বলপ্রয়োগের মাধ্যমে একতরফা স্থিতাবস্থার পরিবর্তন সহ্য করা হবে না: জাপান ও প্যারাগুয়ে

জাপানের প্রধানমন্ত্রী কিশিদা ফুমিও এবং প্যারাগুয়ের প্রেসিডেন্ট সান্তিয়াগো পেনা নিশ্চিত করেছেন যে, বলপ্রয়োগের মাধ্যমে একতরফা স্থিতাবস্থার পরিবর্তনের প্রচেষ্টা সহ্য করা হবে না।

শুক্রবার প্যারাগুয়ের রাজধানী আসুনসিওনে, কিশিদা ও পেনার মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ২০২১ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর জাপানের প্রধানমন্ত্রী এবারই প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আমেরিকা সফর করছেন।

চীনের ক্রমবর্ধমানভাবে নিজেকে জাহির করার মাঝে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। উল্লেখ্য, প্যারাগুয়েই হচ্ছে একমাত্র দক্ষিণ আমেরিকার দেশ যার সাথে তাইওয়ানের কূটনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে।

বৈঠকে, নিরস্ত্রীকরণ এবং জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সংস্কার নিয়ে একসঙ্গে কাজ করতেও সম্মত হন নেতৃদ্বয়।

তারা এটিও নিশ্চিত করেন যে, তাদের দেশগুলো একটি মহাকাশ উন্নয়ন সহযোগিতা কর্মসূচি চালু করবে যা শিল্প, সরকার এবং শিক্ষাঙ্গনকে একত্রিত করবে।

এছাড়া, তারা এই বিষয়েও একমত হন যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার জন্য একটি চুক্তি দ্রুত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা দরকার।

এর পাশাপাশি, কিশিদা এবং পেনা এই মর্মেও সম্মত হন যে জাপান এবং দক্ষিণ আমেরিকার অর্থনৈতিক জোট 'মেরকোসুর' নিজেদের অর্থনৈতিক সম্পর্ক কীভাবে শক্তিশালী করা যায়, তা পরীক্ষা করে দেখবে। উল্লেখ্য, মেরকোসুরের সদস্যদের মধ্যে প্যারাগুয়ে এবং ব্রাজিল অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

কিশিদা একটি যৌথ সংবাদ সম্মেলনে বলেন যে, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় জটিল সংকটের মুখোমুখি হওয়াকালীন, জাপান স্বাধীনতা এবং গণতন্ত্রের মতো মূল্যবোধ ভাগাভাগি করে নেয়ার মাধ্যমে প্যারাগুয়ের সাথে সহযোগিতা জোরদারের প্রত্যাশা করছে।