ্ধির মুখে ভোক্তারা খাদ্য সামগ্রীর জন্য কম খরচ করেছে।

সবকটি সংস্থার ধারণা যে দেশে আগত পর্যটকদের কারণে ভোক্তা ব্যয় শক্তিশালী অবস্থানে থাকা স্বত্বেও গাড়ির চালানে পতনের কারণে রপ্তানি হ্রাস পেয়েছে।

একইসাথে বিশ্লেষকদের ধারণা যে পুঁজির ব্যয় হ্রাস পেয়েছে। তারা বলছেন দেশের অর্থনীতি জানুয়ারি থেকে মার্চের মধ্যে যে স্থবির অবস্থায় ছিল, এসব পরিসংখ্যান তারই ইঙ্গিত দেবে।