মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থী শিবিরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাপানের কাছে মানবিক সাহায্য প্রদানের আহ্বান জানিয়েছেন

বৃহস্পতিবার মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের তিন বছর পূর্ণ হচ্ছে। সামরিক জান্তা ক্ষমতা ধরে রেখেছে এবং বেসামরিক নাগরিকদের দমন করছে। অব্যাহত বিভ্রান্তির মধ্যে দেশটির গণতন্ত্রপন্থী শিবিরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশের মানবিক সংকট হ্রাসে সহায়তা প্রদানের আহ্বান জাপানের প্রতি জানিয়েছেন।

বুধবার জান্তা জরুরি অবস্থার মেয়াদ আরও ছয় মাস বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে। অন্যান্য কারণের মধ্যে দেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার দৃষ্টান্ত তারা তুলে ধরে। বেসামরিক প্রশাসনের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য একটি নির্বাচন অনুষ্ঠানের কোনো সম্ভাবনা নেই।

জাতীয় ঐক্য সরকার বা এনইউজি'র প্রতিনিধি জিন মার অং অনলাইনে এক সাক্ষাতকারে এনএইচকে'র সাথে কথা বলেছেন।

তিনি বলেন সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জাতিগত সংখ্যালঘু বিভিন্ন নৃ-গোষ্ঠীর বাহিনীর সাথে যোগ দেয়া, সেরকম সহযোগিতা শুরু হওয়ার মাস অক্টোবর থেকে ফলাফল নিয়ে আসছে।

তিনি বলেন গণতন্ত্রপন্থী শক্তি সামরিক সরকারের সঙ্গে শান্তিপূর্ণ আলোচনা চেয়েছে, কিন্তু কোনো লাভ হয়নি।

অংশগ্রহণকারীদের কারাগারে নিক্ষেপ কিংবা হত্যা করার ফলে অহিংস প্রতিবাদ অকার্যকর প্রমাণিত হয় উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, "আমরা আবারও একই পরিণতি চাই না। আমাদের অবশ্যই শিখতে হবে।"