ওয়াজিমায় ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্তদের অস্থায়ী আবাসনে স্থানান্তরিত হওয়া শুরু

মধ্য জাপানের ইশিকাওয়া জেলার ওয়াজিমা শহরে নববর্ষের দিন ভূমিকম্প থেকে বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিরা অস্থায়ী আবাসনে যেতে শুরু করেছেন।

জেলাটিতে এই ধরনের প্রথম আবাসন ইউনিটগুলোর নির্মাণ কাজ, শহরের কেন্দ্রস্থলের খোলা জায়গায় সম্পন্ন হয়েছে। আজ শনিবার এগুলোকে ১৮টি পরিবারের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে, যাতে মোট ৫৫ ব্যক্তি রয়েছেন। এক্ষেত্রে, নিজেদের ঘরবাড়ি হারানো বা বিশেষ পরিচর্যার প্রয়োজন থাকা বয়স্ক ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে।

আজ সকালে নতুন বাসিন্দারা ভবনগুলোতে প্রবেশ করতে শুরু করেন।

তাদের মধ্যে রয়েছেন ওশিতা সুমিকো। নগরীর আসাইচি সড়ক এলাকায় সংঘটিত একটি বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তার বাড়িটি ভস্মীভূত হয়। উল্লেখ্য, তিনি সেখানে একা থাকতেন। এরপর থেকেই তিনি তার মেয়ের পরিবারের সাথে একটি আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান করছিলেন।

ওশিতা তার নতুন বাড়িতে, ফ্রিজ ও টেলিভিশনের মতো বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির পাশাপাশি ত্রাণ সামগ্রীগুলোও পর্যবেক্ষণ করেন যার মধ্যে রান্নার সরঞ্জামও রয়েছে৷

আশ্রয়কেন্দ্রে প্রায়শই তার ঘুমাতে অসুবিধা হয়েছিল, এমন উল্লেখ করে তিনি ভাল লাগার অনুভূতি প্রকাশ করেন। তিনি এও বলেন যে এটি খুব চমৎকার যে এখন তিনি নিজের কাপড় নিজেই ধুতে পারবেন। তার ভাষ্যমতে, তিনি বিশ্রাম নিতে চান যদিও পরিবারের সদস্যদের সাথে থাকার অভাব তিনি অনুভব করছেন।

উল্লেখ্য, নোতো উপদ্বীপের ওয়াজিমা শহরটি ভূমিকম্পে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। শহরের কর্মকর্তাদের ভাষ্যমতে, অস্থায়ী আবাসনের জন্য তারা ৪ হাজারেরও বেশি আবেদন পেয়েছেন এবং ৫৪৮টি ইউনিট নির্মাণের কাজ এখন চলছে। ইশিকাওয়া জেলা কর্তৃপক্ষের ভাষ্যানুযায়ী, মার্চ মাসের শেষ নাগাদ প্রায় ৩ হাজারটি আবাসন ইউনিট নির্মাণ শুরুর পরিকল্পনা তাদের রয়েছে।