ইসরায়েলের রাফাহ স্থল আক্রমণে সারা বিশ্বের সরকারসমূহের উদ্বেগ প্রকাশ

ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর গাজা ভূখণ্ডের দক্ষিণে রাফাহতে স্থল অভিযান পরিচালনার পরিকল্পনায় বিশ্বজুড়ে সরকারসমূহ তাদের উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

হোয়াইট হাউস রবিবার ঘোষণা করে যে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর সাথে এবিষয়ে টেলিফোনে কথা বলেছেন।

এতে বলা হয় যে, মিস্টার বাইডেন তার দৃষ্টিভঙ্গি পুনর্ব্যক্ত করে বলেন যে, রাফাহতে অভিযান পরিচালনায় "আশ্রয় নেয়া ১ মিলিয়নেরও বেশি মানুষের সুরক্ষা এবং সহায়তা নিশ্চিত করার জন্য একটি বিশ্বাসযোগ্য এবং কার্যকরী পরিকল্পনা ছাড়া এগোনো উচিত নয়।"

ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় রবিবার একটি বিবৃতি জারি করে বলে যে, রাফাহতে ইসরায়েলের বড় ধরনের আক্রমণ একটি নতুন এবং অযৌক্তিক বিপর্যয়কর মানবিক পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে।

মিশরের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র, যিনি ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে আলোচনার জন্য মধ্যস্থতাকারী হিসেবে কাজ করছেন, তিনিও রবিবার একটি বিবৃতি জারি করেন।

বিবৃতিতে রাফাহকে লক্ষ্যবস্তু হিসেবে গ্রহণ না করার জন্য সমন্বিত আন্তর্জাতিক এবং আঞ্চলিক প্রচেষ্টার আহ্বান জানানো হয়েছে। উল্লেখ্য এই মুহুর্তে রাফাহতে প্রায় ১.৪ মিলিয়ন বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনি আশ্রয় নিয়েছেন।

নেতানিয়াহু রাফাহতে একটি জোরালো আক্রমণের প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়েছেন, যেখানে হামাসের একটি শক্ত ঘাঁটি রয়েছে বলে জানাচ্ছে।

রবিবার প্রচারিত এবিসি নিউজের সাথে একটি সাক্ষাৎকারে নেতানিয়াহু বলেন যে, ইসরায়েলি বাহিনীর রাফাহ প্রবেশ করা উচিত নয়, এমন যুক্তি দিয়ে মূলত বলা হচ্ছে, "যুদ্ধে হেরে যাও।"

হামাসের একজন ঊর্ধ্বতন সদস্য সতর্ক করে বলেন যে, রাফাহ আক্রমণ তীব্র হলে জিম্মিদের মুক্তি নিয়ে আলোচনা করা হবে না।