ন্যাটোতে যোগদানের পর বাল্টিক সাগরের দ্বীপে সুইডেনের সামরিক বাহিনীর প্রথম মহড়া

গত মাসে সুইডেন ন্যাটোতে যোগদানের পর তাদের সামরিক বাহিনী বাল্টিক সাগরের একটি গুরুত্বপূর্ণ কৌশলগত পয়েন্টে প্রথম মহড়ায় অংশ নিয়েছে। ইউক্রেনে রাশিয়ার চলমান আগ্রাসনের মধ্যে সুইডেন তাদের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদার করছে।

মহড়াটি গটল্যান্ড দ্বীপে অনুষ্ঠিত হয় এবং এটি সোমবার সংবাদমাধ্যমের জন্য উন্মুক্ত ছিল।

৬০ হাজারেরও বেশি জনসংখ্যার এই দ্বীপটি বাল্টিক সাগরের কেন্দ্রে অবস্থিত এবং এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ কৌশলগত পয়েন্ট। ঊনবিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে এটি রাশিয়ার রাজকীয় বাহিনী দখল করে নেয়।

দ্বীপটি ন্যাটোর জন্যও কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ, যাদের লক্ষ্য হচ্ছে আশপাশের তিনটি বাল্টিক দেশ এস্তোনিয়া, লাটভিয়া এবং লিথুয়ানিয়াকে রক্ষা করা। তিনটি দেশই জোটের সদস্য এবং তারা রাশিয়ার উপর তাদের নজরদারি বাড়িয়ে নিচ্ছে।

এই দ্বীপে রুশ সৈন্যদের অবতরণ সামাল দেয়ার জন্য ডিজাইন করা এই মহড়াটিতে প্রায় ২০০ জন সুইডেনের সৈন্য যোগ দেয়। এতে সরাসরি গুলি করার অনুশীলন এবং ইউক্রেনকে দেওয়া ট্যাংকের মতো একই ধরনের ট্যাংক অন্তর্ভুক্ত থাকা শেল নিক্ষেপ মহড়াও অন্তর্ভুক্ত ছিল।

মহড়ার নির্দেশনার দায়িত্বে থাকা লেফটেন্যান্ট কর্নেল আন্দ্রেয়াস লুন্ডে বলেন, তিনি বিশ্বাস করেন যে গটল্যান্ডের জন্য হুমকি হচ্ছে "বহুমুখী"। তিনি এও বলেন যে এই দ্বীপের বিরুদ্ধে সম্ভাব্য সামরিক অভিযানগুলো এমন আকার এবং রূপ নিতে পারে, যার ব্যাপারে তাদের পক্ষ সচেতন নয়।