ফ্রান্স ও দক্ষিণ আমেরিকা সফর থেকে অর্জনের কথা বললেন কিশিদা

জাপানের প্রধানমন্ত্রী কিশিদা ফুমিও ফ্রান্স, ব্রাজিল ও প্যারাগুয়েতে তার ছয় দিনের সফর শেষ করতে চলেছেন। এই সফর থেকে কি তিনি অর্জন করতে পেরেছেন তা তিনি তুলে ধরেন।

সাও পাওলোতে একটি সংবাদ সম্মেলন করেছেন প্রধানমন্ত্রী কিশিদা।

কিশিদা বলেন যে, "আইনের শাসনের উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠা অবাধ ও উন্মুক্ত একটি আন্তর্জাতিক ব্যবস্থা বজায় রাখার জন্য এবং সহযোগিতার বৃত্ত সম্প্রসারিত করে নিতে আমাদের অঙ্গীকার দৃঢ়ভাবে প্রদর্শন করা প্রয়োজন। প্রতিটি দেশকে যেসব সমস্যা ও পরিস্থিতির মুখোমুখী হতে হচ্ছে তা আমি বিবেচনায় রেখেছি ও জাপানের বেলায় যা অনন্য সেরকম বিস্তারিত পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি, এবং সফরকালে সেই বিষয়গুলো আমি মনে রেখেছি।"

প্রধানমন্ত্রী শুরুতে তার প্যারিস সফরের কথা বলেন। সেখানে তিনি অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংগঠন ওইসিডি'র মন্ত্রী পরিষদের বৈঠকে ভাষণ দেন।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহারের নীতিমালা ও সুপারিশ সমর্থন করে একটি বিবৃতি প্রচার করতেও তারা সম্মত হয়েছেন।

কিশিদা ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেছেন।

ফ্রান্সের সাথে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বিষয়ে কিশিদা বলেছেন যে তিনি এবং ম্যাক্রোঁ দুই দেশের মধ্যে নিরাপত্তা সম্পর্ক জোরদার করার ভিত্তি স্থাপন করে নিতে সক্ষম হয়েছেন।

জাপান এবং "গ্লোবাল সাউথ" এর মধ্যে সম্পর্ক জোরদার করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তার প্রথম দক্ষিণ আমেরিকা সফরের কথা কিশিদা বলেছেন। ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট লুইজ ইনাসিও লুলা দা সিলভার সাথে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব প্রশমণের জন্য সবুজ একটি অংশীদারিত্ব উদ্যোগ গড়ে নিতে দুই নেতা সম্মত হন।

প্যারাগুয়েতে তিনি প্রেসিডেন্ট সান্তিয়াগো পেনার সাথে বৈঠকে মিলিত হন। দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা ও আদান-প্রদানের সুযোগ আরও সম্প্রসারিত করে নিতে দুই নেতা বৈঠকে সম্মত হয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী কিশিদা বৈচিত্র্যময় একটি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে সমগ্র মধ্য ও দক্ষিণ আমেরিকা অঞ্চলের বন্ধন জোরদার করে নেয়ার অঙ্গীকার করেন।