দক্ষিণ গাজার রাফাহ শহরে সামরিক অভিযান শুরু করেছে ইসরায়েল

ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী বলছে যে, গাজা উপত্যকার দক্ষিণে রাফাহ শহরের পূর্বাঞ্চলে একটি সীমিত এলাকায় তারা স্থল আক্রমণ শুরু করেছে।

অন্যদিকে, ইসরায়েল বলছে দেশটি একটি যুদ্ধবিরতি চুক্তির জন্য মিশরে প্রতিনিধিদল পাঠাবে।

হামাস সোমবার একটি বিবৃতি প্রকাশ করে বলছে যে তারা কাতারি এবং মিশরীয় মধ্যস্থতাকারীদের জানিয়েছে যে, দলটি দেশ দুটির যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব গ্রহণ করেছে।

ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় বলছে যে, দেশটি "ইসরায়েলের কাছে গ্রহণযোগ্য শর্তাবলী সাপেক্ষে একটি চুক্তিতে পৌঁছানোর সম্ভাবনাকে সর্বাধিক করার উদ্দেশ্যে মিশরে একটি প্রতিনিধি দল পাঠাবে।"

তবে তারা আরও বলছে যে, যুদ্ধকালীন মন্ত্রিসভা সর্বসম্মতভাবে হামাসের উপর সামরিক চাপ বজায় রাখতে এবং দলটির হাতে আটক জিম্মিদের মুক্তি ত্বরান্বিত করার জন্য রাফাহতে অভিযান চালিয়ে যাওয়ার পক্ষে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

কাতারভিত্তিক স্যাটেলাইট নিউজ নেটওয়ার্ক আল জাজিরা বলছে যে হামাস কর্তৃক গৃহীত যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবটি তিনটি পর্যায়ে গঠিত, যার প্রতিটি ৪২ দিন স্থায়ী হবে।

প্রথম পর্যায়ে, ইসরায়েলের হাতে আটক বন্দিদের বিনিময়ে হামাস নারী ও শিশুসহ ৩৩ জন জিম্মিকে মুক্তি দেবে।

দ্বিতীয় পর্যায়ে গাজা থেকে ইসরায়েলের পূর্ণ প্রত্যাহারের আহ্বান এবং একইসাথে হামাসকে তাদের হাতে বন্দি সৈন্যসহ অবশিষ্ট সকল ইসরায়েলি পুরুষদের মুক্তি দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

তৃতীয় পর্যায়ে জাতিসংঘ এবং মধ্যস্থতাকারী দেশগুলোর অংশগ্রহণে গাজার পুনর্গঠন পরিকল্পনা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

মঙ্গলবার ইসরায়েলের উপর হামাসের প্রাণঘাতী অভিযান এবং গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলি আক্রমণ শুরুর সাত মাস পূর্ণ হয়েছে।