রাফাহ ক্রসিং দখল করেছে ইসরায়েলি বাহিনী

ইসরায়েলি নেতারা স্থল অভিযান থেকে বিরত থাকার জন্য বিশ্বজুড়ে আহ্বান জানানো সত্ত্বেও দক্ষিণ গাজার রাফাহ শহরে সৈন্য পাঠিয়েছেন। মঙ্গলবার ত্রাণ বিতরণের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি ক্রসিংয়ের নিয়ন্ত্রণ সেনাবাহিনী নিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু বলেছেন, সেই ক্রসিংয়ের দখল নেয়া হামাসের অবশিষ্ট সামরিক সক্ষমতা ধ্বংস করার জন্য একটি "অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ"।

যুদ্ধবিরতির সর্বশেষ প্রস্তাবের বিষয়ে নেতানিয়াহু বলেছেন যে এটি ইসরায়েলের "প্রয়োজনীয় শর্তাবলী" থেকে "বহুদূরে"। সেসব শর্তে "অটল" থাকার জন্য তিনি কায়রোতে একটি প্রতিনিধি দল পাঠিয়েছেন।

হামাস নেতারাও তাদের প্রতিনিধি পাঠিয়েছেন। রাফাহ ক্রসিং-এর "দখলকে" একটি গুরুতর অপরাধ হিসাবে উল্লেখ করে তারা এই বলে সতর্ক করে দেন যে, এধরনের "আগ্রাসন" চলতে থাকলে কোন যুদ্ধবিরতি চুক্তি হবে না।

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, পূর্ণমাত্রার হামলা হবে একটি "কৌশলগত ভুল" এবং "মানবিক দুঃস্বপ্ন"। জাতিসংঘের অন্যান্য কর্মকর্তারা বলছেন যে ক্রসিং দখলের ফলে গাজায় ত্রাণ সহযোগিতা পাঠানো "সম্পূর্ণ স্থগিত হয়ে গেছে" এবং কেরেম শালোমে অপর একটি গুরুত্বপূর্ণ ক্রসিং বন্ধ রয়েছে।