অকেজো ফুকুশিমা দাইইচি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে আংশিক বিদ্যুৎ বিভ্রাট

বুধবার সকালে অকেজো ফুকুশিমা দাইইচি পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে একটি আংশিক বিদ্যুৎ বিভ্রাটজনিত কারণে পরিশোধিত এবং পাতলা করা পানি সাগরে নিষ্কাশন ব্যাহত হয়।

এই কেন্দ্রের পরিচালনা প্রতিষ্ঠান, টোকিও ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানি বা টেপকো বলছে, পারমাণবিক ধ্বংসাবশেষের শীতলীকরণ কার্যক্রম বজায় রাখা হয়েছে।

টেপকো জানিয়েছে, কেন্দ্রটিতে বিদ্যুৎ সরবরাহকারী ব্যবস্থাগুলোর মধ্যে একটি সকাল ১০টা ৪৩ মিনিটের দিকে বন্ধ হয়ে যায়।

পরিষেবা প্রতিষ্ঠানটির মতে, বিদ্যুতের ঘাটতির ফলে পরিশোধিত এবং পাতলা করা পানির সাগরে নিষ্কাশন স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যায়। মূলত, শুক্রবার থেকে পঞ্চম দফার এই পানি নিষ্কাশন শুরু হয়েছে।

টেপকো বলছে, অন্যান্য সূত্র থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহের মাধ্যমে কেন্দ্রের গুরুত্বপূর্ণ এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। এর মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত চুল্লিগুলোতে ব্যবহৃত পারমাণবিক জ্বালানি এবং ধ্বংসাবশেষের শীতলকরণ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি আরও বলছে যে, বিদ্যুৎ কেন্দ্রের চারিপাশে তেজস্ক্রিয়তার মাত্রায় কোন অস্বাভাবিক ফলাফল পাওয়া যায়নি।

এদিকে বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির প্রাঙ্গনে বিদ্যুৎ সরবরাহকারি সংযোগ তারের কাছে মাটি খনন বা ড্রিলিং কাজে নিযুক্ত একজন শ্রমিক মারাত্মক দহনের শিকার হয়ে বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। টেপকো সন্দেহ করছে ড্রিলিং-এর সময়ে এই সংযোগ তারের ক্ষতি হয়ে থাকতে পারে। এই বিষয়ে টেপকো অনুসন্ধান করছে।

২০১১ সালের ভূমিকম্প এবং ৎসুনামিতে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির তিনটি চুল্লীর জ্বালানি গলে গিয়েছিল। এই গলিত জ্বালানি ঠান্ডা করার জন্য ব্যবহৃত পানি ক্ষতিগ্রস্ত ভবনগুলোতে বৃষ্টি এবং ভূগর্ভস্থ পানির সাথে মিশে যাচ্ছে । জমে থাকা পানির বেশিরভাগ তেজস্ক্রিয় পদার্থ সরিয়ে নেয়ার জন্য এই পানি পরিশোধন করা হলেও, এখনও তাতে ট্রিটিয়াম রয়ে গিয়েছে৷ পরিশোধিত এই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ট্যাঙ্কে সংরক্ষণ করা হচ্ছে।

পরিষেবা প্রতিষ্ঠানটি পরিশোধিত পানি সাগরে নিষ্কাশনের আগে, পানীয় জলের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিকা অনুযায়ী নির্ধারিত ট্রিটিয়ামের মাত্রা প্রায় এক-সপ্তমাংশে কমিয়ে আনতে পানিকে পাতলা করছে।